adimage

১৫ অক্টোবর ২০১৯
সকাল ০৩:২৯, মঙ্গলবার

কাশ্মীরে প্রতিদিন ২০ বিক্ষোভ

আপডেট  02:27 AM, সেপ্টেম্বর ১৬ ২০১৯   Posted in : আন্তর্জাতিক    

কাশ্মীরেপ্রতিদিন২০বিক্ষোভ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ১৬ সেপ্টেম্বর : স্বায়ত্তশাসন ও বিশেষ মর্যাদা বাতিলের পর থেকে জম্মু-কাশ্মীরে প্রতিবাদ বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। কঠোর অবরোধ ও মোড়ে মোড়ে সেনা-পুলিশ সত্ত্বেও গত দেড় মাসে উপত্যকায় প্রতিদিন গড়ে ২০টি বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিন যতই যাচ্ছে বিক্ষোভের মাত্রা ও সংখ্যা ততই বাড়ছে।

বিক্ষোভের বেশিরভাগই হচ্ছে উপত্যকার সবচেয়ে বড় শহর শ্রীনগরের চারপাশে। এরপরই রয়েছে উত্তর-পশ্চিমের বারামুল্লা জেলা ও দক্ষিণের জেলা পুলওয়ামা। রোববার সরকারের এক সিনিয়র কর্মকর্তা এসব তথ্য জানিয়েছেন। খবর এএফপির।

গত মাসের প্রথম সপ্তাহে কাশ্মীরের কয়েক দশকের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নেয় ক্ষমতাসীন কট্টর হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপি সরকার।

কারফিউ, অবরোধের পাশাপাশি ইন্টারনেট, মোবাইল নেটওয়ার্কসহ সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর থেকেই উপত্যকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

লাখ লাখ সেনা-পুলিশের টহল ও নিরাপত্তা কড়াকড়ি সত্ত্বেও ভারতের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নামে কাশ্মীরের অধিবাসীরা। প্রায় ছয় সপ্তাহ পরও সেই প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। সরকারের এক শীর্ষ কর্মকর্তা শনিবার এএফপিকে জানান, ৫ আগস্ট থেকে এখন পর্যন্ত ৭২২টি বিক্ষোভ হয়েছে। প্রধান শহর শ্রীনগরের পরই বারামুল্লা ও পুলওয়ামা শহর বিক্ষোভের প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

কাশ্মীরি জনতার স্বতঃস্ফূর্ত ও শান্তিপূর্ণ এসব বিক্ষোভে ভারতীয় বাহিনীর কঠোর বাধার মুখে পড়েছে। টিয়ারগ্যাস ও পেলেট বা ছররা গুলি ছুড়ে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা হয়েছে। এতে এ পর্যন্ত পাঁচ বেসামরিক নাগরিক নিহত ও ২০০ জন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছে। গত দুই সপ্তাহেই আহত হয়েছে ৯৫ জন।

এ পর্যন্ত আটক করা হয়েছে প্রায় ৪ হাজার ১০০ জনকে। এর মধ্যে খ্যাতনামা রাজনীতিকসহ স্থানীয় ১৭০ জন নেতাকর্মী রয়েছেন। আটককৃতদের মধ্যে ৩ হাজার জনকে মুক্তি দেয়া হয়েছে।

পাক সেনারা ২ হাজার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে -নয়াদিল্লি : কাশ্মীর সীমান্তে ভারত ও পাক বাহিনীর মধ্যে গোলাগুলি অব্যাহত রয়েছে। আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণ রেখায় শনিবার গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে। এতে দুই পাকিস্তানি সেনা নিহত হয়।

নয়াদিল্লি দাবি করেছে, চলতি বছর ২ হাজার বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে পাক বাহিনী। সেই সঙ্গে তারা যুদ্ধবিরতি সংক্রান্ত ২০০৩ সালে স্বাক্ষরিত চুক্তি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul