adimage

২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮
সকাল ১২:১৭, মঙ্গলবার

রোহিঙ্গাদের পাশে থাকবে ইন্দোনেশিয়া : প্রেসিডেন্ট উইদোদো

আপডেট  02:22 AM, জানুয়ারী ২৯ ২০১৮   Posted in : জাতীয়    

রোহিঙ্গাদেরপাশেথাকবেইন্দোনেশিয়া:প্রেসিডেন্টউইদোদো

কক্সবাজার, ২৯ জানুয়ারি : রবিবার বিকালে উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের থাইংখালী জামতলি রোহিঙ্গা শরনার্থীদের পরিদর্শনকালে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো বলেছেন, রোহিঙ্গাদের প্রতি ইন্দোনেশিয়ার সরকার ও জনগণের আন্তরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শেষ না হওয়া পর্যন্ত ইন্দোনেশিয়র পক্ষ থেকে ত্রাণ, চিকিৎসা, মানবিক সহায়তাসহ সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

এসময় ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট ক্যাম্পে আশ্রিত রোহিঙ্গা নারী, পুরুষের মুখে রাখাইনে সহিংসতার বিবরণ শুনে বিচলিত বোধ করেন। তিনি রোহিঙ্গাদের চিকিৎসা সেবার খোঁজখবর নেন। উইদোদো নির্যাতিত-নিপীড়িত ও সর্বস্বান্ত রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সঙ্গে সম্পূর্ণ নিরাপদ প্রত্যাবাসনে সব ধরনের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।

এর আগে জোকো উইদোদো ইন্দোনেশিয়া সরকারের অর্থায়নে স্থাপিত মেডিক্যাল ক্যাম্প, স্কুল, ত্রাণকেন্দ্র এবং বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা পরিদর্শন ও প্রত্যক্ষ করে সংশ্লিষ্টদের সেবা ক্ষেত্রে আরো দায়িত্বশীল হওয়ার পরামর্শ দেন।

ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদোর সাথে ছিলেন ফার্স্টলেডি ইরিয়ান জোকো উইদোদো, বাংলাদেশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশন ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) প্রতিনিধিগণ।

দুপুর ১টার দিকে কক্সবাজার বিমানবন্দরে অবতরণ করেন প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো। সেখান থেকে তিনি কড়া নিরাপত্তায় সড়কপথে উখিয়ার জামতলি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পৌঁছেন।

জোকো উইদোদো তিন দিনের সরকারি সফরে শনিবার ঢাকায় আসেন। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও তার স্ত্রী রাশিদা খানম তাদের স্বাগত জানান। সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন প্রেসিডেন্ট উইদোদো। রোববার সকালে তিনি জাতীয় স্মৃতিসৌধে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে গভীর শ্রদ্ধা জানান তিনি। পরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হন ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট। রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পৌঁছলে শেখ হাসিনা তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান।

দুই নেতার একান্ত বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের চামেলী হলে তাদের নেতৃত্বে শুরু হয় দু’দেশের প্রতিনিধি দলের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক। সেখানে বাংলাদেশ ও ইন্দোনেশিয়ার মধ্যে একটি বাণিজ্য চুক্তি ও চারটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul