adimage

২৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮
সকাল ১০:৪১, শুক্রবার

আগামীকাল শুরু বিশ্ব ইজতেমা

আপডেট  03:38 AM, জানুয়ারী ১১ ২০১৮   Posted in : পাঁচফোড়ন     

আগামীকালশুরুবিশ্বইজতেমা

গাজীপুর, ১১ জানুয়ারি : গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে আগামীকাল শুক্রবার শুরু হচ্ছে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমা। মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম এ ধর্মীয় গণজমায়েতকে কেন্দ্র করে এরই মধ্যে প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা বলয়।

সিসিটিভি, ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ ও নানা নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা ছাড়াও পুলিশ ও র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এরই মধ্যে ইজতেমা ময়দানে অবস্থান নিয়েছেন। আসছেন দেশ-বিদেশের লাখো মুসল্লি। তাদের ইজতেমা ময়দানে সমবেত ও ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা টঙ্গীকে রূপ দিয়েছে ধর্মীয় নগরীতে।

শুক্রবার বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ৫৩তম বিশ্ব ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। রবিবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ইজতেমার প্রথম পর্ব।

সরেজমিনে দেখা গেছে, তবলিগ জামাতের উদ্যোগে তুরাগতীরে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল শামিয়ানা। রাস্তাঘাট মেরামত, মাঠ সমতল করাসহ নানা প্রস্তুতিমূলক কাজ এরই মধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। ময়দানের উত্তর-পশ্চিম প্রান্তে প্রস্তুত রয়েছে বিদেশিদের জন্য আলাদা নিবাস। তাদের থাকা, খাওয়া ও অবস্থানে যেন কোনো ধরনের সমস্যা না হয়, সেজন্য ইজতেমার নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবকরা দিনরাত কাজ করছেন। তাদের রান্নাবান্নার জন্য গ্যাস সংযোগ, বিদ্যুৎ সংযোগসহ সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া এবারের ইজতেমায় ৩২ জেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে লাখো মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন। ইজতেমায় আগত এসব মুসল্লির সুবিধার্থে গভীর নলকূপ থেকে পানি সরবরাহ, স্থায়ী টয়লেট ও সার্বক্ষণিক বিদ্যুতের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ময়দানের পশ্চিম প্রান্তে বয়ানমঞ্চ, দোয়া মঞ্চ, তুরাগ নদীতে ভাসমান সেতু নির্মাণ করা হয়েছে।

বিশ্ব ইজতেমার মুরব্বি প্রকৌশলী গিয়াসউদ্দিন জানান, পুলিশ প্রশাসন ও জেলা প্রশাসনসহ সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপ সন্তোষজনক। এবার প্রথম পর্বে ঢাকা, পঞ্চগড়, নীলফামারী, শেরপুর, নারায়ণগঞ্জ, গাইবান্ধা, নাটোর, মাদারীপুর, লক্ষ্মীপুর, ঝালকাঠি, ভোলা, মাগুরা ও নোয়াখালীর মুসল্লিা অংশ নেবেন।

এসব মুসল্লি ময়দানে তাদের জন্য নির্ধারিত ২৮টি খিত্তায় অবস্থান করবেন। মুসল্লিদের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং ইজতেমা ময়দানে জায়গা কম থাকায় ২০১৬ সাল থেকে ৬৪ জেলার মুসল্লিদের ৩২ জেলা করে দুভাগে ভাগ করা হয়। এই ৩২ জেলার মুসল্লিদের মধ্যে আবার ১৬ জেলা করে দুভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রতিবছর ১৬ জেলা করে দুই ধাপে ৩২ জেলার মুসল্লিরা অংশ নেন বিশ্ব ইজতেমায়।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul