adimage

২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮
সকাল ১২:১৬, মঙ্গলবার

ধানচুরি মামলার আসামি পাঁচ ও আট বছর বয়সী শিশু

আপডেট  08:07 PM, জানুয়ারী ০৫ ২০১৮   Posted in : রংপুর    

ধানচুরিমামলারআসামিপাঁচওআটবছরবয়সীশিশু

ঠাকুরগাঁও, ৬ জানুয়ারি : ঠাকুরগাঁওয়ে ১৩ জনের বিরুদ্ধে ধান চুরির একটি মামলা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। আসামিদের মধ্যে একজনের বয়স পাঁচ এবং একজনের আট। এদেরকে আসামি করায় বাদীকে তিরস্কার করেছেন মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতের বিচার ওয়ালিউল ইসলাম।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার মোলানী গ্রামের আজিজুর রহমানের ছেলে নজরুল ইসলাম ও সাজেদুর রহমানের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্য একাধিক মামলা আদালতে বিচারাধীন।

সাজেদুর রহমান দলবল নিয়ে গত ১৬ নভেম্বর মাঠ থেকে ২০ মণ ধান এবং ১৩ মণ খড় চুরি করে এনেছেন অভিযোগে গত ১৯ নভেম্বর অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম আমলি আদালতে মামলা করেন নজরুল ইসলাম। বিচারক মোল্লা সাইফুল ইসলাম মামলাটি গ্রহণ করে আসামির হাজিরে সমন জারি করেন।

এই ১৩ জন আসামির মধ্যে তিন জন অপ্রাপ্তবয়স্ক। এদের মধ্যে পাঁচ বছর বয়সী আশরাফুল ও আট বছর বয়সী উজ্জ্বলও আছে। আরেক আসামি ইসমাইল অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে।

আদালতের সমন পেয়ে বৃহস্পতিবার বাবা ও চাচার সঙ্গে শিশু তিনটি বিচারক ওয়ালিউল ইসলামের আদালতে হাজির হয়।

কাঠগড়ায় তিন শিশু, কিশোরকে দেখতে পেয়ে বিচারক বাদীর প্রতি অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং তিন শিশুকে কাঠগড়া থেকে নামিয়ে সব আসামিকে জামিন দেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী জাকির হোসেন জানান, বাদী মামলার আর্জিতে পাঁচ বছরের আশরাফুলের ও আট বছরের উজ্জ্বলের বয়স উল্লেখ করেছেন ২৩ বছর। আর কিশোর ইসমাইলের বয়স দেয়া হয়েছে ২১।

আশরাফুল মোলানী ঝাড়গাঁও মিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির এবং উজ্জ্বল ৯২নং ছেপড়িকুরা সরকারি বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র। আর ইসমাইল মোলানী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

আসামিপক্ষের আইনজীবী জাকির হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রচলিত আইনে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশু বিবেচেনা করা হয়৷ আর সর্বনিম্ন নয় বছর বয়সীদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া যায়৷ তবে সেক্ষেত্রে শিশু আইন, আলাদা অভিযোগপত্র, এজাহার এবং আদালতের বিধান মানতে হবে।’

শিশুদের আসামি করায় আদালত বাদীকে তিরস্কার করেছে জানিয়ে এই আইনজীবী বলেন, মামলা গ্রহণের সময় আদালত সমন না দিয়ে তদন্তে দিলে হয়ত এ ঘটনা ঘটত না।

বাংলাদেশে শিশুদের আসামি করা এই প্রথম নয়৷ গত বছরের ২ মে শেরপুর মূখ্য মহনগর হাকিম আদালতে চাচার কোলে চড়ে আদালতে হাজির হয়ে জামিন নেয় পাঁচ বছরের শিশু রনি৷ রনিকে মারপিট এবং দাঙ্গা হাঙ্গামা মামলার আসামি করা হয়েছিল৷

এ বিষয়ে মামলার বাদী নজরুল ইসলামের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে ফোন ধরে তিনি নিজেকে আনোয়ার হোসেন বলে দাবি করেন। বলেন নজরুল ইসলাম তার প্রতিবেশী।

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul