adimage

২২ অগাস্ট ২০১৮
সকাল ১২:০৪, বুধবার

বরিশালে শেখ হাসিনার নির্বাচনী জনসভা আজ

আপডেট  03:21 AM, ফেব্রুয়ারী ০৮ ২০১৮   Posted in : রাজনীতি    

বরিশালেশেখহাসিনারনির্বাচনীজনসভাআজ

ঢাকা, ৮ ফেব্রুয়ারি : বরিশাল বিভাগের সর্বত্র নির্বাচনী আবহ বিরাজ করছে। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বৃহস্পতিবার বরিশাল বিভাগে নির্বাচনী প্রচারণায় আসছেন। তার প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলায় রায় ঘোষণার দিন দক্ষিণাঞ্চলে বিশাল শোডাউন করতে চায় ক্ষমতাসীনরা।

বরিশাল মহানগরীর বঙ্গবন্ধু উদ্যানে জনসভায় বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী। এ জনসভাকে স্মরণকালের বড় জনসভায় পরিণত করতে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। জনসভায় তিন লক্ষাধিক মানুষের সমাগম ঘটানোর টার্গেট নেওয়া হয়েছে। সমসাময়িক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর এ সফর তার অবিচল দৃঢ়তার প্রমাণ বলে মনে করছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা। প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী প্রচারণার এই জনসভাকে ঘিরে নগরজুড়েই শোভা পাচ্ছে তোরণ, বিলবোর্ড, ব্যানার ও ফেস্টুন।

আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচন এবং এর আগে বরিশালসহ কয়েকটি সিটি করপোরেশন নির্বাচন হওয়ার কথা। ফলে প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকে সামনে রেখে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও বর্তমান সংসদ সদস্যরা ব্যাপকভাবে ব্যক্তিগত প্রচার চালাচ্ছেন। গত ৩০ জানুয়ারি সিলেট সফরের মাধ্যমে শেখ হাসিনার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়। পর্যায়ক্রমে সব বিভাগীয় শহরে নির্বাচনী প্রচারণা চালাবেন শেখ হাসিনা। এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার আজকের রায়কে ঘিরে কেউ যাতে ন্যূনতম বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করতে না পারে সেজন্য পুরো বরিশাল বিভাগ নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।

সর্বশেষ ২০১২ সালে বরিশালে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কীর্তনখোলা নদীর ওপর শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত সেতুর উদ্বোধনের সঙ্গে আরো বেশ কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন এবং বঙ্গবন্ধু উদ্যানে জনসভা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা।

পদ্মা সেতু, পায়রা বন্দর, শেখ হাসিনা সেনানিবাস, লেবুখালী সেতু, সাবমেরিন ক্যাবল স্টেশন ও তাপবিদ্যুত্ কেন্দ্রের মতো উন্নয়ন প্রকল্প এ অঞ্চলের মানুষদের ভাগ্য পরিবর্তনের বড় সহায়ক। তাই শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বরূপ আজকের জনসভায় এ বিভাগের ৬টি জেলার কয়েক লাখ লোকের সমাগম হবে বলে ধারণা বরিশাল জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, দীর্ঘদিন পর প্রধানমন্ত্রী বরিশালে জনসভায় বক্তব্য রাখবেন। তিনি দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জন্য বিশাল উন্নয়ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন এবং বাস্তবায়ন করেছেন। আমরা আশা করছি এ জনসভা এ অঞ্চলের স্মরণকালের বড় জনসভা হবে। একই দিন খালেদা জিয়ার রায়ের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের দলীয় কর্মসূচি অনেক আগেই ঠিক করা। সরকার ও দলের সব রুটিন কাজ ঠিকমত চলছে। বিএনপির হুমকি-ধামকিতে জনগণ ও সরকার বিচলিত নয়। আর এ জনসভা থেকে সারাদেশের দলীয় নেতা-কর্মীদের কাছে সরকারের দৃঢ়তার বার্তা যাবে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

জাতীয় নির্বাচন ও খালেদা জিয়ার রায়ের বিষয়টি সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফর সফল করার লক্ষ্যে বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপির তত্ত্বাবধানে গেল কয়েক সপ্তাহ ধরেই চলছে বিপুল আয়োজন।

জনসভা প্রসঙ্গে আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি বলেন, বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চলকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজের এলাকার মতো ভালোবাসেন। তিনি এই অঞ্চলের মানুষকে যা দিয়েছেন, অন্য কোনো সরকার দেয়নি। আগামী নির্বাচনে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ তাকে ভোট দিয়ে আবারও দেশ পরিচালনার সুযোগ দেবে— এ অবস্থান জানান দিতেই তার জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিণত করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হবে বলেও প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন তিনি। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারাও গত এক সপ্তাহ ধরে দফায় দফায় বৈঠক করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছেন।

৪১ প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৩৩ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী আজ বরিশালে ৪১ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন এবং ৩৩ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং এর তথ্যানুযায়ী, যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী তা হল- বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর একাডেমিক ভবন, বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল একাডেমিক ভবন, শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি, বঙ্গবন্ধু হল, শেখ হাসিনা হল, শেরেবাংলা হল। বরিশাল গণপূর্ত বিভাগের আওতাধীন সরকারি শিশু পরিবার বালিকা (দক্ষিণ) বরিশালের নিবাসীদের নবনির্মিত ডরমেটরি ভবন।

বরিশাল সদরে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের আধুনিকায়ন ও শক্তিশালীকরণ শীর্ষক ভবন নির্মাণ প্রকল্প, বরিশাল বিভাগীয় ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি নির্মাণ প্রকল্প, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন, বাবুগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন (বি-টাইপ),  মেহেন্দিগঞ্জ থানা কমপ্লেক্স ভবন।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় আগৈলঝাড়া, গৌরনদী, বাকেরগঞ্জ, হিজলা, মুলাদী,  মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন, গৌরনদী উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন, উজিরপুর উপজেলার হারতা-বানারীপাড়া বর্ডার রাস্তায় ২৮০ মিটার প্রি-স্ট্রেস গার্ডার ব্রিজ, বানারীপাড়া উপজেলাধীন চৌমোহনা জিসি-বানারীপাড়া হেড কোয়ার্টার ভায়া বিশারকান্দি, ওমারের পাড় রাস্তায় নান্দুগার নদীর ওপর ২৯০ মিটার আরসিসি গার্ডার ব্রিজ, মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া-কালীগঞ্জ ব্রিজ।

জেলা পরিষদের আওতাধীন মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার দেশরত্ন শেখ হাসিনা মহাবিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের আওতায় বরিশাল সদরে অবস্থিত তিন হাজার মেট্রিকটন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ ও সংরক্ষণাগার, দুই হাজার মেট্রিকটন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন আলু বীজ হিমাগার। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতাধীন বরিশাল নগরের রুপাতলী এলাকায় ১৬ এমএলডি শোধন ক্ষমতাসম্পন্ন সার্ফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট, ৩১ শয্যাবিশিষ্ট মেহেন্দিগঞ্জে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিস।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতাধীন শহীদ আরজু মনি ও শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পৃথক সাত তলা দু’টি একাডেমিক ভবন, বরিশাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, হিজলা ডিগ্রি কলেজের চার তলা একাডেমিক ভবন, হিজলার সংহতি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মেহেন্দিগঞ্জের উলানিয়া মোজাফ্ফর খান ডিগ্রি কলেজের চারতলা একাডেমিক ভবন। বরিশাল সিটি করপোরেশনের আওতায় বঙ্গবন্ধু অডিটরিয়াম ভবন।

স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় বরিশাল সদরের কড়াপুর ১০ শয্যা বিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ  কেন্দ্র, হিজলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণের উদ্বোধন করা হবে। এর বাইরে রয়েছে আরো পাঁচটি প্রকল্প।

প্রধানমন্ত্রী সফরে যেসব প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন:বরিশাল গণপূর্ত বিভাগের আওতাধীন বরিশাল পুলিশ সুপার (এসপি) অফিস নির্মাণ, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্স নির্মাণ, নারী কারারক্ষীদের বাসভবন নির্মাণ, বিভাগীয় হিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় নির্মাণ, বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর দফতর ভবন, শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট নির্মাণ, কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি) নির্মাণ, মুলাদী থানা ভবন নির্মাণ, বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল সংলগ্ন নার্সিং হোস্টেল নির্মাণ প্রকল্প অন্যতম। -ইত্তেফাক


সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul