adimage

২৭ মে ২০১৮
সকাল ০৭:৩০, রবিবার

প্রধানমন্ত্রী বরণে প্রস্তুত সিলেট

আপডেট  01:51 AM, জানুয়ারী ৩০ ২০১৮   Posted in : রাজনীতি    

প্রধানমন্ত্রীবরণেপ্রস্তুতসিলেট

সিলেট, ৩০ জানুয়ারি : নির্বাচনী প্রচারণা। হযরত শাহজালাল (র.)-এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে সফর শুরু করে পরবর্তীতে সারাদেশে নির্বাচনী সফর করবেন তিনি। একই সঙ্গে দলের ১৫টি টিম সারাদেশে সাংগঠনিক সফর শুরু করেছে। নির্বাচনের আগে দলকে সংগঠিত করতেই নেতারা এই সফরে নেমেছেন। এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বরণ করে নিতে প্রস্তুত সিলেট।

গোটা নগরজুড়ে বিরাজ করছে সাজ-সাজ রব। তোরণে তোরণে ছেয়ে গেছে নগরী। ব্যানার, ফেস্টুন, বিলবোর্ডে সবখানেই প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়েছে। এবার সিলেটে প্রধানমন্ত্রী ৫টি স্থানে সফর করবেন। এই ৫ স্থান সিসিটিভির ক্যামেরায় আওতায় আনা হয়েছে। সোমবার সকাল থেকে বাড়তি নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে নগরী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার দুপুরে সিলেটের ওলিকুল শিরোমনি হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন। এরপর তিনি হযরত শাহপরাণ (রহ.) ও সিলেটের প্রথম মুসলমান হযরত বুরহার উদ্দিন (রহ.) মাজার জিয়ারত করবেন। বিকেলে সিলেটের আলীয়া মাদরাসা ময়দানে সিলেট আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে তিনি ভাষণ দেবেন। এর আগে আলীয়া মাদরাসা স্থাপিত ফলকে তিনি ৩৬ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। প্রায় দেড় বছর আগে সিলেট সফর করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গেল বছর তিনি আলীয়া মাদরাসা ময়দানে সমাবেশের কথা থাকলেও পরবর্তীতে সেটি স্থগিত করা হয়। এবার জাতীয় ও সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে আসছেন। তার এই আগমনকে ঘিরে টানা ১৫ দিনের প্রস্তুতিপর্ব শেষ করেছে প্রশাসন ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ। নগরীর আলীয়া মাদরাসা ময়দানে প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশস্থলে নির্মাণ করা হয়েছে সুবিশাল মঞ্চ। গতকাল সিলেট আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ শেষবারের প্রস্তুতি পরখ করে নিতে মাদরাসা ময়দান পরিদর্শন করেছেন। এ সময় তারা আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন- মাদরাসা ময়দানের সমাবেশে লাখো মানুষের সমাগম ঘটবে। শুধু দলীয় নেতাকর্মীরাই নয়, সমাবেশে সিলেটের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তারা। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ জানিয়েছেন- প্রধানমন্ত্রীর আগমনে সিলেট নগরীতে লক্ষাধিক মানুষের সমাগম ঘটবে। মহাসমুদ্রে পরিণত হবে সিলেটের আলীয়া মাদরাসা ময়দান। সিলেটের সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী এ সফরকে কেন্দ্র করে সিলেটের আওয়ামী লীগের ভেতরে ঐক্যের সৃষ্টি হয়েছে। আগামী নির্বাচন পর্যন্ত এ ঐক্য বিরাজ করবে বলে জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে শুধু দেশের নয়, ছুটে এসেছেন প্রবাসীরা। যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে সিলেটে এসেছেন। সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী জানিয়েছেন, গত ৯ বছরের শাসনে প্রধানমন্ত্রী সিলেটের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তার এই উদারতার জন্য সিলেটের মানুষ এবার তাকে উৎসবের আবহে বরণ করে নেবেন। সিলেটের জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেলা ১১টা থেকে সোয়া ১১টার মধ্যে হেলিকপ্টারযোগে সিলেটের আসবেন। এরপর তিনি ওলিকুল শিরোমণি হযরত শাহজালাল (রহ.)সহ তিনটি মাজার জিয়ারত করবেন। দুপুরে তিনি সিলেট সার্কিট হাউসে বিশ্রাম ও নামাজ আদায় করবেন। এরপর বিকেলে সিলেটের আলীয়া মাদরাসা ময়দানে ভাষণ দেবেন। ভাষণ শেষে প্রধানমন্ত্রী ফের ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেবেন। প্রধানমন্ত্রী আলীয়া মাদরাসা ময়দানে যে মঞ্চে ভাষণ দেবেন তার ঠিক বাম পাশে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও ফলক উন্মোচনের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। ওখানে প্রধানমন্ত্রী সিলেটের উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন। এদিকে গতকাল সিলেটে শেষবারের মতো প্রচারণা চালিয়েছে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠন। বিকেলে গোটা নগরজুড়ে কয়েকটি মিছিল বের করা হয়। এসব মিছিলে নেতৃত্ব দেন সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফর উপলক্ষে ইতিমধ্যে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে সিলেট নগরী। প্রধানমন্ত্রী যেসব এলাকায় যাবেন সেসব এলাকা সিসিটিভির আওতায় আনা হয়েছে। পাশাপাশি ৬ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সিলেট মহানগর পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়া নিজেই নিরাপত্তার বিষয়টি তদারকি করছেন। প্রধানমন্ত্রী আগমন উপলক্ষে সিলেটের তিন ওলির মাজার ও আশপাশ এলাকায় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। নিরাপত্তা দিতে র‌্যাব, আর্মড পুলিশ ও মহানগর পুলিশের সদস্যরা গড়ে তুলেছেন নিরাপত্তা বলয়। সিলেট মহানগর পুলিশের এডিসি (মিডিয়া) আবদুল ওয়াহাব জানান, পুলিশের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থলসহ পুরো সিলেটজুড়েই বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে রেঞ্জ পুলিশ থেকে বিপুলসংখ্যক পুলিশকে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের জন্য সিলেটে নিয়ে আসা হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি নিরাপত্তা দায়িত্বে থাকবে আর্মড পুলিশ ও র‌্যাব। প্রধানমন্ত্রী সিলেট ছাড়ার আগ পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করে যাবে। তিনি আরো জানান, আলীয়া মাদরাসা মাঠসহ আশপাশের এলাকায় শতাধিক সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। এছাড়াও জনসভাস্থলে সার্বিক তদারকি করার জন্য দুটি ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছে। সিলেট শহর ও শহরতলির গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে বসানো হবে পুলিশের শতাধিক চেকপোস্ট। মাঠ পর্যায়ের পুলিশের কার্যক্রম তদারকির জন্য মাঠে থাকবেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। -মানবজমিন

সর্বাধিক পঠিত

Comments

এই পেইজের আরও খবর

মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন

nazrul