১৮ নভেম্বর ২০১৭
বিকাল ৫:৫৭, শনিবার

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ 

00

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ, ১২ অক্টোবর :  সিলেটের গোলাপগঞ্জের চৌঘরিতে সুরমা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে রানাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কলেজের শিক্ষার্থীরা ও সদর ইউনিয়নবাসির উদ্যোগে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে অবরোধকারীরা।  বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এ অবরোধ চলে। বাংলাদেশ জামাতে ইসলামী ডাকা হরতালে সিলেট-জকিগঞ্জ রোডে তেমন কোন প্রভাব না পড়লেও অবরোধের কারণে অচল ছিল পূর্ব সিলেটের এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি।

এদিকে খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: শরিফুল ইসলাম ও গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ওসি একেএম ফজলুল হক শিবলীসহ জনপ্রতিনিধিরা সকালে অবরোধকারীদের সাথে বৈঠক বসে, অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে জরুরী পদক্ষেপ নেয়ার হবে আশ্বস্থ করার পর অবরোধকারীরা বেলা ১টার দিকে অবরোধ তুলে নেয় ।

জানা যায়, একটি চক্র বেশ কয়েক মাস ধরে উপজেলার বাঘা ইউনিয়ন, গোলাপগঞ্জ পৌরসভা ও গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের মধ্যভাগ দিয়ে বয়ে যাওয়া সুরমা নদী থেকে বেপোরোয়াভাবে বালু উত্তোলন করছে। চক্রটি সরকারী অনুমোদন ছাড়াই প্রতিদিন প্রায় ৮টি ড্রেজার দিয়ে কয়েক লক্ষ ঘনফুট বালু তুলে নিয়ে যাচ্ছে । ফলে নদী তীরবর্তী বাসিন্দাদের ভিটে বাড়ী, কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান হুমকির মুখে পড়েছে ।

উল্লেখ্য যে, এই অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে গত ৩০ সেপ্টেম্বর শনিবার রাণাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের হল রুমে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সেই সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয় যে অবিলম্বে অবৈধভাবে এসব বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে সর্বস্থরের জনতাকে নিয়ে সিলেট-জকিগঞ্জ, সিলেট-বিয়ানীবাজার সড়ক অবরোধ করা হবে।

 

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে সভা অনুষ্ঠিত 

55-2

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ(সিলেট), ৩০ সেপ্টেম্বর :  গোলাপগঞ্জে সুরমা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে এক সভা রানাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ১১টায় গোলাপগঞ্জ থানা কমিউনিটি পুলিশিং সভাপতি হাজী আব্দুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে, আবুল কাশেম সেবুল ও সুলতান মাহমুদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক, রানাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ গভর্ণিং বডির সভাপতি লুৎফুর রহমান,  সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সচিব, গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল আহাদ, বিশিষ্ট শিল্পপতি তমজুল আলী তোতা মিয়া, গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী আব্দুল জলিল সেলিম, গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী ইসমাঈল আলী মেম্বার, রানাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ গভর্ণিং বডির সদস্য শামসুল ইসলাম, বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব জিয়া উদ্দিন, ফারুক আহমদ মেম্বার, ডাঃ আলাউদ্দিন, জুবের আহমদ, জেলা ছাত্রদল নেতা সালাহউদ্দিন।

সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ চৌধুরী। প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন অবৈধ ও অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করা হলে রানাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, কৈলাশ টিলা গ্যাস ফিল্ড সহ আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান হুমকির মুখে পড়বে। এ থেকে প্রতিষ্ঠানগুলোকে রক্ষা করতে হলে অবৈধ ও অপরিকল্পিত বালু উত্তোলন কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করে বলা হয় এলাকার মানুষের দাবী অনুযায়ী প্রশাসন সহযোগিতা না করলে পরবর্তীতে কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

গোলাপগঞ্জ সদর ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসুচীর উদ্বোধন 

0000

আজিজ খান,  গোলাপগঞ্জ(সিলেট), ২৯ সেপ্টেম্বর : বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বলেছেন- আওয়ামী বাকশালী সরকার গনতন্ত্রকে ক্ষত-বিক্ষত করেই ক্ষান্ত হয়নি, তারা মানুষের ভোটাধিকার হরন করে অবৈধ পথে ক্ষমতা দখল করে জাতির ঘাড়ে জগদ্দল পাথরের ন্যায় চেপে বসেছে। তারা আবারো ভোটারবিহীন নির্বাচন দিয়ে পুনরায় ক্ষমতা দখলের ফন্দি করছে। কিন্তু এবার তাদের এধরনের ষড়যন্ত্র নস্যাত করে দেয়া হবেই। আওয়ামী অপশাসনে নিষ্পেষিত গোটা জাতি বিপন্ন গনতন্ত্র পুনরুদ্ধারে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানের নেতৃত্বে বিএনপির পতাকাতলে সমবেত হচ্ছে। গনতন্ত্র পুনরুদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত মুক্তিকামী জনতার সংগ্রাম চলবেই।

তিনি গতকাল শুক্রবার বিকেলে গোলাপগঞ্জ উপজেলার ২নং সদর ইউনিয়ন বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের উদ্যোগে নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কর্মসুচীর উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় রানাপিং বাজারে ২নং সদর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হাজী আব্দুল জলিল সেলিম এর সভাপতিত্বে, ইউনিয়ন সাধারন সম্পাদক কামরুল ইসলাম ও সিলেট জেলা ছাত্রদলের সহ-সম্পাদক সালাহ উদ্দিন-এর যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত বিশাল উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- সিলেট জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আলী আহমদ, সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান, গোলাপগঞ্জ উপজেলা বিএনপি সভাপতি নছিরুল হক শাহীন, ২নং গোলাপগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও সিলেট জেলা বিএনপির সহ-প্রবাসী কল্যান বিষয়ক সম্পাদক আশফাক আহমদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় জিয়া পরিষদের সহ-সভাপতি আশফাক আহমদ আশু, সিলেট জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি মহিউচ্ছুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস।

যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা ফরিদ উদ্দিন তকী’র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক নজরুল ইসলাম, গোলাপগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জল, উপজেলা যুবদল সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলার হেলালুজ্জামান হেলাল, জেলা বিএনপির সহ-আইন বিষয়ক সম্পাদক আমিন উদ্দিন, জেলা ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল ইবনে রাজা ও জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক আলী আকবর রাজন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সিলেট জেলা, গোলাপগঞ্জ উপজেলা-পৌর ও ২নং সদর ইউনিয়নের বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। নেতাকর্মীদের ফরম পুরনের মধ্য দিয়ে নতুন সদস্য সংগ্রহ ও সদস্য পদ নবায়ন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন উপস্থিত অতিথিবৃন্দ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সাংবাদিক ও সূধীমহলের সঙ্গে নবাগত ইউএনও’র মত বিনিময় 

4

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ (সিলেট), ১৯ সেপ্টেম্বর :  গোলাপগঞ্জের নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ শরিফুল ইসলাম সাংবাদিক ও সূধীজনের সঙ্গে মত বিনিময় কালে বলেছেন, একটি সমৃদ্ধ ও সুন্দর সমাজ গঠনে সাংবাদিক সমাজ সবচেয়ে বেশি ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে। একটি দেশ তখনই সফলতা অর্জন করতে পারে যখন সাংবাদিক সমাজ ইতিবাচক দিকগুলো তাদের লিখনীর মাধ্যমে তুলে ধরেন। অপরাধ ও দূর্নীতি মূক্ত দেশ গড়তে সাংবাদিক সমাজের সাহসী ভূমিকার প্রয়োজন। তিনি আরও বলেন, আমি ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করি। বিগত দিনে অন্যান্য কর্মস্থলে সাংবাদিক সমাজের সহযোগীতা নিয়ে বাল্য বিবাহ রোধ, টিলাকাটা বন্ধকরণ সহ অনেক কাজ করা সম্ভব হয়েছে। আমি গোলাপগঞ্জে দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে সাংবাদিক সমাজ সহ সুধী মহলের সহযোগীতা চাই।

সোমবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত মত বিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ, সিলেট পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সচিব গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল আহাদ, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মামুনুর রহমান, গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আহমদ চৌধুরী, অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি এম. আব্দুল জলিল, রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সৈয়দ জেলওয়ার হোসেন স্বপন, উপজেলা দূর্নীতি দমন কমিটির সহ-সভাপতি তাহেরা সিরাজ, ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী শাহাব উদ্দিন, অনলাইন প্রেসক্লাবের সেক্রেটারী জাহিদ উদ্দিন, দৈনিক সিলেট সুরমা প্রতিনিধি গোলাম দস্তগীর খান সামিন, দৈনিক উত্তর পূর্ব প্রতিনিধি এনামুল হক এনাম, দৈনিক সিলেট বাণী প্রতিনিধি জাহেদ আহমদ, বাদেপাশা ইউপির সদস্য এনামুল কবির এনাম, মোহাম্মদ ললাই মিয়া, দৈনিক মানচিত্র প্রতিনিধি খালেদ হোসেন প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ট্রাকের চাপায় কলেজ ছাত্রের মৃত্যু, আহত- ৫ 

55-2

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ (সিলেট), ১৯ সেপ্টেম্বর : গোলাপগঞ্জে সিলেট জকিগঞ্জ সড়কে ট্রাকের চাপায় এক মটরসাইকেল আরোহী কলেজ ছাত্র প্রাণ হারিয়েছেন, আহত হয়েছেন অপরজন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ঘাতক ট্রাক আটক করে থানায় নিয়ে এলেও চালককে গ্রেফতার করতে পারেনি। এসময় ট্রাক চাপায় সিএনজি চালক সহ আরো ৪ জন আহত হয়েছেন।

জানা যায়, গতকাল সোমবার বেলা ২ টায় উপজেলার উত্তর রায়গড় গ্রামের মুহিবুর রহমানের পুত্র সাব্বির আহমদ (২২) ও একই এলাকার রহিম উদ্দিনের পুত্র আব্দুল হামিদ (২১) একটি অনটেস্ট মটরসাইকেল যোগে গোলাপগঞ্জ থেকে সিলেট যাওয়ার পথে বৈটিকর বাজারের অদূরে এওলাটিকর নামক স্থানে পৌছিলে সিলেট থেকে পুর্বদিকগামী ট্রাক ঢাকা মেট্রো-ট-২০-৪৫৭৫ মুখোমুখি চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সাব্বির গুরুতর আহত হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এসময় আব্দুল হামিদও আহত হয়। এছাড়া ট্রাকের চাপায় যাত্রীবাহী সিএনজি অটোরিক্সা সিলেট-থ-১২-৯৯১৬ দুমড়ে মুচড়ে গেলে চালক সহ ৪ জন লোক আহত হন। আহতদেরকে উপস্থিত লোকজন তাৎক্ষণিক ভাবে চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাব্বির মারা যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় আব্দুল হামিদ চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে প্রাপ্ত সংবাদে জানা যায়। এদিকে সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ট্রাক, সিএনজি ও মটরসাইকেল উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

একটি সূত্রে জানা যায়, সাব্বির ও আব্দুল হামিদ ঢাকাদক্ষিণ ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিল। বিশেষ কাজে সম্প্রতি কেনা অনটেস্ট মটরসাইকেল নিয়ে সিলেট যাওয়ার পথে দূর্ঘটনার শিকার হলে সাব্বির প্রাণ হারায়। ঘটনার পর পর সিএনজি অটোরিক্সার চালক ও যাত্রীদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়া হলে তাদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। কলেজ ছাত্র সাব্বিরের মৃত্যুতে গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ এলাকা সহ বিভিন্ন স্থানে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রোহিঙ্গা হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদে গোলাপগঞ্জ জমিয়তের বিক্ষোভ মিছিল 

00

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ(সিলেট), ১৬ সেপ্টেম্বর : মায়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদে গোলাপগঞ্জে পৌর ও থানা জমিয়তের যৌথ উদ্দোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্টিত হয়েছে। উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হাফিজ মাওলানা রশিদুর রহমান ও পৌর ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওলানা আব্দুর রবের নের্তৃৃত্বে  শুক্রবার বাদ জুম্মা গোলাপগঞ্জ চৌমুহনী জামে মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। মিছিলটি উপজেলা সদরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে চৌমুহনী পয়েন্টে এসে এক সমাবেশে মিলিত হয়। বিক্ষোভ মিছিল পরবর্তী সমাবেশ  উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি হাফিজ মাওলানা রশিদুর রহমানের সভাপতিত্বে ও পৌর ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওলানা আব্দুর রবের পরিচালনায় প্রধান অথিতি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলা জমিয়তের সহ সভাপতি আলহাজ্ব সামসুদ্দীন বাণীগ্রামী,বিশেষ অথিতির বক্তব্য দেন উপজেলা  জমিয়তের নির্বাহী সভাপতি শায়খ মাওলানা আব্দুল মতিন নাদিয়া, সাধারন সম্পাদক মাওলানা মাহফুজ আহমদ, যুগ্ম  সাধারন সম্পাদক  মাওলানা আলী আহমদ  প্রচার সম্পাদক মাওলানা এমাদ উদ্দিন ছালিম। উপস্থিত ছিলেন মাওলানা বিলাল আহমদ, মাওলানা জিল্লুর রহমান, পৌর ছাত্র জমিয়তের সহ সসভাপতি মাওলানা জিল্লুর রহমান, উপজেলা  ছাত্র জমিয়তের  সাধারন সম্পাদক আবুল কাসিম,পৌর ছাত্র জমিয়তের সাধারন সম্পাদক মিনহাজ আহমদ, যুব নেতা জাকির আহমদ, প্রশিক্ষণ সম্পাদক  জিল্লুর রহমান,পাঠাগার সম্পাদক আবু তাহের আমুড়া, হাফিজ তাজ উদ্দিন,গুলজার আহমদ, আব্দুল বাসিত, সাইফুর রহমান, মাহফুজ আহমদ, শিব্বির আহমদ প্রমুখ।

 

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের শক্তি ও সাহস থাকতে হবে 

images

আজিজ খান, গোলাপগঞ্জ(সিলেট), ৭ সেপ্টেম্বর : শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করার সাহস ও শক্তি থাকতে হবে। বিভিন্ন সময়ে কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করেই আওয়ামীলীগ টিকে রয়েছে। আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার জন্য দেশী-বিদেশী ষড়যন্ত্রকারীরা বার বার নীলনকশা তৈরি করেও সফল হতে পারেনি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বের কারণে আওয়ামীলীগ আজও ঐক্যবদ্ধ একটি সংগঠন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ স্বাধীন করে পৃথিবীর ইতিহাসে বিশাল স্থান দখল করে আছে। আমরা কোন ভাবে নিজেদের মধ্যে অনৈক্য সৃষ্টি করে উপমহাদেশের এ ঐতিহ্যবাহী সংগঠনের ক্ষতি করলে তা মেনে নেয়া যাবে না। আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে অতীতের ন্যায় আগামীতেও দলকে বিজয়ী করতে হবে।

গোলাপগঞ্জ উপজেলার ৪ নং লক্ষীপাশা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কর্মী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। এতে শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, দেশের সবক্ষেত্রে উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষাক্ষেত্রে যে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে যা দেশে-বিদেশে প্রশংসিত। আজ ঘরে ঘরে শিক্ষিত ছেলেমেয়ে পাওয়া যাচ্ছে, আমরা আর পিছিয়ে থাকতে চাই না। তথ্য ও প্রযুক্তির জ্ঞানে সমৃদ্ধ হয়ে আগামী প্রজন্মকে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ নাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে চাই। যারা অতীতে আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়ে ক্ষমতায় গিয়েছিল তাদের কারণেই আজ দেশ এতো পিছিয়ে রয়েছে। তারা উন্নয়নের নামে লুটপাট করে জনগণের সম্পদ আত্মসাৎ করেছে। আগামী নির্বাচনে দেশের সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে আবারও নৌকাকে বিজয়ী করার জন্য তিনি সবার প্রতি আহবান জানান।

বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১ টায় লক্ষীপাশা ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মাস্টার নুরুল ইসলাম চৌধুরী মছলুর সভাপতিত্বে ও লক্ষীপাশা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মাহমুদ আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী রফিক আহমদ, জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম নেতা সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আলী আকবর ফখর, স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা ইকবাল আহমদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আব্দুল ওয়াহাব জোয়ারদার মছুফ, স্থানীয় ইউপি সদস্য হেলাল আহমদ, আওয়ামীলীগ নেতা শাহজাহান আহমদ টিপু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আব্দুর রহীম নান্টু, জাবেদ আহমদ, ফয়সল আহমদ, যুবলীগ নেতা আব্দুস সামাদ প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সুমাইয়ার হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন 

00

আজিজ খান,র গোলাপগঞ্জ (সিলেট), ১৯ আগস্ট : গোলাপগঞ্জের কন্যা রুহেলা আক্তার সুমাইয়ার হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে উত্তাল হয়ে উঠেছে গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা। প্রতিবাদে হাজার হাজার মানুষ মাঠে নেমে সভা-সমাবেশ ও মানববন্ধন করে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি দাবী করছে। গতকাল গোলাপগঞ্জ উপজেলা সদরে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হলে বক্তারা ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত ও দোষীদের বিচার চেয়েছেন।

উপজেলা বাঘা ইউনিয়নের গোলাপনগর রজবমারা গ্রামের মৃত ময়বুর রহমানের কন্যা রুহেলা আক্তার সুমাইয়া (২৪) কে তার শশুর বাড়ী দক্ষিণ সুরমার কুচাই গ্রামে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করার বিষয়টি বেশ রহস্যজনক বলে অনেকেই মনে করছেন। বিশেষ করে সুমাইয়ার লাশ যেভাবে ঝুলে ছিলো তাতে অনেকের অভিমত কোন ব্যক্তির পা মাটির উপরে ভরে থাকলে মারা যাওয়ার কথা নয়। সুমাইয়ার হাঁটু ভাঙ্গা লাশের ছবিটি রহস্যের জন্ম দিয়েছে। বিষয়টি বিশেষ করে ফেইসবুকে ভাইরাল হয়ে প্রচারিত হচ্ছে। এতে ক্ষোভে গর্জে উঠেছে সুমাইয়ার জন্মভূমি বাঘা ইউনিয়নের সর্বস্থরের জনগণ, তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন পেশার মানুষ। গত শুক্রবার বিকেলে বাঘা সোনাপুর বাজারে মানববন্ধন করে শনিবার গোলাপগঞ্জ উপজেলা সদরে প্রতিবাদ স্বরূপ মানববন্ধনে ডাক দেয়া হয়। গতকাল বিকেল ৪টায় হাজারও মানুষের উপস্থিতিতে উপজেলা সদরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হলে তাতে সভাপতিত্ব করেন বাঘা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন। বিশিষ্ট সমাজকর্মী মাওলানা জাবেদ আহমদ ও তরুণ সমাজসেবী হিলাল আহমদের যৌথ পরিচালনায় মানববন্ধন চলাকালীন সময়ে বক্তব্য রাখেন গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি আব্দুল আহাদ, পৌরসভার কাউন্সিলর রুহিন আহমদ খান, কাউন্সিলর ফজলুল আলম, সাবেক চেয়ারম্যান মহির উদ্দিন, শ্রেষ্ঠ সমবায়ী ব্যক্তিত্ব আরজমন্দ আলী, সাবেক ইউপি সদস্য ও রাজনীতিবীদ আব্দুল কাদির সেলিম, প্রবীন শিক্ষক হারুনুর রশীদ, তরুণ সমাজসেবী হাবিবুর রহমান, সাবেক ছাত্রনেতা হাবিবুল্লাহ দস্তগীর, সাংবাদিক এম.জি মোস্তফা প্রমুখ।

উল্লেখ্য যে গত মঙ্গলবার রাত রুহেলা আক্তার সুমাইয়ার শশুর বাড়ী কুচাই গ্রামে তার মৃত্যু হয়। পরদিন ভোরে শশুরবাড়ীর লোকজন সুমাইয়ার পিত্রালয়ের লোকজনকে জানান সুমাইয়া গলায় ওড়না পেচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে। সুমাইয়ার ঝুলন্ত লাশের ছবি নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হলে তার পিত্রালয়ের লোকজন এ মৃত্যুকে স্বাভাবিক হিসেবে মেনে নিতে পারছে না। তাদের বক্তব্য সুমাইয়াকে পরিকল্পিতভাবে খুন করে দায় এড়াতে লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল। এজন্য তারা সুমাইয়ার স্বামী মাহমুদুল হাসান সুলতানকে দায়ী করছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

যৌন হয়রানির দায়ে শাবি ছাত্রলীগের ৪ কর্মী বহিষ্কার 

55

সিলেট, ১৬ জুলাই : সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যৌন হয়রানির দায়ে চার ছাত্রলীগ কর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিষ্কৃতরা হলো সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান রুদ্র, পরিসংখ্যান বিভাগের মো. সাজ্জাদ হোসেন রিয়াদ, নৃবিজ্ঞান বিভাগের রাহাত সিদ্দিকী, পলিটিক্যাল স্টাডিজ বিভাগের সুমন সরকার জনি। এদের প্রত্যেককে এক সেমিস্টার করে বহিষ্কার করা হয়েছে।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানি এবং এর প্রতিবাদ করায় দুই সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে  এছাড়া ঘটনার সময় দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন না করার কারণে শাখা ছাত্রলীগের (স্থগিত কমিটি) সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থকে সতর্ক করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বহিষ্কৃতদের মধ্যে রাহাত এবং সুমনকে বহিষ্কারের পাশাপাশি এক হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত ২০৫তম সিন্ডিকেট সভায় ভিসি অধ্যাপক আমিনুল হক ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে শৃঙ্খলা কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বহিষ্কারের বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ইশফাকুল হোসেন গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

এ সময় রেজিস্ট্রার জানান, বহিষ্কারাদেশ আজ রবিবার থেকেই কার্যকর হবে। এ সময়টাতে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো ধরনের ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না। এ জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোতে যাবতীয় নির্দেশনা পাঠানো হবে।

এদিকে এই ঘটনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন হামলার শিকার সাংবাদিকগণ। এ বিষয়ে সরদার আব্বাস আলী বলেন, “সাংবাদিক নির্যাতন এবং যৌন হয়রানির ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বানে ভাসা মানুষের কষ্টের সীমা নেই 

645

সিলেট : সিলেট ও মৌলভীবাজারসহ দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বানভাসি মানুষের মাঝে খাবারের জন্য হাহাকার দেখা দিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও তা খুবই অপ্রতুল। অনাহার-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন দুর্গত এলাকার মানুষ। নেত্রকোনা ও সুনামগঞ্জে ওএমএসের চাল বিক্রিও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এতে ঘরবাড়ি ও ফসলহারা কৃষকের দুর্ভোগ আরও বেড়েছে। চরম অভাব-অনটনে দিন কাটছে তাদের। বুধবার দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রবল বর্ষণে জলাবদ্ধতারও সৃষ্টি হয়। ভৈরবে রেললাইনের মাটি ধসে যাওয়ায় এক ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল।

এদিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের পরিচালক (ত্রাণ) মো. ইফতেখারুল ইসলাম জানান, সিলেট বিভাগের বন্যাকবলিত এলাকার জন্য এ পর্যন্ত এক হাজার ১শ’ টন চাল এবং নগদ ১২ লাখ টাকা সহায়তা দেয়া হয়েছে। এ চালের ৭০০ টন সিলেট, ২০০ টন মৌলভীবাজার এবং ১০০ টন করে হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলায় দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি সিলেট জেলার জন্য ১০ লাখ ও মৌলভীবাজার জেলার জন্য দুই লাখ টাকা নগদ অর্থ সহায়তা দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া সারা দেশের জন্য বিশেষ থোক বরাদ্দ ছাড় করা হয়েছে ৫ হাজার ৫৫৪ টন চাল ও এক কোটি ৯ লাখ টাকা।

সিলেট, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, গোলাপগঞ্জ ও ফেঞ্চুগঞ্জ : বালাগঞ্জ সদর ইউনিয়নের রহমতপুর গ্রামের তেরা মিয়ার স্ত্রী সাজু বেগম ত্রাণ না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘ভোট আইলে হখলেউ লাম্বা মাত মাতইন, আর মাইনষরে লাখ লাখ টেকা দেইন। অতো দিন ধরি পানির মাঝে আছি আর অখন আইছইন ফটো তুলবার লাগি। ফটো তুললে কিতা পেট ভরবোনি।’ একই ইউনিয়নের রাধাকোনা গ্রামের পানিবন্দি হাছনা বেগম বলেন, এক মাস ধরে পানিবন্দি আছি। ঘরে খাওয়ার কিছুই নাই। পানির কারণে ঘর থেকে বের হতে পারছি না। পরিবার-পরিজন নিয়ে খেয়ে না-খেয়ে দিন কাটাচ্ছি। উপজেলার পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের মিনারা বেগম বলেন, ‘আমরা খুবই মানবেতর জীবনযাপন করছি। সরকারি কিংবা বেসরকারিভাবে কোনো সাহায্য-সহযোগিতা পাচ্ছি না।’

ওসমানীনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের বন্যাকবলিত দেড় লক্ষাধিক পানিবন্দি মানুষের জন্য মঙ্গলবার পর্যন্ত ৩৮ টন চাল ও নগদ ৭৬ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ টন চাল ও নগদ ৩৬ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে। পানিবন্দি হাজার হাজার মানুষ খাদ্য সংকটে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটালেও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে ৮টি ইউনিয়নে মাত্র ১৭শ’ জন বানভাসি মানুষের মাঝে ত্রাণের চাল ও টাকা বিতরণ করা হয়।

তাজপুর ইউপির নটপুর গ্রামের ভূমিহীন বিধবা সামেলা বিবি (১৪০) বলেন, ‘স্বামী নেই এক ছেলে ছিল সেও আমাকে ছেড়ে গেছে। অন্যের বাড়িতে থাকি। সেখানেও পানি উঠে গেছে। কারও কাছ থেকে এখন পর্যন্ত কোনো ত্রাণ সাহায্য পাইনি।’

হাকালুকি হাওরের তীরবর্তী গোলাপগঞ্জের শরীফগঞ্জ ইউনিয়নের কালিকৃষ্ণপুর গ্রাম। বন্যাকবলিত এ গ্রামের মানুষ বুধবার পর্যন্ত কোনো ত্রাণ পাননি। এ গ্রামের বাসিন্দা সাহেরা বেগমের অভিযোগ, বন্যায় বাড়িঘর ডুবে মানবেতর জীবনযাপন করছি অথচ কোনো ত্রাণ পাইনি। একই গ্রামের ইদ্রিস মিয়া বলেন, বন্যার্তদের ত্রাণ দেয়ার কথা শুনছি কিন্তু আমরা তো কিছুই পেলাম না।

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মাইজগাঁও ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের নজরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, মাইকিং করে ডেকে নেয়ার পরও ত্রাণ দেয়া হয়নি। ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া মঙ্গলবার ফরিদপুর স্কুলে ত্রাণ দেন, তা আমরা পাইনি। অনেক মানুষ ত্রাণ না পেয়ে ফিরে গেছেন।

মৌলভীবাজার, কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখা : হাকালুকি হাওরপারের বড়লেখা, জুড়ী ও কুলাউড়ার বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে হাহাকার বিরাজ করছে। অধিকাংশ লোক পাচ্ছেন না সরকারি ত্রাণসামগ্রী। আর যা বিতরণ করা হচ্ছে তাতেও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। জনপ্রতিনিধিরা তাদের পছন্দের লোকদের মধ্যে তা বিতরণ করছেন। কিছু লোক একাধিকবার পেলেও অধিকাংশ লোক একবারও পাচ্ছে না। এ নিয়ে বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। আবার নৌকা না থাকায় পানিবন্দি অনেক লোক বাড়ি থেকে বের হয়ে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কেন্দ্রে যেতে পারছেন না।

ত্রাণ বিতরণে স্বজনপ্রীতি : ‘আমরা আওয়ামী লীগ করি। আর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেম্বার বিএনপির। ত্রাণ চাইতে গেলে তারা আমাদের উল্টো ধমক দেন। কুলাউড়া উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নের বন্যাকবলিত কাড়েরা গ্রামের ত্রাণবঞ্চিত যগেশ দাস ও প্রণতি দাস এমন অভিযোগ করেন। তাদের দাবি, মেম্বার-চেয়ারম্যানদের পছন্দের লোকজনই কেবল পাচ্ছে ত্রাণ।

অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধেও। ২ জুলাই আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদল বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শনে আসে। এরপর জয়চণ্ডী ইউনিয়নের পুশাইনগর বাজারে ত্রাণ বিতরণ করা হয়। সেখানে জড়ো হন কয়েক হাজার মানুষ। এসব মানুষের মাঝে বিএনপি সমর্থিতদের ত্রাণ দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

হাকালুকি হাওরপাড়ে ‘ঢেউ’ আতঙ্ক : ‘ঘরের মেঝেতে ২ ফুট পানি। কোনো মতে খাটের ওপর স্ত্রীসহ দিনযাপন করছিলেন। কিন্তু হাওরের বিশাল ঢেউ ঘরের বেড়া আর ভিটার মাটি ভেঙে নিয়ে যাচ্ছে। মনে হয় ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয় কেন্দ্রে ছুটতে হবে।’ হাকালুকি হাওরতীরের জুড়ী উপজেলার জাফরনগর ইউনিয়নের বেলাগাঁও গ্রামের মাজু মিয়া (৫০) এভাবেই জানলেন নিজের আতঙ্কের কথা।

বেলাগাঁও গ্রামের মহিউদ্দিন, শুকুর মিয়া, তৈমুছ আলী, ফিরোজ মিয়া জানান, তাদেরও একই অবস্থা। বন্যায় যতটা না দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে, তার চেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে হাকালুকি হাওরের এই উত্তাল ঢেউয়ে। বিশেষ করে হাওরের দক্ষিণ তীরের কুলাউড়া উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নে এই উত্তাল ঢেউ মানুষের বাড়িঘর তছনছ করে দিচ্ছে। ইউনিয়নের বড়দল গ্রামের সাইফুর রহমান, ভুকশিমইল গ্রামের জাবদ আহমদ, সেজু মিয়া, জেবুল আহমদ, শেখ ইমন, কামাল আহমদ, কাড়েরা গ্রামের জামাল মিয়া জানান, বন্যায় ফসল গেল। রাস্তাঘাট গেল। এবার ঢেউয়ের কবল থেকে বাড়িঘর মনে হয় আর রক্ষা করা সম্ভব হবে না। ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষার জন্য মানুষ কচুরিপানা দিয়ে বাড়িঘর রক্ষার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে হাওরতীরের মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে ষান্মাসিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

নেত্রকোনা : পহেলা জুলাই থেকে খোলা বাজারে চাল বিক্রি কার্যক্রম (ওএমএস) বন্ধ থাকায় আগাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত নেত্রকোনার হাওরাঞ্চলের শত শত কৃষক পরিবারে চরম খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন ওএমএস ডিলারের দোকানে ভিড় করেন কৃষকরা। চাল না পেয়ে খালি হাতে ফিরে যান। মদন উপজেলার ভারপ্রাপ্ত খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, জুন পর্যন্ত ওএমএস কার্যক্রমের বরাদ্দ ছিল। নতুন করে বরাদ্দ না আসায় এর কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ওএমএস ডিলার নুরে আলম সিদ্দিকী বলেন, ঈদুল ফিতরের পর চাল উত্তোলনের চিঠি না আসায় আমরা ডিও করতে পারছি না। প্রতিদিন শত শত ক্ষতিগ্রস্ত লোকজন চাল নিতে আমাদের দোকানে ভিড় করছেন। আমরা তাদেরকে সান্ত্বনা দিয়ে বিদায় করছি।

সুনামগঞ্জ : হাওরের ফসলহারা কৃষক ও হতদরিদ্রদের মাঝে ওএমএসের চাল বিক্রি আবারও বন্ধ হয়ে গেছে। এতে ফসলহারা কৃষক পরিবারগুলো বিপাকে পড়েছে। এ ব্যাপারে জামালগঞ্জ সরকারি খাদ্যগুদামের ওসি এলএসডি অসীম কুমার তালুকদার বলেন, সরকারি সিদ্ধান্ত ও নির্দেশনা মোতাবেক ৩০ জুন থেকে ওএমএসের চাল বিক্রি বন্ধ রয়েছে। কেন বন্ধ জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা সরকারের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা ভালো বলতে পারবেন।

জামালগঞ্জ উপজেলার পাকনার হাওরপারের কৃষক তাজউদ্দিন বলেন, ফসল হারানোর পর লাজ-লজ্জা ভুলে বাঁচার তাগিদে লাইনে এসে ওএমএসের চাল কিনতাম। এখন সেটাও বন্ধ হয়ে গেছে। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাপাড়া গ্রামের কৃষক আকবর আলী বলেন, ফসলহারা কৃষকদের অবস্থা খুবই নাজুক। এ অবস্থায় ওএমএস বন্ধ থাকলে মানুষের অবস্থা আরও খারাপ হবে।

ভৈরব : বুধবার সকাল ৬টার দিকে প্রবল বর্ষণে ভৈরব রেলস্টেশনের অদূরে সিগন্যাল পয়েন্ট সংলগ্ন ২৯ নম্বর সেতুর কাছে রেললাইনের মাটি ধসে গেছে। এতে তিতাস ট্রেন প্রায় ১ ঘণ্টা আটকা ছিল। পরে রেলওয়ের কর্মচারীরা ধসে যাওয়া মাটি ভরাট করে দিলে সকাল ৭টার দিকে ট্রেন চলাচল ফের স্বাভাবিক হয়। ভৈরব রেলস্টেশন মাস্টার অমৃত লাল দাস বলেন, ওই সময় তিতাস ছাড়া অন্য কোনো ট্রেন না থাকায় চলাচলে তেমন কোনো সমস্যা হয়নি।

চাটমোহর (পাবনা) : চাটমোহরে তিন দিন ধরে টানা বর্ষণের কারণে জনজীবনে স্থবিরতা নেমে এসেছে। পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। দুর্ভোগে পড়েছে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

ধোবাউড়া (ময়মনসিংহ) : ধোবাউড়ায় বেতগাছিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পানির নিচে। উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দূরে পোড়াকান্দুলিয়া ইউনিয়নে অবস্থিত বিদ্যালয়টি এখন নেতাই নদীর ভাঙনে হুমকির মুখে রয়েছে। এখনই রক্ষার উদ্যোগ না নিলে যে কোনো সময় নদীর স্রোতে ভেসে যেতে পারে বিদ্যালয় ভবনটি।

বরিশাল : বুধবার সকাল থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় পানি জমে চরম দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির কারণে সাধারণ লোকজনের কর্মজীবনে দেখা দিয়েছে স্থবিরতা। বৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছে নগরীর ছিন্নমূল মানুষ ও খেটে খাওয়া মানুষ। এদিকে মৌসুমি এ লঘুচাপের কারণে বরিশাল নদীবন্দরে ১নং সংকেত দেয়া হয়েছে।

বান্দরবান : জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলা শহরে ১০টি এবং লামা উপজেলা সদরে ২টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। তবে বেসরকারিভাবে লামায় ৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। সরকারিভাবে খোলা ১২টি আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রিত ৭০৩ পরিবারের মাঝে খিচুড়ি বিতরণ করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক এবং বান্দরবান পৌর মেয়র ইসলাম বেবী জানান, প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ আশ্রয় কেন্দ্রে পরিবারগুলোর মাঝে খিচুড়ি বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

চন্দনাইশ (চট্টগ্রাম) : চন্দনাইশে ৪ দিনের অবিরাম বর্ষণে নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়ে জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে কৃষকের আউশ-আমনের বীজতলা ও রোপণ করা ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

কাউখালী (পিরোজপুর) : তিন দিন ধরে টানা বর্ষণে উপজেলার নিন্মাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। শহরের রাস্তাঘাটে হাঁটুপানি। শিক্ষার্থীরা স্কুল-কলেজে যেতে পারেনি। দিনমজুররা কাজ না পাচ্ছেন না। ফলে অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন তারা।

বগুড়া : সারিয়াকান্দি উপজেলার কামালপুর ইউনিয়নের রৌহাদহ, চন্দনবাইশা ইউনিয়নের শেখপাড়া, চরঘুঘুমারি, কুতুবপুর ইউনিয়নের নিচ কর্ণিবাড়ি, ধলিরকান্দি ও বয়রাকান্দি গ্রামে নতুন করে বন্যার পানি ঢুকেছে। এতে প্রায় ১ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রুহুল আমিন জানান, বুধবার সকালে যমুনার পানি বিপদসীমার ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

কক্সবাজার, টেকনাফ ও চকরিয়া : প্রবল বর্ষণে টেকনাফ-কক্সবাজার সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। টানা বর্ষণ ও বৈরী আবহাওয়ার ফলে কক্সবাজারের আকাশে এসেও অবতরণ করতে পারেনি বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট। এদিকে বুধবার চকরিয়ায় আরও নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। মাতামুহুরি নদীর চিরিঙ্গা ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। পাহাড়ি ঢলে ভেসে গেছে ৫টি বসতবাড়ি। অভ্যন্তরীণ সড়কগুলো বন্যার পানিতে তলিয়ে থাকায় যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এলাকার প্রায় ৩ লাখ মানুষ তিন দিন ধরে পানিবন্দি।

কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের প্রধান প্রধান নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বিশেষ করে ব্রহ্মপুত্রের পানি বাড়ছে দ্রুতগতিতে। পানি বাড়ার ফলে এরই মধ্যে দুই শতাধিক চর ও দ্বীপচরের নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। অনেকের ঘরবাড়িতে পানি ঢুকেছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ১০ হাজার পরিবারের ৫০ হাজার মানুষ। ডুবে গেছে পাট, আউশ, সবজিসহ কিছু ফসল। এ ছাড়া ভাঙনে গৃহহীন হয়েছে শতাধিক পরিবার। -যুগান্তর

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সিলেটে পানিবন্দী দেড় লাখ মানুষ 

5533

সিলেট, ৪ জুলাই : দেশের বড় অংশজুড়ে বন্যার পূর্বাভাস পাওয়া গেছে। আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের সূত্র মতে, উত্তর-পূর্বাঞ্চল সিলেট-মৌলভীবাজারে বিদ্যমান বন্যার মধ্যেই দেশের উত্তরাঞ্চল এবং ধীরে ধীরে মধ্য ও দক্ষিণাঞ্চলের বেশ কিছু জেলায় বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। এরই মধ্যে তিস্তা, ব্রহ্মপুত্রে পানি বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। আগামী তিনদিন যমুনার পানিও বৃদ্ধি পাবে। এ মাসের শেষের দিকে পানি বাড়বে পদ্মায়ও। তবে ধীরে ধীরে সিলেট অঞ্চলের সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি কমতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য মতে, ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে এরই মধ্যে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলা সিলেট, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জে বন্যা দেখা দিয়েছে। কুশিয়ারা নদীতে পানি বাড়ছে। এ ছাড়া দেশের উত্তরাঞ্চলে যমুনা নদীর পানিও বাড়ছে। আগামী ৭২ ঘণ্টায় যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে। যমুনার পানি বাড়ার কারণে উত্তরের পাঁচ জেলা কুড়িগ্রাম, জামালপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া ও সিরাজগঞ্জে এ মাসে বন্যা হবে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় রয়েছে। মৌসুমি বায়ুর অক্ষ রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকার কারণে গতকালের ধারাবাহিকতায় আজ মঙ্গলবারও ঢাকা, রংপুর, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে। কোথাও কোথাও ভারি ও অতিভারি বর্ষণ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

এদিকে ভারি বর্ষণের পাশাপাশি উজানের ঢলও আসতে শুরু করেছে বেশ কিছুদিন আগ থেকে। গত কয়েক দিনে সিলেট, মৌলভীবাজার, লালমনিরহাট ও শরীয়তপুরে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ার কারণে পানিবন্দি হয়েছে অনেক পরিবার। বন্যার সঙ্গে ভাঙনও দেখা দিয়েছে হবিগঞ্জ, সিলেট ও মৌলভীবাজারে। উজান থেকে নেমে আসা পানিতে তিস্তার পানি বিপত্সীমার ওপরে উঠে প্লাবিত হয়েছে লালমনিরহাটের কয়েকটি গ্রাম।

সিলেট জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, সিলেটে গতকাল নতুন করে বন্যার পানি বাড়েনি। কিন্তু কুশিয়ারা নদীর পানি না কমায় জেলার বিয়ানীবাজার, ফেঞ্চুগঞ্জ, ওসমানীনগর, গোলাপগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলার দেড় শতাধিক গ্রামের মানুষ পানিবন্দী রয়েছে। এর বাইরে সিলেট সদর, দক্ষিণ সুরমা, কোম্পানীগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলারও ৪৫টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সিলেটে ভূমিকম্প 

898

সিলেট, ২ জুলাই : সিলেট অঞ্চলে আজ রবিবার দুপুরের দিকে মৃদু ভূকম্পন অনুভূত হয়েছে। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভূমিকম্প পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র থেকে জানানো হয়, আজ বেলা ১১টা ২৭ মিনিটে সিলেট অঞ্চলে ভূমিকম্প অনুভূত হয়।

রিখটার স্কেলে ভূমিকম্পটির তীব্রতা ছিল ৪ দশমিক ৭। ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল সিলেট থেকে ২৮৩ কিলোমিটার দূরে, ভারতে।

তবে ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

আর্থকোয়েক ট্রাক ওয়েবসাইটে জানানো হয়, ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ভারতের মণিপুরে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

পাহাড় ধস: সিলেটের সঙ্গে রেল যোগাযোগ বন্ধ 

36

সিলেট, ১৯ জুন : মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়ায় পাহাড় ধসের কারণে সিলেটের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। সোমবার সকাল সোয়া ৮টা থেকে রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

শ্রীমঙ্গলের স্টেশন মাস্টার ফয়জুর রাহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রেল কর্মীরা লাইন থেকে মাটি সারানোর কাজ শুরু করেছেন। ঘণ্টাখানেকের মধ্যে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হতে পারে বলে তিনি আশা করছেন।

এ ঘটনায় কমলগঞ্জের ভানুগাছ রেলওয়ে স্টেশনে সিলেট থেকে ঢাকামুখী ‘কালনী এক্সপ্রেস’ আটকা পড়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সিলেটে স্বজন সমাবেশের ইফতার মাহফিল 

0

হাবিব সরোয়ার আজাদ, সিলেট,  ১২ জুন : সিলেটে যুগান্তর স্বজন সমাবেশের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ রোববার নগরীর জিন্দাবাজারস্থ নজরুল একাডেমিতে এই মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ইফতারে যুগান্তর স্বজন সমাবেশের বিভিন্ন শাখার স্বজনসহ সিলেটের সাহিত্য ও সংস্কৃতি কর্মীরা অংশ নেন। ইফতারের পূর্বে রমজানের তাৎপর্য ও ইফতারের গুরুত্ব নিয়ে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা স্বজনের সভাপতি প্রভাষক সুমন রায়ের সভাপতিত্বে ও জেলা স্বজনের সহ সভাপতি সুবিনয় আচার্য্য রাজুর পরিচালনায় এসময় বক্তব্য রাখেন, যুগান্তর সিলেট ব্যুরো প্রধান সংগ্রাম সিংহ, সিলেট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও যুগান্তরের রিপোর্টার আব্দুর রশিদ রেনু, দক্ষিণ সুরমা প্রেসক্লাবের সভাপতি ও যুগান্তরের রিপোর্টার আজমল খান এবং স্বজন সমাবেশের বিভাগীয় সমন্বয়কারী প্রণবকান্তি দেব।

আলোচনা শেষে সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম অনির পরিচালনায় দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। ইফতার মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, যুগান্তরের স্টাফ রিপোর্টার হাবিব সারোয়ার আজাদ, স্বজন সমাবেশের সাবেক সভাপতি লায়ন মেহেদী কাবুল, সহ সভাপতি কুলসুমা বেগম, সঙ্গিত শিল্পী অন্তরা বিশ্বাস, সংস্কৃতি কর্মী মামুন পারভেজ, জেলা স্বজনের সাংগঠনিক সম্পাদক শাওন আহমদ, সহ সাধারণ সম্পাদক সোহান মিয়া, শাহরিয়ার রাহী, দপ্তর সম্পাদক সুলতান হোসেন চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মো. রবিউস সানী, ক্রীড়া সম্পাদক যীশু আচার্য্য, পাঠচক্র সম্পাদক ঈশিতা পুরকায়স্থ, সমাজ সেবা সম্পাদক মীর মিশকাত মৌ, কার্যকরী সদস্য তানিয়া খান শাম্মী, আরাফাত হোসেন ও রুবেল রাজ প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

১০ ঘণ্টা পর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক 

8

সিলেট, ১১ জুন : দশ ঘণ্টা পর সিলেটের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়েছে। আজ রবিবার সকাল ৮টার দিকে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এর আগে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে ইঞ্জিনসহ দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিক থেকে সিলেটের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ ছিল।

শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার ফয়জুর রহমান জানান, শনিবার রাত ১০টার দিকে আখাউড়া থেকে আসা ডেমু ট্রেনটি লাউয়াছড়া এলাকা অতিক্রম করছিল। এসময় রেললাইনের ওপর একটি গাছ উপড়ে পড়ে। গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ইঞ্জিনসহ সামনের দুটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে যায়।

এ ঘটনার পর সিলেট-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট পথে রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। শ্রীমঙ্গল ও ভানুগাছ স্টেশনে আটকা পড়ে চট্টগ্রামগামী উদয়ন, ঢাকাগামী উপবন, লোকাল ট্রেন সুরমা ও জালালাবাদ। খবর পেয়ে রাত ২টার দিকে কুলাউড়া ও আখাউড়া থেকে দুটি উদ্ধারকারী ট্রেন গিয়ে কাজ শুরু করে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর