২২ জুলাই ২০১৭
দুপুর ২:৫৫, শনিবার

বান্দরবানের ২ যুবক অপহৃত, মুক্তিপণ দাবি

বান্দরবানের ২ যুবক অপহৃত, মুক্তিপণ দাবি 

588

বান্দরবান, ১০ জুলাই : বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী-ঈদগড় সড়কে দুই যুবককে অপহরণের ৪৫ ঘণ্টা পর স্বজনদের কাছে মুঠোফোনে ছয় লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে অপহরণকারীরা। রবিবার বিকালে একটি গ্রামীণ নম্বর থেকে এ মুক্তিপণ চাওয়া হয়।

অপহৃত নুরুল আমিনের বড় ভাই শফিকুল ইসলাম জানান, রবিবার বিকালের দিকে একটি গ্রামীণ নাম্বার (০১৭৭৮-৯৬২৬৪৬) থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার পুনর্বাসন পাড়ার বাসিন্দা জনৈক মুসলিম গাজীর মুঠোফোনে মুক্তিপণের খবর দেয় অপহরণকারীরা। পরে ওই নাম্বারে যোগাযোগ করলে তারা অপহৃত দুজনকে পেতে চাইলে ছয় লাখ টাকা দিতে হবে বলে জানায়।

এদিকে রামু থানা, বাইশারী তদন্ত কেন্দ্র, ঈদগড় পুলিশসহ নাইক্ষ্যংছড়িস্থ ৩১ বিজিবি অপহৃতদের উদ্ধারে জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (উপ-পরিদর্শক) আবু মুসা বলেন, মুক্তিপণের বিষয়ে স্বজনদের কাছ থেকে কোন ধরনের তথ্য প্রশাসনকে জানানো হয়নি। তবে অপহৃতদের উদ্ধারে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাত ১০টার দিকে সড়কের অলিরঝিরি নামক স্থান থেকে সাদ্দাম এবং নুরুল আমিনকে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

পাহাড়ধসে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৩০ 

91

বান্দরবান, ১৪ জুন : দুইদিনের টানা ভারী বর্ষণে চট্টগ্রাম বিভাগের তিন জেলায় পাহাড়ধসে মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত চার সেনা সদস্যসহ ১৩০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

মৃতের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সর্বশষ খবর অনুযায়ী রাঙামাটিতে ৭৬ জন, চট্টগ্রামে ২৭ এবং বান্দরবানে ৭জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত পাহাড়ধসে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৩০ জনের মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস ও সেনা বাহিনীর সদস্যরা। সন্ধ্যার পর উদ্ধার করা হয় আরও কয়েকজনকে।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে গত রবিবার থেকে দেশের দক্ষিণ পূর্বের জেলাগুলোতে চলছে ভারি বৃষ্টিপাত। পাহাড়ি ঢলে সোমবার রাতে পরিস্থিতি নাজুক হয়ে পড়লে চট্টগ্রামের সঙ্গে রাঙামাটি ও বান্দরবানসহ কক্সবাজারের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এরই মধ্যে বৃষ্টির পানিতে মাটি সরে গেলে সদর উপজেলাসহ রাঙামাটির বিভিন্ন এলাকা, বান্দরবান ও চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলায় পাহাড় ধস ও গাছচাপার এ ঘটনা ঘটে।

টানা বর্ষণে পাহাড় ধসে রাঙামাটিতে সেনা কর্মকর্তা ও সদস্যসহ ৭৬ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে রাঙামাটি শহরে ২৪ জন, শহরের পাশে মানিকছড়ি এলাকায় চার সেনা সদস্য, কাউখালী উপজেলায় ২৮ জন, কাপ্তাই উপজেলায় ১৫ জন ও বিলাইছড়ি উপজেলায় পাঁচজন নিহত হয়েছেন। জেলার সিভিল সার্জন ডা. শহীদ তালুকদার জানান, পাহাড়ধসে রাঙামাটি শহরে ৭৬ জন মারা গেছেন। মানিকছড়ি এলাকায় মারা গেছেন চার সেনা সদস্য। এর মধ্যে সেনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন তানভীরের মরদেহ রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে এসেছে। এ ছাড়া আরও তিন সেনাসদস্য এখানে ভর্তি হয়েছেন।

সেনা সদস্য হতাহত হওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ভোরে রাঙামাটির মানিকছড়িতে একটি পাহাড় ধসে মাটি ও গাছ পড়ে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি মহাসড়ক বন্ধ হয়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে রাঙামাটি জোন সদরের নির্দেশে মানিকছড়ি আর্মি ক্যাম্প থেকে সেনাবাহিনীর একটি দল উক্ত সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করতে উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করে। উদ্ধার কার্যক্রম চলার সময় আনুমানিক বেলা ১১টায় উদ্ধার কার্যস্থল সংলগ্ন পাহাড়ের একটি বড় অংশ উদ্ধারকারী দলের ওপর ধসে পড়লে তারা মূল সড়ক থেকে ৩০ ফুট নিচে পড়ে যান। পরে একই ক্যাম্প থেকে আরও একটি উদ্ধারকারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুজন সেনা কর্মকর্তাসহ চারজন সেনাসদস্যকে নিহত এবং ১০ জন সেনাসদস্যকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে পাহাড় ধসে ৬ জনের মৃত্যু 

2

বান্দরবান, ১৩ জুন : ভারী বর্ষণে বান্দরবানে পাহাড় ধসে শিশুসহ ছয়জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। সোমবার রাত ২টার দিকে জেলার কালাঘাটা, আগাপাড়া ও জেলেপাড়ায় এ পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে।

বান্দরবান ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা স্বপন কুমার ঘোষ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতদের মধ্যে তিনজন নারী।

মঙ্গলবার ভোরে জেলার কালাঘাটা, আগাপাড়া ও জা্ইল্যাপাড়ায় ভারি বর্ষণের পর পাহাড় ধসের এসব ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- রেবি ত্রিপুরা (২৪), লতা বড়ুয়া (৭), মিতু বড়ুয়া (৫), শুভ বড়ুয়া (৪), কামরুন নাহার (৪০) ও সুপ্রিয়া বেগম (৮)।

এ ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছেন কয়েকজন। তারা হলেন- পসান ত্রিপুরা (২২), বীর বাহাদুর ত্রিপুরা (১৬) ও দুজাকিন ত্রিপুরা (২৬), জাইল্লাপাড়ার কামরুন্নাহার ও তার মেয়ে সুফিয়া (২০)।

শহরের কালাঘাটা কবরস্থান এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, পাহাড়ের পাদদেশে প্রায় ২০ ফুট লম্বা একটি কাঁচাঘরের এক-চতুর্থাংশ মাটির নিচে চাপা পড়েছে।

ওই বাড়ির মালিক মাহমুদ মিয়া জানান, রাত ৩টার দিকে হঠাৎ পাহাড় ধসে তাদের কাচাঘরটি একাংশ চাপা পড়ে। এত রেবির মৃত্যু হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নিজের মাথায় রাইফেল ঠেকিয়ে কনস্টেবলের গুলি 

111

বান্দরবান, ৩১ মার্চ : বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ঘুমধুম তদন্ত কেন্দ্রে এক পুলিশ কনস্টেবল নিজের মাথায় রাইফেল ঠেকিয়ে গুলি করেছেন।

আজ শুক্রবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে তদন্ত কেন্দ্রের ভেতরেই এ ঘটনা ঘটে বলে লামা সার্কেলের এএসপি ভূঁইয়া মাহবুব হাসান জানিয়েছেন। তুষার নমের ২৬ বছর বয়সী ওই পুলিশ সদস্যকে কক্সবাজার হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে। গুলিতে তার মাথায় যে ক্ষত তৈরি হয়েছে তাতে তার বাঁচার আশা দেখছেন না পুলিশ কর্মকর্তারা।

এসএসপি ভূঁইয়া মাহবুব বলেন, তুষারের বাড়ি চট্টগ্রামে। গত কিছুদিন ধরে তিনি ঘুমধুম তদন্ত কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করছিলেন। আমি শুনেছি সে হতাশায় ভুগছিল। আজ আকস্মিকভাবে নিজের সার্ভিসের রাইফেল মাথায় ঠেকিয়ে সে ট্রিগার টিপে দেয়। তাৎক্ষণিকভাবে এর বেশি তথ্য জানাতে পারেননি এই পুলিশ কর্মকর্তা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লামায় বৃদ্ধ দম্পতি খুন 

leig0bq8-copy

ঢাকা, ২৫ মার্চ : বান্দরবানের লামায় বৃদ্ধ এক দম্পতিকে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার সকালে লামার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছার মারমা অধ্যুসিত ছোট পাড়া এলাকা থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তারা হলেন, ক্যহ্লাচিং মারমা(৭০) ও চিংহ্লা মে মারমা (৬৫)।

তাদের কী কারণে হত্যা করা হয়েছে তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

নিহতদের ছেলে মংক্যহ্লা মারমা জানান, তারা তিন ভাই, তিন বোন। সবাই আলাদাভাবে থাকেন। বাবা- মা একাই থাকেন। সকালে ভাত রান্না করতে এসে তার স্ত্রী রক্তাক্ত অবস্থায় বাবা-মাকে দেখতে পায়। পরে চিৎকার করলে আশপাশ বাড়ির লোকেরা ছুটে আসে। পরে তারা দেখতে পায় বাবাকে গলা কেটে ও মায়ের বুকে ও পেটে ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়।

তিনি বলেন, বাবার ইয়াংছা ছোট পাড়ায় জমি রয়েছে। তবে জমি নিয়ে ভাই-বোন কিংবা অন্যদের সঙ্গে কোনো বিরোধ নেই। কী কারণে বাবা-মাকে খুন করা হলো তা বুঝতে পারছি না।

ইয়াংছা ছোট পাড়ার প্রধান (কার্বারি) অংশৈপ্রু মার্মা বলেন, ওই দম্পতির সঙ্গে কারও শত্রুতা আছে এমন জানা নেই। এলাকায় সবার সঙ্গে তাদের সুসর্ম্পক ছিল। কেন তাদের এভাবে খুন করা হলো তা বুঝতে পারছি না।

লামা থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, ক্যহ্লাচিং মারমাকে গলা কেটে তার স্ত্রী চিংহ্লা মে মারমাকে বুকে ও পেটে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে এখনো আটক করা যায়নি।

জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় সাংবাদিকদের বলেন, দম্পতি হত্যার কারণ জানার জন্য তদন্ত চলছে।

হত্যার সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা রয়েছে কী না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি মাথায় রেখে তদন্ত চলছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরে ১৩ মে এক বৌদ্ধ ভিক্ষু ও ৩০ জুনে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে একইভাবে গলা কেটে হত্যা করা হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ঘরে ঢুকে স্বামী-স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা 

3958

বান্দরবান, ২৫ মার্চ : বান্দরবানের লামা উপজেলায় ঘরে ঢুকে এক দম্পতিকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাতে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা ছোট পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ক্যহ্লাচিং মার্মা (৭৫) ও তার স্ত্রী চিংহ্লানি মার্মা (৫০)। ক্যহ্লাচিং মার্মা ইয়াংছা ছোট পাড়ার বাসিন্দা ও মৃত মংছাচি মার্মার ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রাতের খাবার শেষে এই দম্পতি প্রতিদিনের মতো নিজ ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। রাতের কোনো এক সময় দুর্বৃত্তরা তাদের গলা কেটে হত্যা করে টাকা ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে পালিয়ে যায়।

লামা থানার ওসি মো. আনোয়ার হোসেন জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বাল্য বিবাহ ঠেকাতে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীর আত্মহত্যা 

বান্দরবান, ২৪ ডিসেম্বর : লামার গজালিয়া ইউনিয়নের সাপমারা ঝিরি এলাকায় বাল্য বিবাহ ঠেকাতে ১৩ বছরের এক মাদ্রাসার ছাত্রী গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। শনিবার বিকালে বসতঘরের ছাদের বিমের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ইয়াছমিন আক্তার আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে।

লামা থানার পুলিশের পরিদর্শক জাহেদ নুর আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মাদ্রাসার ছাত্রীর মা শফিকা বেগম(৩৯) জানিয়েছেন, তিন ভাই বোনের মধ্যে ইয়াছমিন ২য় সন্তান। পরিবারের একমাত্র কন্যা সন্তান সে। সে লামা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা হতে সপ্তম শ্রেণীর বার্ষিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন। শুক্রবার সকালে লামা পৌরসভার টিটিএন্ডডিসি এলাকার আমির হোসেনের ছেলে ফারুক হোসেনের সাথে বিবাহ দেয়ার জন্য প্রস্তাব নিয়ে ৩জন তাদের বাসায় যায়। এসময় মেয়ের মা শফিকা বেগম বাড়িতে ছিলেননা। বাড়িতে এসে বিয়ের প্রস্তাবের বিষয়টি জানতে পারেন।

নিহত ইয়াছমিন আক্তার বিয়ের প্রস্তাবের খবর শুনে প্রতিবাদ করেন। এক পর্যায়ে শনিবার বিকেলে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। তার পিতা নুর মোহাম্মদ রাঙ্গামাটিতে ও বড় ভাই মোঃ ইসমাইল হোসেন চট্টগ্রামে দিনমজুরের কাজ করেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লামায় গণপিটুনিতে সন্দেহভাজন ২ অপহরণকারী নিহত 

33

চট্টগ্রাম, ২ নভেম্বর : বান্দরবানের লামায় গণপিটুনিতে সন্দেহভাজন দুই অপহরণকারী নিহত হয়েছেন। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি পুলিশ।

বুধবার ভোর রাতে উপজেলার ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের দুর্গম বগাবিল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

লামা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইকবাল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, নিহতদের নাম-পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। তাদের বয়স ৩৫ থেকে ৪০ বছর হবে।

ওসি জানান, ঘটনাস্থলে লাশের সুরতহাল সম্পন্ন করে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হবে।

ফাসিয়াখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন মজুমদার জানান, মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে ফাসিয়াখালী ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ড হারগাজা ফকিরখোলা এলাকা থেকে ৪ জনকে অপহরণ করা হয়।

অপহৃতরা হলেন- মাইনুর আলম (৩৭), জাবের আহমেদ (৩৩), মো. জহির (৪০) ও কালা পুতু (৩৫)।

তিনি জানান, পরে পুলিশ ও স্থানীয় জনতা অভিযান চালিয়ে রাত ১১টার দিকে দুর্গম বগাবিল এলাকা থেকে তাদের উদ্ধার করে।

অপহৃতদের মধ্যে জাবের আহমেদ নামের একজন গুরুতর আহত হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, ভোর রাতের দিকে বগাবিল এলাকায় সন্দেহভাজন দু’জনকে দেখে স্থানীয় জনতা তাদের ধাওয়া দিয়ে ধরে গণপিটুনি দেয়। এতে ঘটনাস্থলে তারা মারা যায়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে রাবার বাগানের ৩ প্রহরী অপহৃত 

43

বান্দরবান, ২৩ অক্টোবর : জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়ন থেকে রাবার বাগানের তিন প্রহরীকে অপহরণ করা হয়েছে।

শনিবার রাত ১০টার দিকে বাইশারীর পিএইচপি গ্রুপের ৮নং রাবার বাগানে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, পিএইচপি গ্রুপের ৮নং রাবার বাগানের প্রহরী আজিজুল হক, নুরুল ইসলাম ও আবদুল শুক্কুর বাগানের ফ্যাক্টরির ভেতরে শুয়ে থাকা অবস্থায় কিছু উপজাতীয় দুর্বৃত্ত তাদের অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে আজিজুল হকের বড় ভাই আবদুল হামিদ জানান, অপহরণের পর তাদের মোবাইল থেকে ফোন করে প্রত্যেকের জন্য তিনলাখ টাকা করে মুক্তিপণ দাবি করেছে অপহরকারীরা।

বাইশারী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই মুছা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, “ঘটনাটি শোনার পরপরই আমরা তদন্ত শুরু করেছি। তদন্তের পর বিস্তারিত বলতে পারব।”

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে বন্যহাতির আক্রমণে কৃষকের মৃত্যু 

88

বান্দরবান, ৩০ সেপ্টেম্বর : বান্দরবানের কদুখোলায় বন্য হাতির আক্রমণে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার সকালে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার সূয়ালক ইউনিয়নের কদুখোলায় বন্য হাতির আক্রমণে সিরাজুল ইসলাম (৫০) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় বন্যহাতির দল ধানী জমি এবং কলা বাগান ভেঙ্গে তছনছ করেছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিক উল্লাহ জানান, ঘরের বাইরে ক্ষেতে কাজ করতে যাবার সময় বন্য হাতির আক্রমণে কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে ‘সন্ত্রাসী’ সন্দেহে ২ যুবককে পিটিয়ে হত্যা 

784

বান্দরবান, ৭ সেপ্টেম্বর : বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার আলেক্ষ্যংয়ে সন্ত্রাসী সন্দেহে দুই যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে উত্তেজিত জনতা।

মঙ্গলবার দিনগত রাত পৌনে একটার দিকে ইউনিয়নের অংগ্য পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান রোয়াংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর আলী।

নিহতরা হলেন- উক্যহ্লা মারমা (৩২) ও হ্লামং (২৫)। তাদের বাড়ি বান্দরবান জেলার লামা উপজেলায়।

রোয়াংছড়ির আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গা জানান, গভীর রাতে ওই দুই যুবক থুই সা চিং মারমা নামে এক পাড়া কার্বারির ছেলের ওপর হামলা চালাতে গেলে স্থানীয় লোকজন তাদের সন্ত্রাসী সন্দেহে ধরে গণপিটুনি দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

ওসি ওমর আলী জানান, খবর পেয়ে সকালে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বান্দরবান সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নাইক্ষ্যংছড়িতে বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষের উপর হামলা 

000000000076

বান্দরবান, ৫ আগস্ট : বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার একটি বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ তাইন্নামার উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার বাইশারি ইউনিয়নে ভাবনাখালি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাতে মুখোশ পরিহিত ৫/৬ জন ভাবনখালী বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষের ওপর হামলা চালায়। এ সময় বৌদ্ধ ভিক্ষুসহ তার দুই শিষ্য বিহারে অবস্থান করছিলেন। দুর্বৃত্তদের বিহারের দরজা ভাঙার আওয়াজ শুনতে পেয়ে হামলার খবর বিহারের মাইকে প্রচার করে। পরে এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

এদিকে, রাতে বিহারের নিরাপত্তায় পুলিশের পাশাপাশি স্থানীয়রাও বিহারের আশপাশে টহল দিতে থাকে।

বিহারের অধ্যক্ষ তাইন্নমা জানান, হামলায় বিহারের কয়েকটা দরজা-জানালা ভেঙে গেছে।

বাইশারী পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) আবু মুছা বলেন, রাত থেকে ওই এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত ১৩ মে বাইশারি ইউনিয়নে বৌদ্ধ ভিক্ষু মং শৈ উ চাককে বিহারের মধ্যে জবাই করে এবং ৩০ জুন একই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি মংশৈনু মারমাকে (৫৬) কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা 

98

বান্দরবান, ১ জুলাই : বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে আওয়ামী লীগ নেতা মংশৈনু মারমাকে (৫৬) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাইশারী ইউনিয়নের বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় মারমা শশ্মানের পাশের রাস্তায় মংশৈনু মারমাকে (৫৬) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তার বাড়ি মারমাপাড়ায়।

বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আনিসুর রহমান জানান, ঘটনাস্থল থেকে মংশৈনু মারমার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এ কে এম জাহাঙ্গীর বলেন, কারা কী কারণে মংশৈনু মারমাকে হত্যা করেছে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এটা নির্বাচনী সহিংসতা হতে পারে বা অন্য কোনো কারণও থাকতে পারে বলে জানান তিনি।

গত ১৩ জুন আওয়ামী লীগের আরেক নেতা মংপ্রু মারমাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় অস্ত্রধারী দুর্বৃত্তরা। দলটির অভিযোগ, জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) লোকজন তাঁকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বান্দরবানে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ শুরু 

85

বান্দরবান, ১৫ জুন : অপহৃত আওয়ামী লীগ নেতা মং পু মারমাকে ছেড়ে না দেওয়ায় আজ বুধবার সকালে বান্দরবান জেলায় অনির্দিষ্টকালের সড়ক ও নৌপথ অবরোধ শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগ বান্দরবান জেলা শাখা এ অবরোধের ডাক দিয়েছে।

এদিকে আকস্মিক অবরোধে ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে বান্দরবান অভিমুখী যাত্রীবাহী বাস ও নৈশ কোচগুলো জেলার প্রবেশ দ্বার সুয়ালকে আটকা পড়েছে। সকাল ছয়টার পর বান্দরবান থেকে ছেড়ে যেতে পারেনি কোনো বাস। ফলে দুভোর্গে পড়েছে পর্যটকসহ হাজার হাজার যাত্রী।

গত সোমবার রাতে বান্দরবান সদর উপজেলার জামছড়ি মুখ পাড়ায় অবস্থিত নিজ বাড়ি থেকে সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য মং পু মারমাকে অপহরণ করা হয়।

বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগ এ অপহরণের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তাকে সুস্থ অবস্থায় ছেড়ে দে‌ওয়ার আলটিমেটাম দেয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে দলীয় নেতা মুক্তি না পাওয়ায় বুধবার ভোর ছয়টা থেকে অনির্দিষ্টকালের অবরোধ শুরু করে সরকার পরিচালনার দায়িত্বে থাকা দলটির স্থানীয় শাখা।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, অপহৃত মং পু মারমাকে উদ্ধারে সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো হচ্ছে। সেনাবাহিনীর কয়েকটি ইউনিটও অংশ নিয়েছে উদ্ধার অভিযানে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিজিবিতে প্রথম ৯৭ নারী জোয়ান 

598

বান্দরবান, ৫ জুন :  প্রথমবারের মতো বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে (বিজিবি) ৯৭ জন নারী সদস্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

রবিবার চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় বায়তুল ইজ্জত বিজিবির ট্রেনিং সেন্টারে ৮৮তম রিক্রুট ব্যাচের সমাপনী কুচকাওয়াজে ৯৭ জন নারীসহ এক হাজার ১৪৪ জন নবীন জোয়ান অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদ্জ্জুামান খান কামাল। অনুষ্ঠানে অন্যন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ডার গার্ড ট্রেনিং সেন্টার অ্যান্ড স্কুলের কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আনোয়ার শফিক, ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং মেজর জেনারেল মো. জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার, ১০ পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং মেজর জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান, সাতকানিয়ার সংসদ সদস্য অধ্যাপক আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দীন নদভী, চন্দনাইশ এলাকার সংসদ সদস্য মো. নজরল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের একজন সদস্য হিসেবে তোমাদের ওপর অর্পিত হলো দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার মহান দায়িত্ব। মনোবল, ভ্রাতৃত্ববোধ, শৃঙ্খলা ও দক্ষতা এই বাহিনীর মূলনীতি। এগুলোর প্রতি বিশ্বস্ত থেকে এবং তা হৃদয়ে ধারণ করে আগামীতে অর্পিত দায়িত্ব আরো নিষ্ঠার সাথে পালন করতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আদেশ ও কর্তব্য পালনে যে কখনো পিছপা হয় না, সেই প্রকৃত সৈনিক। বর্তমান সরকারের যুগান্তকারী উদ্যোগ ও দিকনির্দেশনায় কর্মক্ষেত্রে নানা পেশার পুরুষের পাশাপাশি নারীর অংশগ্রহণ ও সম-অধিকার প্রতিষ্ঠা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিজিবিতে প্রথমবারের মতো মহিলা জোয়ান ভর্তির প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর