২৪ জুন ২০১৭
বিকাল ৪:৩৫, শনিবার

ফুলগাজীতে মা-মেয়ে খুন, আটক ২

ফুলগাজীতে মা-মেয়ে খুন, আটক ২ 

358

ফেনী, ২৫ মে : ফেনীর ফুলগাজী উপজেলায় মা ও শিশুকে ঘরে ঢুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে।

বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার জিএমহাট ইউনিয়নের পূর্ব বশিবপুর গ্রামের নিজাম উদ্দিন ভূঞা বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- ওই গ্রামের মনির আহম্মদ ভুঁইয়ার মেয়ে ফাতেমা সাথী (২৫) ও সাথীর মেয়ে শান্তিকা ইসলাম ইসমা (৪)।

নিহত ফাতেমার বোন আয়েশা কলি বলেন, সন্ধ্যার পরে বাড়ির লোকজন তাদের সাড়া না পেয়ে ঘরে ঢুকে রক্তাক্ত লাশ দেখতে পায়। বিকাল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে কোনো একসময় মা-মেয়েকে হত্যা করা হয় বলে তাদের ধারণা।

কয়েক মাস আগে স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর থেকে ফাতেমা বাবার বাড়িতেই থাকছিলেন। পরিবারের সন্দেহ, ফাতেমার স্বামী শাহাদাত হোসেন রিমন (৩৫) জেলে থাকলেও এ হত্যাকাণ্ডের পেছনে তিনি থাকতে পারেন।

ফুলগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এম মোর্শেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহত ফাতেমা সাথী স্বামী পরিত্যক্তা। তিনি তার বাবার বাড়িতে থাকেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে দুইজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

ওসি বলেন, মা-মেয়ের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে তাদের হত্যা করা হয়েছে পুলিশ তা অনুসন্ধান করছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে কৃষি কর্মকর্তার ঝুলন্ত মরদেহ 

395

ফেনী, ৩ মে : ফেনীর সোনাগাজীতে ভানুলাল দাস (৫২) নামে তার নিজ অফিস কক্ষ থেকে এক কৃষি কর্মকর্তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার উপজেলার কুঠির হাট এলাকায় রাতে এ ঘটনা ঘটে।

সোনাগাজী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ময়নাতদন্তের পর এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।

নিহত ভানুলাল দাস ফেনী জেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

একরাম হত্যায় আ’লীগ নেতা জাহেদ অস্ত্রসহ গ্রেফতার 

gjp973rg-copy

ফেনী, ১৬ এপ্রিল : ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যা মামলার জামিনে থাকা অন্যতম আসামি ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাহেদ চৌধুরীকে দুটি অস্ত্র, গুলিসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার দুপুরে ফেনী আদালতপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে সাক্ষী উপস্থিত না হওয়ায় জেলা ও দায়রা জজ আগামী ২৩ এপ্রিল এ মামলার পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, দুপুরে ফেনী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজিরা দেন জাহেদ চৌধুরী।

ফেনী থানার ওসি রাশেদ চৌধুরী জানান, দুপুর দেড়টার দিকে আদালতপাড়া থেকে জাহেদ চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তল্লাশি করে তার কাছ থেকে একটি বিদেশি রিভলবার ও এর ৩ রাউন্ড গুলি এবং একটি এলজি গান ও এর ৪ রাউন্ড বুলেট উদ্ধার করে পুলিশ।

ফেনী আদালত সূত্র জানায়, এর আগে একরাম হত্যা মামলার তদন্তকালে গ্রেফতারের পর জাহেদ চৌধুরী দায় স্বীকার করে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিলেন। তদন্ত শেষে পুলিশ জাহেদ চৌধুরীসহ ৫৬ জনকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দেয়। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন।

এদিকে রোববার সাক্ষী উপস্থিত না হওয়ায় মামলার তারিখ আগামী ২৩ এপ্রিল ধার্য করা হয়েছে।

আদালতের পিপি হাফেজ আহামদ জানান, ফেনীর সাবেক দুই সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ ১০ জনের উপস্থিত থাকার তারিখ রোববার নির্ধারিত ছিল। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে ফেনীর সাবেক সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট খায়রুল আমিন ও জালাল উদ্দিন জেলা জজ আদালতে উপস্থিত থাকতে পারেননি। এ দুই সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে একরাম হত্যা মামলার ১৬ আসামি দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছিল।

২০১৪ সালের ২০ মে ফেনী শহরের একাডেমি এলাকায় ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি একরামুল হক একরামকে কুপিয়ে, গুলি করে ও পুড়িয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সোনাগাজীতে ঝড়ে বিধ্বস্ত ১৩ শ ঘরবাড়ি 

ফেনী, ৬ এপ্রিল : ফেনীর উপকূলীয় সোনাগাজী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ঝড়ে প্রায় ১৩৩০টি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। এদিকে, বেসরকারি সূত্র ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানায়, প্রায় দুই হাজার ঘর বাড়ি ঝড়ের কবলে পড়ে বিধ্বস্ত হয়েছে।

বুধবার রাতে সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মিনহাজুর রহমান জানান, এ উপজেলায় ঝড়ে ৯টি ইউনিয়নের ১৩৩০টি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৫০০টি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং অবশিষ্ট ৮৩০টি ঘরবাড়ির আংশিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তিনি আরও জানান, সব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের নিদের্শনা দেওয়া হয়েছে দ্রুত সময়ের মধ্যে ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা পাঠানোর জন্য।

সোনাগাজী সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শামসুল আরেফিন বলেন, ঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তার ইউনিয়নের ৫ শ পরিবার। এসব পরিবার বৃষ্টির মধ্যে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান করছে। তাদের উদ্ধার কাজে সহায়তা করছে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির কয়েকটি ইউনিট।

সোনাগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান জেড এ কামরুল আনাম জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য উপজেলা প্রশাসন শিগগিরই ত্রাণের ব্যবস্থা করছে। এদিকে, ঝড়ে উপজেলার সবক’টি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় পল্লীবিদ্যুৎ লাইনের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় বিদ্যুৎসেবা থেকে বঞ্চিত রয়েছে এলাকাবাসী।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে দুই কোটি টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৩ 

7

ফেনী, ২৯ মার্চ : ফেনীতে দুই কোটি টাকা মূল্যের ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যবলেটসহ তিনজনকে আটক করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার মধ্যরাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনীর মহিপাল এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হচ্ছেন- গাড়িচালক মো.শাহাবুর আলী, ইয়াবা ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম ও তারসঙ্গী মনিষা আক্তার মৌ। আটকদের বাড়ি রাজশাহী জেলায়। এসময় তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কারটিও জব্দ করা হয়।

র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার শাফায়াত জামিল ফাহিম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব সদস্যরা মঙ্গলবার মধ্যরাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনীর মহিপাল এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি শুরু করে। এসময় চট্টগ্রাম থেকে রাজশাহীগামী একটি সাদা রঙের প্রাইভেটকার থামানোর সংকেত দিলে চালক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

পরে ধাওয়া করে গাড়িটি আটক করে তল্লাশি চালায় র‌্যাব। এসময় গাড়ির তেলের ট্যাংকির পাশ থেকে ২০টি বান্ডেলে ২০০টি এয়ারটাইট পলিব্যাগের ভিতরে ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব আরও জানায়, আটকদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে আসামি ও উদ্ধারকৃত মালামাল ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তর করা হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

পুলিশ-মাদক ব্যবসায়ী সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধসহ আহত ১৫ 

ফেনী, ১৮ মার্চ : ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় পুলিশ ও মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে পুলিশসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।

শনিবার ভোর ৪টার দিকে উপজেলার সাইদকান্দি এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়।

পুলিশের ভাষ্যে, গুলিবিদ্ধদের মধ্যে অন্যতম ফকির মিয়া এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে সোনাগাজী থানায় মাদকসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

সোনাগাজী মডেল থানা ওসি হুমায়ুন কবীর জানান, ভোরে পুলিশের একটি দল ফকির মিয়ার বাড়িতে অভিযানে যায়। এ সময় উপিস্থতি টের পেয়ে ফকির মিয়া ও তার অনুসারিরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়।

এ সময় পুলিশ তাদের নিবৃত্ত করতে ছয় রাউন্ড গুলি চালায়। এতে ফকির মিয়া গুলিবিদ্ধ হন এবং পুলিশসহ আরও অন্তত ১৪ জন আহত হন।

ফকির মিয়াকে ফেনীর সদর হাসপাতালে এবং সাত পুলিশসহ আহত  অন্যদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছে।

এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ১০ কেজি গাঁজা, এক হাজার পিস ইয়াবা ও বিভিন্ন ব্রান্ডের বিপুল পরিমাণ মদের বোতল উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় আনসার সদস্য নিহত 

ফেনী, ৯ মার্চ : জেলার ফুলগাজী সীমান্তে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের সময় মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় এক আনসার সদস্য নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

গতকাল বুধবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার বদরপুর সীমান্তে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আনসার সদস্যের নাম- নওশের আলী। হামলার সময় তাকে সীমান্তের ভারতীয় অংশে নিয়ে যায় মাদক ব্যবসায়ীরা। সেখানে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের হেফাজতে তাঁর লাশ রয়েছে।

আহত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নাম সোহেল রানা। বর্তমানে তিনি ফুলগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

সোহেল রানা জানান, বুধবার রাত ৯টার দিকে ফুলগাজী উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের বদরপুর সীমান্তের খানাবাড়ী এলাকায় পুলিশসহ তিনি অভিযান চালান। এসময় মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশের উপর হামলা চালান। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। পুলিশ ও আনসার সদস্যদের বাঁচাতে গেলে মাদক ব্যবসায়ীরা তাকে কুপিয়ে আহত করেন। তার হাত, বাহুসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে কোপ লাগে। সেই সময় হামলাকারীরা আনসার সদস্য নওশের আলীকে ধরে ভারত সীমান্তে নিয়ে যায়। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

ফুলগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কিসিঞ্জার চাকমা আনসার সদস্য নিহত হওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন।

বদরপুর সীমান্ত এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত ১০ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল গোলাম সরওয়ার জানান, এ বিষয়ে বিএসএফের সঙ্গে পতাকা বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে বিএসএফ জানিয়েছে, থানা পুলিশের কার্যক্রম শেষে আজকের মধ্যে লাশ হস্তান্তর করা হবে। তবে কখন লাশ হস্তান্তর করা হবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়

বর্তমানে বদরপুর এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। খানাবাড়ী ভারত সীমান্তে হওয়ায় বিজিবি ও পুলিশের অভিযানকালে মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসীরা সেই বাড়িতে অবস্থান নেন।

মাদক ব্যবসায়ীদের ধরার জন্য বিজিবি বিএসএফ পতাকা বৈঠকের ব্যবস্থা নিয়েছে বলেও জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা 

ফেনী, ৩০ জানুয়ারি: ফেনীর দাগনভূঞায় বিবি কুলসুম ঝর্ণা (৩৬) নামের এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল রবিবার দিবাগত রাতে সদর ইউনিয়নের দক্ষিণ আলীপুর গ্রামের ছমির মুন্সি হাটের নেজাম উদ্দিন মালের বাড়িতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

নিহত গৃহবধূ ওই গ্রামের ওমান প্রবাসী ওলি উল্যাহর স্ত্রী। তিনি তিন সন্তনের জননী।

নিহতের ভাগিনা শাহাদাত হোসেন জানান, গতকাল দিবাগত রাত ২টার দিকে ৫/৬ জন দুর্বৃত্ত সিঁধ কেটে ঘরে ঢুকে। এসময় তাদেরকে চিনতে পারায় গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে বলে তাদের ধারণা। নিহতের ছেলে আবিদ হাছান সিয়াম এক পর্যায়ে শৌর চিকৎকার শুরু করলে দুর্বৃত্তরা দ্রুত পালিয়ে যায়। তবে তারা ঘরের কোন মালামাল নিতে পারেনি।

দাগনভূঞা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আসলাম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে দুই শিশু সন্তানসহ মায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যু 

ফেনী

ফেনী, ১২ ডিসেম্বর : ফেনী শহরে সোমবার সন্ধ্যায় দুই শিশু সন্তানসহ এক মায়ের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, শিশুদের হত্যার পর মা আত্মহত্যা করেছেন। শহরের পশ্চিম উকিলপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

ওই বাড়ির প্রতিবেশীরা জানায়, সন্ধ্যা ৬টার দিকে ভূঁইয়া বাড়ির নিচ তলার ফ্ল্যাট বাসার দরজা ভেঙে সারজিনা আক্তার মুক্তা (২৬), তার মেয়ে তাসলিমা আক্তার মাহি (৭) ও ছেলে মাহিম উদ্দিনের (৫) লাশ উদ্ধার করা হয়। সন্ধ্যায় ওই শিশুদের গৃহশিক্ষক তাদের পড়াতে এসে অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করেন। সাড়া না পেয়ে তিনি প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলেন। তারা দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে লাশগুলো বিছানায় পড়ে থাকতে দেখেন।

এর পরপরই বোনের খবর নিতে ওই বাসায় যান মুক্তার ভাই মাসুদ। তিনি লাশগুলো দেখে হতভম্ব হয়ে পড়েন। মুক্তার স্বামী নূর মোহাম্মদ তারেক ইতালিপ্রবাসী। মাসুদ জানান, দুপুরে মুক্তা ও তারেকের মোবাইল ফোনে ঝগড়া হয়। এরপর ফোন করে তারেক মুক্তার খবর নিতে মাসুদকে ওই বাসায় পাঠান।

বাড়ির মালিকের মা মালেকা বেগম জানান, এক বছর আগে মুক্তা উকিলপাড়ার এ বাড়িতে বাসা ভাড়া নেয়। তার স্বামী এক মাস আগে বাড়ি থেকে ফের ইতালি যান। তিনি আরও জানান, তারেক-মুক্তার দাম্পত্য সম্পর্ক খারাপ- এমন কিছু তারা দেখেননি। দুপুরে মুক্তার ছেলে ও মেয়ে স্কুলে পরীক্ষা দিয়ে বাসায় আসে। এরা স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ে। শিশুদের ভালো স্কুলে পড়ানোর জন্যই মুক্তা গ্রামের বাড়ি মধুয়াই থেকে ফেনীতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকছিলেন। শহরের এ বাড়িটি মুক্তার নানার। মুক্তা এ বাড়িতেই বড় হয়েছেন বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থলে ফেনী থানার ওসি মাশেদ খান জানান, নিহতদের লাশ খাটের ওপর পাওয়া যায়। তাদের শারীরিক অবস্থা দেখে প্রাথমিকভাবে বিষপানে আত্মহত্যা বলে মনে হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্তের পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে ৩০ হাজার ইয়াবাসহ একজন আটক 

1758

ফেনী, ৮ ডিসেম্বর : ফেনীতে প্রায় ৩০ হাজার (২৯ হাজার ৯৫০ পিস) ইয়াবাসহ এক ব্যক্তিকে আটক করেছে র‍্যাব। বুধবার বিকালে ফেনীর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের লালপুল এলাকা থেকে ওই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। এ সময় ইয়াবা পাচারে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেটকারও জব্দ করা হয়।

আটক ব্যক্তির নাম মো. আজিজুল ইসলাম ওরফে সাইফুল (৩২)। তিনি ভোলা জেলার সদর থানার রুহিতা গ্রামের মৃত আলী আশ্রাফের ছেলে।

র‍্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লিডার শাফায়াত জামিল ফাহিম বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ফেনীর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের লালপুল এলাকায় অভিযান চালানো হয়। সড়কে অবস্থান নেওয়া র‍্যাব সদস্যরা চট্টগ্রাম থেকে মহিপালগামী একটি পুরাতন প্রাইভেটকার থামানোর জন্য সংকেত দিলে চালক বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালিয়ে দ্রুত র‍্যাব সদস্যদের অতিক্রম করে চলে যায়। তবে মহাসড়কে যানজট সৃষ্টি হওয়ায় সে গাড়ি থামাতে বাধ্য হয়। ওই গাড়ি তল্লাশি করে চালকের বাঁ পাশে আসনের নিচ থেকে ২৯ হাজার ৯৫০ ইয়াবা উদ্ধার করে র‍্যাব। ইয়াবাগুলো অভিনব কায়দায় আসনের নিচে বায়ুনিরোধী পলিব্যাগে লুকানো ছিল।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ 

399

ফেনী, ১৮ নভেম্বর : ফেনীর লালপুরে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

শুক্রবার ভোরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের লালপুরে এ বন্দুকযুদ্ধ হয়।

তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। তবে তাদের বয়স আনুমানিক ২৫ থেকে ৩০ বছর।

র‌্যাবের দাবি, নিহতরা মহাসড়কে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে র‌্যাবের টহল দলের সঙ্গে তাদের বন্দুকযুদ্ধ হয়। ঘটনাস্থল থেকে ২টি ওয়ান শুটারগান, ২টি পিস্তল, বিপুল পরিমাণ গুলি ও তিনটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করা হয়েছে।

পরে র‌্যাবের পক্ষ থেকে লাশ দুটি ফেনী সদর হাসপাতাল মর্গে রেখে যাওয়া হয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে ডাকাতিকালে অস্ত্রসহ আটক ১১ 

36

ফেনী, ৪ নভেম্বর : ফেনীতে ডাকাতির সময় ১১ ডাকাতকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় গ্রামবাসী। তাদের মধ্যে ৮ জনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ২টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ ৪ রাউন্ড গুলি, ৬টি চাপাতিসহ ডাকাতির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষ্যদর্শীরা জানান, শুক্রবার ভোর ৩টার দিকে ফেনী-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের সদর উপজেলার পাঁছগাছিয়া ইউনিয়নে কাশিমপুর এলাকায় ব্যারিকেড দিয়ে, বিভিন্ন গাড়িতে ডাকাতি করছিল এই ডাকাত দল। এসময় যাত্রীদের চিৎকার শুনে এলাকার কয়েকজন মাইকে ঘোষণা দিলে স্থানীয়রা ছুটে আসেন।

পরে ৩ জনকে হাতেনাতে ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। বাকিরা পালিয়ে মহাসড়কের পাশে বিক্ষিপ্তভাবে কয়েকটি বাড়িতে অবস্থান নিয়ে বাড়ির লোকদের জিম্মি করে। পরে পুলিশ ও স্থানীয়রা এলাকা ঘিরে ফেলে ৮ জনকে আটক করে।

ফেনী মডেল থানার ওসি মাহবুব মোর্শেদ জানান, আটককৃতরা পেশাদার ডাকাত, তাদের বিরুদ্ধে ফেনীসহ বিভিন্নস্থানে ডজন মামলা রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার আসামি গ্রেফতার 

0988

ফেনী, ২০ সেপ্টেম্বর : শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে গ্রেনেড মামলার পলাতক আসামি হরকাতুল জিহাদ (হুজি) সদস্য আবু ওবায়দা হারুনকে ফেনী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সোমবার রাতে ফেনী শহরের ট্রাংক রোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, আবু ওবায়দা হারুন ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের মধ্যম চরচান্দিয়া গ্রামের আবু তৈয়ব মাওলানা ওরফে গোলাম কিবরিয়ার ছেলে।

গ্রেফতারকৃত আবু ওবায়দা হারুন ২০০৪ সালে সিলেটে তত্কালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে গ্রেনেড হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলার অন্যতম আসামি। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে সোনাগাজী মডেল থানায় দুটি হত্যা ও একটি বিস্ফোরণসহ ৭টি মামলা রয়েছে। সে দীর্ঘদিন পলাতক ছিল।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ফেনীতে যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা 

787

ফেনী, ৭ সেপ্টেম্বর : ফেনী সদর উপজেলার বালিগাঁও ইউনিয়নের মধুয়্যাই এলাকায় জয়নাল আবদীন (৪৫) নামে যুবলীগের এক নেতাকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত জয়নাল আবদীন বালিগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য। তার বাড়ি মধুয়্যাই গ্রামে। তিনি ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সহসভাপতি।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রাত সাড়ে ৯টার দিকে জয়নাল আবদীন ফেনী শহর থেকে ফেনী-কুটিরহাট সড়ক হয়ে মোটরসাইকেলযোগে মধুয়্যাই গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। বাড়ির অদূরে এ্যাক্কার দোকান এলাকায় আগে থেকে ওত পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি করে। এতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় স্থানীয় লোকজনকে এগিয়ে আসতে দেখে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী গুরুতর আহত জয়নালকে উদ্ধার করে ফেনী সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

ফেনী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) অসীম কুমার সাহা জানান, ময়নাতদন্তের জন্য জয়নাল আবদীনের লাশ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

ফেনী সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শাহীনুজ্জামান বলেন, দুর্বৃত্তদের গুলিতে জয়নাল আবদীনের মৃত্যুর হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নিজাম হাজারীর ভাগ্য নির্ধারণ আজ 

847

ফেনী, ১৭ আগস্ট : ফেনী-২ আসনের সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারীর সংসদ সদস্যপদ চ্যালেঞ্জ করে করা রিটের রায় ঘোষণা আজ বুধবার। বিকাল ২টায় বিচারপতি মো. এমদাদুল হক ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করবেন। সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্টে বিভাগের কার্যতালিকায় মামলাটি রায় ঘোষণার জন্য ৩১ নম্বরে রয়েছে।

গত ৩ আগস্ট রিট আবেদনের শুনানি শেষে রায় ঘোষণার জন্য ১৭ আগস্ট দিন নির্ধারণ করেন আদালত।  নিজাম হাজারীর পক্ষে শুনানি করেন  জ্যেষ্ঠ আইনজীবী শফিক আহমেদ, সাংসদ নুরুল ইসলাম সুজন। রিট আবেদনকারী পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী এবং সত্য রঞ্জন মণ্ডল।

‘সাজা কম খেটেই বেরিয়ে যান সাংসদ’ শিরোনামে ২০১৪ সালের ১০ মে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়৷ এতে বলা হয়, ২০০০ সালের ১৬ আগস্ট অস্ত্র আইনের এক মামলায় নিজাম হাজারীর ১০ বছরের কারাদণ্ড হয়। কিন্তু দুই বছর ১০ মাস কম সাজা খেটে তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পান। পরে ওই প্রতিবেদন যুক্ত করে নিজাম হাজারীর সাংসদ পদে থাকার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেন ফেনী জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন ভূঁইয়া। রিট আবেদনে বলা হয়, সংবিধানের ৬৬(২) (ঘ) অনুচ্ছেদ অনুসারে, কোনো ব্যক্তি সংসদের সদস্য নির্বাচিত হওয়ার এবং সংসদ সদস্য থাকার যোগ্য হবেন না, যদি তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কোনো ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কমপক্ষে দুই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং তার মুক্তিলাভের পর পাঁচ বছর অতিবাহিত না হয়ে থাকে। সে হিসেবে নিজাম হাজারী ২০১৫ সালের আগে সাংসদ হতে পারেন না। অথচ তিনি ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সাংসদ হয়েছেন।

রিট আবেদনের ওপর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০১৪ সালের ৮ জুন হাইকোর্ট রুল দেন। তবে পরে হাইকোর্টের দুটি বেঞ্চে এই রুল শুনানির জন্য কার্যতালিকায় উঠলেও বেঞ্চ দুটি শুনানিতে বিব্রতবোধ করেন। গত ১৯ জানুয়ারি হাইকোর্টের এই বেঞ্চে রুল শুনানি শুরু হয়।

এর আগে হাইকোর্টের আদেশ অনুযায়ী কারা মহাপরিদর্শকের পাঠানো প্রতিবেদন ১৯ জুলাই আদালতে উপস্থাপন করা হয়। এতে বলা হয়, ১০ বছরের সাজার মধ্যে নিজাম হাজারী সাজা খেটেছেন ৫ বছর ৮ মাস ১৯ দিন। কারা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সাজা রেয়াত পেয়েছেন ১ বছর ৮ মাস ২৫ (৬২৫ দিন)। রেয়াতসহ মোট সাজা ভোগ করেছেন ৭ বছর ৫ মাস ১৪ দিন। এখনো সাজা খাটা বাকি আছে ২ বছর ৬ মাস ১৬ দিন। তিনি মুক্তিপান ২০০৬ সালের ১ জুন।

প্রতিবেদন উপস্থাপনের দিনই (১৯ জুলাই) এর ওপর লিখিত জবাব দেয়ার জন্য নিজাম হাজারীর আইনজীবী আদালতের কাছে সময় চান। সে অনুযায়ী গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হয়। এরপর আজ বুধবার আবারও শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানি শেষ ১৭ আগস্ট রায়ের জন্য দিন ধার্য করেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর