১৮ আগস্ট ২০১৭
বিকাল ৪:৫৫, শুক্রবার

শিবিরকর্মী সন্দেহে চার ছাত্রকে পিটিয়ে পুলিশে দিল ছাত্রলীগ

শিবিরকর্মী সন্দেহে চার ছাত্রকে পিটিয়ে পুলিশে দিল ছাত্রলীগ 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১৬ জুলাই : শিবিরকর্মী সন্দেহে ৪ কলেজ ছাত্রকে পিটিয়ে পুলিশে দিল লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। রোবববার (১৬ জুলাই) বিকেলে কলেজ সংলগ্ন ইব্রাহিম ম্যানশন ভবনের ব্যাচেলর ম্যাচ থেকে তাদের ধরে এনে মারধর করে থানা পুলিশে সোপর্দ করে করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে বেশ কয়েকটি ইসলামিক বই ও মার্বেল পাওয়া যায়।

আটক ছাত্ররা হলেন- নুর হোসেন, রাসেল উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন ও জাফর আহম্মেদ। তারা লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র বলে জানা গেছে। তবে তারা ছাত্র-শিবিরের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত আছে কিনা তা জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঘটনার সময় সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম রকি ২০-২৫ নেতাকর্মী এসে ওই ম্যাচে তল্লাশী চালায়। এসময় শিবির সন্দেহে তারা ৫ ছাত্রকে তুলে নিয়ে যায়। পরে তাদেরকে কলেজ মাঠে নিয়ে মারধর করা হয়। এসময় একজন দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। অপর ৪জনকে পুলিশে খবর দিয়ে সোপর্দ করা হয়।

সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম রকি বলেন, গোপন সংবাদে ভিত্তিতে মারবেল ও জিহাদী বইসহ ৪জনকে আটক করে পুলিশ দেয়া হয়েছে। তবে তাদেরকে মারধর করার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

লক্ষ্মীপুর মডেল থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) একেএম ফজলুল হক বলেন, চার ছাত্রকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসছে। বিষয়টি যাচাই-বাচাই করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের শামছুল ইসলাম আর নেই 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১৪ জুলাই : লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শামছুল ইসলাম (৭৫) ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্নালিলাহি… রাজিউন)। শুক্রবার (১৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৭টায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। তিনি বেশ কিছুদিন যাবত জ্বর ও কিডনিজনিত রোগে ভুগছিলেন।

লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আবু তাহের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে রেখে গেছেন। শামছুল ইসলাম সদর উপজেলার বশিকপুর গ্রামের মৃত হাজী জবেদ উল্লাহ’র ছেলে।

তার মুত্যুতে লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য একেএম শাহ্জাহান কামাল, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম সালাহ্ উদ্দিন টিপু ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী মাহমুদুন্নবী সোহেল গভীর শোক প্রকাশ করেন।

শামছুল ইসলাম সাবেক সচিব ও জেলা পরিষদের প্রশাসক ছিলেন। জেলা পরিষদের নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

মরহুমের নামাজে জানাযা বিকেল ৫টায় শহরের আদর্শ সামাদ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। পরে সদর উপজেলার বশিকপুর গ্রামে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ডিপ্লোমা চালু রাখার দাবিতে লক্ষ্মীপুরে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১৩ জুলাই : ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু রাখার দাবিতে মানববন্ধন করেছে লক্ষ্মীপুর সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার (১৩ জুলাই) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন তারা। পরে জেলা প্রশাসক হোমায়রা বেগমের কাছে স্বারকলিপি প্রদান করে শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, নাজমুল হাসান, মো. আনোয়ার হোসেন ও শাহনাজ আক্তার সীমা প্রমুখ। এসময় শিক্ষার্থীরা বলেন, ২০১৬ সালে সরকার দেশের ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স চালু করেন। এসব শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে ওই কোর্সে ৬ হাজারেরও বেশী ছাত্র-ছাত্রী অধ্যায়নরত রয়েছে। হঠাৎ একটি কুচক্রীমহল ও প্রাইভেট পলিটেকনিক ব্যবসায়ীদের একটি অংশ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ হতে ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স করতে সরকারের অনুমতি নেই এমন অপপ্রচারণা চালিয়ে তা বন্ধ করার পাঁয়তারা করছেন বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা। এর প্রতিবাদে মানববন্ধনের মাধ্যমে কোর্সটি চালু রাখার দাবিতে প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রামগঞ্জে আ’লীগ নেতাকে পিটিয়ে আহত 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১২ জুলাই : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উল্যা জিসানকে বেদম পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। বুধবার (১২ জুলাই) সন্ধ্যায় রামগঞ্জ ডাকবাংলোর পাশের একটি দোকানে এ ঘটনা ঘটে। তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ঘটনার সময় উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহবায়ক সৈকত মাহমুদ সামছুর ভাই সম্রাট কয়েক সহযোগীকে নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা জিসানের ওপর হামলা চালায়। এসময় তাকে বেদম পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে মোটরসাইকেলযোগে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। আহতের হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখমের চিহ্ন রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতা জানায়, ১৫জুলাই উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আতংক সৃষ্টি করতে এ হামলা চালানো হয়। আহত জিসান আওয়ামী লীগ নেতা শাহজাহানের অনুসারী বলে জানা গেছে।

রামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান বলেন, ঘটনাটি ন্যাক্কারজনক। হামলার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করতে প্রশাসনের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।
রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোতা মিয়া বলেন, ঘটনাটি কেউ পুলিশকে জানায়নি। অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে লক্ষ্মীপুরে তাল গাছের চারা রোপন 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১২ জুলাই : বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে; প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে লক্ষ্মীপুরে তাল গাছের চারা রোপন করা হচ্ছে। বুধবার (১৩ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের চর মনসা গ্রামের মোসলেহ উদ্দিন নিজাম সড়কের দু’পাশে ৩শ’ তালের চারা রোপন করা হয়।
বাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন লক্ষ্মীপুর শাখা এ তালের চারা রোপন কর্মসূচীর আয়োজন করে। কর্মসূচীর উদ্ধোধন করেন লক্ষ্মীপুরের জেলা প্রশাসক হোমায়রা বেগম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন লক্ষ্মীপুর শাখার সভাপতি এটিএম খোরশেদ আলম, সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মামুনুর রশিদসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন লক্ষ্মীপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল হোসেন বলেন, বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রী তাল গাছ রোপন করতে আহ্বান জানান। মানুষের কল্যাণে প্রধান মন্ত্রীর আহ্বানে সংগঠনের উদ্যোগে রাস্তার পাশে ৩শ’ তালের চারা রোপন করা হয়েছে। চলতি বছর জেলার ৫ উপজেলায় মোট ৩ হাজার তালের চারা রোপন করা হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বাবাকে কুপিয়ে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ, আটক-৫ 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৯ জুলাই : লক্ষ্মীপুরে বাবাকে কুপিয়ে ও মাকে পিটিয়ে অস্ত্রের মুখে এক কলেজ ছাত্রীকে তুলে নিয়ে গেছে হেলাল উদ্দিন (২৬) নামে এক নির্মাণ শ্রমিক। রোববার (৯ জুলাই) সকালে লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে এ ঘটনায় জড়িত ৫জনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে আটককৃতদের নাম-পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

এর আগে শনিবার রাতে হেলাল ১০-১২ জন সহযোগী নিয়ে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার আবিরনগর গ্রামের কাশেম ড্রাইভারের বাড়িতে হামলা চালিয়ে কলেজছাত্রীকে তুলে নিয়ে যায়। এসময় কলেজছাত্রীর বাবা আবুল কাশেমকে (৫৪) কুপিয়ে ও তার মা কুলসুম বেগমকে (৪৩) পিটিয়ে আহত করে অপহরণকারীরা। পরে স্থানীয়রা তাদেরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অপহৃত কলেজছাত্রী ভবানীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ থেকে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন।

পুলিশ ও অপহৃতার পরিবার জানায়, স্থানীয় আবিরনগর গ্রামের বাসিন্দা লেংড়া খোকনের ছেলে নির্মাণ শ্রমিক হেলাল উদ্দিন দীর্ঘদিন থেকে তাদের পাশ্ববর্তী ওই কলেজছাত্রীকে নানাভাবে উত্যক্ত করে আসছে। সম্প্রতি ওই ছাত্রীর বিয়ের কথাবার্তা চলছিল। শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই ছাত্রীর মা-বাবা তাদের রান্না ঘরে খাবার খেতে যান। এ সময় বখাটে হেলাল ও তার সহযোগীরা রান্না ঘরে তাদেরকে আটকে রেখে বসত ঘরে ঢুকে। পরে ওই ছাত্রীকে জোরপূর্বক মুখ বেঁধে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যায়। মেয়ের চিৎকার শুনে বাবা-মা রান্না ঘরের বেড়া ভেঙ্গে বের হয়ে অপহরণকারীদের বাধা দেয়। এসময় বাবা আবুল কাশেমকে কুপিয়ে ও মা কুলসুমকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছাত্রীর বাবা আবুল কাশেম বলেন, ১০-১২জন সন্ত্রাসী রাতে আমার বসত ঘরে এসে আমাকে এবং আমার স্ত্রীকে কুপিয়ে ও মারধর করে অস্ত্রের মুখে আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে যায়।

ছাত্রীর মা কুলসুম বেগম বলেন, সন্ত্রাসীরা আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে গেছে। আমি আমার মেয়েকে সুস্থ্য অবস্থায় ফিরে পেতে সরকার ও প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাই।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) আনোয়ার হোসেন বলেন, আবুল কাশেম নামের ওই ছাত্রীর বাবাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার হাত ও পায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

লক্ষ্মীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা মো. লোকমান হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অপহরণের সাথে জড়িত ৫জনকে আটক করা হযেছে। অপহৃতাকে উদ্ধারে পুলিশী অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সড়কের বেহাল দশা, দুর্ভোগে এলাকাবাসী 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৮ জুলাই : লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ড লাহারকান্দি এলাকার খামার বাড়ী প্রায় আধা কিলোমিটার সলিং সড়কের বেহাল অবস্থা। সড়কটির কিছুদূর পর পর ইট উঠে ও ভেঙ্গে গিয়ে ছোট-বড় বহু গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে এ রুটে চলাচলকারী ৫ হাজার মানুষকে দূর্ভোগ পোহাতে হয়। দূর্ভোগ যেন এ রুটে চলাচলকারীদের নিত্য সঙ্গী। স্থানীয়রা দ্রুত সড়কটি সংস্কার করার জন্য পৌরসভার মেয়র ও ওয়ার্ড কাউন্সিলরের হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। শনিবার দুপুরে সরেজমিন ওই এলাকায় গিয়ে মানুষের দূর্ভোগের এ চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, লাহারকান্দি এলাকার মিয়ার বাগবাড়ী সামনে থেকে খামার বাড়ী পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কটির বেহাল দশা। এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন স্কুল-কলেজ ও মাদ্রসা পড়–য়া শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষ চলাচল করে। রাস্তাটি ভেঙ্গে  ছোট-বড় বহু গর্তে পরিণত হয়েছে। এমনকি রাস্তা ও কালভার্টের দু পাশের মাটি সরে গিয়ে আতংকের জম্ম দিয়েছে।

খামার বাড়ী এলাকার চা দোকানী মো. খোরশেদ আলম বলেন,বর্তমান সরকারে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ হলেও আমরা আজও অবহেলিত রয়ে গেছি। বর্ষাকালে আমার দোকানের সামনে দিয়ে চলাচলের একেবারে অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

মধ্য আবিরনগর রসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল কাদের বলেন, ভারি বৃষ্টির সময় সড়কটি দিয়ে চলতে খুব কষ্ট হয়। সড়কটি সংস্কার পাকা করা হলে দূর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবো।

লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ছাত্র পারভেজ হোসেন বলেন, সরকারে ডিজিটালের ছোঁয়া এখনও আমাদের গ্রামে পৌঁছেনি। এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন লক্ষ্মীপুর সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ, লাহারকান্দি উচ্চ বিদ্যালয়, দক্ষিণ লাহারকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আবিরনগর ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা, মধ্য আবির নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ওপেন হার্ট কিন্ডার গার্ডেন স্কুল ত্রন্ড কলেজ ও ইনসাফ স্কুল ত্রন্ড কলেজের কয়েকটি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা যাতায়াত করে।
ওপেন হার্ট কিন্ডার গার্ডেন স্কুল ত্রন্ড কলেজের শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন বলেন, মেয়র ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর যদি কোমল মতি শিক্ষার্থী ও স্থানীয় এলাকাবাসির দূর্ভোগের কথা ভেবে রাস্তাটি সলিং থেকে পাকা করেন হাতলে চরম দূর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে সকলে।

সড়ক মেরামতের বিষয়ে জানতে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ড কমিশনার মীর শাহাদাত হোসেন রুবেলের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রামগঞ্জে একহাজার পিস ইয়াবাসহ মহিলা আটক 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৮ জুলাই : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ইয়াবাসহ তাহমিনা আক্তার প্রকাশ খালা (৪৪) ও তার সহযোগী মোশতাক আহম্মেদ জাহাঙ্গীরকে (৪৬) আটক করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে একহাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। শনিবার (৮ জুলাই) দুপুরে তাদেরকে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে ভোর রাতে উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের সুরেরবাগ এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। তাহমিনা সুরেরবাগ গ্রামের শামিম পাটওয়ারীর স্ত্রী ও মোশতাক আহম্মেদ জাহাঙ্গীর একই এলাকার আনোয়ার উল্যার ছেলে।

পুলিশ জানায়, তাহমিনা চন্ডিপুর ও পাশ্ববর্তি এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন ছদ্মবেশে ফেরীওয়ালা সেজে ইয়াবা বিক্রি করে আসছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চন্ডিপুরের সুরেরবাগ গ্রামের হাজী সিরাজুল ইসলাম মিয়ার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার সহযোগী জাহাঙ্গীরসহ তাকে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে একহাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ তোতা মিয়া জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে রামগঞ্জ থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করা হয়েছে। তাদেরকে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

কমলনগরে মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধের ধস, নিম্মমানের কাজের অভিযোগ 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৭ জুলাই : যথাযথভাবে ব্লক স্থাপন এবং জিও ব্যাগ ড্রাম্পিং না করাসহ নানা অনিয়ম ও নিম্মমানের কাজের কারণে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর মেঘনা নদীর তীর রক্ষা বাঁধে ধস নামার অভিযোগ উঠেছে। গত এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে নদী তীর রক্ষা বাঁধের উত্তর অংশে ধস নেমে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে ফের আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে কমলনগরের মানুষ। বাঁধ ভেঙে নদীতে পড়ায় স্থানীয়দের মাঝে দেখা দিয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

শুরু থেকে নির্মাণ কাজে বিলম্ব, কাজে কচ্ছপ গতি, কারণে-অকারণে দফায় দফায় কাজ বন্ধ রাখা ও নিম্ম মানের কাজের অভিযোগ উঠে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। ওইসব পরিস্থিতির কারণে স্থানীয়রা বিক্ষোভ ও মানববন্ধনও করেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, নির্ধারিত ১ কি.মি. বাঁধের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এর মধ্যে কাজ শেষ হতে না হতেই বাঁধের উত্তর অংশের প্রায় ২০০ মিটার এলাকা ধসে পড়ছে। ভেঙ্গে গেছে বেশ কিছু অংশ। বাঁধ ভেঙে ব্লক নদীতে পড়ে যাচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ নির্মাণ কাজের প্রথম দিকে নদীর তীর রক্ষা বাঁধের দক্ষিণ অংশে জিও ব্যাগ দিয়ে ড্রাম্পিং করা হয়েছে। কিন্তু বাঁধের উত্তর অংশের প্রায় ২০০ মিটার এলাকায় জিও ব্যাগ দিয়ে ড্রাম্পিং করা হয়নি। যে কারণে বর্ষা শুরু হওয়ায় সাথে সাথে বাঁধে ধস নেমেছে। নদীর তীর রক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুদ্দিন আজম বলেন, দ্রুত সময় মধ্যে জিও ব্যাগ ডাম্পিংসহ যথাযথ উদ্যোগ না নিলে নদী তীর রক্ষা বাধাঁ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের এজিএম মাসুদ রানা বলেন, ভালো বালু প্রাপ্তিতে অসুবিধার কারণে সামান্য কিছু অংশে বালুভর্তি জিও ব্যাগ যথাসময়ে ডাম্পিং করা সম্ভব হয়নি। যে কারণে তীব্র জোয়ারে বাঁধের ওই অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মঙ্গলবার (৪ জুলাই) সকাল থেকে ফের জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী গাজী ইয়ার আলী বলেন, ড্রাম্পিং না করে ব্লক স্থাপন করা হয়েছে। এতে প্রায় ১৫০ মিটার বাঁধে ধস নেমেছে। নদীর ভিতরে ব্লক দিয়ে গার্ড লাইন দেওয়া হয়; ব্লকের পরে ৪০ মিটার জিও ব্যাগ ডাম্পিং করার কথা কিন্তু তা না করায় বাঁধ নদীতে নেমে গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড বিষয়টি দেখছে, আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ সংস্কার হবে।

২০১৪ সালে লক্ষ্মীপুরের রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় মেঘনা নদীর ভাঙন প্রতিরোধে ১৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। এ বরাদ্দ দিয়ে রামগতির আলেকজান্ডার এলাকায় সাড়ে তিন কিলোমিটার, রামগতিরহাট মাছঘাট এলাকায় এক কিলোমিটার এবং কমলনগর মাতাব্বরহাট এলাকায় এক কিলোমিটার নদীর তীর রক্ষায় বাঁধ নির্মাণের কথা। ২০১৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারিতে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ১৯ ইঞ্জিনিয়ারি কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন আলেকজান্ডার এলাকায় ভাঙন রোধে বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু করে সাড়ে তিন কিলোমিটার সফলভাবে বাস্তবায়ন করে।

এদিকে, একই সময়ের বরাদ্দকৃত টাকায় কমলনগরে এক কিলোমিটার কাজ পায় নারায়নগঞ্জ ডকইয়ার্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ। অর্থ বরাদ্দের দুই বছর পর প্রতিষ্ঠানটি ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিংকে দিয়ে কাজ শুরু করে। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে নামেমাত্র কাজ শুরু হয়। নিম্মমানের বালু ও জিও ব্যাগ দিয়ে কাজ শুরু করায় স্থানীয়দের চাপের মুখে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। বাঁধে অনিয়মের প্রতিবাদে ও যথাযথভাবে কাজ করার দাবীতে ওই সময় মানববন্ধন করে স্থানীয় এলাকাবাসী। পরবর্তীতে একই বছরের ২৩ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে বাঁধ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লক্ষ্মীপুরে সাজাপ্রাপ্ত আসামি অস্ত্রসহ গ্রেফতার 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৫ জুলাই : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে অস্ত্র মামলায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আবদুল মান্নানকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে একটি এলজি, দুই রাউন্ড গুলি ও ৩০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। বুধবার (৫ জুলাই) বিকেল ৩টার দিকে তাকে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে মঙ্গলবার (৪ জুলাই) রাতে উপজেলার করপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকা থেকে মান্নানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মান্নান নোয়াখালী জেলার চাটখিলের বদলকোট গ্রামের মৃত আবদুল লতিফের ছেলে। তার দুই স্ত্রী ও ৫সন্তান রয়েছে বলে জানা যায়। তার বিরুদ্ধে লাকসাম, চাটখিল, সোনাইমুড়ি, শাহরাস্তি থানায় ১৩টি মামলা রয়েছে। এসব মামলার বেশিরভাগই আদালতে বিচারাধীন রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ তোতা মিয়া জানান, মান্নান ২০০৯ সালে লাকসাম থানায় র‌্যাবের দায়ের করা অস্ত্র মামলায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। সে দীর্ঘদিন থেকে লাকসাম, শাহরাস্তি, সোনাইমুড়ি, চাটখিল ও রামগঞ্জ থানা এলাকায় খুন, ডাকাতি ও অস্ত্র ব্যবসায় জড়িত রয়েছে। চলতি বছরের রামগঞ্জ উপজেলার জনতা ব্যাংকে ডাকাতির অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ করপাড়া ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা সেবনরত অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করে। মান্নানের বিরুদ্ধে থানায় অস্ত্র ও মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ইউপি চেয়ারম্যান ও ওসি সুপ্রিম কোর্টে হাজির : এসপিকে প্রতিবেদনের নির্দেশ 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ৩ জুলাই :  মাটি কাটার শ্রমিক নূরুল আমিনকে (৫২) গ্রাম্য সালিসে প্রকাশ্যে বেত্রাঘাত ও নাকেখত দিতে বাধ্য করার আলোচিত ঘটনায় সুপ্রিম কোর্টে হাজির হয়েছেন লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তার হোসেন ও দত্তপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল কবির রিপন।

সোমবার (৩ জুলাই) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও এ কে এম শহিদুল হকের বেঞ্চে তারা স্ব-শরীরে হাজির হন।

এসময় আগামী রবিবার ফের শুনানীর দিনধার্য করে ইউপি চেয়ারম্যান ও ওসিকে উপস্থিত থাকতে বলা হয়। একই সময় জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) কী ব্যবস্থা নিয়েছেন, আদালতকে অবগত না করায় আগামী রবিবার লিখিত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

রিটকারী সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি মোঃ তাছেব হোসাইন বলেন, শুনানিকালে আদালত ইউপি চেয়ারম্যান ও ওসিকে ভর্স্মনা করেছেন। এসময় পুলিশ বাদী হয়ে দায়ের করা মামলায় ইউপিচেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর ধারা উল্লেখ না করে ওসি যথাযথ দায়িত্ব পালন করেননি। এতে ইউপি চেয়ারম্যানকে সুবিধা দেওয়া হয়েছে- এবিষয়েও ব্যাখ্যা দিতে আদালত ওসিকে বলেছেন।

প্রসঙ্গত, গ্রাম্য আদালতে ইউপি চেয়ারম্যান ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করার বিধান থাকলেও শ্রমিক নূরুল আমিনের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছিল। যা চাঁদাবাজীর শামিল।

গত ২১ জুন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি মোঃ তাছেব হোসাইনের করা জনস্বার্থে রিট মামলার প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিশ্বদেব চক্রবর্তীর দ্বৈত অবকাশকালীন বেঞ্চ তাদের বিরুদ্ধে এ রুল দেয়। ১৮ জুন কয়েকটি গণমাধ্যমে ছবিসহ প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। সংবাদটি জনস্বার্থে আদালতের নজরে এনে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি মোঃ তাছেব হোসাইনের রিট আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত এ রুল জারি করেন।

স্থানীয় সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক আহসানুল কবির রিপন ২য় রমজান (২৮ মে) গ্রাম্য সালিসে শ্রমিক নূরুল আমিনকে বাড়ি থেকে ধরে এনে প্রকাশ্যে নাকে খত দিতে বাধ্য করেন। এসময় তার (চেয়ারম্যান) নির্দেশে গ্রামপুলিশ জাহাঙ্গীর আলম ওই শ্রমিককে ১১টি বেত্রাঘাত করে। অভিযোগকারী শহীদ ও তার স্ত্রীর পায়ে ধরে দু’দফায় ক্ষমা চেয়েও রক্ষা পাননি তিনি। শহিদ নামে আরেক মাটি কাটা শ্রমিকের সাথে বিবাধকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ করলে তিনি ইউনিয়নের বড় আউলিয়া গ্রামে সালিসের আয়োজন করেন। সালিসের দুইদিন পর নুরুল আমিনের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করা হয়।

স্থানীয় এক ব্যক্তির গোপনে ধারণ করা এক মিনিট ৩৫ সেকেন্ডের সালিসে নির্যাতনের ভিডিওটি ১৬ জুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

এ ঘটনায় ২১ জুন চন্দ্রগঞ্জ থানার দত্তপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) শিপন বড়ুয়া বাদী হয়ে চেয়ারম্যান আহসানুল কবির রিপনসহ ৭ ব্যক্তি আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। রাতেই মামলার আসামি গ্রাম-পুলিশ জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করা হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আল্টিমেটামের মধ্যেই হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ২ জুলাই : লক্ষ্মীপুরে  রামগতিতে ছাত্রলীগ নেতা নজরুল ইসলামের খুনিদের গ্রেফতারের দাবীতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দেওয়া ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটামের মধ্যই এজাহারভূক্ত আসামী শেখ ফরিদ ওরফে শেকু ডাকাতকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার বিকাল ৪টায় আলেকজান্ডার ইউনিয়নের বালুর চর থেকে তাকে আটক করা হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে রামগতিতে অনুষ্ঠিত সমাবেশ থেকে ছাত্রলীগ নেতা হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেফতার করতে প্রশাসনকে আল্টিমেটাম দেন জেলা ছাত্রলীগর সভাপতি চৌধুরী মাহমুদুন্নবী সোহেল। তা না হলে কঠোর কর্মসূচিতে লক্ষ্মীপুরকে অচল করে দেয়ার হুমকিও দেন তিনি।

রামগতি থানার ওসি ইকবাল হোসেন জানান, শেকু ডাকাত নজরুল হত্যা মামলার ৮ নাম্বার এজাহারভূক্ত আসামী। তার বিরুদ্ধে হত্যা, চাঁদাবাজি, ডাকাতিসহ ১৩টি মামলা রয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২১ জুন সকালে চর আব্দুল্লাহ ইউনিয়নের চর গাছিয়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নুরুল ইসলাম মাঝির ছেলে নজরুল ইসলাম গং ও একই এলাকার ডাকাত খোকন বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এসময় নজরুল ও তার ভাই শেখ ফরিদ গুরুতর আহত হন। পরে তাদের দুই ভাইকে উদ্ধার করে রামগতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। গত রবিবার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য নজরুলকে নোয়াখালী হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়।

এ ঘটনায় স্থানীয় ডাকাতখ্যাত খোকনকে প্রধান করে ১৪ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করে নিহতের ভাই আবু ছায়েদ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

কমলনগরে ছাত্রলীগ নেতা পেটানোর মামলায় গ্রেফতার ২ 

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১ জুলাই : লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটির সভাপতি মাইন উদ্দিনসহ তিন নেতাকর্মীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করার ঘটানায় থানায় মামলা করা হয়েছে। ওই মামলায় পুলিশ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে।

শুক্রবার (৩০ জুন) রাতে আহত ছাত্রলীগ নেতা মাইন উদ্দিনের বাবা শফি উল্লাহ বাদী হয়ে কমলনগর থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলায় উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি আবদুস সামাদ রাজু ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান বিপ্লবসহ ২০ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ৫-৬ জনকে আজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। তবে তাদের নাম-পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

কমলনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকুল চন্দ্র বিশ্বাস মামলা ও দুই আসামি গ্রেফতার হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

শুক্রবার দুপুরে কমলনগর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের জের ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী মাহমুদুন্নবী সোহেলে বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করায় নবগঠিত ছাত্রলীগ সভাপতি মাইন উদ্দিনসহ তিন নেতাকর্মী পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করেছে ছাত্রলীগের সদ্য বিলুপ্ত হওয়া কমিটির নেতাকর্মীরা।

চলতি বছরের ৫ মার্চ আবদুস সামাদ রাজুকে সভাপতি ও  রাকিবুল হাসান বিপ্লবকে সাধারণ সম্পাদক করে কমলনগর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। তিনমাস পর ১৩ জুন লক্ষ্মীপুর জেলা ছাত্রলীগ মাইন উদ্দিনকে সভাপতি ও সাদ্দাম হোসেন আবিদকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন কমিটি ঘোষণা করে। নতুন কমিটি গঠনের পর থেকে সদ্য বিলুপ্ত কমিটির নেতারা নতুন কমিটি বাতিল করে আগের কমিটি পুনর্বহাল করার দাবিতে হাজিরহাটে মানববন্ধন, লরেন্স ও তোরাবগঞ্জে বাজারে বিক্ষোভ করেছে।

গত ২১ জুন বিকেলে ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটি মুন্সিরহাট বাজারে আনন্দ মিছিল বের করলে সদ্য বিলুপ্ত কমিটি তাদেরকে ধাওয়া করে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লক্ষ্মীপুর কারাগারে যুবদল নেতার মৃত্যু 

02

লক্ষ্মীপুর, ১ জুলাই : লক্ষ্মীপুর কারাগারে আটক থাকা মো. ফেরদৌসের (২৬) নামের এক হাজতির মৃত্যু হয়েছে। তিনি জেলার কমলনগরের হাজিরহাট ইউনিয়ন যুবদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন বলে জানিয়েছেন উপজেলা বিএনপি।

শুক্রবার দিনগত রাত ৩টার দিকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবস্থায় তার মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুর কারাগারের জেলার মো. শরিফুল ইসলাম।

মৃত ফেরদৌস কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের চর জাঙ্গালীয়া গ্রামের হোসেন আহাম্মদের ছেলে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্র ভাংচুরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় তিনি কারাগারে ছিলেন।

কমলনগর উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা চৌধুরী নিহত ফেরদৌসের দলীয় পরিচয় নিশ্চিত করেছেন।

জেলার মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে দ্রুত তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসাপাতালে পাঠানো হয়ে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লক্ষ্মীপুরের মেঘনায় মিলছে না ইলিশ 

00

জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ২৩ জুন : ঈদ মানে খুশি। তবে খুশি হতে পারছে না লক্ষ্মীপুরের জেলেরা। ভরা মৌসুমেও লক্ষ্মীপুরের মেঘনায় মিলছেনা রুপালি ইলিশ। দিনভর নদীতে জাল পেলে মাছ না পেয়ে খালি হাতে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে তাদের।

ঈদকে সামনে রেখে আনন্দ নেই এসব লক্ষ্মীপুরের জেলে পরিবার গুলোর মাঝে। হতাশা বিরাজ করছে জেলে পল্লীগুলোতে। মাছ ধরা না পড়ায় তাদের উপার্জন নেই। ব্যস্ততাও নেই ঈদের কেনাকাটা নিয়ে। ছেলে-মেয়ে কিংবা পরিবারের সদস্যদের জন্য নতুন জামা কাপড় কেনার সামর্থও নেই তাদের। এতে জেলে পল্লীগুলোতে আনন্দের চিহ্ন দেখা যাচ্ছে না।

মেঘনার লক্ষ্মীপুর সীমান্তে কোন ধরণের মাছ মিলছে না জেলেদের জালে। নদীতে ইলিশসহ অন্য প্রজাতির মাছের তীব্র সংকটের কারণে জেলার হাজার হাজার জেলে এবং ব্যবসায়ীদের মাঝে চরম হতাশা বিরাজ করছে। এদিকে মাছ ধরা না পড়ায় জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের কোন উপার্জন নেই বললেই চলে। এতে জেলে পল্লীগুলোতে ঈদের আনন্দ বেদনায় সৃষ্টি হয়েছে।

অন্যদিকে যে কয়টি ইলিশ পাওয়া যায় তা সাধারণ ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। স্বল্প পরিমাণ ইলিশ ঘাটে আসলেও এর সাথে জড়িত জেলে, আড়ৎদার ও শ্রমিকসহ অনেকেই বসে বসে পুঁজির টাকা খরচ করছেন। কমলনগর উপজেলার মতিরহাট ঘাট, লুধুয়াঘাট, রামগতি উপজেলার রামগতির ঘাট, টাংকীর ঘাট, গাবতলীর ঘাট, আলেকজান্ডার সেন্টার খাল ঘাট, সদর উপজেলার মজু চৌধুরীর ঘাট ও রায়পুর উপজেলার কয়েকটি ঘাট ঘুরে একই চিত্র দেখা গেছে।

এদিকে ইলিশ কিনতে গিয়ে অতিরিক্ত অর্থ গুণতে হচ্ছে ক্রেতাদের। বাজারে যে কয়টি ইলিশ মাছ পাওয়া যায় তারও দাম বৃদ্ধি। ৫০০ গ্রামের প্রতি কেজি ইলিশ ৯শ থেকে ১ হাজার টাকায় ও ১ কেজি ওজনের ইলিশ ১৪ শ’ থেকে ১৫ শ’ টাকায় বিক্রি করতে দেখা যায়।

রামগতি মাছ ঘাটের খোকন মাঝি জানায়, বিগত বছরগুলোতে এ সময় জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়েছিল। এবার নদীতে মাছ ধরা পড়ছে না।

মতিরহাট ঘাটের ব্যবসায়ী কবির জানান, গত বছর এ সময় এ ঘাট থেকে প্রায় ২০০ টন ইলিশ দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারে চালান হয়েছে। কিন্তু এ বছর স্থানীয়দের চাহিদাও মেটানো সম্ভব হচ্ছে না।

বাতিরখাল ঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ী মো. রফিক সাদী জানান, বৈশাখ মাস থেকে ইলিশের ভরা মৌসুম চললেও এখন পর্যন্ত জেলেদের জালে আশানুরূপ মাছ ধরা পড়ছে না। দৈনিক একটি নৌকা ২-৩ টির বেশী মাছ পায় না। আবার অনেককেই খালি হাতে ফিরতে দেখা যায়।

করইতোলা বাজারের বরফকল মালিক কালাম জানান, জেলেরা বরফ কিনতে না এলও মেশিন সবসময় চালু রাখতে হয়। এতে বরফ বিক্রি না থাকলেও বিদ্যুৎ বিল এবং অন্যান্য খরচ মেটাতে গিয়ে লোকসান গুণতে হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ত্রস ত্রম মহিবুল্ল্যাহ বলেন, ত্রই মৌসুমে নদীতে মাছ কম পাওয়া যায় ত্রবং ইলিশ জলবায়ুর সাথে জড়িত। জলবায়ুর প্রভাবের কারণে নদীতে তেমন মাছ ধরা পড়ছে না। ইলিশ হলো গভীর পানির মাছ। চর পড়ে নদীর গভীরতা কমে যাওয়ায় এবং পর্যাপ্ত ঝড়-বৃষ্টি না হওয়ায় সাগর থেকে নদীতে মাছ আসছে না বলে জানান তিনি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর