২৯ মে ২০১৭
সকাল ৮:০২, সোমবার

দিনাজপুরে বয়লার বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১২

দিনাজপুরে বয়লার বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১২ 

91

দিনাজপুর, ২৪ এপ্রিল : দিনাজপুরের সদর উপজেলায় চালকল ‘যমুনা অটোরাইস মিলে’ বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আরো আটজন মারা গেছেন। এর আগে গত বুধবারের এ বয়লার বিস্ফোরণে চারজন মারা যান। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১২ জনে।

গত শুক্রবার রাত থেকে গতকাল রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত এই আটজনের মৃত্যু হয়। তাঁদের মধ্যে দুজন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও বাকি ছয়জন রংপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। বর্তমানে রংপুর মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরো ছয়জন শ্রমিক। তাঁদের সবারই অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ইউএনবি।

এ ঘটনায় নিহতরা হলেন চালকলের ম্যানেজার রণজিৎ বসাক, শ্রমিক শফিকুল ইসলাম, উদয়, দেলোয়ার, দুলাল চন্দ্র, অঞ্জনা দেবি, মোসাদ্দেক আলী, আরিফুল হক, রুস্তম আলী, মুকুল চন্দ্র, মুন্না ও রিপন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দিনাজপুর সদর উপজেলায় যমুনা অটোমেটিক রাইস মিলের বয়লার বিস্ফোরিত হয়। এতে ২৮ জন দগ্ধ হন। তাঁদের প্রথমে দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ২২ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতেই মোকসেদ আলী (৪৮) মারা যান। পরদিন বৃহস্পতিবার আরিফুল ইসলামের (৪৫) মৃত্যু হয়। তাঁদের সবার বাড়ি দিনাজপুর সদর উপজেলার চাঁদগঞ্জ গ্রামে।

এ ঘটনা তদন্তে দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রধান করে ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন দিনাজপুর জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার (ডিএসবি) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজেম উদ্দীন, ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক লিয়াকত আলী, শিল্প ও বণিক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, বয়লার পরিদর্শক হুমায়ুন কবীর।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় তাঁরা কমিটির সদস্যদের নিয়ে একটি সভা করেছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দিনাজপুরে বয়লার বিস্ফোরণ : নিহত বেড়ে ৩ 

68

দিনাজপুর, ২১ এপ্রিল : দিনাজপুর সদর উপজেলায় যমুনা অটোরাইস মিলে বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে তিনজনের দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনায় আহত সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দিনাজপুর সদর উপজেলায় যমুনা অটোমেটিক রাইস মিলের বয়লার বিস্ফোরিত হয়। এতে ২৮ জন দগ্ধ হন। তাঁদের প্রথমে দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অঞ্জলি রানী রায় (৪৫) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ২২ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতেই মোকসেদ আলী (৪৮) মারা যান। পরদিন বৃহস্পতিবার আরিফুল ইসলামের (৪৫) মৃত্যু হয়। তাঁদের সবার বাড়ি দিনাজপুর সদর উপজেলার চাঁদগঞ্জ গ্রামে।

এ ঘটনা তদন্তে দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রধান করে ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন দিনাজপুর জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার (ডিএসবি) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজেম উদ্দীন, ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক লিয়াকত আলী, শিল্প ও বণিক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম, বয়লার পরিদর্শক হুমায়ুন কবীর।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় তাঁরা কমিটির সদস্যদের নিয়ে একটি সভা করেছেন।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মারুফুল ইসলাম জানান, বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনায় দিনাজপুর থেকে ২২ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাঁদের মধ্যে তিনজন মারা যান। বাকি ১৯ জনের শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাঁদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪ 

8pwz8m5x-copy

দিনাজপুর, ২০ এপ্রিল : দিনাজপুর ঘোড়াঘাটে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চার জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুই জন।

বৃহস্পতিবার বিকেল ও দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের মধ্যে দু’জনের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন, ভ্যানচালক আব্দুস সালাম ও যাত্রী আব্দুস সালাম।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেলে দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়কের হরিপাড়া এলাকায় হানিফ পরিবহনের একটি বাস অটো রিকশাভ্যানকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়।

এতে ঘটনাস্থলে ভ্যানচালক আব্দুস সালাম ও যাত্রী আব্দুস সালাম মারা যান। আহত হন তিন জন। তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরেক জন মারা যান।

এদিকে একই দিন দুপুরে ঘোড়াঘাট উপজেলার টিঅ্যান্ডটি মোড়ে ট্রাকচাপায় অজ্ঞাত এক পথচারীর মৃত্যু হয়।

ঘোড়াঘাট থানার ওসি ইসরাইল হোসেন দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় চার জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ঝাড়বাড়ীতে ভিন্ন আঙ্গিকে মঙ্গল শোভাযাত্রা 

0cqvlb0-copy

দিনাজপুর, ১৪ এপ্রিল : পুরনোর জীর্ণতা, গ্লানি-ভেদ ভুলে নতুনকে আহ্বান এবং সবার মঙ্গল কামনা করে বাংলা নুতন বছরকে বরণ করে নিত মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জে। তবে শহরে নয়, একেবারে মেঠো পথের সেই পল্লী গ্রাম ঝাড়বাড়ীতে। তাও আবার ভিন্ন আঙ্গিকে এবং চোখ ধাঁধানো।

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে দিনাজপুরের বীরগঞ্জে অতঃপর থিয়েটার এন্ড সংঘের আয়োজনে এক গ্রামের ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে বের হয় এ মঙ্গল শোভাযাত্রা।

এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রার মূল প্রতিপাদ্য ‘মুছে যাক গ্লানি ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা’ মর্মবাণী ধারণ করে ঐক্য ও অসাম্প্রদায়িকতার ডাক দিয়ে ‘আনন্দলোকে মঙ্গলালোকে বিরাজ সত্য সুন্দর’।

পল্লী গ্রামের সেই বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নেন হাজারো মানুষ। অতঃপর থিয়েটার এন্ড সংঘের  উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে এই মহাকর্মযজ্ঞ। শোভাযাত্রায় অংশ নিতে সকাল থেকে ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জমায়েত হতে থাকে হাজারো মানুষ। ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে  থেকে ঝাড়বাড়ী বাজার এলাকা বৈশাখের রঙে রঙিন মানুষের পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে। এখানে দেখা যায় বিয়ে বাড়ি। বর-বউ, পালকি আরও কত কি?

শোভাযাত্রাটি ঝাড়বাড়ী এলাকার বিভিন্ন পথ প্রদক্ষিণ করে আবার ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

h7i06rm0-copy
শোভাযাত্রায় অংশ নেন শিক্ষক, ছাত্র, বুদ্ধিজীবী সাংস্কৃতিক কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ। এতে তরুণদের অংশ নিতে দেখা গেল বৈশাখী পাঞ্জাবি আর মাথায় গামছা, যাতে লেখা ছিল এসো এসো হে বৈশাখ। তরুণীরা পরিধান করে বৈশাখী শাড়ি। ছোট ছোট বাচ্চাদের মুখে রংতুলি দিয়ে লেখা ‘শুভ নববর্ষ’।

অতঃপর থিয়েটার এন্ড সংঘের সভাপতি সৈয়েদ আতাউর রহমান, অতঃপর থিয়েটার এন্ড সংঘের সাধারণ সম্পাদক বিকাশ দেবনাথ, বিশিষ্ট সমাজ সেবক,আব্দুল মান্নান সরকার, ঝাড়বাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাধান শিক্ষক জাহিদ ইসলাম, তাসমিন আল বারি, মো. মতিউল ইসলাম, মো. ফারুক হোসেনের নেতৃত্বে ঝাড়বাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে  থেকে বের হয় এই মঙ্গল শোভাযাত্রা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিজয় দিবস উপলক্ষে হিলি সীমান্তে বিএসএফকে মিষ্টি উপহার দিয়েছে বিজিবি 

মুসা মিয়া, হিলি (দিনাজপুর), ২৬ মার্চ : মহান স্বাধীনতা ও  বিজয় দিবস উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলি সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফকে মিষ্টি উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

রোববার সকাল সাড়ে ১১ টায় হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোষ্ট গেটের শুন্য রেখায় বিজিবির হিলি সিপি ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার মাহাবুব হোসেন ভারতের হিলি বিএসএফ ক্যাম্প কমান্ডার ইন্সপেক্টর বাবু সিংয়ের নিকট ৬ প্যাকেট মিষ্টি উপহার দেন। এবং একে অপরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এসময় উভয় দেশের সীমান্ত রক্ষি বাহিনী উপস্থিত ছিলেন।

বিজিবি জয়পুরহাট-২০ব্যটালিয়নের অধিনায়ক লে.কর্নেল ইমতিয়াজ হোসেনের পক্ষ থেকে  ভারতের ১৯৯ পতিরাম বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার বালবাং সিংয়ের নিকট মিষ্টিগুলি উপহার দেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

কথিত পীর, নারী হত্যায় মূল হত্যাকারী গ্রেপ্তার : র‍্যাব 

177

দিনাজপুর, ২০ মার্চ : দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলায় একটি দরবার শরিফে কথিত পীর ও তার এক নারী মুরিদের মূল হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

আজ সোমবার সকালে এক খুদেবার্তার মাধ্যমে এ তথ্য জানায় র‍্যাব-১৩। গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তির নাম শফিকুল ইসলাম। এর বেশ কিছু জানা যায়নি।

গত ১৩ মার্চ সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার দৌলাগ্রামে পীর ফরহাদ হোসেন চৌধুরী (৬০) ও তার নারী মুরিদ রূপালী বেগমকে (২৮) গুলি করে এবং গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জানায়, ঘটনার দিন জিকির শুরুর আগে ছয়-সাতজন দুর্বৃত্ত দরবার শরিফে ঢুকে প্রথমে পীরকে চাকু দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে এবং গলা কাটে। পরে গুলি করে হত্যা করে। এ সময় রূপালী বেগম চিৎকার করলে দুর্বৃত্তরা একই কায়দায় তাকেও পাশের আরেকটি ঘরে হত্যা করে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নবাবগঞ্জে ইয়াবাসহ বৃদ্ধ আটক 

0000

মুসা মিয়া, হিলি (দিনাজপুর), ১৮ মার্চ : দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ইয়াবা ও বিদেশী মদসহ মোঃ শওকত আলী (৬০) নামক ব্যক্তিকে আটক করেছে। সে উপজেলা ভোটারপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল ওয়াদুদ মিয়ার পুত্র।

থানা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নবাবগঞ্জ থানার এসআই মোঃ রাসেল মন্ডল সঙ্গীয় ফোর্সসহ আটক বক্তির বাড়ীতে অভিযান চালিয়ে ২০ পিচ ইয়াবা ও ৮ প্যাকেট ম্যাকডল (বিদেশী) মদ সহ তাকে আটক করে। অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান- এ বিষয়ে মাদকদ্রব্য আইনে থানায় মামলা হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

পীর ফরহাদ হত্যার ঘটনায় কুড়িগ্রামে আটক ১ 

37

দিনাজপুর, ১৫ মার্চ : দিনাজপুরের সেতাবগঞ্জে পীর ফরহাদ হাসান চৌধুরী ও তার এক মুরিদকে হত্যার ঘটনায় কুড়িগ্রাম থেকে ইসহাক আলী (৫৭) নামে কথিত অপর এক পীরকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার ভোররাত ৪টার দিকে কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সীমান্ত এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

ইসহাক দক্ষিণ পাথরডুবি এলাকর মৃত আজিমউদ্দিনের ছেলে। তিনি দিনাজপুরের কথিত পীর ছিলেন।

ভুরুঙ্গামারী থানার ওসি তদন্ত রবিউল ইসলাম জানান, বুধবার ভোররাত ৪টার দিকে উপজেলার সীমান্ত এলাকার নিজ বাড়ি থেকে ইসাহাক আলীকে আটক করা হয়।

দিনাজপুরের পুলিশের নির্দেশনায় তাকে আটক করা হয়েছে। পরে তাকে দিনাজপুর পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে এ ঘটনায় খাদেম সাইদুর রহমান ও মুরিদ সুমিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।

বোচাগঞ্জ থানার ওসি জানান, হত্যার কারণ বা কোনো সূত্র উদ্ধার করা যায়নি। তারা খাদেম সাইদুল এবং মুরিদ সুমিকে নজরদারিতে রেখেছেন। তাদের দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। আশা করছি কোনো সূত্র খুঁজে পাওয়া যাবে।

সোমবার রাতে লাশ উদ্ধারের পর দরবার শরিফে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে পুরো এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেয় পুলিশ। আইনশৃংখলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটের সদস্যরা মঙ্গলবার ঘটনাস্থল ঘুরে আলামত সংগ্রহ করেছেন।

গত সোমবার রাতে বোচাগঞ্জ উপজেলার দৌলা এলাকায় পীর ফরহাদ হাসান চৌধুরী ও তার পালিত মেয়ে গৃহপরিচারিকা রুপালি বেগমকে গুলি ও জবাই করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

নিহত ফরহাদ হোসেন চৌধুরী (৬৮) দৌলা খানকার পীর হিসেবে পরিচিত। তিনি দিনাজপুর পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি। পৌর মেয়র পদে নির্বাচন করে দলীয় কোন্দলের কারণে হেরে যান। নির্বাচনে হেরে গিয়ে দলে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন।

আর নিহত নারী মুরিদের নাম রুপালী বেগম (২২)। তিনি ফরহাদ হোসেন চৌধুরীর গৃহকর্মী ছিলেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দিনাজপুরে নারী মুরিদসহ পীরকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা 

55

দিনাজপুর, ১৪ মার্চ : দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলায় ঘরে ঢুকে কথিত এক পীর ও তাঁর নারী মুরিদকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের দৌলাগ্রামে এ ঘটনা ঘটে। রাত ১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি। কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটাতে পারে সে বিষয়েও কোনো ইঙ্গিত দিতে পারেনি তারা।

স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ওই পীরের নাম ফরহাদ হোসেন চৌধুরী (৬০)। তিনি সেতাবগঞ্জ পৌর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ছিলেন। দিনাজপুর পৌরসভায় মেয়র পদে বিএনপি থেকে একবার নির্বাচনও করেছিলেন। দিনাজপুর বাস মালিক সমিতির সাবেক সভাপতিও ছিলেন। স্ত্রী, দুই মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে তাঁর। বর্তমানে রাজনৈতিক পরিচয়ের চেয়ে পীর পরিচয়ই বেশি দিতেন তিনি। লোকজনও তাঁকে সে ভাবেই চিনত। নিহত নারীর নাম রুপালি বেগম (২২)। তাঁর বাড়িও একই গ্রামে। ফরহাদ হোসেনের মুরিদের পাশাপাশি ওই বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজও করতেন।

প্রতিবেশীরা জানায়, ফরহাদ হোসেন বাড়িতে পীরের আখড়া গড়ে তুলেছিলেন। বাড়িটি ‘দৌলা দরবার শরিফ’ নামে পরিচিত। আট-দশ বছর ধরে এ আস্তানা চলছে। সপ্তাহে এক দিন আনুষ্ঠানিকভাবে সেখানে মুরিদরা জিকির-আজকার করতেন। এ ছাড়াও প্রায়ই তাঁরা জিকিরের জন্য আস্তানায় জমায়েত হতেন। গতকাল রাত সাড়ে ৯টার দিকে জিকিরের সময় দুর্বৃত্তরা ঘুরে ঢুকে হামলা চালায়। তারা প্রথমে ফরহাদ হোসেন ও ওই নারীকে এলোপাতাড়ি কোপায়, পরে গুলি করে হত্যা করে।

দৌলা দরবার শরিফের খাদেম সায়েদুল বলেন, ‘প্রতিদিন রাতে দরবারের জিকির ও মিলাদ হতো। জিকিরে অংশ নিতে সুমি (৫২) নামের এক মুরিদ রাতে দরবারে আসেন। দীর্ঘক্ষণ হুজুরকে (ফরহাদ) ঘুমিয়ে থাকতে দেখে তিনি আমাকে ডাক দেন। আমি এসে দেখি হুজুরের রক্ত মাখা লাশ। পরে পরিবারের অন্যদের খোঁজ নিতে গিয়ে পাশের একটি কক্ষে গৃহকর্মী রুপালিকেও মৃত অবস্থায় দেখতে পাই। ’ খবর পেয়ে রাতে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হামিদুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। বোচাগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুল ইসলাম প্রধান

জানান, রাতে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। আলামত সংগ্রহ করে লাশের ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তাত্ক্ষণিক জানা যায়নি। ধরন দেখে মনে হচ্ছে ঘটনার সঙ্গে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সাল থেকে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ব্লগার, বিদেশি নাগরিক ও ভিন্নমতাবলম্বীদের ওপর হামলার বেশি কয়েকটি ঘটনা ঘটে। ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে পুরান ঢাকার গোপীবাগে কথিত পীর লুত্ফর রহমান ফারুকসহ ছয়জনকে জবাই করে হত্যা করে জঙ্গিরা। পরের বছর আগস্টে রাজধানীর পান্থপথে মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী এবং ২০১৫ সালের অক্টোবরে বাড্ডা এলাকায় পিডিবির সাবেক চেয়ারম্যান খিজির খানকেও জঙ্গিরাই হত্যা করে। ২০১৬ সালে উত্তরাঞ্চলে কথিত পীরসহ ভিন্নমতাবলম্বী লোকজনকে হত্যা করে জঙ্গিরা। এ সময় উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলের ১৫টি জেলায় ১৪ জনকে হত্যা, ৪ জনকে হত্যাচেষ্টা এবং ছয়টি হামলা হয়েছে ধর্মীয় উৎসাব ও স্থাপনায়। হামলার শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন হিন্দু পুরোহিত, সাধু, খ্রিস্টান যাজক, বৌদ্ধ ভিক্ষু, বাহাই সম্প্রদায়ের নেতা, পীরের অনুসারী, মাজারের খাদেম, শিয়া অনুসারী, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ধর্মান্তরিত ব্যক্তি, ব্লগার এবং সমকামীদের অধিকারকর্মী। ২০১৫ সালের নভেম্বরে দিনাজপুর সদরে পেশায় চিকিৎসাক এক ইতালীয় নাগরিককে গুলি করে হত্যার চেষ্টা করা হয়। আহত পিয়েরো পারোলারি (৭৮) সেখানে সুইহারি ক্যাথলিক চার্চের ফাদার ছিলেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দিনাজপুরে বাস উল্টে স্কুলশিক্ষকসহ নিহত ২ 

দিনাজপুর, ২৫ ফেব্রুয়ারি : দিনাজপুর সদর উপজেলায় যাত্রীবাহী একটি বাস উল্টে এক স্কুলশিক্ষকসহ দুজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত পাঁচজন।

আজ শনিবার সকালে উপজেলার দিনাজপুর-দশমাইল মহাসড়কের নশিপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তবে হতাহত ব্যক্তিদের পরিচয় জানা যায়নি। আহত পাঁচজনকে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেদোয়ানুল করিম জানান, আজ সকালে নশিপুর এলাকায় বাসটি উল্টে গিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুজন নিহত হন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

শূন্য রেখায় উদযাপিত হলো শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস 

মুসা মিয়া, হিলি (দিনাজপুর), ২১ ফেব্রুয়ারি : ভৌগোলিক সীমারেখা ভুলে কেবলমাত্র ভাষার টানে দিনাজপুরের হাকিমপুরের হিলি সীমান্তের শূন্য আঙিনায় মঙ্গলবার উদযাপিত হলো শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দুই বাংলার হাজারো মানুষের পদচারনায় মিলন মেলায় পরিনত হয় হিলি শুণ্য আঙিনা। হাকিমপুর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড এ মিলন মেলার আয়োজন করেন। এতে ভারত হিলি ও মেঘালয়ের তুরা করিডর (ভায়া বাংলাদেশ) মুভমেন্ট কমিটির সদস্যরা অংশগ্রহণ করেন। আয়োজিত মেলায় উভয় দেশের কবি, সাহিত্যিক ও শিল্পীদের অংশগ্রহনে সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আজিজুল ইমাম চৌধুরী, স্থানীয় সাংসদ শিবলী সাদিক, হাকিমপুর ইউএনও মোসা. শুকরিয়া পাভিন, হাকিমপুর (হিলি) পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত, ভারতীয় করিডর কমিটির আহ্বায়ক নবকুমার দাস, কলকাতার মনোভুমী সাহিত্য পত্রিকার সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী, কোলকাতা গণশাক্তি প্রত্রিকার সম্পাদক জয়ন্ত চক্রকর্তী প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন, শাহিনুর রেজা শাহিন ও জাহিদুল ইসলাম জাহিদ।

এরআগে সেখানে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান, প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ, পৌরসভা, প্রেসক্লাবসহ পশ্চিমবঙ্গের হিলি ও বালুঘাটের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সরকারি ব্রিজ ভাঙা ইট-রড নিয়ে গেলেন চেয়ারম্যান 

ঢাকা, ১৫ ফেব্রুয়ারি : ফুলবাড়ীতে সরকারি ব্রিজ ভাঙার রড ও ইট আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে খয়েরবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

স্থানীয়রা জানান, ফুলবাড়ীর খয়েরবাড়ী ইউপির উত্তর লক্ষিপুর বাজার থেকে মহদিপুর গ্রাম সংযোগ সড়কের লক্ষিপুর বাজারের কাছে ৩২লাখ ৫২ হাজার ৬৫৩ টাকা ব্যয়ে ত্রান ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয় থেকে একটি ব্রিজ নির্মানের জন্য টেন্ডার হয়।

নতুন ব্রিজ নির্মান করতে পুরাতন ব্রিজটি ভেঙে ফেলার প্রয়োজন দেখা দেয়। পুরাতন ব্রিজটি নিলাম না দিয়ে খয়েরবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান নিজে শ্রমিক দিয়ে ভেঙে ওই ব্রিজের পুরাতন রড ও ইট নিজ বাড়িতে ও চেয়ারম্যানের পিএ বলে পরিচিত মহদিপুর গ্রামের আমিনুলের বাড়িতে রেখে দেয়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে খয়েরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের মন্ডল সত্যতা স্বীকার করে জানান, তিনি নতুন চেয়ারম্যান, তাই নিলাম করার আইনটি জানা ছিল না। তবে তিনি নতুন করে নিলাম ডাকের ব্যবস্থা করবেন।

ফুলবাড়ী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, নতুন ব্রিজটি নির্মাণের প্রয়োজনে পুরাতন ব্রিজটি ভেঙে ফেলার জন্য চেয়ারম্যানকে অবহিত করা হয়। নিয়মানুযায়ী পুরাতন ব্রিজের ইট ও রড প্রকাশ্য নিলামে বিক্রি করা হবে। কিন্তু চেয়ারম্যান নিলামে ডাক না দিয়ে কেন বাড়িতে নিয়ে গেলেন সে বিষয়ে তদন্ত চলছে।

এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এহেতেশাম রেজা বলেন, খয়েরবাড়ী যুবলীগ নেতা মুরাদ হোসেন তার নিকট মৌখিক অভিযোগ করেছেন। ব্রিজটি পুরোপুরি এখনও ভাঙা হয়নি। তবে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আর নিয়মানুযায়ী নিলামের মাধ্যমেই বিক্রি হবে ওই ব্রিজের মালামাল।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লিচুর মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে ছেয়ে গেছে দিনাজপুর 

দিনাজপুর, ১২ ফেব্রুয়ারি : কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবারও লিচুর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা। ফাল্গুনের শুরুতে গাছে গাছে মুকুলের সমারোহ আর মৌ মৌ গন্ধ। দেশ সেরা মানে দিনাজপুরের লিচু। মিষ্টি ও রসালো স্বাদ আর বৈশিষ্ট নিয়ে বিভিন্ন জাতের এ লিচুর মধ্যে বেদানা, বোম্বাই, মাদ্রাজি, চায়না-থ্রি আর দেশী লিচুর মুকুলে মুকুলে ছেয়ে গেছে গাছের ডালপালা।

লিচু বাগানগুলোতে যেদিকে চোখ যায় শুধু মুকুলের সমারোহ। সদরের মাসিমপুর, কসবা, বাশেরহাট, পুলহাট, বিরল, পাচবাড়িসহ দিনাজপুরের বিভিন্ন উপজেলায় এবার লিচু গাছের ডালে ডালে প্রচুর মুকুল এসেছে। গাছে গাছে শতকরা ৪০ ভাগ মুকুল এসে গেছে। লিচু গাছে মুকুল দেখে বাগান বিক্রি করে এবারও লাভবান হবেন বলে আশাবাদী মালিকরা। সাধারণত বৈশাখ মাসে লিচু পাকা শুরু হয় এবং বাজারে পাওয়া যায়। এরই মধ্যে লিচু বাগান নিয়ে বেচা-কেনা শুরু হয়েছে।

২০০৯ সালে দিনাজপুরে লিচু চাষের জমির পরিমান ছিল ১ হাজার ৫শ’ হেক্টর। বর্তমানে এটা বৃদ্ধি পেয়ে দাড়িয়েছে ৪ হাজার ৭শ’ ৭০ হেক্টর। দিন দিন লিচুর ফলন এবং দাম ভাল পাওয়ায় এ চাষের জমি বাড়ছেই।

পুলহাট-মাসিমপুরের আসাদুজ্জামান লিটন জানান, দিনাজপুরের দক্ষিণ কোতয়ালী ও মাসিমপুরসহ আশেপাশে কিছু এলাকায় ভিটা, জমি, বশতবাড়ী এবং ডাঙ্গা জমিতে লাগানো গাছই ছিল, লিচু আবাদ ছিল সীমিত। কিন্তু এখন এর বিস্তার ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে।

বিরলের সফিকুল ইসলাম জানান, একটি বড় গাছে ২০ থেকে ২৫ হাজার পর্যন্ত এবং সবচেয়ে ছোট গাছে ১ থেকে দেড় হাজার লিচু পাওয়া যাবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ জানায়, দিনাজপুর জেলায় ৪৭৭০ হেক্টর জমিতে ছোট-বড় নিয়ে প্রায় ৫ হাজার ৪১৮টি লিচুর বাগান রয়েছে। বাগান ছাড়াও কিছু সংখ্যক বাড়ী, বাড়ী সংলগ্ন ভিটা জমিতে ২/৪টি করে লিচু গাছ রয়েছে বলে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ জানায়।

বিরল কৃষি কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, প্রকৃতি এবং আবহাওয়া অনুকুল থাকলে এবারও দিনাজপুরে ফলন হবে বাম্পার। গাছে গাছে শতকরা ৪০ ভাগ মুকুল এসে গেছে। এক দশকে যাবত অবিশ্বাস্য গতিতে বৃহত্তর দিনাজপুরের বিভিন্ন উপজেলায় লিচুর চাষাবাদ বাড়ছে। জেলা সদরসহ কাহারোল, বিরল, চিরিরবন্দর, বীরগঞ্জ প্রভৃতি উপজেলায় এই ফলের চাষাবাদ বাড়ছে।

চিরিরবন্দর কৃষি কর্মকর্তা সুধেন্দ্রনাথ রায় জানান, এবারও দিনাজপুরে লিচুর ফলন ভাল হবে। লিচু চাষে চৈত্র মৌসুমে পর্যাপ্ত সেচের প্রয়োজন হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দিনাজপুরে বৃদ্ধের বিরুদ্ধে শিশুকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ 

দিনাজপুর, ২৯ জানুয়ারি : দিনাজপুরের বিরলে ৪ বছরের এক কন্যা শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে। বর্তমানে ওই শিশুটিকে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

নির্যাতনের শিকার ওই শিশুর বাড়ি বিরল উপজেলার তেঘড়া মহেশপুর গ্রামে।

ওই শিশুর বাবা অভিযোগ করেন, শনিবার বিকালে অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে তার শিশুও খেলা করছিল। এ সময় পার্শ্ববর্তী এলাকার বিমল দাস নামে একজন শিশুটিকে জঙ্গলের মধ্যে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় শিশুটি সেখান থেকে পালিয়ে এসে তার মাকে ঘটনা জানায়। পরে তিনি তাকে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

বিরল থানার পরিদর্শক আব্দুল মজিদ জানান, প্রায় ৫৫ বছর বয়সি অভিযুক্ত বিমল দাস কয়েকটি সন্তানের জনক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে। তবে এখন পর্যন্ত শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়নি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

কলেজ জাতীয়করণ নিয়ে পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, আহত ৩০ 

mjgse20a-copy

দিনাজপুর, ৮ জানুয়ারি : দিনাজপুরের খানসামা ডিগ্রি কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে ডাকা অর্ধ দিবস হরতাল চলাকালে পুলিশ ও স্থানীয় জনতার মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে।

সংঘর্ষে দুই পুলিশসহ কমপক্ষে ৩০জন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ ১৩ রাউন্ড টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে বলে দাবি পুলিশের।

খানসামা ডিগ্রি কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে রবিবার খানসামা উপজেলায় অর্ধ দিবস সর্বাত্মক হরতালের ডাক দেয় জাতীয়করণ বাস্তবায়ন কমিটি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, হরতালকে কেন্দ্র করে রবিবার সকাল থেকে খানসামা উপজেলা সদরের সকল দোকান-পাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও স্কুল-কলেজ বন্ধ ছিল। সকাল থেকে শান্তিপূর্ণ হরতাল পালিত হলেও দুপুর ১২টায় খানসামা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মোড় থেকে হরতালের সমর্থনে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি খানসামা থানা অতিক্রম করার সময় পুলিশ বাধা দেয়। এসময় পুলিশের সাথে জনতার ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া এবং পরে ব্যাপক সংঘর্ষ বেধে যায়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ বিক্ষুদ্ধ জনতার উপর টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করলে জনতাও পুলিশকে লক্ষ্য করে পাল্টা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এক পর্যায়ে জনতা থানা লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এসময় দু’পক্ষের সংঘর্ষে পুরো খানসামা উপজেলা শহর রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংঘর্ষে পুলিশসহ কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়।

খানসামা থানা পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে পার্শ্ববর্তী বীরগঞ্জ ও দিনাজপুর শহর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। দুপুর আড়াইটায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসার পর পুলিশ বিশাল বহর নিয়ে বাড়ি বাড়ি তল্লাশি ও গ্রেফতার অভিযান চালায়।

খানসামা ডিগ্রী কলেজ জাতীয়করণ বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু হাতেম জানান, পুলিশ বিনা উস্কানিতে জনতার শান্তিপূর্ণ মিছিলে হামলা চালায়। হামলার পর পুলিশ আওয়ামী লীগ নেতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তল্লাশি চালায় এবং কমপক্ষে ১০জন নিরীহ পথচারীকে গ্রেফতার করে। এর আগে গত শনিবার রাতে পুলিশ ৫জনকে আটক করেছে বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে খানসামা থানার ওসি আব্দুল মতিন জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে  ১৩ রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়েছে। দুইজন পুলিশ আহত হয়েছে।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ আশরাফ জানান, খানসামা ডিগ্রী কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে হরতালের পর স্থানীয় জনতা পুলিশের উপর হামলা চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতেই টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করতে হয়েছে। বর্তমানের পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

এদিকে খানসামা থানার ওসি আব্দুল মতিন জানান, শনিবার দিবাগত রাতে পাঁচ অন্দোলনকারীকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন- ছাত্রলীগ সদস্য রাকেশ কুমার গুহ, মো. আব্দুল লতিফ রানা, মো. রফিকুল ইসলাম, সোলজার ও বিএনপির কৃষক দলের উপজেলা সভাপতি আতাউর রহমান।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর