২৪ এপ্রিল ২০১৭
ভোর ৫:৩৪, সোমবার

প্রবৃদ্ধি অর্জনে বড় বাধা দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদ

প্রবৃদ্ধি অর্জনে বড় বাধা দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদ 

27

ঢাকা, ২৩ এপ্রিল : দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদকে প্রবৃদ্ধি অর্জনে সবচেয়ে বড় বাধা হিসেবে চিহ্নিত করেছে বাংলাদেশ ইনিস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস)।

রবিবার সকালে রাজধানীর লেকশোর হোটেলে বিআইডিএস ক্রিটিক্যাল কনভারসেশন-২০১৭ এর প্রথম সেশনে ‘রিভিউ অব ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড এমাজিং চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে।

গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিআইডিএস  মহাপরিচালক ড. খান আহমেদ সৈয়দ মুরশিদ। প্রতিবেদনে দুর্নীতি ও জঙ্গিবাদ ছাড়াও জলবায়ু পরিবর্তন, অপরিকল্পিত নগরায়ন এবং বেকারত্বের কথা বাধা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ছাড়া অর্থনৈতিক পরিস্থিতি মূল্যায়ন করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশকে আগামী ২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে হলে বিনিয়োগ বাড়ানো ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। আর পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বাংলাদেশ ৮ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জনের যে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে, সে জন্যও মোট বিনিয়োগের পরিমাণ জিডিপির বর্তমান ২৬-২৭ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে চলতি বছরেই ৩৫ শতাংশে তোলা দরকার।

সরকারের এই উন্নয়ন গবেষণা সংস্থাটি বলেছে, উৎপাদন ভালো হলেও কৃষকেরা বাজারে ঠিকমতো পণ্য বিক্রি করতে পারেননি, পাননি ন্যায্য দাম। নির্মাণ খাতের কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হয়েছে। পরিবহন, হোটেল-রেস্তোরাঁ, কমিউনিটি সেন্টার ও সামাজিক সেবা, শিক্ষা, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসাসহ সেবা খাতের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, দুই দিনের এই সম্মেলন শেষ হবে আগামীকাল ২৪ এপ্রিল। সম্মেলনে শিক্ষা, নারী, শিশু, জলবায়ু এবং নারী উদ্যোক্তা শীর্ষক ১৪টি প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হবে।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তিনি আসেননি।

সম্মেলনের প্রথম সেশনের সভাপতিত্ব করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন গভর্নর ড. মোহাম্মাদ ফরাসউদ্দিন। তিনি বলেন, ধর্মের নামে যে জঙ্গিবাদ হচ্ছে সেটা অবশ্যই ঝুঁকিপূর্ণ। এটা গবেষণার বিষয়। এটা নিয়ন্ত্রণে সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

শুক্রাণু পাচার করতে গিয়ে আটক ১ 

158

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২২ এপ্রিল : পুরুষের শুক্রাণু চুরি করে পাচার করার সময় এক ব্যক্তিকে আটক করেছে থাইল্যান্ডের পুলিশ।

থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্ত শহর নং খাই পারি দিয়ে লাওসে ঢুকার সময় তাকে আটক করা হয়।

কর্তৃপক্ষ জানায়, ওই থাই নাগরিকের কাছে ছয়টি নাইট্রোজেন জার পাওয়া গেছে যার মধ্যে পুরুষের শুক্রাণু বহন করা হয়।

লাওসের একটি ক্লিনিকে দেয়ার জন্য শুক্রাণু নেয়া হচ্ছিল বলে পুলিশের কাছে ওই ব্যক্তি স্বীকার করেছে। ওই ক্লিনিকে কৃত্রিম উপায়ে সন্তান জন্ম দেয়া হয়।

ওই ব্যক্তি জানান, চীন ও ভিয়েতনামের কয়েক ব্যক্তির কাছ থেকে শুক্রাণু সংগ্রহ করা হয়। ব্যাংককের একটি ক্লিনিক থেকে এ শুক্রাণু সংগ্রহ করা হয়। তিনি গত বছর ১২ বার শুক্রাণু পাচার করেছেন ওই ক্লিনিকে।

২০১৫ সালে থাইল্যান্ডের নারীদের অর্থের বিনিময়ে সারোগেটস্ মা হতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। এরপরের বছর কম্বোডিয়াও নিষেধাজ্ঞা দেয়।

এরপর থেকেই লাওস কৃত্রিম প্রজনন পদ্ধতিতে সন্তান ধারণ ব্যবসা ফুলে ফেঁপে ওঠে। ফলে বেশ কিছু এজেন্সি গড়ে ওঠেছে যারা লাওস ও থাইল্যান্ডের সারোগেসি ক্লিনিকগুলোর মধ্যে মধ্যস্থতা করে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ঘুষ নিতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়লেন ডেপুটি এক্সাইজ কালেক্টর 

87

মেদিনীপুর, ২১ এপ্রিল : ঘুষ নিতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েছিলেন ঘাটালের ডেপুটি এক্সাইজ কালেক্টর অশোককুমার দে। তার অফিস ও বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হয় প্রায় ১ কোটি টাকা। শুক্রবার তাকে আদালতে তোলার পর ঘটল অভাবনীয় ঘটনা। মক্কেলের পুলিশ হেফাজতের পক্ষেই সওয়াল করলেন অভিযুক্তের আইনজীবী। আদালতে তিনি জানান, ‘আমার মক্কেলকে পুলিশ হেফাজত দেওয়ার আবেদন জানাচ্ছি। পুলিশ ওকে জেরা করতে চাইলে করতে পারে।’

এই সওয়ালের পর অভিযুক্তকে প্রথমে ৫ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছিলেন নগর দায়রা আদালতের বিচারক কুমকুম সিনহা। পরে অভিযুক্তের আইনজীবীর অনুরোধেই তা আরও ২ দিন বাড়ানো হয়। অভিযুক্তের আইনজীবীর এই ভূমিকায় প্রশংসা করলেন বিচারক। তবে দীর্ঘদিন ধরে আবগারি কর্তা ঘুষ নিলেও কেন তা প্রশাসনের নজরে এল না তা নিয়েও বিস্ময় প্রকাশ করেন বিচারক।

ঘুষ নিয়ে বেআইনি ভাবে মদের দোকান মালিকদের সুবিধা পাইয়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে ডেপুটি এক্সাইজ কালেক্টর অশোককুমার দের বিরুদ্ধে। রাজ্যের দুর্নীতি দমন শাখার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে বিভাগীয় তদন্ত।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

টাঙ্গাইলে ১৮শ’ ইয়াবাসহ দুই নারী আটক 

356

টাঙ্গাইল, ২০ এপ্রিল : টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলায় ১৮শ’ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ দুই নারীকে আটক করেছেন জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যরা। বুধবার রাতে মধুপুর পৌর শহরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- নাসরিন আক্তার বানেছা (৪৫) ও তার দূরসম্পর্কের বোন মালা (৩৫)।

নাসরিন ধনবাড়ী উপজেলার শ্রমিক নেতা মোজাম্মেল হক ভুলুর স্ত্রী। ধনবাড়ী উপজেলার নল্ল্যা এলাকায় মূল বাড়ি হলেও তারা ধনবাড়ী সুপার মার্কেটের পেছনে একটি বাসায় ভাড়া থাকেন।

টাঙ্গাইল ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার সিংহ জানান, পরিবারটি অনেকদিন ধরে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। খবর পেয়ে রাতে অভিযান চালিয়ে ওই দু’জনকে আটক করা হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সাতক্ষীরার ৫০ ভরি ওজনের ৫টি স্বর্ণের বার উদ্ধার, আটক ১ 

37

সাতক্ষীরা, ১৯ এপ্রিল : সাতক্ষীরার ভোমরা বন্দরের বাঁশকল চেকপোস্ট এলাকা থেকে প্রায় ৫০ ভরি ওজনের ৫টি স্বর্ণের বার ও মোটরসাইকেলসহ এক চোরাকারবারিকে আটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে ৩৮ বিজিবি’র সদস্যরা ইসহাক আলী নামের ওই চোরাকারবারিকে আটক করে। বিজিবি জানায়, সাতক্ষীরা থেকে ভোমরা স্থলবন্দর এলাকার দিকে যাওয়ার পথে তাকে থামিয়ে তল্লাশি চালানো হয়।

তার মোটরসাইকেলের জ্বালানি ট্যাংকের ভেতর থেকে ৫টি স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে আটক করে বিজিবি সদস্যরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রাজধানীতে জাল নোট চক্রের ৫ সদস্য আটক 

018

ঢাকা, ১৮ এপ্রিল : রাজধানীতে অভিযান চালিয়ে জাল নোট তৈরি চক্রের পাঁচ সদস্যকে আটক করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। সোমবার দিনগত রাতে তাদের আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ জাল নোটসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আটকদের বিষয়ে বিস্তারিত জানাতে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছে ডিবি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মোকাররম বাবুর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা 

58

ঢাকা, ১৭ এপ্রিল : অবৈধভাবে সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের অভিযোগে ফরিদপুর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা মোকাররম মিয়া বাবুর বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

গতকাল রবিবার দুদকের উপ-পরিচালক শেখ আব্দুস সালাম বাদী হয়ে রাজধানীর রমনা থানায় মামলাটি করেন (নম্বর- ২৯)।

দুদকের উপ-পরিচালক ও জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, দুই কোটি ৯৬ লাখ ৩৭ হাজার ৩৬৮ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও কমিশনে ৫৪ লাখ ৯০ হাজার ৪১০ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ফরিদপুর আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, মাদকব্যবসা ও বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে মাশোহারা আদায়ের মতো বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে তিনি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছেন বলেও অভিযোগ আছে। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে দল থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়।

ফরিদপুর শহর যুবলীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন বরকতের দায়ের করা একটি চাঁদাবাজির মামলায় ২০১৫ সালের ২৩ এপ্রিল রাজধানীর বেইলি রোড থেকে তিনি গ্রেপ্তার হন। বেশ কিছু দিন কারাগারে থাকার পর মোকাররম মিয়া বাবু জামিনে মুক্তি পান।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

চট্টগ্রামে ২০ লাখ ইয়াবাসহ আটক ৯ 

চট্টগ্রাম, ১৬ এপ্রিল : বন্দর নগরী চট্টগ্রামে ২০ লাখ ইয়াবাসহ ৯ জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

আজ রবিবার ভোরে গভীর সমুদ্রে একটি ট্রলারে থেকে ইয়াবাসহ তাদের আটক করা হয়।

র‌্যাব ৭ এর সিনিয়র এএসপি মিনতানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ বিষয়ে বিস্তারিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানো হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

হাওররক্ষা বাঁধে দুর্নীতির দায়ে প্রকৌশলীকে প্রত্যাহার 

ঢাকা, ১৬ এপ্রিল : হাওররক্ষা বাঁধের কাজে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে সুনামগঞ্জের পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিনকে প্রত্যাহার করে পাউবোর প্রধান কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

পাউবোর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. আবদুল হাই বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় আফসার উদ্দিনের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আফসার উদ্দিন ও স্থানীয় কয়েকজন ঠিকাদারের বিরুদ্ধে হাওরের ফসলরক্ষায় ২৮টি বাঁধ নির্মাণের ২৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। এই অভিযোগ অনুসন্ধানে বৃহস্পতিবার তিন সদস্যের কমিটি করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

এ বছর সুনামগঞ্জের ৪২ হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের কাজে ব্যাপক অনিয়মের বিষয়টি জাতীয় ও স্থানীয় সংবাদপত্রে একাধিক ও ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। জেলার ১১টি উপজেলার প্রায় সবক’টি হাওরের কাঁচা বোরো ধান হাওররক্ষা বাঁধ ভেঙ্গে তলিয়ে যায়।

উল্লেখ্য, এ বছর হাওররক্ষা বাঁধের কাজে প্রজেক্টর ইমপ্লিমেন্টেশন কমিটি (পিআইসি) ও টিকাদারদের মাধ্যমে প্রায় ৫৯ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় সরকার। এর মধ্যে পিআইসিতে ২০ কোটি ৮০ লাখ টাকা ও ঠিকাদারদের ৪৮ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

প্রলোভন দেখিয়ে সাভারে ৫০০ পরিবারের ৫০ লাখ টাকা নিয়ে উধাও 

সাভার, ১৩ এপ্রিল : পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশনের দারিদ্র্য বিমোচনের নামে সাভার পৌর জামসিং এলাকার ৫০০ গ্রাহকের ৫০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। এসব গ্রাহকের অর্ধেকই এখন ঋণখেলাপি। আমানতকারীরা ঋণের অনূকুলে রাখা সঞ্চয়ের অর্থসহ সর্বস্ব হারিয়ে এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

অথচ তাদের নামে ঋণ নিয়েছেন স্থানীয় প্রভাবশালী, ঋণ বিতরণকারী মাঠ কর্মকর্তা ও পদস্থ কর্মকর্তাদের আত্মীয়স্বজন বা ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিরা।

ঋণদানকারী এই আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নাম পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন (ইউপিপিআরপি) ও (ইউএনডিপি), (ডিএফআইডি) এবং (বিজিডি)। সরকারের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন এই স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানটি ‘শতভাগ সফল ও স্বয়ংসম্পূর্ণ’ বলে দাবি করেছিলেন লিপি আক্তার নামের প্রতিষ্ঠানটির এক কর্মী। এনজিওর কর্মী পরিচয়ে এই লিপি আক্তারই সাধারণ অসহায় দরিদ্র মানুষের নিকট হতে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

গ্রামের গরিব মানুষকে ক্ষুদ্রঋণ দিয়ে স্বাবলম্বী করা এর কাজ হলেও গত সাত বছরের চিত্র এর সম্পূর্ণ বিপরীত। এই সময়ের মধ্যে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে নানা জালিয়াতি হয়েছে,  প্রায় অর্ধ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে উধাও হয়েছে কর্তৃপক্ষ। ভুয়া নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে মাঠকর্মীরা কোটি কোটি টাকা ঋণ দিয়েছেন।

ঋণ বিতরণ বেশি দেখিয়ে খেলাপি ঋণ ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টাও করা হয়েছে। অনেক কর্মী টাকা ব্যাংকে জমা না দিয়ে নিজেরাই ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন। ইউপিপিডিআরপি অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষায় এই দুর্নীতি ও লুটপাটের চিত্র বেরিয়ে এসেছে।

খোদেজা নামের এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, এসব এনজিওর কোনো বৈধ কাগজপত্র নেই। অধিকাংশই ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এতে করে এনজিও পরিচালকরা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে। আর দরিদ্র নিরীহ মানুষদের শোষণ এবং চাকরির নামে প্রতারণার মাধ্যমে জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে, কিস্তির সুদ আদায় করে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা।

প্রতারিত পরিবারের লোকজনদের দাবি, এসব দুর্নীতি, অনিয়ম ও লুটপাট করে গেলেও এসব বন্ধের জন্য প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না। তারা এসব দেখেও না দেখার ভান করে থাকেন। এসব অনিয়ম-দুর্নীতি লুটপাট বন্ধে সরকার পদক্ষেপ না নিলে আরও বেশি মানুষ প্রতারিত হতে পারেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

এরশাদের দুর্নীতি: আপিলের রায় ৯ মে 

ঢাকা, ১২ এপ্রিল : বিভিন্ন উপহার সামগ্রী রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা না দিয়ে আত্মসাতের অভিযোগে করা দুর্নীতির মামলায় সাজার বিরুদ্ধে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও  জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের করা আপিলের রায় ঘোষণার জন্য ৯ মে তারিখ ধার্য করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার ওই আপিলের শুনানি শেষে রায় ঘোষণার তারিখ ধার্য করেন।

আদালতে এরশাদের পক্ষে ছিলেন শেখ সিরাজুল ইসলাম। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান।

মামলার বিবরণে জানা যায়, সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের বিরুদ্ধে ১৯৯১ সালের ৮ জানুয়ারি তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরোর উপপরিচালক রাজধানীর সেনানিবাস থানায় দুর্নীতির একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় ১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি থাকাকালে বিভিন্ন উপহার সামগ্রী রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা না দিয়ে এক কোটি ৯০ লাখ ৮১ হাজার ৫৬৫ টাকার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ আনা হয়। ওই মামলায় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত ১৯৯২ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি এক রায়ে এরশাদকে তিন বছরের কারাদণ্ড দেন। ওই রায়ের বিরুদ্ধে একই বছর এরশাদ হাইকোর্টে আপিল করলে দণ্ড স্থগিত হয়ে যায়। পরে ২০১২ সালের ২৬ জুন দুর্নীতি দমন কমিশন এ মামলায় পক্ষভুক্ত হয়। দুই যুগ পর গত বছরের ২২ আগস্ট আপিলটি শুনানির জন্য হাইকোর্টের আবেদন করে দুদক। এরই ধারাবাহিকতায় ১৩ মার্চ আপিলের শুনানি শেষে রায়ের দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট। ২৩ মার্চ রায়ের দিন রাখা হয়। কিন্তু এরশাদের সাজা বাড়াতে রাষ্ট্রপক্ষের দুটি আপিল অনিষ্পন্ন থাকায় সেদিন আর রায় না দিয়ে বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস মামলার সব ফাইল পাঠিয়ে দেন প্রধান বিচারপতির কাছে।

পরে প্রধান বিচারপতি তিনটি আপিল একসঙ্গে নিষ্পত্তির জন্য বিচারপতি মো.  রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর বেঞ্চে পাঠান।

প্রসঙ্গত, ১৯৯০ সালে গণআন্দোলনের মুখে এরশাদ সরকারের পতনের পর বিভিন্ন অভিযোগে প্রায় তিন ডজন মামলা হয় তার বিরুদ্ধে। এর মধ্যে তিনটি মামলায় তার সাজার আদেশ হয় এবং একটিতে তিনি সাজা খাটা শেষ করেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে এরশাদ নির্বাচন কমিশনে যে হলফনামা দেন, তাতে তখনও আটটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। অন্য মামলাগুলো থেকে তিনি খালাস বা অব্যাহতি পেয়েছেন, অথবা মামলার নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। এই আট মামলার মধ্যে চারটির কার্যক্রম উচ্চ আদালতের আদেশে স্থগিত রয়েছে। মঞ্জুর হত্যাসহ তিনটি মামলা বর্তমানে চালু রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মৎস্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মাছ আত্মসাতের অভিযোগ‍! 

398121

মো. জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ১১ এপ্রিল : লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা কামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীদের মাছ আত্মসা‍ৎ করার অভিযোগ উঠেছে।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার আলেকজান্ডার বাজারে অভিযানের নামে ৫ মাছ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় দেড় মণ মাছ জব্দ করেন এই মৎস্য কর্মকর্তা।

মাছ ব্যবসায়ী শাহাবুদ্দিন সাংবাদিককে অভিযোগ করে বলেন, সন্ধ্যায় বাজারে মাছ বিক্রি করার সময় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এসে ৫ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে পোয়া মাছ, তুলারঢান্ডি ও ইলিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় দেড় মণ মাছ নিয়ে যান। পরে দু’টি এতিমখানায় ১৫/২০ কেজি মাছ বিতরণ দেখিয়ে বাকী সবগুলো মাছ মৎস্য কর্মকর্তাসহ ওই অফিসের কয়েকজন ভাগাভাগি করে নিয়ে যান।

শাহাবুদ্দিনের মতো আলেকজান্ডার বাজারের মাছ ব্যবসায়ী হান্নান, বাহার, জাহের ও নিজাম সাংবাদিকদের কাছে ঐ মৎস্য কর্মকর্তা বিরুদ্ধে একই অভিযোগ করেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে রামগতি উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন সাংবাদিককে জানান, বাজারে অভিযান চালিয়ে ১০/১৫ কেজি মাছ জব্দ করা হয়েছে। পরে মাছগুলো দু’টি এতিমখানায় বিতরণ করা হয়েছে। আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সত্য নয়।

মার্চ-এপ্রিল দুই মাস ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের রামগতি পর্যন্ত প্রায় ১০০ কিলোমিটার মেঘনা নদীতে সব ধরনের মাছ ধরা বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। কিন্তু নদীতে জেলেরা প্রতিদিনই মাছ শিকার করছে। স্থানীয় প্রশাসন তা বন্ধ না করে বাজারে অভিযানের নামে ব্যবসায়ীদের মাছ আত্মসাৎ করছে বলেও অভিযোগ স্থানীয়দের।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দুদকের মামলায় উপ-মহা হিসাব নিয়ন্ত্রক দুলাল গ্রেপ্তার 

2698

ঢাকা, ১১ এপ্রিল : জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের মামলায় উপ-মহা হিসাব নিয়ন্ত্রক দুলাল উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম জানান, সোমবার রাত ১টায় ময়মসিংহের ভালুকা থেকে দুলালকে গ্রেপ্তার করেন তারা।

উপ-মহা হিসাব নিয়ন্ত্রক হয়ে ঢাকায় আসার আগে ময়মনসিংহের জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন দুলাল উদ্দিন।

গত ৩১ জানুয়ারি তার বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের সহকারী পরিচালক বজলুর রশীদ।

জাহাঙ্গীর আলম জানান, ঘোষিত আয়ের বাইরে দুলালের এক কোটি সাত লাখ ৮৯ হাজার টাকার সম্পদ রয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে এ মামলার এজাহারে।

জাহাঙ্গীর জানান, দুলাল উদ্দিনকে মঙ্গলবার আদালতে হাজির করা হবে বলে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

হাতিরঝিলে ফেলে যাওয়া বিলাসবহুল গাড়ি উদ্ধার 

ঢাকা, ১০ এপ্রিল : রাজধানীর হাতিরঝিলে ফেলে যাওয়া অবস্থায় বিলাসবহুল ‘পোরশে’ গাড়ি উদ্ধার করেছে শুল্ক ও গোয়েন্দা কতৃপক্ষ। গাড়িটি উদ্ধারের সময় এর ভেতরে চাবি ও ড্রাইভারের সিটে একটি চিঠিও পাওয়া গেছে। আজ সকালে গাড়ীটি উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে গাড়িটি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে আনা হয়েছে।

কে বা কারা এটি ফেলে রেখে গেছেন তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের উপপরিচালক শরীফ আল হাসান।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নারায়ণগঞ্জে ১২ মণ জাটকাসহ আটক ১ 

নারায়ণগঞ্জ, ৯ এপ্রিল : নারায়ণগঞ্জে ১২ মণ জাটকাসহ  এক মাছ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে নৌ-পুলিশ। আটক মাছ ব্যবসায়ীর নাম রাকিব। রাকিবের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের মিজিরকান্দি। তার বাবার নাম মোসলেম উদ্দিন।

রবিবার ভোরে শীতলক্ষ্যার পশ্চিম পাড়ে ৩ নম্বর মাছ ঘাটের কাছ থেকে জাটকাসহ তাকে আটক করা হয়। তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নৌ-পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সেলিম আহম্মেদ জানান, বৈশাখ উপলক্ষে অসাধু ব্যবসায়ীদের প্রকাশ্যে জাটকা বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার ৩ নম্বর মাছ ঘাটে অভিযান চালানো হয়। বেলা ১১টায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা তারিনের ভ্রাম্যমাণ আদালতে রাকিবকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর