২৯ মে ২০১৭
সকাল ৭:৫৮, সোমবার

আজ এতিমদের সঙ্গে ইফতার করবেন খালেদা

আজ এতিমদের সঙ্গে ইফতার করবেন খালেদা 

787

ঢাকা, ২৮ মে : রমজানের প্রথম দিন (রবিবার) এতিম-উলামা-মাশায়েখদের সম্মানে ইফতারের আয়োজন করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেনের লেডিস ক্লাবে তাদের সঙ্গে ইফতারে অংশ নেবেন তিনি।

রোজার দ্বিতীয় দিন গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে ঢাকায় অবস্থানরত মুসলিম দেশসহ বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে ইফতার করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

এছাড়া বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারে ৩ জুন বিএনপির নেতাকর্মী, ৪ জুন পেশাজীবী এবং ৫ জুন রাজনীতিবিদদের সন্মানে ইফতার পার্টির আয়োজন করেছেন খালেদা জিয়া।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সোমবার অস্ট্রিয়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী 

56565

ঢাকা, ২৮ মে : আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থার (আইএইএ) আমন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দু’দিনের সফরে অস্ট্রিয়া যাচ্ছেন।

সোমবার প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের কোনো প্রধানমন্ত্রী অস্ট্রিয়া সফর করবেন।

রবিবার নিজ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এ তথ্য জানান।

আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা প্রতিষ্ঠার ৬০ বছর পূর্তি উপলক্ষে অস্ট্রিয়ায় ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন দ্য টেকনিক্যাল কো-অপারেশন প্রোগ্রাম’ শীর্ষক সম্মেলনের আয়োজন করছে।

সম্মেলনে অস্ট্রিয়ার প্রধানমন্ত্রী ক্রিশ্চিয়ান কার্নের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই সম্মেলনে মরিশাস ও উরুগুয়ের রাষ্ট্রপ্রধানরা নিজেদের উপস্থিতি নিশ্চিত করেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, আইএইএ’র সদস্যপদ পাওয়ার পর থেকে পারমাণবিক প্রযুক্তির শাক্তিপূর্ণ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এ সংস্থার সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে।

তিনি জানান, বাংলাদেশের পারমাণবিক প্রযুক্তির সক্ষমতা বৃদ্ধি, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাগুলো আইএইএ’র টেকনিক্যাল সহযোগিতা কীভাবে বাংলাদেশকে সহায়তা করছে সম্মেলনে সে বিষয়ে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

খালেদার বড় পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলা চলবে 

27

ঢাকা, ২৮ মে : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বড় পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলার বিচার কার্যক্রম চলবে। এই মামলা বিচার কার্যক্রম চলার প্রশ্নে হাইকোর্টের দেওয়া রায় বহাল রেখেছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

আজ রবিবার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ খালেদা জিয়ার রিট টু আপিল খারিজ করে এ আদেশ দেয়।

গত ২২ মে এ মামলা বাতিলে খালেদা জিয়ার আবেদনের ওপর শুনানি শেষে আজকে আদেশের দিন ধার্য করেছিলেন আপিল বিভাগ।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন এজে মোহাম্মদ আলী, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও বদরুদ্দোজা বাদল। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

এর আগে ২০১৫ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা বাতিলে খালেদা জিয়ার আবেদন খারিজ করে দেন হাইকোর্ট।

ওই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি ২০১৬ সালের ২৫ মে প্রকাশ হয়। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছর ২৬ জুন লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করেন খালেদা জিয়া।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়া ও তার মন্ত্রিসভার সদস্যসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশনের তৎকালীন সহকারী পরিচালক মো. সামছুল আলম। পরে এ মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ হাইকোর্টে রিট করেন খালেদা জিয়া। তার ওই আবেদনে হাইকোর্ট ২০০৮ সালের ১৬ অক্টোবর মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল দেন।

দীর্ঘ সাত বছর দুদকের আবেদনে সেই রুলের শুনানি করেন হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ তুলে নিয়ে মামলাটি সচল হয়।

মামলাটি বর্তমানে ঢাকার দুই নম্বর বিশেষ জজ হোসনে আরা বেগমের আদালতে অভিযোগ গঠনের শুনানি পর্যায়ে রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিএনপি নেতা আসলাম চৌধুরীর জামিন বহাল 

32

ঢাকা, ২৮ মে : রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। আজ রবিবার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে চার বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষর আবেদন খারিজ করে দিয়ে এ আদেশ দেন। আদালতে আসলাম চৌধুরীর আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, জামিনাদেশ বহাল থাকায় তার এখন জামিনে মুক্তি পেতে আর কোনো বাধা নেই। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষের হয়ে উপস্থিত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

ভারতে গিয়ে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের এক কর্মকর্তার সঙ্গে ‘সরকার উৎখাতের’ জন্য আলোচনা করার অভিযোগ ছিল আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে। গত বছর দিল্লি ও আগ্রার তাজমহল এলাকায় ইসরায়েলের সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল ডিপ্লোমেসি অ্যান্ড অ্যাডভোকেসির প্রধান লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা-সাক্ষাতের বেশ কিছু ছবি প্রকাশিত হলে দেশ-বিদেশে তোলপাড় শুরু হয়।

এরপর ২০১৬ সালের ১৫ মে সন্ধ্যায় রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে আসলাম চৌধুরী ও তার ব্যক্তিগত সহকারী মো. আসাদুজ্জামান মিয়াকে আটক করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাদের ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরদিন ১৬ মে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাদের দুজনের ১০ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। আদালত সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পাওয়ার পর ওই বছরের ২৬ মে আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে গুলশান থানায় দায়ের করা হয় রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলাটি। দণ্ডবিধির ১২০ (বি), ১২১ (৩) ও ১২৪ (এ) ধারায় ডিবির পরিদর্শক গোলাম রাব্বানী বাদী হয়ে মামলাটি করেন। বিচারিক আদালতে জামিন চেয়ে ব্যর্থ হওয়ার পর ১৮ মে বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী এবং এ এন এম বসিরউল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় আসলাম চৌধুরীর জামিন মঞ্জুর করেন। রাষ্ট্রপক্ষ এই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেছিল।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ক্ষমতা কেন্দ্রিক রাজনীতি রাষ্ট্রকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে দুরে সরিয়ে নিচ্ছে 

0014

মো. জামাল উদ্দিন বাবলু, লক্ষ্মীপুর, ২৭ মে: স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক সাবেক মন্ত্রী বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি’র) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আসম আবদুর রব বলেছেন-দেশ সর্বনাশের দিকে যাচ্ছে, গায়ের জোরে ও অস্ত্র শক্তি দিয়ে ক্ষমতায় টিকে আছে। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নেই, কথা বলা যায় না, সভা সমাবেশ করা যায় না, দেশ এখন নরকে পরিণত হয়েছে। স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে সকল বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিকে ঐক্য হতে হবে।

শুক্রবার রাতে লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের হাজিরহাট ডিগ্রি মাদ্রাসা মিলনায়তনে উপজেলা যুব পরিষদ আয়োজিত প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, দেশে আজ ক্ষমতা রক্ষা ও ক্ষমতা পুনর্দখলের জন্য দ্বিদলীয় অনৈতিক প্রতিযোগীতার আবর্তে নিমজ্জিত। ক্ষমতা কেন্দ্রিক রাজনীতি রাষ্ট্রকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকে দুরে সরিয়ে নিচ্ছে। এ অবস্থা থেকে জাতিকে মুক্ত করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। সে লক্ষ্যে গণতান্ত্রিক-প্রগতিশীল রাজনৈতিক দল ও সমাজ শক্তি সমুহকে নিয়ে তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তি গড়ে তুলতে হবে।  আসন্ন নির্বাচনকে অবাধ-সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ গঠন করে সেখান থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের বিধান করতে হবে। এসময় তিনি তার আমলে রামগতি কমলনগরে ব্যাপক উন্নয়নের কথা তুলে ধরেন এবং কৃষক ও বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের জন্য তাদের পাশে দাঁড়াতে আহব্বান জানান।

উপজেলা যুব পরিষদের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান বেলালের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) কেন্দ্রিয় সহ-সভাপতি বেগম তানিয়া ফেরদৌসী (তানিয়া রব), যুব পরিষদের কেন্দ্রিয় যুগ্ম আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার মুনিরুল ইসলাম মিঠু।

উপজেলা জেএসডি’র যুগ্ম আহবায়ক শিব্বির আহমেদ দেওয়ানের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা জেএসডি’র সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মোতালেব, সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন নিরব, উপজেলা যুব পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মোখলেছুর রহমান ধনু ও মো. রিয়াজ প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ভাস্কর্য সরিয়ে ইসলামসহ সব ধর্মকে সম্মান জানানো হয়েছে : আইনমন্ত্রী 

1544

ঢাকা, ২৭ মে : ভাস্কর্য সরিয়ে ইসলামসহ সব ধর্মকে সম্মান জানানো হয়েছে। এ কথা বলেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

আজ শনিবার সকালে ঢাকার সিডরাপ মিলনায়তনে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, থেমিসের যে মূর্তি সরানো হয়েছে, তা আসল নয়। এটি একটি বিকৃত মূর্তি। আমি মনে করি এটি কোনো মূর্তিই না।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ভাস্কর্যটি থেকে অপসারণ হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ইভিএমে ভোটগ্রহণ মানবে না বিএনপি : মওদুদ আহমদ 

588

ঢাকা, ২৭ মে : আগামী নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ বিএনপি মানবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেছেন, ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্ত। আমরা এটা অন্তত আগামী নির্বাচনে দেখতে চাই না।

আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৬ তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে এই সভার আয়োজন করে জিয়া পরিষদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মওদুদ আহমদ বলেন, বর্তমান ইসি নিরপেক্ষ নয়। তারা আমাদের কাছে অগ্রহণীয়। রোডম্যাপ দিয়ে কী হবে? সমান সুযোগ না দিলে এই রোডম্যাপ হবে একদলীয়। পক্ষপাতী রাজনৈতিক ব্যক্তি হলেন সিইসি। এজন্য তাকে আমরা গ্রহণ করতে পারিনি। দলীয় দৃষ্টিতেই ইসি গঠন হয়েছে। তাই এ ইসি দ্বারা কখনোই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হতে পারে না। কারণ দলীয় সরকারের অধীনে ইসি স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে না।

তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন কোনো সরকার থাকবে তার ওপরই নির্ভর করবে আগামী নির্বাচন। তবে আমরা নির্বাচনে যাবো। আমাদের জনসমর্থন রয়েছে। আগামীতে আর কোনো একদলীয় নির্বাচন হতে দেয়া হবে না।

আগামী নির্বাচনে ইভিএম আমরা মানি না। কারণ ইভিএমে আমাদের দেশের জনগণ সম্পৃক্ত নয়। তারা অভ্যস্ত নয়। বিশ্বের কোথাও ইভিএমে ভোট হয়নি। সম্প্রতি ফ্রান্সেও ম্যানুয়ালি ভোট হয়েছে। বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে ইভিএম সংস্কৃতি অচল। আমরা এটা অন্তত আগামী নির্বাচনে দেখতে চাই না।

মওদুদ আহমদ বলেন, দেশের মানুষ এখন পরিবর্তন চায়। যারা ক্ষমতায় আছে সম্পূর্ণ গায়ের জোরে বিনাভোটের সরকার। তারা ১৫৪ টি আসনে নির্বাচন দেয়নি।
তিনি বলেন, সংবিধানে জনগণকে ক্ষমতার উৎস বলা হচ্ছে, পক্ষান্তরে জনগণের ক্ষমতা নিয়ে নেয়া হচ্ছে। এখনো অনেক বিষয় সংবিধানে জটিলতা রয়েছে। ১৫ তম সংশোধন আত্মঘাতী। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে এসব পরিবর্তন করবে।

সাবেক এই মন্ত্রী আরো বলেন, উন্নয়ন আর গণতন্ত্র আলাদা, উন্নয়ন আর সুশাসন এক নয়। তা না হলে তো আইয়ুব খানকে মেনে নিতাম। কিন্তু মানিনি বলেই তো আন্দোলন করে জোর করে ক্ষমতা থেকে নামিয়েছি। ফ্লাইওভার ইজ নট স্টেট ভ্যালু।

সরকারের সমালোচনা করে বলেন, সব কিছুকে প্রভাবিত করেছে সরকার। ইসি, দুদক সংসদ সবিকছু। সংসদে বিরোধী দল নেই। আমার মনে হয় সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে বর্তমান সরকারকে গিনেজ বুকে স্থান দেয়া উচিত।

মওদুদ আহমদ বলেন, দাবি গণআন্দোলন ছাড়া বিকল্প নেই। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হলে আন্দোলনই একমাত্র পথ। সকল রাজনীতিক দল, পেশাজীবীদের ঐক্যবদ্ধ করে নির্বাচনে অংশ নেবো।

জিয়া পরিষদের সভাপতি কবির মুরাদের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম মহাসচিব আব্দুল্লাহিল মাসুদের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা ড. এসএম হাসান তালুকদার, ডা. আব্দুল কুদ্দুস, ড. এমতাজ হোসেন, ড. লুৎফর রহমান প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নির্মিত ভাস্কর্য অপসারণের সুযোগ নেই’ 

25

ঢাকা, ২৭ মে : মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নির্মিত কোনো ভাস্কর্য অপসারণের সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, সারাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নির্মিত ভাস্কর্য ও আগামীতে যেগুলো নির্মিত হবে সেগুলো অপসারণ করার প্রশ্নই উঠে না। সরকার এক্ষেত্রে অনড় ও অটল অবস্থানে রয়েছে।

আজ শনিবার সকালে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের যানজট নিরসন ও রাস্তা সম্প্রসারণ কাজ পরিদর্শনে গিয়ে সেতুমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি ও চেতনা নিয়ে বাংলাদেশে যেসব ভাস্কর্য স্থাপিত হয়েছে, সেগুলোর সঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের ভাস্কর্যের কোনো সম্পর্ক নেই। এসব ভাস্কর্য আছে এবং ভবিষ্যতেও সরকারি অনুদানে নির্মিত হবে।

প্রধানমন্ত্রীর কথা উল্লেখ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, যার অসীম সাহসের কারণে চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হয়েছে, তার অবস্থান নিয়ে কথা বলা যৌক্তিক নয়। জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আল্লাহ ছাড়া কারো কাছে আত্মসমর্পণ করেন না।

রোজার ঈদকে সামনে রেখে জনভোগান্তি কমাতে মহাসড়কের দুই পাশের অবৈধ স্থাপনা অপসারণ ও পার্কিং করা ট্রাকসহ যানবাহন সরিয়ে নেওয়ারও নির্দেশ দেন সেতুমন্ত্রী।

এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) ছরোয়ার হোসেন, সোনারগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মঞ্জুর কাদের ও কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শরিফুল আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ডিসেম্বরে সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে ন্যায়বিচারের প্রতীক গ্রিক দেবী থেমিসের মূর্তির আদলে স্থাপন করা হয়েছিল একটি ভাস্কর্য। এটি স্থাপনের পর থেকেই তা অপসারণের দাবিতে হেফাজতে ইসলামীসহ বেশ কয়েকটি ধর্মভিত্তিক সংগঠন আন্দোলনে নামে।

গত ১০ এপ্রিল গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কওমি মাদ্রাসার আলেম-ওলামাদের বৈঠকেও ভাস্কর্য সরানোর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। সেদিন প্রধানমন্ত্রী জানান, তিনি ব্যক্তিগতভাবে মনে করেন না এই ভাস্কর্য সেখানে থাকা উচিত।

পরবর্তীতে বিচারপতিদের বাসভবন উদ্বোধন উপলক্ষে কাকরাইল গিয়ে বিষয়টি নিয়ে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এর দেড় মাসের মাথায় গত বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে ভাস্কর্যটি অপসারণ করা হয়।

ভাস্কর্য সরানোর কয়েক ঘণ্টা পর রাজধানীতে একটি শোকরানা মিছিল বের করে হেফাজতে ইসলাম। মিছিল শেষে দেশে স্থাপিত সব ভাস্কর্যকে ‘মুর্তি’ আখ্যা দিয়ে সেগুলোতে অপসারণের দাবি জানায় ধর্মভিত্তিক সংগঠনটির নেতারা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মাঠে নামবেন খালেদা জিয়া 

55

ঢাকা, ২৭ মে : নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা ঘোষণার পরে মাঠে নামবেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার আগেই দল গোছানোর কাজও শেষ করবে দলটি। ইতোমধ্যে ৪৭টি জেলায় নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। বাকিগুলো দ্রুত করার প্রক্রিয়া চলছে। দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, বেগম জিয়া ঈদের পর চোখের চিকিত্সার জন্য লন্ডন যেতে মনস্থ করেছেন। ২০১৫ সালের অক্টোবরে লন্ডনে চোখের চিকিৎসা করান তিনি। চিকিৎসকরা তখন বলেছিলেন ৯ মাস পর আবারো চেকআপ করাতে। কিন্তু তিনি প্রায় দেড় বছর আর চেকআপ করাতে যেতে পারেননি। ফলে চোখের সমস্যা দেখা দিচ্ছে। অসুস্থতার কারণে এবার পবিত্র মাহে রমজানে ওমরাহ করতে যেতে পারবেন না বলে জানা গেছে।

লন্ডন থেকে তিনি দেশে ফিরে ঘোষণা করবেন নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা। এই রূপরেখার খসড়া তৈরি করা আছে। এতে আইনগত বিষয়গুলো নিয়ে আরো বিচার বিশ্লেষণ ও মতামত দিচ্ছেন দলের আইন বিশেষজ্ঞরা। এই রূপরেখা নিয়ে জনমত গড়তে মাঠে নামবেন বেগম জিয়া। প্রাক-পরিকল্পনা অনুযায়ী বিভাগীয় সদরগুলোতে জনসভা করতে পারেন। ঢাকা থেকে এই জনসভায় যাওয়া-আসার পথে জনসংযোগ করবেন।

উন্মুক্ত স্থানে খালেদা জিয়ার সর্বশেষ রাজনৈতিক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৬ সালের ৫ জানুয়ারি নয়াপল্টনে। তবে ওই জনসভার অনুমতি পেতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয় বিএনপিকে। শেষে পুলিশ ১৩ দফা শর্তযুক্ত করে অনুমতি দেয়। আর চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যান বা নয়াপল্টনে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’-এ জনসভা করতে চাইলেও সরকার অনুমতি দেয়নি। চলতি বছরের ১ মে সমাবেশের অনুমতি দেয়নি সরকার। আবার গত ২৪ মে সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে খালেদা জিয়ার সমাবেশের অনুমতি চেয়ে পায়নি বিএনপি। এর বাইরে গত বছর ১ মে সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানে শ্রমিক সমাবেশে বক্তৃতা করেন খালেদা জিয়া।

মূলত ২০১৫ সালে টানা ৯৩ দিনের হরতাল অবরোধের পর ঢাকার বাইরে আর সমাবেশে যাননি বেগম জিয়া। দলের একজন সিনিয়র নেতা বলেন, ইতোমধ্যে বিএনপি সমর্থক কতিপয় বুদ্ধিজীবী একাধিকবার বেগম জিয়াকে তাগাদা দিয়েছেন যেন তিনি ঢাকার বাইরে জনসভা করেন। তবে অসুস্থতা, দল গোছানো এবং নিরাপত্তাজনিত কারণে বিলম্বিত হচ্ছে এই জেলা সফর।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দল গোছানোর কাজ চলছে। যত দূর সম্ভব তাড়াতাড়ি শেষ করা হবে সাংগঠনিক পুনর্গঠন। শেষ হলে মাঠে নামবেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

এদিকে বর্তমানে দল গোছানোর পাশাপাশি ‘রূপকল্প-২০৩০’ সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। ‘রূপকল্প-২০৩০ পুস্তিকা আকারে ইতোমধ্যে কয়েক লক্ষ কপি ছাপা হয়েছে। প্রতিটি জেলা এবং উপজেলার নেতাদের চাহিদা মতো ছাপানো হচ্ছে এই পুস্তিকা। তারা নগদ টাকায় কিনে এই পুস্তিকা বিতরণ করছেন। এই রূপকল্প নিয়ে প্রতিটি জেলায় সেমিনার এবং আলোচনা অনুষ্ঠান করবে বিএনপি। জেলাগুলোর বিশিষ্ট নাগরিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা তাতে মতামত দেবেন। রূপকল্পে উল্লিখিত প্রতিটি বিষয়ের ওপর রাজধানীতে সেমিনার হবে। ইতোমধ্যে শিক্ষা বিষয়ের ওপর সেমিনার করেছে বিএনপি। গত ১৩ মে লেডিস ক্লাবে ‘বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা ও আমাদের ভবিষ্যত্’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বেগম খালেদা জিয়া। এ সেমিনার থেকে মতামত নেওয়া হচ্ছে, যাতে রূপকল্প আরো পরিপূর্ণতা লাভ করতে পারে। দেশকে উচ্চ মধ্যম আয়ে উন্নীত করা এবং প্রাতিষ্ঠানিক সংস্কার ও রাজনৈতিক গুণগত পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে গত ১০ মে ‘রূপকল্প-২০৩০’ ঘোষণা করেন খালেদা জিয়া। এর ভূমিকায় সারাদেশের বিশিষ্টজনদের মতামত চাওয়া হয়েছে।

দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই রূপকল্প নিয়ে বিশেষজ্ঞ, পার্লামেন্টারিয়ান ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে মতবিনিময় করে আরো পরিমার্জন-পরিবর্ধন করা যেতে পারে।

এসব প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ভিশন-২০৩০ নিয়ে দেশের মানুষ উজ্জীবিত। জনগণের কাছ থেকে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি আমরা। বর্তমানে যে রাজনীতি চলছে, বর্তমানে যে প্রেক্ষাপট, জনগণ একটা ইতিবাচক রাজনীতি চায়। সে বিষয়গুলো এই ভিশনে আনা হয়েছে। এটা এ দেশের মানুষের অনেক দিনের দাবিও ছিল যে বিএনপি কী করতে চায়; সে কথাগুলো আমরা বলেছি। এখন এটা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। সমস্ত জেলায় এ বিষয়গুলোর ওপর আলোচনা হবে। সেমিনার হবে। মতামত নেওয়া হবে। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমাদের নেত্রী রোজার পর নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবেন। আমরা প্রত্যাশা করি আগামী নির্বাচনে সহায়ক সরকারের যে রূপরেখা আমাদের নেত্রী দেবেন সেটা আনন্দের সঙ্গে গ্রহণ করে আওয়ামী লীগ সহায়ক সরকার গঠনে তাদের সদিচ্ছা দেখাবে। অন্যথায় জনগণ রাস্তায় নেমে এই দাবি আদায় করবে।

এদিকে সারাদেশে বিএনপি পুনর্গঠনের সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকা দলের ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান জানান, দলের ৭৭টি  সাংগঠনিক জেলার মধ্যে ইতোমধ্যে ৪৭টিতে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কয়েকটি চূড়ান্ত করা আছে। শিগগিরই বাকিগুলো পর্যায়ক্রমে ঘোষণা করা হবে। শাহজাহান বলেন, আমি আজ (বুধবার) ওমরাহ পালন করতে সৌদি আরব যাব। ফিরব আগামী ২২ জুন। আমার অবর্তমানে ম্যাডাম অন্যদের দিয়ে কমিটি গঠনের কাজ এগিয়ে নিতে পারেন। -ইত্তেফাক

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

খুলনায় বিএনপির আধাবেলা হরতাল কাল 

225

খুলনা, ২৬ মে : জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আলাউদ্দিন মিঠু হত্যার প্রতিবাদে আগামীকাল শনিবার খুলনা মহানগর ও জেলায় আধাবেলা হরতাল ডেকেছে দলটি।

এর প্রতিবাদে চার দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে দলের পক্ষ থেকে।

আজ শুক্রবার খুলনা জেলা ও মহানগর বিএনপি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা সভাপতি এস এম সফিকুল ইসলাম মোনা, খুলনা সিটি মেয়র ও মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম মনিসহ অনেকে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আজ (শুক্রবার) মহানগর ও জেলার দলীয় কার্যালয়ে কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, শনিবার জেলাজুড়ে অর্ধদিবস হরতাল, রোববার শোক সভা-দোয়া মাহফিল ও আগামী সোমবার মহানগর বিএনপির কার্যালযের সামনে সমাবেশ ও মঙ্গলবার জেলা প্রশাসক ও বিভিাগীয় কমিশনার বরাবর স্মারকলিপি প্রদান।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মূর্তি অপসারণে সরকারের কোনো হাত নেই: কাদের 

5555

গাজীপুর, ২৬ মে : সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ভাস্কর্য অপসারণে সরকারের কোনো হাত নেই বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, গ্রিক দেবীর মূর্তি অপসারণের বিষয়টি সরকারের এখতিয়ারে নেই। এটা সুপ্রিম কোর্টের বিষয়, সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্ত।

আজ শুক্রবার সকালে গাজীপুরের চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের লেন উন্নত করার কাজ পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ দাবি করেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আসন্ন রমজান ও ঈদে মানুষের দুর্ভোগ সহনীয় মাত্রায় রাখতে সড়কে ভাসমান দোকানপাট এবং অবৈধ দখল উচ্ছেদ করতে হবে। এ জন্য হাইওয়ে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বিএনপির সমালোচনা করে সেতুমন্ত্রী বলেন, সরকারের নজিরবিহীন উন্নয়নে বিএনপি আজ হতাশ। হতাশা থেকেই তারা আচার আচরণ ও কথাবার্তায় বেপরোয়া হয়ে উঠছে। মফস্বলে কোনো সভা করতে গেলে তারা একে অপরকে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া করছে। লাঠিসোটা নিয়ে একে অপরকে আক্রমণ করছে।

এ সময় হাইওয়ে পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আতিকুল ইসলাম, ঢাকা বিভাগীয় অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, জেলা প্রশাসক দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবীর, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদসহ পুলিশ প্রশাসন, সড়ক ও জনপথ বিভাগের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিএনপির বলিষ্ঠ নেতাদের বেছে বেছে হত্যা চলছে: খালেদা 

888

ঢাকা, ২৬ মে : বর্তমান সরকার বিএনপির বলিষ্ঠ নেতাকর্মীদের বেছে বেছে হত্যা করার মিশন নিয়ে কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, ‘বিএনপিসহ বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের হত্যা করে ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে জোর করে রাষ্ট্রক্ষমতা কব্জায় রাখাই আওয়ামী রাজনীতির সংস্কৃতি। এজন্য সরকার বিএনপির বলিষ্ঠ নেতাকর্মীদের বেছে বেছে হত্যার মিশন নিয়ে কাজ করছে।’

গতরাতে নিজ কার্যালয়ে দুর্বৃত্তের গুলিতে খুন হন খুলনা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও ফুলতলা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান সরদার আলাউদ্দিন মিঠু। এর প্রতিবাদে সকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএনপি চেয়ারপারসন এই মন্তব্য করেন।

খালেদা জিয়া বলেন, ত্রাস সৃষ্টির মাধ্যমে জোর করে রাষ্ট্রক্ষমতা কব্জায় রাখার সংস্কৃতির অংশ হিসেবে সরকার বিএনপি’র বলিষ্ঠ নেতাকর্মীদের বেছে বেছে হত্যার মিশনে নেমেছে। আর সেই মিশনেরই নিষ্ঠুর শিকার হলেন সরদার আলাউদ্দিন মিঠু।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের হত্যার মাধ্যমে রক্তে হাত রঞ্জিত করে বাংলাদেশকে গোরস্থানে পরিণত করা হয়েছে। শহর, গ্রামসহ জনপদের পর জনপদে মানুষ হত্যার মহাযজ্ঞ যেন থামছেই না। সন্তানহারা পিতা-মাতা, স্বামীহারা স্ত্রী ও পিতাহারা সন্তানদের আহাজারিতে প্রতিদিনই দেশের আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে উঠছে।’

রাতের আঁধারে মিঠুকে হত্যার ঘটনাতে কাপুরুষোচিত উল্লেখ করে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মিঠুকে নির্মমভাবে হত্যা সরকারের ধারাবাহিক প্রাণঘাতি নৃশংসতার আরেকটি বহি:প্রকাশ। দেশকে গণতন্ত্রশুন্য করতেই আওয়ামী লীগ গণসম্মতি উপেক্ষা করে চরম সীমালঙ্ঘন করছে। আর সীমালঙ্ঘনের কারণে ঝরে যাচ্ছে বিরোধীদলের অনেক প্রতিবাদী নেতাকর্মীর প্রাণ। সরকারের বিরুদ্ধে কেউ যেন কথা বলার সাহস না পায় এবং সমাজে যেত আতঙ্ক বিরাজ করে সেজন্য বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের হত্যা করা হচ্ছে।’

খালেদা জিয়া বলেন, বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার ক্ষমতার মোহে অন্ধ, বেপরোয়া ও মানবিকবোধশুন্য হয়ে পড়েছে। দুর্বিনীত অনাচার ও প্রতিদিন হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করে দেশকে এক মহাদুর্যোগের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। এ কারণে বিএনপিকে কোনো সমাবেশ বা কোন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করার অনুমতি দিচ্ছে না পুলিশ।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, রক্তপাত ঘটিয়ে জীবন কেড়ে নিয়ে ভীতির সৃষ্টি করে ক্ষমতায় টিকে থাকা যাবে না। জনগণ আর বসে থাকবে না। দু:শাসন মোকাবেলায় অব্যাহত রক্তপাতের কর্মসূচিকে সম্মিলিত শক্তি দিয়ে জনগণ প্রতিহত করবে।

বিবৃতিতে খালেদা জিয়া মিঠুর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকার্ত পরিবার ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

আলাদা আরেকটি বিবৃতিতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘মিঠু বিএনপি’র বলিষ্ঠ নেতা হওয়ায় তাকে প্রতিহিংসাবশত পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। সরকারের মদদেই এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে।’ তিনি এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে খুনিদের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

খুলনায় দেহরক্ষীসহ বিএনপি নেতা খুন 

565

খুলনা, ২৬ মে : খুলনায় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সরদার আলাউদ্দিন মিঠুকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল রাত সোয়া ১০টার দিকে ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসংলগ্ন তার নিজ অফিসে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গুলিতে মিঠুর দেহরক্ষী ও এক সহযোগী আহত হন। সে সময় এলাকায় বিদ্যুৎ ছিল না। পরে দেহরক্ষীও মারা যান।

মিঠুর সহযোগী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, একটি মোটরসাইকেলে ২-৩ জন আরোহী এসে মিঠুকে লক্ষ্য করে ৮-১০ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ সময় তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।

জানা গেছে, ২০১০ সালে মিঠুর ভাই সরদার বাদলকে একইভাবে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এর আগে ১৯৯৮ সালে মিঠুর বাবা সরদার কাশেমকেও গুলি করে হত্যা করা হয়।

খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিকালে খালেদা জিয়ার সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ 

83

ঢাকা, ২৫ মে : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে আজ বৃহস্পতিবার বিকালে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ঢাকায় নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার জুলিয়া নিব্লেট।

বিকাল সাড়ে ৫টায় খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হবে।

বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আ’লীগ ইতিবাচক, বিএনপি চায় নির্বাচনকালীন সরকার 

8

ঢাকা, ২৫ মে : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচন কমিশন (ইসি) ঘোষিত রোডম্যাপকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন দলটি বলছে, এই রোডম্যাপ সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইসির সদিচ্ছারই বহিঃপ্রকাশ। তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ‘নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার’ চায় বিএনপি। তারা বলছে, রোডম্যাপ স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এটি নির্বাচন কমিশন দিতেই পারে। সরকারের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে আগামী নির্বাচন কোন পদ্ধতিতে হবে সেই বিষয়টি আগে সমাধান করতে হবে।

এদিকে, অন্য রাজনৈতিক দলগুলোর বেশিরভাগই জুলাই থেকে নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপসহ ইসির রোডম্যাপকে স্বাগত জানিয়েছে। তবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে সংলাপে রাজনৈতিক দলগুলো থেকে যেসব প্রস্তাব ও সুপারিশ আসবে, সেগুলোর বাস্তবায়ন ও জনসমক্ষে প্রকাশের দাবিও তুলে ধরেছে কয়েকটি দল। তারা বলছে, নির্বাচনী ব্যবস্থার সংস্কারসহ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের স্বার্থেই এটি জরুরি।

মঙ্গলবার রোডম্যাপ ঘোষণার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে একাদশ জাতীয় নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করে ইসি। বর্তমান সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্য স্থির করে এই রোডম্যাপে ইসি চলতি বছরের জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ হবে বলে জানিয়েছে। এ নিয়ে গতকাল বুধবার এ প্রতিবেদক আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কথা বলেছে।

আওয়ামী লীগ বলছে, ইসি তাদের দায়িত্ব ও প্রস্তুতির অংশ হিসেবেই এই রোডম্যাপ দিয়েছে। আওয়ামী লীগ সব সময়ই চায় সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের সব পদক্ষেপেই সহযোগিতা করবে তারা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেছেন, ইসি ঘোষিত রোডম্যাপকে আওয়ামী লীগ ইতিবাচকভাবে দেখছে। নির্বাচন কমিশনের ‘রোড ম্যাপ’ কী আগাম নির্বাচনের ইঙ্গিত_ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটা বোধহয় সঠিক নয়। আগাম নির্বাচন অনুষ্ঠানের সম্ভাবনা নেই। নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী সঠিক সময়েই অনুষ্ঠিত হবে।

দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক এ প্রতিবেদককে বলেছেন, এটি ইসির ভালো উদ্যোগ। এর মধ্যদিয়ে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানে কাজ শুরু করলো ইসি। জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে সীমানা পুনর্নির্ধারণ, নির্বাচনী আইনের সংস্কার, ভোটার তালিকা হালনাগাদ, নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন ইত্যাদি কাজ সারতে অনেক সময় প্রয়োজন। এ কারণেই হয়তো ইসি একটি রোডম্যাপ দিয়ে আগাম প্রস্তুতি শুরু করেছে।

দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, নির্বাচনের দেড় বছর বাকি থাকলেও তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্বের অংশ হিসেবেই ইসি আগে থেকেই পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে। এটি অবশ্যই ইতিবাচক। আওয়ামী লীগ সব সময় চায়, জাতীয় নির্বাচনসহ সব নির্বাচনই সবার অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হোক। সে লক্ষ্যে ইসিকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করতে আওয়ামী লীগ প্রস্তুত।

তবে ইসির রোডম্যাপ নিয়ে তেমন আগ্রহ নেই বিএনপির। তারা বলছে, এই রোডম্যাপ ইসি দিলেও সরকারের নির্দেশেই তা ঘোষণা করা হয়েছে। বিদ্যমান ‘রাজনৈতিক সংকট’ সমাধান করতে হলে ‘নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের’ ফয়সালা আগে করতে হবে। এরপর কীভাবে নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ করা যায়_ তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। তবে এই আলোচনা হতে হবে সরকারের সঙ্গে। আলোচনার পথও তৈরি করতে হবে সরকারকেই।

এদিকে দলীয় সূত্রগুলো বলছে, ইসির রোডম্যাপ বিষয়ে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে আলোচনা করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ ছাড়া দলসমর্থিত বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ ও পেশাজীবীদের সঙ্গেও আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এসব আলোচনার পরই বলা যাবে বিএনপি কোনদিকে যাবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন গতকাল রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, একাদশ নির্বাচনে সব দলের সমান সুযোগ নিশ্চিত করতে হলে ‘নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার’ প্রতিষ্ঠার বিষয় আগে ফয়সালা করতে হবে। তিনি আরও বলেন, এই সরকার ক্ষমতায় আসার পর তাদের ইচ্ছেমতো সংবিধান কাটছাঁট করা হয়েছে। তাই সংবিধানের দোহাই দিয়ে নির্বাচনের রোডম্যাপের ঘোষণা দিলেই হবে না।

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এ প্রতিবেদককে বলেছেন, রোডম্যাপ দিয়ে কী হবে! নির্বাচন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে, মানুষের মধ্যে যে আস্থাহীনতা দেখা দিয়েছে, তার সমাধান আগে প্রয়োজন। এই রোডম্যাপ দিয়ে রাজনৈতিক সংকট সমাধান হবে না। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে।

দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, নির্বাচন কমিশন আগামী নির্বাচন বিষয়ে রোডম্যাপ দেবে, এটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিস্থিতি দেশে আছে কি-না সেটিও ভাবতে হবে। আমরা ‘নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার’ চাই।

অন্যান্য দলের প্রতিক্রিয়া :১৪ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, আগামী নির্বাচন যাতে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং সব দলের অংশগ্রহণে হয়, সে লক্ষ্য নিয়েই ইসি আগাম প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। সে লক্ষ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপসহ আগামী নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে তারা। ইসির এই ভালো পদক্ষেপকে তারা স্বাগত জানান।

১৪ দলের আরেক শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতির অংশ হিসেবেই ইসি রোডম্যাপ দিয়েছে। এটি তাদের রুটিন ওয়ার্ক। একে আমরা স্বাগত জানাই।

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ আরও আগে হওয়া উচিত ছিল। তবে কেবল আনুষ্ঠানিক সংলাপ করে দায় সারলেই হবে না, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান ও নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কারে রাজনৈতিক দলগুলো যেসব সুপারিশ করবে সেগুলোর বাস্তবায়নও করতে হবে। সেই সঙ্গে জনগণকেও জানাতে হবে কোন দল কী কী প্রস্তাব করেছে।

বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেছেন, নির্বাচন কমিশন ও রাষ্ট্রপতির সঙ্গে রাজনৈতিক দলগুলোর আগেও সংলাপ হয়েছে। তবে সেসব সংলাপের প্রস্তাব কিংবা সুপারিশমালার কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তারপরও ইসি ডাকলে নির্বাচন ব্যবস্থার সংস্কারে মতামত তুলে ধরবেন তারা। -সমকাল

Share This:

এই পেইজের আরও খবর