২৮ মার্চ ২০১৭
রাত ১২:৩২, মঙ্গলবার

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদল ঢাকায়, বৈঠক করবেন খালেদার সঙ্গেও

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদল ঢাকায়, বৈঠক করবেন খালেদার সঙ্গেও 

ঢাকা, ২৭ মার্চ : তিন দিনের সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। রবিবার দিবাগত রাতে প্রতিনিধি দলটি ঢাকায় পৌঁছায়।

সোমবার দুপুরে বিজিএমইএ নেতাদের সঙ্গে প্রতিনিধি দলটি বৈঠক করবে। কয়েকটি পোশাক কারখানাও ঘুরে দেখবেন তারা।

আগামী জুনের মধ্যে শ্রম অধিকার সুরক্ষায় বাংলাদেশকে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নিতে হবে। মূলত এজন্যই প্রতিনিধি দলটি ঢাকায় এসেছে বলে ইইউ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে।

এ দলটি ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের অগ্রাধিকারমূলক বাজারসুবিধা (জিএসপি) পাওয়ার বিষয়ে সুপারিশে ভূমিকা রাখবে।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের চার সদস্য হলেন-লিন্ডা ম্যাকাভেন, আর্নে লেইতজ্, নোবার্ট নুয়েসার ও অ্যাগনেস জনজেরিয়ুস।

তিন দিনের সফরের তারা বিজিএমইএ ছাড়াও আলোচনা করবেন ট্রেড ইউনিয়ন,  অ্যাকর্ড, আইএলওর প্রতিনিধিদের সঙ্গে।

কথা বলবেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু, শ্রমসচিব মিকাইল শিপার ও পররাষ্ট্রসচিব মো. শহীদুল হকের সঙ্গে।

এ ছাড়া তারা বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গেও আলোচনা করবেন।

২৯ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় ঢাকায় ইইউ দূতাবাসে দলটি সংবাদ সম্মেলনে তাদের পর্যবেক্ষণ তুলে ধরবেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

দেশ আজ গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার 

ঢাকা, ২৭ মার্চ : বাংলাদেশকে নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র চলছে। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির চাকাকে থামিয়ে দিতে দেশী-বিদেশী একাধিক চক্র ঐক্যবদ্ধভাবে এই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এদের মূল লক্ষ্য পরিকল্পিতভাবে দেশের শিল্প-কলকারখানায় আঘাত হানা। ব্যবসা-বাণিজ্যে ধস নামানো।

স্বাভাবিক জনজীবন বিঘ্নিত করা। দেশ এবং দেশের মানুষকে চরম নিরাপত্তাহীন অবস্থার মধ্যে ঠেলে দিয়ে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি করা। তাদের উদ্দেশ্য- এভাবে দাবিয়ে রেখে সরকারের মনোবল ভেঙে দেয়া। হীনস্বার্থ চরিতার্থ করতে খবরদারির মাত্রা বাড়ানো।

যে কারণে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এই চক্র ‘আইএস’ নাম দিয়ে নানাভাবে প্রোপাগান্ডা চালাচ্ছে। নিজেদের সাজানো ছকে তৈরি করা কথিত জঙ্গি দিয়ে সন্ত্রাসবাদকে উসকে দিচ্ছে।

বিশেষ উদ্দেশ্যে সম্প্রতি এর মাত্রা বাড়ানো হয়েছে। প্রতিদিন কোথাও না কোথাও আত্মঘাতী হামলার ঘটনা ঘটছে। যার সঙ্গে প্রকৃত আইএস চরিত্রের কোনো মিল নেই।

এ প্রতিবেদককে এমনটিই জানিয়েছেন কয়েকজন খ্যাতনামা নিরাপত্তা বিশ্লেষক, রাজনীতি ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধি। অনেকে নাম প্রকাশ করে ভেতরে থাকা নানা শংকার কথা খোলাসা করে বলতে চাননি।

তবে তারা প্রত্যেককে সাম্প্রতিক এই জঙ্গি তৎপরতাকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে সরকারকে জাতীয়ভাবে শক্ত হাতে মোকাবেলা করার আহবান জানিয়েছেন। বলেছেন, দোষারোপের রাজনীতি করলে ক্ষতি আরও ভয়াবহ হবে।

প্রসঙ্গত, শনিবার সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় জঙ্গি হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৬ জন নিহত হয়। আহত হয় কমপক্ষে ৫০ জন। এ হামলার ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হছে।

জঙ্গিবিরোধী ওই অভিযানের মধ্যে যথারীতি এই হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

এই গোষ্ঠীর কথিত বার্তা সংস্থা ‘আমাক’ এই খবর দিয়েছে বলে জানিয়েছে অনলাইনে জঙ্গিদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণকারী যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ।

এর আগে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ঢাকায় বিমানবন্দর আশকোনা এলাকায় দু’দফা আত্মঘাতী হামলাসহ আরও কয়েকটি স্থানে জঙ্গি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোনো রাখঢাক না করে খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল শনিবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বলেন, দেশের উন্নতিকে বাধাগ্রস্ত করতে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র চলছে। সেই বাধা অতিক্রম করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।’

এ প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রোববার এ প্রতিবেদককে বলেন, গণতন্ত্রকে ঠিকমতো চলতে দিলে জঙ্গিবাদ থাকবে না।

তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্রহীনতার কারণেই দেশে জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। তাই জঙ্গি দমনে সরকারকে এখনই আলোচনায় বসতে হবে। সৃষ্টি করতে হবে এমন এক অবস্থা, যেখানে সব দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে জঙ্গিবাদ। দেশের মানুষ আজ এই জঙ্গিবাদ নিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত। তাই এই ভয়াবহ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি এবং বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এ প্রতিবেদককে বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তি পাকিস্তান এবং তাদের এদেশীয় এজেন্ট বিএনপি-জামায়াতরা মিলে দেশকে অস্থিতিশীল করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে। এরা বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি দেখে কষ্ট পাচ্ছে। এরা রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে না পেরে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের মদদ দিচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, দেশী-বিদেশী এই শক্তি বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। কিন্তু তাদের সেই চেষ্টা কখনও সফল হবে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দেশপ্রেমিক মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়েই ষড়যন্ত্রকারীদের প্রতিহত করবে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের রোববার এ প্রতিবেদককে বলেন, হঠাৎ করেই দেশে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। অনেকগুলো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে, যা সত্যিই দুঃখজনক। তিনি বলেন, এ ঘটনায় বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হবে। আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশ চাপের মুখে পড়বে। সর্বত্র বাংলাদেশ সম্পর্কে একটি নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হবে।

জিএম কাদের বলেন, এ অবস্থা থেকে উত্তরণে সরকারকে সবার সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে। সম্মিলিতভাবে এ সমস্যা সমাধানে চেষ্টা করতে হবে। তিনি বলেন, এটি এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে এর সঙ্গে দেশের স্বার্থ জড়িত।

তাই এ ইস্যুতে দলমত নির্বিশেষে সবার সঙ্গে আলোচনায় বসে একটি করণীয় নির্ধারণ করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক ব্রিগেডিয়ার (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন রোববার এ প্রতিবেদককে বলেন, সারা বিশ্বেই এখন জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।

বিশ্বব্যাপী জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদের নামে যে ঘটনা ঘটছে, বাংলাদেশেও তাই ঘটছে। এখানকার ঘটনা বিচ্ছিন্নভাবে দেখলে ভুল করা হবে। ষড়যন্ত্র খুঁজলেও ভুল করা হবে।

এক পক্ষ অন্যপক্ষকে দোষারোপ করলেও ভুল করা হবে। তিনি আরও বলেন, আগে হামলা হতো। হামলাকারীরা হামলা চালিয়ে পালিয়ে যেত। এখন তার চূড়ান্ত রূপ হচ্ছে হামলাকারী নিজেই জীবন দিচ্ছে, অন্যের জীবনও নিচ্ছে। হামলাকারীর মানসিকতা এখন এমন যে ‘মরব যখন তখন অন্যকেও নিয়ে মরব।’

এম সাখাওয়াত হোসেন আরও বলেন, ‘এ পরিস্থিতিতে আমরা সবাই আতংকগ্রস্ত। কোথায় কখন কি হবে কেউ জানে না। সংকট উত্তরণে সব দল ও নানামতের মানুষকে এক ছাতার নিচে আনতে হবে।

দেশবাসীকে সচেতন করতে হবে। তা না করে এখনও যদি আমরা দোষারোপের রাজনীতি করি তাহলে ভুল করা হবে। মনে রাখতে হবে, বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

সর্বশেষ সিলেটের ঘটনাই তার প্রমাণ। প্রশিক্ষিত বাহিনীর সদস্যরা অভিযানে নেমেও তাদের জীবন দিতে হয়েছে। ভবিষ্যতে এর চেয়েও যে ভয়াবহ ঘটনা ঘটবে না, তার নিশ্চয়তা কে দেবে?’ তিনি বলেন, এখনও সময় আছে, আমাদের এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দলাদলি পরিহার করতে হবে।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আবদুর রশীদ এ বিষয়ে রোববার এ প্রতিবেদককে বলেন, এদেশের রাজনৈতিক পরিবেশ এবং স্থিতিশীলতা নষ্ট করার জন্য দেশী-বিদেশী চক্র অনেক দিন থেকেই তৎপর।

এরাই মূলত জঙ্গি এবং সন্ত্রাসবাদকে উস্কে দিচ্ছে। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির চাকাকে থমকে দিতে চায় এই চক্র। এই চক্রের লক্ষ্য জনমনে আতংক সৃষ্টি করে বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেয়া।

অর্থনীতির চাকাকে রুদ্ধ করা। অপ্রিয় হলেও সত্য, সংখ্যায় সামান্য হলেও এরা শক্তিশালী। সাম্প্রতিক ঘটনায় তা একাধিকবার প্রমাণিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘এরা যতই শক্তিশালী হোক আমার বিশ্বাস সরকার এদের দমন করতে সক্ষম হবে। আর এদের দমন করতে চাইলে সরকারকে অবশ্যই আক্রমণাত্মক কৌশল অবলম্বন করতে হবে। আত্মরক্ষার কৌশল হিতে বিপরীত হবে।’ -যুগান্তর

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

চিকিৎসা নিতে সিঙ্গাপুর গেলেন ফখরুল 

ঢাকা, ২৭ মার্চ : নিয়মিত চেক-আপের অংশ হিসেবে সিঙ্গাপুরে গেলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রবিবার দিনগত রাত ১১টা ৫৫ মিনিটে হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

চিকিৎসা শেষে আগামী ৩১ মার্চ মির্জা ফখরুলের দেশে ফিরতে পারেন বলে জানা গেছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

হামলা নয়, বোমাটি আগে থেকেই ছিল: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী 

ঢাকা, ২৭ মার্চ : বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় জেলা সিলেটে যে বোমা বিস্ফোরণে পুলিশের দুজন কর্মকর্তাসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন, সেটি আগে থেকে পেতে রাখা ছিল বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, “সেটি কোন হামলা ছিল না”।

তিনি বলছিলেন, বৃহস্পতিবার রাতে যখন শিববাড়ির ওই সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানাটি নিরাপত্তা বাহিনী ঘেরাও করে ফেলে, তখনই বোধহয় কোন একসময় এখানে আশেপাশে তারা বোমাটি রেখে গিয়েছিল বা আগেই রেখে গিয়েছিল।

“পুলিশরা যখন দেখেছে, তখনই এটা বিস্ফোরিত হয়েছে, ধাক্কা-ধোক্কা খেয়ে”, বলছিলেন মি: খান।

গতকাল সন্ধ্যাবেলা আলোচিত ‘আতিয়া মহল’ নামের ভবনটিতে চলমান কমান্ডো অভিযান সম্পর্কে সেনাবাহিনীর তরফ থেকে সাংবাদিকদের ব্রিফ দেয়ার কিছু পরেই সেখান থেকে কাছেই একটি জায়গায় বিস্ফোরণটি হয়।

এ বিস্ফোরণে বহু মানুষ আহত হয়। নিহত হর দুজন পুলিশ কর্মকর্তা এবং চারজন ‘উৎসুক’ জনতা।

এ ঘটনায় র‍্যাবের গোয়েন্দা প্রধান লেফটেন্যান্ট কর্ণেল আবুল কালাম আজাদ গুরুতর আহত হন। তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই বক্তব্য দেবার আগ পর্যন্ত একটি ধারণা ছিল, একদল হামলাকারী অতর্কিতে এসে বোমা হামলাটি চালায়।

আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী তথাকথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস এরই মধ্যে এই হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেছে।

ঘটনাস্থল থেকে প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনায় বিস্ফোরণের সময় একজন মোটরসাইকেল আরোহীর আগমণের বিবরণও পাওয়া যায়।

কিন্তু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের বর্ণনায়, “এটি লক্ষ্য করে কোনও হামলা নয়”।

তবে বিস্ফোরণটি ঘটবার কারণ সম্পর্কে মি. খান বলেন, “কিভাবে হয়েছে এটা আমরা এখনো ঠিক জানিনা। তদন্ত শেষে বলতে পারবো বিস্ফোরণ কিভাবে হয়েছে এবং বোমাটা কিভাবে আসলো”। -বিবিসি

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

স্মৃতিসৌধের পর জিয়ার সমাধিতে খালেদার শ্রদ্ধা 

ঢাকা, ২৬ মার্চ : স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

আজ রবিবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে শেরে বাংলা নগরের চন্দ্রিমা উদ্যানে জিয়ার সমাধিস্থলে শ্রদ্ধা জানান তিনি।

এ সময় দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, সেলিমা রহমানসহ দলটির বিভিন্ন স্তরের কয়েক হাজার নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা জানান বেগম খালেদা জিয়া।

এদিকে জিয়ার সমাধিতে বিএনপি চেয়ারপারসনের আগমনকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই নেতাকর্মীদের ঢল নামে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে।

এরআগে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সিলেটের ঘটনা উদ্বেগজনক : ফখরুল 

ঢাকা, ২৬ মার্চ : সিলেটের জঙ্গি আস্তানা ঘিরে অভিযান ও আস্তানার পাশে বিস্ফোরণের ঘটনা উদ্বেগজনক বলে মনে করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘এই ঘটনা উদ্বেগজনক। এর সঠিক তদন্ত দরকার। আমরা আগেও বলেছি, আবারও বলছি এখনো সময় আছে সবাইকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই সমস্যার মোকাবেলা করতে হবে।’

বিএনপি এই ঘটনাকে নাটক বলে মনে করে না বলেও উল্লেখ করলেও বিএনপির এই নেতার অভিযোগ আওয়ামী লীগই জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা করছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করতে চায় তারা।

স্বাধীনতা দিবসে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালন করা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল, এরপর ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালেও তারা রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিল। সবশেষ ২০০৮ সাল থেকে তারা এখনো ক্ষমতায় রয়েছে। কিন্তু এতবছর পর হঠাৎ করে কেন গণহত্যা দিবস পালন করার উপলব্ধি হলো তাদের?

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা এই দিবসটি সবসময় অন্তরে ধারণ করে আসছি। স্মরণ করে এসেছি, পালনও করি। কিন্তু এবার তারা ঘোষণা দিয়ে এই দিবসটি পালন করছে।

গণহত্যা দিবস পালনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে পাকিস্তানের কয়েকটি গণমাধ্যমেও।

‘নো রিজন টু অবজার্ভ বাংলাদেশজ জেনোসাইড ডে’ শিরোনামে দ্য নিউজের নিবন্ধে বলা হয়েছে, ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবস পালিত হয়। ওই দিবসের পাল্টা দিবস হিসেবে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ। এজন্য তারা শীর্ষ দুই কর্মকর্তাকে নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দফতরে এবং জেনেভায় জাতিসংঘ মাববাধিকার কাউন্সিলে পাঠাবে।

‘বাংলাদেশ: আইডিয়া বিহাইন্ড জেনোসাইড ডে’ শিরোনামে পাকিস্তান অবজারভারের নিবন্ধে বলা হয়, ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসকে ভূলুণ্ঠিত করতেই ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সংসদ। এর পেছনে ভারতীয় ষড়যন্ত্রের আভাস পাওয়া যায়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিএনপি জঙ্গিদের মদদ দিচ্ছে: কাদের 

ঢাকা, ২৬ মার্চ : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি এই জঙ্গিদের মদদ দিচ্ছে এবং পৃষ্ঠপোষকতা করছে। তা না হলে তাদের (জঙ্গি) এতোটা আশকারা পাওয়ার কথা ছিল না।

আজ রবিবার স্বাধীনতা দিবসের সকালে সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

এ সময় সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আসুন, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি, স্বাধীনতার যারা শত্রু; এদের প্রতিহত করি, প্রতিরোধ করি, পরাজিত করি।

উল্লেখ্য, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের কারণে মাঝখানে কিছুদিন জঙ্গিরা চুপচাপ থাকলেও চলতি মাসের শুরু থেকে আবারও দেশের বিভিন্ন স্থানে তাদের তৎপরতা দেখা যাচ্ছে। ঢাকার আশকোনায় র্যা বের স্থাপনায় আত্মঘাতি বোমা বিস্ফোরণের এক সপ্তাহের মধ্যে গত শুক্রবার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর পুলিশ বক্সের কাছে আরেক বিস্ফোরণে নিহত হয়েছেন এক বোমা বহনকারী।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে সিলেটের এক বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা ঘিরে অভিযানের মধ্যেই শনিবার রাতে সেখানে দুই দফা বিস্ফোরণে দুই পুলিশ সদস্যসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

‘আমরা যদি আইএস শনাক্ত করতে পারতাম তাহলে ব্যবস্থা নিতাম’ 

ঢাকা, ২৬ মার্চ : সারা বাংলাদেশ চষে বেড়িয়েও দেশের কোথাও জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) শনাক্ত করার সৌভাগ্য হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

আজ রবিবার স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে শহীদ স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কোনো নেতাই আইএস’র অনুসন্ধান দিতে পারেননি। আমরা যদি আইএস শনাক্ত করতে পারতাম তাহলে আমরা ব্যবস্থা নিতাম।
সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার শিববাড়ি এলাকায় ‘আতিয়া মহলে’ জঙ্গি আস্তানায় বড় কোনো জঙ্গি নেতা রয়েছে কিনা জনতে চাইলে তিনি বলেন, এখনও অভিযান চলছে, অভিযান শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে মনে হচ্ছে বড় কোনো জঙ্গি নেতা থাকতে পারে। যে বাড়িটিতে জঙ্গিদের আস্তানা রয়েছে সেখানে অনেক অধিবাসী ছিলেন। অভিযানটি নির্বিঘ্ন করতে সেনাবাহিনীর ওপর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এ ধরনের একটি অভিযানস্থলে আশপাশে বোমা রেখে যাওয়ার ঘটনায় হঠাৎ করে বিস্ফোরণ হয়। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত ছয়জন নিহত হয়েছেন যাদের মধ্যে দুইজন পুলিশ পরিদর্শক আছেন। আরও একজন র‌্যাবের কর্মকর্তা গুরুতর আহত হয়েছেন, যোগ করেন আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

তিনি আরো বলেন, সবসময় বলে এসেছি জঙ্গি নির্মূল হয়নি তবে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। ষড়যন্ত্রকারীরা সুযোগ পেলেই ষড়যন্ত্র করছে, তারা এখনও সক্রিয় রয়েছে। তবে জনগণ যেহেতু জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না, সেহেতু তারা টিকতে পারবে না।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, গোয়েন্দারা বাড়িটি চিহ্নিত করতে পেরেছে বলেই অভিযান চালানো সম্ভব হচ্ছে। নিরাপত্তা বাহিনী নিজেদের জীবনের তোয়াক্কা না করে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিপথগামীদের সৎ পথে ফিরে আসার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর 

ঢাকা, ২৬ মার্চ : বিপথগামীদের সৎ পথে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেইসঙ্গে সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদ কঠোর হাতে দমন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। আত্মঘাতী হওয়া মহাপাপ। আজ যারা বিপথে যাচ্ছে, তারা যেন জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, আত্মহননের পথ যেন বেছে না নেয়।’

রবিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মহান স্বাধীনতা দিবসে শিশু-কিশোর সমাবেশে বক্তৃতা দেওয়ার সময় শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী এসময় শিশু-কিশোরদের উদ্দেশে বলেন, ‘তোমরা বাবা-মায়ের কথা শুনবে, শিক্ষক-অভিভাবকদের কথা শুনবে। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকে জড়াবে না।’

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিএনপি-জামায়াত সারাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটিয়ে হামলা চালাচ্ছে: নাসিম 

39

ঢাকা, ২৫ মার্চ : একাত্তরের গণহত্যার ধারাবাহিকতায় বিএনপি-জামায়াত সারাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটিয়ে হামলা চালাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

শনিবার তিনি এ মন্তব্য করেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বুধবার ফরিদপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী 

881

ফরিদপুর, ২৫ মার্চ : আগামী বুধবার এক দিনের সফরে ফরিদপুরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই দিন বিকেলে শহরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির ভাষণ দেবেন তিনি। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি হেলিকপ্টারে করে ফরিদপুরে আসবেন।

বুধবার বিকেল পৌনে ৩টায় রাজেন্দ্র কলেজ মাঠে ২০টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন ও ১২টি বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী। পরে ওই কলেজ মাঠে জনসভায় ভাষণ দেবেন তিনি। জনসভা শেষে সাড়ে ৪টায় প্রধানমন্ত্রী  হেলিকপ্টারে করে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর সফরকে কেন্দ্র করে শহরের প্রতিটি আনাচে-কানাচে চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে তোরণ নির্মাণ, ব্যানার, ফেস্টুন, নৌকা প্রতীকে ছেয়ে ফেলা হয়েছে। সড়ক বিভাজকসহ আশপাশের সব স্থাপনা ও ভবনে রঙ করা হয়েছে। এ ছাড়া সড়কের দুই পাশের ভবনে করা হয়েছে আলোকসজ্জা।

আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য ও  ফরিদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন মৃধা বলেন, ওইদিন প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সর্বাত্মক সফল করতে আমরা সব প্রস্তুতি নিয়েছি। ” তিনি বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কাছে ফরিদপুর জেলাবাসীর অনেক প্রত্যাশা। আমরা আশাবাদী প্রধানমন্ত্রী আমাদের প্রত্যাশা পূরণ করবেন। “

বুধবার প্রধানমন্ত্রী যে ২০টি উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন সেগুলো হলো ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ভবন, ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের নবনির্মিত ভবন, কবি জসীমউদদীন সংগ্রহশালা, ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি, শিশু একাডেমি ভবন, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উপ মহাপরিদর্শকের কার্যালয়, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, ফরিদপুর ৫০ মেগাওয়াট পিকিং পাওয়ার প্লান্ট,সরকারি রাজেন্দ্র একাডেমিক কাম পরীক্ষা হল,কুমার নদের ওপর সেতু, ভাঙ্গা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, আঞ্চলিক নির্বাচন অফিস, বিএসআইটি ভবন, ভাঙ্গা থানা ভবন,  মধুখালী ফায়ার সার্ভিস স্টেশন,সদর উপজেলায় বাখুণ্ডা রসুলপুর ভায়া নিখুরদী সড়ক, সদরের ডিক্রিরচর ইউনিয়নের মুন্সীডাঙ্গি কমিউনিটি ক্লিনিক ও ৩৩/১১ কেভি হাড়োকান্দি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র।

এ ছাড়া যে ১২টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হবে সেগুলো হলো কুমার নদ পুনঃখনন, আলফাডাঙ্গা কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, পুলিশ অফিসার্স মেস, পুলিশ হাসপাতাল, সালথা টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাডেমিক কাম প্রশাসনিক ভবন, সদরপুরের চন্দ্রপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র, সরকারি সারদা সুন্দরী মহিলা কলেজের ছাত্রীনিবাস, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, ১৫০০ আসন বিশিষ্ট মাল্টিপারপাস হল, সালথা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এবং সদরপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন প্রকল্প।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সরকার জঙ্গিবাদের সমাধান চায় না : ফখরুল 

88141

ঢাকা, ২৫ মার্চ : সরকার জঙ্গিবাদের সমাধান চায় না এমন অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা (বিএনপি) বারবার বলেছি জঙ্গিবাদ নিমূর্লে জাতীয় ঐক্যসৃষ্টি করা প্রয়োজন। কিন্তু সরকার এটা চায় না। বরং এটাকে জিইয়ে রেখে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায়। আজ শনিবার বেলা সাড়ে ১০টায় নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নিচ তলায় এক আলোকচিত্র প্রর্দশনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কর্মময় জীবনের ওপর আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী যুবদল।

প্রতিদিনের ঘটনায় প্রচণ্ড উদ্বিগ্ন মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, বাংলাদেশে গত এক সপ্তাহে যে তিন-চারটি ঘটনা ঘটেছে, আত্মঘাতী বোমা হামলাও হয়েছে। অথচ সরকার এ ব্যাপারে সুষ্পষ্ট কোনো বক্তব্যে নিয়ে আসছেন না। সংশ্লিষ্ট এক একটি প্রতিষ্ঠান এক এক রকমের বক্তব্য দিচ্ছে। দেখতে পেয়েছি গতকালের শুক্রবার আত্মঘাতী, বোমা হামলার ঘটনায় একদিকে বলা হলো- এটার সঙ্গে আইএস, অন্যদিকে বলা হচ্ছে এই ঘটনা পূর্বের ঘটনার মতো নয়। কাজেই প্রশ্ন থেকে যায়, যে মানুষটি আত্মঘাতী বোমাতে নিহত হলো সে কি নিহত হওয়ার জন্যই আত্মঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে? তাই এ ব্যাপারে বিশ্বাসযোগ্য বক্তব্য না আসলে জনগণের মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টি হবেই।

তিনি বলেন, কোনো কিছু ঘটলেই আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত বিএনপিকে দোষারোপ করেন। অথচ জঙ্গিবাদের ভয়াবহতা অনুসন্ধান না করে, সঠিক সত্য উদঘাটন না করে যদি এ ধরণের উক্তি করা হয় এবং যাদেরকে এই ধরণের ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে গ্রেফতার করে হত্যা করা হয় তাহলে কোনো দিন সত্য প্রকাশিত হবে না। তিনি আরও বলেন, বিএনপি বারবার দাবি জানিয়েছে যে, জঙ্গিবাদের সঠিক সত্য বের করুন, কারা এই জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত এবং মদদ দিচ্ছে? কারণ জঙ্গিবাদ নির্মূল ও মোকাবিলা করতে না পারলে বাংলাদেশের অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়বে। তাই সকল রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে ঐক্য তৈরি করুন। সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমে এই জঙ্গিবাদকে প্রতিহত করতে হবে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিএনপি জঙ্গি তৎপরতা শুরু করেছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী 

44

দিনাজপুর, ২৫ মার্চ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন দেখে বিএনপিসহ স্বাধীনতাবিরোধী চক্র দেশে জঙ্গি তৎপরতা শুরু করেছে। গণতন্ত্রের কথা বলে তারা দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে।

আজ শনিবার সকালে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার রাণীরবন্দর মহিলা কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ও অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দেশ থেকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে হবে। আমরা বীরের জাতি। সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদের কাছে পরাজিত হব না।’

কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহ মো. আবদুল মজিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১-এর জ্যেষ্ঠ মহাব্যবস্থাপক (জিএম) কাজী মোহাম্মদ আলী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আয়ুবুর রহমান শাহ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ আহসানুল হক মুকুল, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মনজুরুল হক, নশরতপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান নূর ইসলাম।

কলেজের প্রভাষক মাহমুদুল হক কোরাইশি দুলালের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তাপস চন্দ্র পাল।

পরে মন্ত্রী ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। এ ছাড়া একই অনুষ্ঠানে উপজেলার ১ নম্বর নশরতপুর ইউনিয়নের পালপাড়ায় নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করেন তিনি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

‘শেখ হাসিনাকে কদমবুছি করে অভিনন্দন জানানো উচিত’ 

ঢাকা, ২৪ মার্চ : আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিভিন্ন সাফল্যের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কদমবুছি করে অভিনন্দন জানানো উচিত বিএনপি নেতাদের।

আজ শুক্রবার সকালে প্রেসক্লাবের সামনে আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পার্বত্য সমস্যার সমাধান হয়েছে। গঙ্গা পানির হিস্যা আদায়, ছিটমহল সমস্যা সমাধান, আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করে সমুদ্রসীমা জয় সম্ভব হয়েছে। কিন্তু খালেদা জিয়ার কোনো অর্জনই নেই। খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালীন ভারত থেকে গঙ্গার পানি চাইতে ভুলে গিয়েছিলেন।

২৫ মার্চকে গণদিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে সংসদে বিল পাস করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানাতে এ মানবন্ধনের আয়োজন করা হয়। একইসঙ্গে দিবসটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবি জানানো হয় মানববন্ধন থেকে।

তিনি আরও বলেন, দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে সারা বিশ্ব যখন জঙ্গি দমনে বাংলাদেশের প্রশংসা করছে তখন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির নেতারা জঙ্গি দমন নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। প্রশাসন যখন জঙ্গি দমনে প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করছে তখন বিএনপি নেতারা জঙ্গি নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন। এ থেকে বোঝা যায় বিএনপি জঙ্গিদের আশ্রয়দাতা।

শেখ হাসিনার কারণে ২১শে ফেব্রয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসেবে পালিত হচ্ছে উল্লেখ করে হাছান মাহমুদ বলেন, অদূর ভবিষ্যতে ২৫ মার্চ আন্তর্জাতিক গণহত্যা হিসেবে স্বীকৃতি পাবে এবং পালিত হবে। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকুসহ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

‘বাংলাদেশ এখন বিশ্বজুড়ে উন্নয়নের এক রোল মডেল’ 

ঢাকা, ২৪ মার্চ : তলাবিহীন ঝুড়ির সেই সময় পেরিয়ে বাংলাদেশ এখন এই অঞ্চলের এবং বিশ্বজুড়ে দেশগুলোর কাছে উন্নয়নের এক রোল মডেল হয়ে দাড়িয়েছে বলে নিজের ফেসবুক পেজে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। আসন্ন স্বাধীনতা দিবসে আমাদের স্মরণ করতে হবে কীভাবে এত অল্প সময়ে এতটা পথ পাড়ি দিয়েছে আমাদের দেশ। ২০১৫ সালে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক মর্যাদা সূচকে একদাগ পদোন্নতি দিয়েছে নিম্ন মধ্য আয়ের বন্ধনীতে। ২০২১ সালের মধ্যে বিশ্ব ব্যাংকের উচ্চ-মধ্য আয়ের বন্ধনীতে যুক্ত হবার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। সজীব ওয়াজেদ জয়ের ফেসবুক পেজের পোষ্টটি হুবুহু তুলে দরা হলো:

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে উন্নয়ন স্মরণ
এ মাসে স্বাধীনতার ৪৬ বছর উদযাপন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ মধ্যরাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণকে স্বাধীনতার লড়াইয়ে নামতে আহবান জানান। তার পরের নয় মাস রীতিমতো দুঃস্বপ্নের মধ্যে যেতে হয় বাংলাদেশকে। নির্বিচার নৃশংসতা ও যুদ্ধাপরাধে লিপ্ত পাকিস্তানী সেনাবাহিনী ও তাদের দোসরদের হাতে সংঘটিত এক গণহত্যার শিকার হয় ৩০ লক্ষ মানুষ। সদ্যজাত রাষ্ট্রটিকে মেধাশূন্য করতেই তারা নিশানা করেছিলো বুদ্ধিজীবী, অধ্যাপক, শিল্পী এবং অন্যান্য উচ্চ শিক্ষিত বাঙালিদের। অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াই আর ভারতীয় সেনাবাহিনীর হস্তক্ষেপে ১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তান আত্মসমর্পন করে। আমার নানা শেখ মুজিব বাংলাদেশের প্রথম প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। প্রায় কেউই আশা করেনি এই সদ্য স্বাধীন দেশটি টিকে যাবে। যুক্তরাষ্ট্র তো এর স্বাধীনতারই বিপক্ষে ছিলো।

১৯৭০ সালের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের ছোবল থেকে তখনও সেরে ওঠেনি এই দেশ, যাতে মারা গিয়েছিলো প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ। আর পাকিস্তানীদের আক্রমণের পর টাইম ম্যাগাজিনের ভাষ্যমতে বাংলাদেশের বিধ্বস্ত শহরগুলোর অবস্থা দেখতে হয়েছিলো, পারমানবিক হামলার পরদিনের সকালের মতো। লাখ লাখ শরণার্থী ফিরে আসছিলো। হাতেগোনা রপ্তানীযোগ্য পণ্যের অন্যতম ছিলো পাট, যা কিউবার কাছে বিক্রি করা হয়েছে এই অভিযোগ তুলে বাংলাদেশে খাদ্যবোঝাই জাহাজ পাঠানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে যুক্তরাষ্ট্র, যার ফলে ১৯৭৪ সালে ভয়াবহ এক দুর্ভিক্ষের সূত্রপাত হয়।

১৯৭৫ সালে সরকারের বিরুদ্ধে এক সামরিক অভ্যুথান ঘটে আর তার নেতারা আমার নানা বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাঁকে এবং আমার পরিবারের বেশীরভাগ সদস্যকে হত্যা করে। এর ধারাবাহিকতায় পরের বছরগুলো নারকীয়তার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে বাংলাদেশকে। সেসব ছিলো অভ্যুত্থান এবং স্বৈরাচারিতা, সামরিক শাসন, দুর্নীতি, দারিদ্রতা এবং অসংখ্য সুযোগ নষ্ট করার বছর। মার্কিন সেক্রেটারি অব স্টেট হেনরী কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে অভিহিত করলেন তলাবিহীন ঝুড়ি বলে।

১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হলেন আমার মা, বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা। আর তিনি তার রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগকে সঙ্গী করে কার্যকর কিছু কর্মসূচী গ্রহণ করলেন যাতে বাংলাদেশ আবার ঘুরে দাঁড়ায়। কিন্তু তাকে প্রতিটা ইঞ্চি জায়গার জন্য লড়তে হয়েছে তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ খালেদা জিয়ার সঙ্গে যিনি বিরোধী দল বিএনপির প্রধান, যারা ২০০১ সালের নির্বাচনে জয়ী হয়েছিলো। তবে জনগনের মধ্যে আওয়ামী লীগ তাদের জনপ্রিয়তা বজায় রাখলো, এতই জনপ্রিয় যে বিএনপির গাত্রদাহ শুরু হলো। ২০০৪ সালে খালেদা জিয়ার ছেলের পরিকল্পনা অনুযায়ী আওয়ামী লীগের এক প্রতিবাদ সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় ২৪ জন নিহত হয় এবং আহত হন আমার মা। হত্যা এবং ষড়যন্ত্রের চর্চায় অভ্যস্ত বিএনপির রাজনীতির পতনের শুরু হয় তখন থেকেই।

২০০৯ সালে এক ভূমিধ্বস বিজয়ের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন শেখ হাসিনা এবং ২০১৪ সালে পুনঃনির্বাচিত হলেন তিনি। সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি যখন হরতাল আর জ্বালাও পোড়াওয়ের রাজনীতি করছে, আওয়ামী লীগ তখন ব্যস্ত থেকেছে দেশটাকে আরও ভালোভাবে গড়ার কাজে। ২০০৯ সাল থেকে দেশে দারিদ্রতার হার শতকরা ৪০ ভাগ থেকে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে। তিন কোটি মানুষের দারিদ্র বিমোচন হয়েছে। দেশের গড় প্রবৃদ্ধির হার ১০৩ বিলিয়ন ডলার থেকে দ্বিগুণের বেশি হয়ে দাড়িয়েছে ২৫০ বিলিয়ন ডলার। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির এই হারে শুরুতে মূল ভূমিকা রেখেছে তৈরি পোষাক খাত……..। রপ্তানী বার্ষিক ১৬ বিলিয়ন ডলার থেকে বেড়ে দাড়িয়েছে বার্ষিক ৩১ বিলিয়ন ডলারে।

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে নারী পুরুষের বৈষম্য দূরীকরণের লক্ষ্য অর্জন হয়েছে, যার কৃতিত্ব মেয়েদের জন্য সরকারী বৃত্তি দেওয়ার কর্মসূচীর। নির্ধারিত সময়ের আগেই বাংলাদেশ জাতিসংঘের বেঁধে দেওয়া মিলেনিয়াম উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার বেশ কয়েকটি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। এতই চমকপ্রদ ছিলো এই অগ্রগতি যে জাতিসংঘ তাদের পর্যায়ক্রমিক কার্যকর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারনে আমাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে। উদ্ভাবনী খামারের উদ্যোগে প্রান্তিক নারীরা উদ্যোক্তা হয়েছেন এবং ঘরে বসে আয়ের সুযোগ পেয়েছেন যা তাদের ব্যক্তিস্বাধীনতা ও সামাজিক মর্যাদা বাড়িয়েছে। প্রায় ২০ বছর আগে প্রধানমন্ত্রী হাসিনার প্রথম মেয়াদে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নেওয়া একটি কর্মসূচী ১ লাখ ১০ হাজার পরিবারকে পুনর্বাসিত হতে সাহায্য করেছে।

২০১৫ সালে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক মর্যাদা সূচকে একদাগ পদোন্নতি দিয়েছে নিম্ন মধ্য আয়ের বন্ধনীতে। ২০২১ সালের মধ্যে বিশ্ব ব্যাংকের উচ্চ-মধ্য আয়ের বন্ধনীতে যুক্ত হবার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। তলাবিহীন ঝুড়ির সেই সময় পেরিয়ে বাংলাদেশ এখন এই অঞ্চলের এবং বিশ্বজুড়ে দেশগুলোর কাছে উন্নয়নের এক রোল মডেল হয়ে দাড়িয়েছে। আসন্ন স্বাধীনতা দিবসে আমাদের স্মরণ করতে হবে কীভাবে এত অল্প সময়ে এতটা পথ পাড়ি দিয়েছে আমাদের দেশ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর