২২ জুলাই ২০১৭
দুপুর ২:৫৩, শনিবার

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন করার ক্ষমতা আ. লীগের নেই: ফখরুল

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন করার ক্ষমতা আ. লীগের নেই: ফখরুল 

10

ঠাকুরগাঁও, ২১ জুলাই : নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন করার ক্ষমতা আওয়ামী লীগের নেই। কারণ আওয়ামী লীগ জানে এই নির্বাচনের মোকাবেলা করতে গেলে তারা সেভাবে সুবিধা নিতে পারবে না। যার ফলে ক্ষমতা তাদের হাতে থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শক্রবার সকালে ঠাকুরগাঁওয়ে তার নিজ বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, “আওয়ামী লীগ প্রমাণ করেছে তারা নিরপেক্ষ নির্বাচন চায় না। কিন্তু আর নয়। নিরপেক্ষ নির্বাচন চাইতে হবে, কারণ জনগণ চায় যেন নিরপেক্ষ নির্বাচন হউক এবং সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন হউক।”

আমরা আশা করি আওয়ামী লীগ আলাপ- আলোচনার মাধ্যমে এটার একটি পদ বের করবে। সেই পথে একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। যেখানে জনগন তাদের ভোটার অধিকার প্রয়োগ করতে পারবে।”

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, “আওয়ামী লীগ সরকার কারো কথা শোনে না। তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তাদের কাজে কখনোই ব্যবহার করে না। আজ জঙ্গিবাদ প্রশ্রয় পাচ্ছে এই সরকারের জন্য।”

তারাই এই জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপির মহাসচিব।

গণতন্ত্রকে যারা বিশ্বাস করে তারা সবাই ঐক্যবদ্ধ হবে। পাশাপাশি সারাবিশ্ব ঐক্যবদ্ধ হবে। বাংলাদেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই অপশক্তি যারা মানুষের অধিকারকে কেড়ে নিয়েছে, একদলীয় শাসনব্যবস্থা গ্রহণ করতে চাচ্ছে তাদের পরাজিত করবে বলে জানিয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অপরদিকে, ঠাকুরগাঁও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার খুনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, “প্রশাসন নিয়ন্তিত হচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকারের দাঁড়ায়। তাই এখন পর্যন্ত আটককৃত যুবলীগের আসামিদের বিরুদ্ধে কোনো রকমের কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। যে ব্যক্তি আহত হয়েছে তার পরিবার সুষ্ঠু বিচার পাবে কিনা তা বলা মুসকিল। যদি এমনি অবস্থায় থাকে তাহলে সুবিচার পাওয়াটা অনেক কষ্টকর। আমরা আশা করি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের আটক করে সঠিক তদন্ত করে আসামিদের বিচারের আওতায় আনা হবে।”

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান তৈমুর রহমান, নারগুন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পয়গান আলী প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বগুড়ায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ৩ 

12

বগুড়া, ২১ জুলাই : বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ জন।

আহতদের উদ্ধার করে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে দুর্ঘটনায় নিহত আব্দুল জলিল (৬৫) নামে একজন ছাড়া হতাহত অন্যদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

শুক্রবার (২১ জুলাই) বেলা পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের ধনকুন্ডি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

উদ্ধার তৎপরতায় অংশ নেয়া শেরপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার মো. সোহেল রানা জানান, বগুড়াগামী বর্ণালি পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস উক্ত স্থানে পৌঁছালে বিপরীতমুখি ট্রাকের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই একজন নিহত ও অন্তত ১২ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে গুরুতর ৬ জনকে বগুড়া শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক বুলবুল আহম্মেদ জানান, শজিমেক হাসপাতালে নেয়ার পর আর দুজন মারা যান। নিহত তিনজনের মধ্যে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার আব্দুল জলিল ছাড়া অন্যদের পরিচয় নিশ্চিত করা যায়নি। হতাহতদের পরিচয় জানার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আল আকসা মসজিদের ইমাম গুলিবিদ্ধ 

aksa_52796_1500632405

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২১ জুলাই : ইসরাইলি সেনাদের বাধা উপেক্ষা করে আল আকসা মসজিদে প্রবেশ করতে গিয়ে মসজিদের ইমাম গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

শুক্রবার জুমার নামাজের জন্য মসজিদে প্রবেশের সময় ইসরাইলের সৈন্যরা মুসলিমদের উপর গুলি চালায়।

মুসলিমরা ইসরাইলি বাধা উপেক্ষা করে মসজিদে প্রবেশ করতে গেলে সেনাদের সাথে এই সংঘর্ষ বাধে। খবর আল জাজিরার।

সন্দেহভাজন ফিলিস্তিনি বন্দুকধারীদের গুলিতে দুই পুলিশ সদস্য নিহত হওয়ার ঘটনায় গত সপ্তাহে আল আকসা মসজিদে জুমার নামাজ বন্ধ করে দিয়েছিল ইসরাইল।

সপ্তাহজুড়ে ফিলিস্তিনিসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের প্রতিবাদের মুখে মসজিদটি খুলে দেওয়ার পর নতুন নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইসরাইল।

ইসরাইলি পুলিশ জানিয়েছে, ৫০ বছরের কম বয়সী পুরুষ মুসলিমরা আল আকসা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করতে পারবে না ।

ইসরায়েল অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমে অবস্থিত আল আকসা মসজিদের গেটে মেটাল ডিটেক্টর বসানোর প্রতিবাদে কয়েক দিন ধরেই বাইরে নামাজ পড়ছিলো মুসলিমরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মার্কিন কংগ্রেসে অনাস্থা প্রস্তাব 

895

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২০ জুলাই : প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন মার্কিন কংগ্রেসের ডেমোক্র্যাট দলের ২৪ সদস্য। প্রস্তাবে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিদেশ থেকে অর্থ নেয়ার অভিযোগ করা হয়েছে।

এ ছাড়া, রাশিয়ার সঙ্গে যোগাসাজশের বিষয়ে তদন্ত চলাকালে মার্কিন অভ্যন্তরীণ আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এফবিআইয়ের প্রধানকে বরখাস্ত করার অভিযোগও রয়েছে।

বুধবার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ প্রস্তাব আনা হয়েছে।

এ প্রস্তাবের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে কংগ্রেস প্রতিনিধি স্টিভ কোহেন বলেন, এতে কমান্ডার ইন চিফ হিসেবে ট্রাম্পের যোগ্যতাকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দেয়া হয়েছে। তিনি একে রাজনৈতিকভাবে হস্তক্ষেপের চেষ্টা হিসেবেও অভিহিত করেন।

মার্কিন সংবিধান অনুযায়ী একমাত্র ইমপিচের মাধ্যমে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে অপসারণ করতে পারে কংগ্রেস।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

লন্ডন মার্কা সহায়ক সরকার জনগণ মেনে নেবে না: কাদের 

58

ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ২০ জুলাই : দেশে বসে রূপরেখা করার সাহস ও যোগ্যতা বিএনপির নেই। তাই ‘মেইড ইন লন্ডন মার্কা সহায়ক সরকার’ এদেশের জনগণ মেনে নেবে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের জাতীয় বীর আব্দুল কুদ্দুস মাখন পৌর মুক্তমঞ্চে জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভা ও সদস্য সংগ্রহ অভিযান উপলক্ষে আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় তিনি বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “ঈদের পর দেখতে দেখতে এক মাস, এর পর তিনি চলে গেলেন লন্ডনে। এমনি করে রোজার ঈদের আন্দোলন কোরবানির ঈদেও সম্ভব হচ্ছে না। এভাবে ঈদ দেখতে দেখতে ১৭টি ঈদ চলে গেল আন্দোলনে আর নামা হলো না বিএনপির। সাড়ে আট বছরে সাড়ে ৮ ঘণ্টাও আন্দোলন করতে পারেননি তারা। নির্বাচনে হেরে যাবে বলে নতুন কৌশল খুঁজছে বিএনপি।”

নির্বাচন নিয়ে তিনি বলেন, “সংবিধানের বাইরে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে না। নির্বাচন কমিশনের অধিনেই আগামী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বিএনপি হেরে যাবে বলে নির্বাচনে আসতে চাচ্ছে না, কারণ জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। বিএনপির ভিশন-৩০ তাদের জন্য ভীষণ মারামারিতে পরিণত হয়েছে। তারা যেখানে গিয়েছে সেখানেই শুধু মারামারি করেছে।”

তিনি বলেন, “বিএনপির টার্গেট ছিল শেখ হাসিনা, তাই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা হয়েছিল। ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন তিনি। সেখানে আইভি রহমানসহ ২৩ জন নিহত হয়েছিলেন। এখনো আওয়ামী লীগের পাঁচ হাজার নেতাকর্মী গায়ে স্প্লিন্টার নিয়ে বেঁচে আছে।”

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য র. আ. ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধূরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য মো. ফয়জুর রহমান বাদল, সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফজিলাতুননেসা বাপ্পী প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নির্বাচন না করলে নির্বাসনে চলে যাবেন 

15

ঢাকা, ২০ জুলাই : বিএন‌পি‌কে রাজনী‌তির কাক‌দের দল ব‌লে আখ্যায়িত ক‌রে‌ছেন আওয়ামী লী‌গের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের ৯১তম জন্মবার্ষিকীর আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতা দখল ক‌রে সেই ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বি‌লি‌য়ে দি‌য়ে‌ছি‌লেন। আর ওই উচ্ছিষ্ট নিতে যারা সমা‌বেত হ‌য়ে‌ছি‌লেন তা‌দের নি‌য়ে তি‌নি বিএন‌পি গঠন ক‌রেন। জিয়াউর রহমান উচ্ছিষ্ট ছ‌ড়ি‌য়ে দি‌য়ে‌ছি‌লেন আর রাজনী‌তির কাকেরা সেখা‌নে জ‌ড়ো হ‌য়ে‌ছিল। রাজনী‌তির কাক‌দের নি‌য়ে যে দল সেই দল হ‌চ্ছে বিএন‌পি।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কারো আবদার পূরণ হবে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, কারো আবদার পূরণ করতে সংবিধানের এক চুলও ব্যত্যয় হবে না। আপনারা (বিএনপি) নির্বাচনে না এসে নির্বাসনে গেলে আমাদের কি করার আছে। এবার নির্বাচন না করলে নির্বাসনে চলে যাবেন আর ফিরতে পারবেন না।

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপির সকল কর্মকাণ্ড আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতে আছে বলে একই অনুষ্ঠান থে‌কে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও সরকারের খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

তি‌নি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপি নেতারা বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছেন। জনগণ বিএনপিকে ক্ষমতায় আসতে দেবে না জেনে বিএনপি নেতারা নির্বাচনকে নিয়ে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র করছেন। নির্বাচন নিয়ে যেসব ষড়যন্ত্র আপনারা করছেন সবকিছুতেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নজরে রাখছে। নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার কোনো ষড়যন্ত্র করলে আপনাদের খবর আছে।

ঈদের পর বিএনপি আন্দোলনের ডাক দিয়ে মা‌ঠে না নামার সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এই নেতা বলেন, অহেতুক আন্দোলনের হুমকি দেবেন না। আমরা জানি আন্দোলন করার মতো সাংগঠনিক শক্তি আপনাদের নেই।

ভাসানী ন্যাপের সভাপতি মোস্তাক আহম্মেদ ভাসানীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ ক‌রিম প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের সীমানাপ্রাচীর ধসে আহত ৫ 

3275

ঢাকা, ১৯ জুলাই : রাজধানীর শাহবাগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) সীমানাপ্রাচীর ধসে পড়েছে। পুলিশের এএসআইসহ ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে তারা হাসপাতালের চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বুধবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আবদুল্লাহ আল হারুন গণমাধ্যমকে বলেন, বিকেলে বৃষ্টির সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সি ব্লকের গাড়ি পার্কিং এলাকার সামনে সীমানাপ্রাচীর ধসে যায়। এ ঘটনায় তিনজন পথচারী, একজন আনসার সদস্য ও একজন নার্স আহত হয়েছেন। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে একজন মাথায় আঘাত পেয়েছেন। তাকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসা করানো হচ্ছে। তাদের হাসপাতালে আহত অন্য চারজনকে ভর্তি করানো হয়েছে। তবে আহত ব্যক্তিদের নাম জানাতে পারেননি তিনি।

ঘটনাস্থলে শাহবাগ থানার একটি দল পাঠানো হয়েছে বলে জানান পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মারুফ হোসেন সরদার।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

শীতলক্ষ্যায় নেমে তেজগাঁও কলেজের ২ ছাত্রের মৃত্যু 

2864

ঢাকা, ১৯ জুলাই : শীতলক্ষ্যা নদীতে গোসল করতে নেমে তানজীম (১৮) ও মিজান (১৮) নামে তেজগাঁও কলেজের একাদশ শ্রেণীর ২ ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার সকালে কলেজে পালিয়ে ডেমরার সুলতানা কামাল ব্রিজের নিচে গোসল করতে নেমে স্রোতের টানে নদীতে ডুবে যায় তারা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তেজগাঁও কলেজের তিন ছাত্র নাদিম, তানজীম ও মিজান ডেমরা থানার সারুলিয়া ঘাট এলাকায় সুলতানা কামাল ব্রিজের নিচে শীতলক্ষ্যা নদীতে গোসল করতে নামে। একপর্যায়ে তারা স্রোতের টানে ভেসে যায়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা নদী থেকে তানজীম ও মিজানকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরি বিভাগে পাঠালে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করে। নাদিমকে সংকটাপন্ন অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তানজীমের চাচা আব্দুল কাইয়ূম জানান, তানজীমের সকালে কলেজে যাওয়ার কথা ছিল। তার মা তাকে সকালবেলায় কিছু টাকা দিয়ে তার কর্মস্থলে চলে যান। দুপুর একটার দিকে খবর পান তানজীম গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে গেছে।

তানজীমের ফুফাতো ভাই শিহাব জানান, তানজিম সাঁতার জানত না। তিন বন্ধুর মধ্যে নাদিমকে সংকটাপন্ন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বাচ্চু মিয়া জানান, দুই কলেজ ছাত্রের লাশ ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

জলাভূমির সঠিক ব্যবহার করলে মাছের অভাব হবে না: প্রধানমন্ত্রী 

14

ঢাকা, ১৯ জুলাই : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে অসংখ্য জলাভূমি রয়েছে, এর সঠিক ব্যবহার করলে কখনও মাছের অভাব হবে না। বুধবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটে কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশনে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৭ উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে মৎস্যখাতে অবদান রাখায় ১৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মা ইলিশ ও জাটকা রক্ষায় আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। ডিম ছাড়ার সময় মাছ ধরা নিষিদ্ধকালে আমরা জেলেদের অর্থ ও চাল বরাদ্দ দিচ্ছি। এতে ইলিশ রক্ষা হচ্ছে। যার কারণে ইলিশ ১ লাখ উৎপাদন বেড়ে ৩ লাখ ৮৭ হাজার মেট্রিক টনে পরিণত হয়েছে।

দেশে আগের তুলনায় মাছ চাষ বেড়েছে। মাছ উৎপাদন বৃদ্ধি ও বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষের জন্য সাভার, খুলনা ও মংলায় মৎস্য ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক বলেন, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দেশে ৩৮ লাখ ৭৮ হাজার টন মাছ উৎপাদন হয়েছে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪০ লাখ ৫০ হাজার মৎস্য উৎপাদন হবে বলে আশা করছি। আর চলতি অর্থবছরে মৎস্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করতে পারব।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে প্রায় এক লাখ ৫০ হাজার সুফলভোগীকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে মৎস্য বিষয়ে কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ জনবল গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে চাঁদপুর জেলায় মৎস্য ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউট স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া গোপালগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও সিরাজগঞ্জে আরও তিনটি ডিপ্লোমা ইন্সটিটিউট স্থাপনের কাজ শেষ হওয়ার পথে বলেও জানান তিনি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বাংলাদেশে গবেষণা কাজে সহায়তা করবে ইইউ 

10

ঢাকা, ১৮ জুলাই : বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের গবেষণা কাজে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) সব ধরনের সহায়তা করবে বলে জানিয়েছেন দেশটির রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুন।

মঙ্গলবার সকালে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত সেমিনারে তিনি এ কথা জানান।

ইইউর রাস্ট্রদূত বলেন, “ইউরোপীয় ইউনিয়ন সবসময়ই বাংলাদেশের উন্নয়নের পাশে ছিল। ভবিষ্যতে থাকবে। গবেষণা খাতে বাংলাদেশকে সব সহায়তা দেবে।”

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, “বাংলাদেশ অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। নিম্ন আয়ের দেশ থেকে এখন নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। এখন আমাদের লক্ষ্য মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত হওয়া।”

তিনি আরও বলেন, “দেশে তথ্য প্রযুক্তিতে উন্নয়ন হয়েছে। ই-কমার্সের বড় বাজার তৈরি হয়েছে। কিন্তু তার জন্য যে অবকাঠামো দরকার তা নেই। সেজন্য প্রয়োজন গবেষণা।”

সেমিনারে বিশ্বে অর্থনীতিতে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলা দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। বর্তমানের অবস্থা থেকে আগামীতে আরও এগিয়ে যেতে হলে দেশের বিভিন্ন খাতের ওপর গবেষণা জরুরি বলে জানিয়েছেন সেমিনারের বক্তারা।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবীর, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী প্রকৌশলী ইয়াফেস ওসমান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ঘুষের টাকাসহ নৌপরিবহনের প্রধান প্রকৌশলী গ্রেপ্তার 

04

ঢাকা, ১৮ জুলাই : নৌপরিবহন অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী একেএম ফখরুল ইসলামকে ঘুষ গ্রহণকালে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বে দুদকের একটি টিম ৫ লাখ টাকা ঘুষ গ্রহণকালে হাতেনাতে ফখরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে।

মঙ্গলবার দুদকের উপরিচালক ও টিম সদস্য ইব্রাহিম হোসেন সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য জানান, ফখরুল ইসলাম একজন ঠিকাদারের কাছ থেকে ঘুষ নেবেন এ বিষয়টি দুদক আগে থেকেই জানতো। সে অনুযায়ী দুদকের পরিচালক নাসিম আনোয়ারের নেতৃত্বে একটি দল আগে থেকে ফাঁদ পেতে ছিল। বেলা দুইটার দিকে ওই ঠিকাদারের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা নিচ্ছিলেন ফখরুল ইসলাম। এ সময় ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বর্তমানে প্রধান প্রকৌশলী একেএম ফখরুল ইসলামকে মতিঝিল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ভেনেজুয়েলাকে অর্থনৈতিক অবরোধের হুমকি ট্রাম্পের 

07

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ১৮ জুলাই : ভেনেজুয়েলার নেতা নিকোলাস মাদুরো যদি ব্যাপক বিক্ষোভের মুখেও সংবিধান পরিবর্তন করে তাহলে দেশটির উপর অনতিবিলম্বে অর্থনৈতিক অবরোধ জারি করার হুমকি দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এনডিটিভি।

সম্প্রতি ভেনেজুয়েলার বিরোধীদলগুলো আগাম নির্বাচনের দাবিতে এক অসাংবিধানিক গণভোটের আয়োজন করে। ওই গণভোটের প্রেক্ষিতেই ট্রাম্প এমন হুমকি ভেনেজুয়েলাকে দিয়েছে বলে বিশ্বাস বিশ্লেষকদের।

এক বিবৃতিতে ট্রাম্প ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোকে সমালোচনা করে বলেন যে, মাদুরো একজন বাজে নেতা যিনি স্বৈরাচারী হবার স্বপ্ন দেখছেন। ভেনেজুয়েলার টুকরো হয়ে যায় তা চায় না যুক্তরাষ্ট্র বলেও জানান ট্রাম্প।

ভেনেজুয়েলার বিরুদ্ধে কেমন পদক্ষেপ নেয়া হতে পারে তা স্পষ্ট করেননি ট্রাম্প। কিন্তু এই হুমকির ফলে ভেনেজুয়েলার আভ্যন্তরীন পরিস্থিতিতে যেমন নতুন মোড় অসবে, তেমনি অর্থনৈতিক সংকটে থাকা দেশটির পক্ষে দীর্ঘ রাজনৈতিক সমস্যা দূর করা কষ্টকর হয়ে দাড়াবে।

গত এপ্রিল থেকে ভেনেজুয়েলার সরকারবিরোধী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত প্রায় ১০০ জন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। অবশ্য এই মৃত্যুর ঘটনা তখনই ঘটেছে যখন বিক্ষোভকারীরা কিছু ক্ষেত্রে সশস্ত্র অবস্থান নিয়েছিল এবং তাদের জবাবে সরকারি বাহিনীকে শক্ত অবস্থান নিতে হয়।

তবে নিকোলাস মাদুরো শুরু থেকেই অভিযোগ করে আসছেন যে, দেশের ভেতরে থাকা ডানপন্থী দলগুলো একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে চাইছে এবং এর পেছনে মদদদাতা হিসেবে আছে সাম্রাজ্যবাদী যুক্তরাষ্ট্র।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

চিকুনগুনিয়া জটিল রোগীদের মৃত্যুঝুঁকি বৃদ্ধি করে 

333

ঢাকা, ১৭ জুলাই : চিকুনগুনিয়া জটিল রোগীদের মৃত্যুঝুঁকি বৃদ্ধি করে। এসব রোগীরা দীর্ঘ দিন রোগে ভোগেন বলে এদের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে। নতুন করে আরেকটি রোগে আক্রান্ত হলে তার মধ্যে অবশিষ্ট রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও হ্রাস পায়। ফলে এসব রোগীর মৃত্যঝুঁকিও বাড়ে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, চিকুনগুনিয়া আক্রান্তদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম বা বেশি থাকার কারণে কেউ দ্রুত সেরে উঠেন আবার কারো সেরে উঠতে দীর্ঘ সময় লাগে। চিকুনগুনিয়ার প্রতিক্রিয়া কারো দেহে দীর্ঘ দিন থাকে আবার কেউ ১০ বা ১২ দিন পরই সেরে ওঠে।

মেডিসিনের বিশিষ্ট চিকিৎসক স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা: এম এ ফয়েজ জানিয়েছেন, চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্ত হলে গিটে ব্যথা হয়, মাংসপেশীতে প্রচণ্ড ব্যথা হয়। জ্বর সেরে গেলে এ ব্যথা আরো কিছুদিন থাকে এবং কারো দীর্ঘ দিন থাকে। রোগীর দেহে রোগ প্রতিরোধ কতটুকু আছে এর ওপর নির্ভর করে রোগী কত আগে সুস্থ হয়ে যাবেন অথবা হয়তো তিনি কয়েক দিন বেশি ভুগতে পারেন। তিনি জানান, জটিল রোগে আক্রান্তদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকে বলে তারা খুব দ্রুত আরো অসুস্থ হয়ে পড়েন। এমনকি তাদের মৃত্যুও হতে পারে। ট্রপিক্যাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এম এ ফয়েজ জানান, অনেক সময় আক্রান্তরা দীর্ঘদিন ধরে ভুগতে পারেন। গিটে ব্যথা থাকতে পারে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা বলছেন, ভরা বর্ষার এ সময়টাতে নানা জটিল রোগে ভুগছেন অথবা বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছেন এমন রোগীদের সাবধানে থাকতে বলা হয়েছে। দিনের বেলা ঘুমানোর সময় রোগে আক্রান্তদের অবশ্যই মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে যাতে তারা চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত না হয়।

এ দিকে বেসরকারি ডায়গনস্টিক সেন্টারে চিকুনগুনিয়া টেস্ট করা নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েই গেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, জাতীয় রোগ তত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) ছাড়া অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে নিশ্চিত চিকুনগুনিয়া টেস্ট হওয়া সম্ভব নয়। চিকুনগুনিয়া সম্পর্কিত নিউলেটারে আইইডিসিআর একটি নির্দেশ জারি করেছে। আইইডিসিআর নির্দেশে বলেছে, ‘বিভিন্ন বেসরকারী ডায়গনস্টিক সেন্টারে চিকুনগুনিয়া পরীক্ষা করছে বলে দাবি করা হচ্ছে। এসব পরীক্ষার ফল পজিটিভ হলে পরীক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করা এবং রোগীর তথ্য নিবন্ধনের জন্য সংশ্লিষ্ট সব বেসরকারি ডায়গনস্টিক সেন্টারকে পজিটিভ হয়েছে এমন রক্তের নমুনা, রোগী নাম, বয়স, লিঙ্গ, ঠিকানা ও মোবাইলফোন নাম্বারসহ পরীক্ষার রিপোর্টের অনুলিপি জাতীয় রোগ তত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে প্রেরণের জন্য পরামর্শ দেয়া হলো।’

এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়রও চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে বলে স্বীকার করছেন। তিনি ঢাকা শহরে কী পরিমাণ চিকুনগুনিয়ার রোগী আছে এর নির্ণয় করবেন বলে মিডিয়ার সাথে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, চিকুনগুনিয়া রোগে আক্রান্তদের সংখ্যা সম্বন্ধে আমাদের কাছে সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। তাই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে কী পরিমাণ মানুষ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত সে বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা থাকা দরকার। এ জন্য আমাদের প্রত্যেক আঞ্চলিক কর্মকর্তা ও কাউন্সিলরকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে এলাকাগুলোয় জরিপ শুরু করতে। আমরা আশা করছি খুব শিগগির এ বিষয়ে একটা ফল পাব। -নয়া দিগন্ত

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ষড়যন্ত্র ঠেকাতে ফের মৃত্যুদণ্ড চান এরদোগান 

5599

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ১৭ জুলাই : ফের মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে প্রশ্ন। প্রয়োজনে ‘বিশ্বাসঘাতকদের’ হাত কেটে নিতেও দ্বিধা নেই। সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টার এক বছর পূর্তিতে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিচেপ তাইপ এরদোগানের গলায় শোনা গেল এমন গরম গরম কথাই।

গত শনিবার ইস্তানবুলের বসফোরাস সেতুতে হাজির হয়েছিলেন হাজার হাজার মানুষ। এক বছর আগে এখানেই অভ্যুত্থানের চেষ্টায় জড়িত সেনার হাতে প্রাণ হারান অন্তত ৩৬ জন। তার পর সেখানেই এরদোগানের প্রথম বক্তৃতা। পরের বক্তৃতা আঙ্কারায় তুরস্কের পার্লামেন্টের কাছে। সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টার সময় ষড়যন্ত্রকারীরা বোমা মেরেছিল পার্লামেন্টেও।  সেখানে ভরা দর্শকদের সামনে গর্জে ওঠেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। তাঁর দাবি, সামরিক অভ্যুত্থানের সমর্থকদের বিচারের সময়ে গুয়ান্তানামোর মতো পোশাক পড়তে হবে।

এরদোগান জানান, যারা এ ভাবে দেশকে পঙ্গু করে দিতে চেয়েছিল, তাদের ‘‘মাথা কেটে দেবে সরকার’’। কারণ ওই অভ্যুত্থানের ষড়যন্ত্রকারীরা ‘অবিশ্বাসী। ’ তাঁর কথায়, ‘‘দেশের শত্রুরা নির্বিচারে আমাদের বিরুদ্ধে সবচেয়ে শক্তিশালী অস্ত্র ব্যবহার করেছে। ’’ এই সূত্রেই বিরোধীদের তীব্র সমালোচনাও করেন তিনি।

তুরস্কে ২০০৪ সালে মৃত্যুদণ্ড রদ করা হয়েছিল। তাই তা ফিরিয়ে আনার দাবি তুলেছেন এরদোগান।

সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টার সময়ে আঙ্কারা আর ইস্তানবুলের আকাশে ছেয়ে যায় যুদ্ধবিমান। রাস্তায় নামে ট্যাঙ্ক। তবে পথে নেমে সেই অভ্যুত্থান রুখে দেয় সব রাজনৈতিক দল। সাধারণ নাগরিকদের নিয়ে তারাই চ্যালেঞ্জ জানায় সেনার সেই অংশকে। তুরস্ক সরকারের দাবি, এই ষড়যন্ত্রের পিছনে ছিলেন ফেতুল্লা গুলেন নামে এক নির্বাসিত নেতা, যিনি আমেরিকা নিবাসী হলেও তাঁর অনুগামীর সংখ্যা যথেষ্ট।

এই রকম ষড়যন্ত্র ঠেকাতেই মৃত্যুদণ্ডের প্রয়োজন বলে মনে করেন এরদোগান। তাঁর সুরে গলা মেলান ভিড়ে দাঁড়ানো আম জনতা। যদিও রবিবার ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট জঁ-ক্লদ জুনকার বলেছেন, ‘‘তুরস্ক যদি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সদস্য হিসেবে টিকে থাকার পথ নিজেরাই বন্ধ করে দেবে। ’’

কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, সামরিক অভ্যুত্থানের চেষ্টার থেকেও এখন ভয়ঙ্কর সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে তুরস্ক। সরকারি চাকরি থেকে হাজার হাজার মানুষকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তা ছাড়া সরকারি চাকরিতে, পুলিশ, সেনা অফিসার, বিচারক, শিক্ষক এবং সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে জড়িত লোকজনকে কখনো কখনো আটক করা হচ্ছে। প্রায়শই কোপের মুখে পড়ছেন দক্ষিণপন্থী সমর্থকরা। গত শুক্রবারই অতিরিক্ত সাত হাজার জনকে বরখাস্ত করেছে তুরস্ক সরকার। ১৫০-রও বেশি সাংবাদিক এখন জেলে। তাই ইইউ এর ১২ বছরের এই সদস্য দেশটি আদৌ কত দিন ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকবে, সেই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। সূত্র: আনন্দবাজার

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

নাটোর পৌরসভার কাউন্সিলর আটক 

6

নাটোর, ১৭ জুলাই : নাটোর শহরের চৌকিরপাড় এলাকা থেকে রবিবার রাতে পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও যুবদল নেতা সাজ্জাদ হোসেন সোহাগকে (১৬) আটক করেছে পুলিশ। সোহাগ ওই মহল্লার মজিবুল হকের ছেলে। সোহাগ অস্ত্র ও সন্ত্রাসীসহ বিভিন্ন মামলার আসামি।

নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মশিউর রহমান খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে শহরের চৌকিরপাড় এলাকা থেকে সোহাগকে আটক করা হয়। তার নামে থানায় পাঁচটি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানা ছিলো।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর