২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭
রাত ৩:১৪, শুক্রবার

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের আহ্বান মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের আহ্বান মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্টের 

96

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২২ সেপ্টেম্বর : মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর দেশটির সেনাবাহিনী ও সরকার সমর্থকদের অব্যাহত সহিংতা ও নির্যাতনের প্রেক্ষিতে সৃষ্ট সংকট সমাধানে জরুরি পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স।

২০ সেপ্টেম্বর বুধবার সাধারণ পরিষদে শান্তিরক্ষী মিশন নিয়ে আয়োজিত এক বৈঠকে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানান।

ভাষণে মাইক পেন্স মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সহিংসতা অবিলম্বের বন্ধ ও দীর্ঘমেয়াদে কূটনৈতিক আলোচনায় বসার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, যদি এই সহিংসতা অব্যাহত থাকে তাহলে তা হিংসা ও বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে দেবে এই অঞ্চলে। যা আগামী প্রজন্ম ও আমাদের সবার শান্তির জন্য হুমকি হয়ে উঠবে।

মাইক পেন্স বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও আমি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে এই সংকটের ইতি টানতে দৃঢ় ও দ্রুত পদপেক্ষ নেয়া এবং রোহিঙ্গা মানুষের প্রয়োজনের সময় তাদের জন্য আশাবাদ নিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইনে দেশটির সেনাবাহিনীর তথাকথিত ক্লিয়ারেন্স অপারেশন শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ৪ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। জাতিসংঘ সামরিক বাহিনীর এক অভিযানকে জাতিগত নিধন হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের সমালোচনা করে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট বলেন, সংস্থাটি এই নামের উপযুক্ত নয়। কারণ এতে ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী অনেক দেশকে স্বাগত জানানো হয়েছে।

কিউবা ও ভেনেজুয়েলাকে ইঙ্গিত করে পেন্স বলেন, জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্য ও কর্মপদ্ধতি সংস্কার করা উচিত।

চলতি সপ্তাহেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলের সমালোচনা করেছিলেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মালালার সঙ্গে প্রিয়াঙ্কার সাক্ষাৎ 

58

বিনোদন ডেস্ক, ২২ সেপ্টেম্বর : নারী শিক্ষা আন্দোলনের অন্যতম আলোচিত মালালার সঙ্গে দেখা করলেন সাবেক বিশ্ব সুন্দরী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। আর পিগির সঙ্গে দেখা করার পরই উচ্ছ্বসিত হয়ে পড়েন মালালা।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে সেই উচ্ছ্বাসের কথা প্রকাশও করেন নোবেল জয়ী কন্যা।

মালালা জানান, তিনি এখনো বিশ্বাস করতে পারছেন না যে, প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সঙ্গে তাঁর দেখা হয়েছে। পিগির সঙ্গে একটি ছবিও প্রকাশ করেন মালালা।

অন্যদিকে মালালার সঙ্গে দেখা হওয়ার পর প্রিয়াঙ্কাও একটি ছবি প্রকাশ করেন। সেখানে মালালার প্রশংসাও করেন পিগি। পাশাপাশি যুবক, যুবতীদের কাছে মালালা একজন রোল মডেল বলেও প্রশংসা করেন বলিউডের ওই অভিনেত্রী।

মালালা যে তাঁর বন্ধু, এটা ভেবেই ভালো লাগছে বলেও মন্তব্য করেন প্রিয়াঙ্কা। প্রত্যেক নারীর কাছে মালালা একজন অন্যতম চরিত্র। মালালার সঙ্গে দেখা করে তাঁরা ফের উর্দু এবং হিন্দিতে কথা বলতে চান বলেও জানিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।

সূত্র: ইন্টারনেট

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রাম রহিমের মতোই যৌনতায় আসক্ত ভণ্ডবাবা ফলহারি মহারাজ! 

589

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২১ সেপ্টেম্বর : রাম রহিমের মতোই যৌনতায় আসক্ত এই ভণ্ডবাবা। তিনি যৌন লালসা চরিতার্থ করতে নিজের ভক্তের কন্যাকেই বেছে নিয়েছিলেন।
আর তার জেরেই বিপত্তি।

তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু হয়েছে ভারতের রাজস্থানের ওই স্বঘোষিত ধর্মগুরুর নামে। রাজস্থানের এই বাবার নাম কৌশলেন্দ্র প্রপণাচার্য ফলহারি মহারাজ। আলোয়ারে তার আশ্রম।

নিগৃহীতা তরুণীর বাড়িতে যাতায়াত ছিল বাবার। যেহেতু তরুণীর বাড়ির সদস্যরা ফলহারি মহারাজের শিষ্য ছিল। আইন নিয়ে পড়াশোনা করছিলেন তরুণী। পড়া শেষ পওয়ার পর একটি সংস্থায় চাকরির সুযোগ মেলে। সে কারণেই গুরুর আশ্রমে গিয়েছিলেন তিনি। কিছু অনুদান দেওয়ার ইচ্ছে ছিল তার। তরুণীর অভিযোগ, সে সময়ই তাকে বসিয়ে রাখা হয়।

তারপর তাকে আলাদা করে ডেকে নিয়ে যৌন নিগ্রহ শুরু করে বাবা। এমনকী তাকে ধর্ষণ করা হয় বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

এরপরই বাড়ি ফিরে ভণ্ড বাবার কুকীর্তির কথা জানান তিনি। অভিযোগ দায়ের করা হয় পুলিশেও। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। যদিও পুলিশের গতিবিধি আগেভাগেই আঁচ করে সাবধান হয়ে গিয়েছে বাবা।

আলোয়ারে তার আশ্রমে হানা দিয়ে জানা যায়, শারীরিক অসুস্থতার কারণে একটি হাসপাতালে ভর্তি আছে ফলহারি মহারাজ। যদিও ডাক্তারের অনুমতি নিয়েই বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সাড়ে ৫ হাজার রোহিঙ্গা নিবন্ধিত: মায়া 

88

ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর অভিযানে গত ২৫ দিনে চার লাখ ২৪ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। এদের মধ্যে মাত্র পাঁচ হাজার ৫৭৫ জন বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধিত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, রাখাইন রাজ্যে নতুন করে সহিংসতা শুরুর পর ২৫ আগস্ট থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রায় চার লাখ ২৪ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসেছে। এদের মধ্যে বুধবার পর্যন্ত নিবন্ধন করা হয়েছে পাঁচ হাজার ৫৭৫ জনকে। সবাইকে নিয়ে তাদের খাদ্য, স্বাস্থ্য ও অন্যান্য সেবা দেওয়া হচ্ছে। সামান্য যে অব্যবস্থাপনা আছে, তা দূর করা হবে।

ত্রাণমন্ত্রী আরো বলেন, রোহিঙ্গাদের কেউ না খেয়ে মরবে না। দেশে না ফেরা তাদের প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া জানান, চট্টগ্রাম থেকে ত্রাণ সামগ্রী গ্রহণ করে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে পৌঁছে দিতে সেনাবাহিনী কাজ করছে।

মন্ত্রী বলেন,রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংস্থার প্রতিশ্রুত সহায়তা থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ২৫০ মেট্রিক টন চাল এবং ২০ টন আটা সরকারের হাতে এসেছে। এছাড়া বাংলাদেশ সরকারের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় ৫০০ মেট্রিক টন জিআর চাল ও নগদ ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নে চার লক্ষাধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এর আগে বৌদ্ধ অধ্যুষিত দেশটিতে জাতিগত নির্মূলের নীল-নকশার নির্যাতনে অনুরূপ সংখ্যক রোহিঙ্গা নিজ দেশ থেকে বিতাড়িত হয়ে বছরের পর বছর ধরে বাংলাদেশে বাস করছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

জামিন পেলেন ইমরান 

5

ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর : ভাস্কর্য অপসারণের প্রতিবাদী মিছিল থেকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ‘কটূক্তির’ অভিযোগে দায়ের করা মানহানির মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পর আদালতে হাজির হয়ে জামিন পেয়েছেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার ও সনাতন উল্লাস।

আজ বৃহস্পতিবার ইমরান ও সনাতন ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম শেখ ছামিদুল ইসলামের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তা মঞ্জুর করেন।

আসামিপক্ষে জামিন শুনানি করেন আইনজীবী প্রকাশ বিশ্বাস ও জীবনানন্দ জয়ন্ত। অন্যদিকে বাদীপক্ষে নোমান হোসাইন তালুকদার ও এ আদালতের পিপি মো. মকবুল হোসেন জামিনের বিরোধিতা করেন।

অভিযোগ গঠনের শুনানিতে হাজির না হওয়ায় একই আদালত বুধবার ইমরান ও সনাতনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। সেইসঙ্গে এ মামলায় অভিযোগ গঠনের শুনানি পিছিয়ে আগামী ২৬ অক্টোবর নতুন তারিখ ঠিক করে দেন বিচারক।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক গোলাম রব্বানী গত ৩১ মে এই মামলা করার পর ১৬ জুলাই আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন ইমরান ও সনাতন।

আর্জিতে বাদী বলেন, গত ২৮ মে রাজধানীতে মশাল মিছিল থেকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ‘কটূক্তি করা হয়’, তাতে বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে তিনি ক্ষুব্ধ, অপমানিত হয়েছেন।

গণজাগরণ মঞ্চের ওই মিছিল থেকে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে স্লোগান ওঠার পর ইমরানকে পেটানোর হুমকিও দিয়েছিলেন ছাত্রলীগ নেতা গোলাম রব্বানী।

পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতার উদ্যোগে একটি মিছিল পরবর্তী সমাবেশ থেকে ইমরান এইচ সরকারকে শাহবাগে অবাঞ্ছিতও ঘোষণা করা হয়।

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান ছাত্রলীগেরই রংপুর মেডিকেল কলেজ শাখার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ছিলেন। তিনি শেখ হাসিনা সরকারের শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদের জামাতা।

যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ২০১৩ সালে শাহবাগে গণজাগরণের আন্দোলনের সূচনায় অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট হিসেবে এর আহ্বায়কের দায়িত্ব নেন ইমরান। শুরুতে ছাত্রলীগ এই মঞ্চের সঙ্গে থাকলেও পরে সরে যায়। এখন বাম ছাত্র সংগঠনগুলো ও কয়েকটি সাংস্কৃতিক সংগঠন মঞ্চে সক্রিয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রোনালদোর প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে রিয়ালের হার 

865

স্পোর্টস ডেস্ক, ২১ সেপ্টেম্বর : নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে রিয়াল বেতিসের কাছে হারের লজ্জা পেয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে বুধবার রাতে লা লিগায় ১-০ গোলে জিতেছে বেতিস।
তাদের জয়ের নায়ক তরুণ ফরোয়ার্ড আন্তোনিও সানাবিরা।

এবারের লিগে ঘরের মাঠে জয়শূন্যই রইলো রিয়াল। দ্বিতীয় রাউন্ডে ভালেন্সিয়ার সঙ্গে ২-২ এর পর লেভান্তের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে জিনেদিন জিদানের দল।

ঘরের মাঠে তৃতীয় মিনিটেই গোল খেতে বসেছিল রিয়াল। পাল্টা আক্রমণে আন্তোনিও সানাবিরার এক জনকে কাটিয়ে নেওয়া শট গোলরক্ষককে পরাস্ত করলেও দানি কারভাহালের পায়ে লাগলে সে যাত্রায় বেঁচে যায় স্বাগতিকরা।
দশম মিনিটে ইসকোর কর্নারে সতীর্থের পা ঘুরে আসা বল গোলমুখে পেয়েছিলেন রোনালদো। কিন্তু জটলার মধ্যে ঠিকমতো শট নিতে পারেননি। ব্যকহিলে চেষ্টা করেছিলেন; কিন্তু বল একজনের গায়ে লেগে বাইরে চলে যায়।

২৯তম মিনিটে ডি-বক্সের মুখ থেকে রোনালদোর জোরালো শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। ছয় মিনিট পর কারভাহালের ভুলে ডি-বক্সের বাইরে বল পেয়ে কিছুটা আড়াআড়ি দৌড়ে ফাবিয়ান রুইসের নেওয়া জোরালো শট কর্নারের বিনিময়ে ঠেকান নাভাস।

সাত মিনিট পর ইসকোর কোনাকুনি শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক। বিরতির আগে আরেকটি সুযোগ নষ্ট করেন রোনালদো।

দ্বিতীয়ার্ধের ষষ্ঠ মিনিটে আবারও হতাশ করেন চারবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। বাঁ থেকে বেলের দারুণ ক্রস ভালো জায়গায় পেয়েও উড়িয়ে মারেন। সুযোগ নষ্টের মহড়া চলতে থাকে অতিথি শিবিরেও; ৫৫তম মিনিটে পাল্টা আক্রমণে একা ডি-বক্সে ঢুকে লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড ফ্রান্সিস।

গোল পেতে মরিয়া জিদান ৬৭তম মিনিটে মিডফিল্ডার ইসকোকে বসিয়ে আসনসিওকে নামান। খানিক পর ডিফেন্ডার মার্সেলোর জায়গায় ফরোয়ার্ড ভাসকেস ও লুকা মদ্রিচের জায়গায় আরেক ফরোয়ার্ড মায়োরালকে নামান কোচ।

তাতে শেষ ১৫ মিনিটে রিয়ালের আক্রমণের ধার আরও বাড়ে। কিন্তু সাফল্যের দেখা মেলেনি। ৭৫তম মিনিটে বেলের দুর্দান্ত এক ব্যাকহিল গোলরক্ষক ঠেকানোর পর বল লাগে পোস্টে। যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে মায়োরালের হেড ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক।

অবশেষে একেবারে শেষ মিনিটে জয়সূচক গোলটি করেন সানাবিরা। স্বদেশি ডিফেন্ডার আন্তোনিও বারাগানের ক্রসে হেডে নাভাসকে পরাস্ত করেন ২১ বছর বয়সী স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড আন্তোনিও সানাবিরা।

দুই জয় ও দুই ড্রয়ে রিয়ালের পয়েন্ট ৮, সপ্তম স্থানে নেমে গেছে তারা। শীর্ষস্থানধারী বার্সেলোনার চেয়ে ৭ পয়েন্টে পিছিয়ে। পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে জেতা কাতালান ক্লাবটির পয়েন্ট ১৫।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

জাতিসংঘে ট্রাম্পের তীব্র সমালোচনা করলেন ইরানের প্রেসিডেন্ট 

04

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২১ সেপ্টেম্বর : ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি তার দেশের বিরুদ্ধে “অজ্ঞতাপ্রসূত ও বিদ্বেষমূলক” বক্তব্যের জন্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের তীব্র সমালোচনা করেছেন।

বুধবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭২তম বার্ষিক অধিবেশনে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, “মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইরানের জনগণের বিরুদ্ধে অজ্ঞতাপূর্ণ, কুৎসিত ও বিদ্বেষপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন যা ছিল মিথ্যা তথ্য ও ভিত্তিহীন অভিযোগে পরিপূর্ণ। এ ধরনের বক্তব্য   জাতিসংঘের মর্যাদার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়।

এর আগে, মঙ্গলবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ভাষণে ট্রাম্প মধ্যপ্রাচ্যে ‘অস্থিতিশীল কার্যক্রম’র জন্য ইরানকে অভিযুক্ত করেন। তিনি আরো বলেছেন, “প্রতিবেশী দেশগুলো সম্প্রতি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই ও অর্থায়ন বন্ধের জন্য যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে ইরান তার বিপরীতে রয়েছে।”

ট্রাম্প তার বক্তৃতায় ইরান ও ছয় জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে সই হওয়া ২০১৫ সালের পরমাণবিক চুক্তিকে আমেরিকার জন্য বিব্রতকর বলে উল্লেখ করেন। তিনি একে আমেরিকার জন্য সবচেয়ে খারাপ চুক্তি বলেও মন্তব্য করেন।

জবাবে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে সই হওয়া সমঝোতা বা জিসিপিওএ একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি যার প্রতি সমর্থন দিয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। তিনি আরো বলেছেন, জেসিপিওএ বাতিলের বিষয়ে ইরান কখনো প্রথম দেশ হবে না।

বক্তৃতায় রুহানি তার দেশের ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিসহ ইরানের প্রতিরক্ষা শক্তি সম্পর্কে কথা বলেছেন। তিনি বিশ্ব সম্প্রদায়কে আশ্বস্ত করেন যে, ইরানের সামরিক শক্তি কেবল নিজের প্রতিরক্ষার জন্য এবং আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা পুনঃপ্রতিষ্ঠায় ব্যবহৃত হবে। ইহুদিবাদী ইসরাইলের সমালোচনা করে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, তারা নিজেকে শান্তিপ্রিয় দেশ বলে দাবি করছে, তা কিছুতেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

রুহানি বলেন, ইরান চরমপন্থী ও সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য সবচেয়ে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। ইরান নিরাপদ ও স্থিতিশীল মধ্যপ্রাচ্য দেখতে চায় এবং সন্ত্রাসবাদ অবসানের জন্য অন্যদের সহযোগিতাকে স্বাগত জানান। -পার্সটুডে

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

‘কোনো অপরাধী চক্র রোহিঙ্গাদের জড়িয়ে ফেলতে পারে’ 

01

ঢাকা, ২১ সেপ্টেম্বর : জাতিসংঘের হিসাবে মিয়ানমারে সাম্প্রতিক সহিংসতা শুরু হওয়ার পর প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

এর আগে থেকেই নিবন্ধিত বা অনিবন্ধিতভাবে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে রয়েছে।

তবে এই অসহায় মানুষগুলোকে কোনো অপরাধী চক্র ব্যবহার করে কিনা, তা নিয়ে বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে তৈরি হয়েছে উদ্বেগ।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা মূলত কক্সবাজার এবং বান্দরবানে থাকছে।

পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন, কোনো কোনো চক্র যে রোহিঙ্গাদের ব্যবহারের চেষ্টা করছে, সেসব তথ্য তারা পেয়েছেন। আর তাই তাদের নজরদারিও অনেক বাড়িয়েছেন।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি সহেলী ফেরদৌস বলছেন, তারা যেহেতু বাস্তুচ্যুত মানুষ এবং আর্থিক সমস্যাও রয়েছে, কোনো অপরাধী চক্র তাদেরকে যেকোনো ধরনের অপরাধের সাথে জড়িয়ে ফেলতে পারে। অথবা তারা স্বেচ্ছায় কোনো অপরাধের সাথে জড়িত হতে পারে। এটার জন্য আমরা সতর্ক আছি।”

“আমাদের ইন্টেলিজেন্সের মনিটরিং আছে। আমাদের নিজস্ব যেসব ব্যবস্থা আছে, তার মাধ্যমে আমরা তাদের পর্যবেক্ষণে রেখেছি। সামাজিক মাধ্যমগুলোও কোনো প্রপাগান্ডা বা কর্মকাণ্ড চলতে না পারে, সে বিষয়টিও নজরদারি করা হচ্ছে।

পুলিশের শীর্ষ একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলছিলেন, বিষয়টিকে তারা বড় উদ্বেগ হিসাবেই নিয়েছেন।

গত কয়েকদিনে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা এ বিষয়ে নিজেদের মধ্যে বৈঠক করেছেন। এর মধ্যেই প্রযুক্তি ব্যবহার ছাড়াও রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে তাদের উপস্থিতিও বাড়ানো হয়েছে।

নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করে এমন একটি সংগঠন, বিআইপিএসএসের প্রেসিডেন্ট অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল এ এন এম মুনীরুজ্জামান বলছিলেন, রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিতে পারে পাচারকারী এবং অপরাধী চক্র।

কিন্তু তার চেয়েও বড় ঝুঁকি বা সম্ভাবনা তারা দেখতে পাচ্ছেন।

তিনি বলছেন, বড় যে সমস্যাটি তৈরি হতে পারে, তা হলো, রোহিঙ্গাদের নিপীড়নের কারণে আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন দেশ থেকে বা বিভিন্ন গোষ্ঠীর কাছ থেকে তাদের প্রতি সমর্থন দেখানো হয়েছে। আল কায়েদা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট এবং দায়েশ তাদের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছে। চেচনিয়া থেকে বেশ কিছু গোষ্ঠী তাদের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছে।

ইন্দোনেশিয়া থেকে বেশ কিছু ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে, ইন্দোনেশিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে রোহিঙ্গাদের জন্য যুদ্ধ করার জন্য সৈন্য সংগ্রহ করা হচ্ছে এবং প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

মি. মুনীরুজ্জামান বলছেন, যারা বিদেশী যোদ্ধা, তারা যদি এই রাখাইন অঞ্চলে এসে তাদের সাথে যুদ্ধ করার প্রস্তুতি নেয়, তাহলে আমাদের সীমান্তের কাছাকাছি একটা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হতে পারে। যা আমাদের নিরাপত্তার জন্য একটি বড় হুমকি।

ত্রাণ বা সহায়তার নামে রোহিঙ্গাদের যাতে কোনো চক্র জঙ্গি বা অপরাধমুলক কর্মকাণ্ডে জড়িত করতে না পারে সেজন্য রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে যারা যাচ্ছেন, তাদেরও পর্যবেক্ষণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এ কে এম ইকবাল হোসেন বলছেন, যেসব এলাকায় রোহিঙ্গারা বসবাস করে, সেসব এলাকায় আমাদের অনেকগুলো মোবাইল পেট্টোল সারাক্ষণ কাজ করছে। আমাদের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যেসব গোয়েন্দা সংস্থা রয়েছে, সবার সঙ্গে মিলেই আমরা কাজ করছি। এ পর্যন্ত অশুভ কোন তৎপরতার খবর পাইনি।

তিনি বলছেন, বিভিন্ন স্থানে আমাদের চেকপোস্ট বসানো হয়েছে, যাতে রোহিঙ্গারা টেকনাফ এবং উখিয়ার নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে যেতে না পারে।

তবে মি.মুনীরুজ্জামান বলছেন, এটি এমন একটি সমস্যা যার হয়তো আশু সমাধান আশা করা ঠিক হবে না। সুতরাং রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরত পাঠানোর আন্তর্জাতিক তৎপরতার পাশাপাশি বাংলাদেশের নিরাপত্তার দিক থেকেও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনাও নিতে হবে। -বিবিসি বাংলা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ইমরান এইচ সরকারের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা 

878

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর : সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গন থেকে ভাস্কর্য সরানোর প্রতিবাদে গণজাগরণ মঞ্চের মিছিল থেকে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কূটক্তিমূলক স্লোগান দেওয়ার অভিযোগের মামলায় ইমরান এইচ সরকারসহ দুইজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

বুধবার ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম শেখ ছামিদুল ইসলাম এ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। অপর আসামি হলেন সনাতন উল্লাস।

বিচারিক আদালতে মামলাটি বদলি হয়ে আসার পর বুধবার মামলাটিতে বাদীপক্ষ ও আসামিপক্ষের উপস্থিতির জন্য দিন ধার্য ছিল। এদিন মামলার বাদী ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির শিক্ষা ও পাঠচক্রবিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানী আদালতে হাজির হতে না পারায় সময়ের আবেদন করেন। কিন্তু আসামিপক্ষ আদালতে হাজির হননি এবং কোনো ধরনের পদক্ষেপও গ্রহণ করেননি। মামলার ধার্য তারিখে তারা উপস্থিত না হওয়ায় আদালত এ পরোয়ানা জারি করেন। একই সঙ্গে বিচারক আগামী ২৬ অক্টোবর অভিযোগ গঠনের বিষয়ে শুনানির তারিখ ধার্য করেছেন।

এর আগে গত ৩১ মে ছাত্রলীগ গোলাম রাব্বানী আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় বলা হয়, গত ২৮ মে রাজধানীর শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের সুপ্রিম কোর্ট থেকে ভাস্কর্য সরিয়ে নেওয়ার প্রতিবাদে আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে মানহানিকর স্লোগান দেওয়া হয়। যা প্রধানমন্ত্রীসহ আওয়ামী লীগের জন্য মানহানিকর। ওই সমাবেশে ইমরান এইচ সরকার এবং সনাতন উল্লাস নেতৃত্ব দেন।

যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে ২০১৩ সালে শাহবাগে গণজাগরণের আন্দোলনের সূচনায় অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট হিসেবে এর আহ্বায়কের দায়িত্ব নেন ইমরান। শুরুতে ছাত্রলীগ এই মঞ্চের সঙ্গে থাকলেও পরে সরে যায়।

সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ভাস্কর্য অপসারণের প্রতিবাদে ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে গণজাগরণ মঞ্চের মশাল মিছিল থেকে শেখ হাসিনাকে নিয়ে ওই স্লোগান দেওয়া হয়েছিল। স্লোগানের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। গত ২৯ মে রাতে ছাত্রলীগের মিছিল থেকে শাহবাগে ইমরান সরকারকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয়-খাদ্য দিতে ব্যর্থ: ফখরুল 

5688

ঠাকুরগাঁও, ২০ সেপ্টেম্বর : বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার রোহিঙ্গাদের ঠিকভাবে আশ্রয়, খাদ্য ও চিকিৎসা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। প্রথমদিকে তারা আশ্রয় না দেয়ার কথা বলেছেন, তাদেরকে সন্ত্রাসী বলেছেন, ফেরৎ পাঠিয়েছেন কয়েক হাজার রোহিঙ্গাকে। পরে যখন সমগ্র বিশ্ব রোহিঙ্গাদের পক্ষে কথা বলছে,  যখন সমগ্র বিশ্ব মিয়ানমার সরকার ও সুচিকে ধিক্কার দিচ্ছেন তখন সরকারের সম্বিত ফিরে এসেছে।

তিনি বলেন, এখনো লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা এই বৃষ্টির মধ্যে খোলা আকাশের নীচে। এখনো শত শত শিশুরা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত, রোহিঙ্গা মায়েরা রাস্তায় সন্তান প্রসব করছে কিন্তু সরকার তেমন কোনো ব্যবস্থা করতে পারেনি। তিনি রোহিঙ্গাদের ঠিকভাবে আশ্রয় দেয়া এবং তাদের দেশে ফেরৎ পাঠানোর ব্যাপারে আন্তর্জাতিকভাবে মিয়ানমার সরকারের উপর কূটনৈতিক চাপ সৃষ্টির জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

বুধবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও পৌর কমিউনিটি সেন্টারে বিএনপি ঢাকা মহানগর (উত্তর) এর পক্ষ থেকে জেলার বন্যাদুর্গতদের বাড়িঘর নির্মাণের জন্য ঢেউ টিন বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

মির্জা আলমগীর বলেন, ১০ বছর ধরে বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে সাধারণ মানুষের অধিকারগুলো কেড়ে নিয়েছে। ২০১৪ সালে নির্বাচনে কোন মানুষ ভোট দিতে পারে নাই। আজ চালের দাম আকাশ চুম্বি হয়ে গেছে। সরকার নিজেই তৈরি করেছে এই  সংকট। শুধু চালের দাম নয় প্রতিটি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে।

বিএনপি ঠাকুরগাঁও জেলা সভাপতি তৈমুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি ঢাকা মহানগর (উত্তর) এর সিনিয়র সহ-সভাপতি ফজলুল বাকি আঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ আহসান ও ঠাকুরগাঁও জেলা সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মির্জা ফয়সাল প্রমুখ।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর ৬ প্রস্তাব 

4444

নিউইয়র্ক, ২০ সেপ্টেম্বর : মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা এবং সেখান থেকে তাদের বিতাড়িত করার যে প্রক্রিয়া চলছে এই সংকট থেকে উত্তরণের জন্য মুসলিম বিশ্বের সামনে ছয়টি প্রস্তাব পেশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবিলায় ওআইসিভুক্ত দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ওআইসি কনট্যাক্ট গ্রুপের বৈঠকে শেখ হাসিনা এই প্রস্তাবগুলো তুলে ধরেন।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এই ‘জাতিগত নির্মূল’ অভিযানের অবসান দেখতে চাই। আমাদের মুসলমান ভাইদের এই দুর্দশার অবসান চাই। এই সঙ্কটের সূচনা হয়েছে মিয়ানমারে এবং সেখানেই এর সমাধান হতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ছয়টি প্রস্তাব হলো:

১. রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সব ধরনের নিপীড়ন এই মুহূর্তে বন্ধ করতে হবে।

২. নিরপরাধ বেসামরিক জনগোষ্ঠী, বিশেষ করে নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য মিয়ানমারের ভেতরে সেইফ জোন (নিরাপদ এলাকা) তৈরি করা যেতে পারে, যেখানে তাদের সুরক্ষা দেয়া হবে।

৩. বলপ্রয়োগের মাধ্যমে বাস্তুচ্যুত সব রোহিঙ্গা যেন নিরাপদে এবং মর্যাদার সঙ্গে মিয়ানমারে তাদের বাড়িতে ফিরতে পারে, সেই ব্যবস্থা করতে হবে।

৪. রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে কফি আনান কমিশনের পূর্ণাঙ্গ সুপারিশ অবিলম্বে নিঃশর্তভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

৫. রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি’ হিসেবে চিহ্নিত করার যে রাষ্ট্রীয় প্রোপাগান্ডা মিয়ানমার চালাচ্ছে, তা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।

৬. রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে না ফেরা পর্যন্ত তাদের জরুরি মানবিক সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে হবে ভ্রাতৃপ্রতিম মুসলিম দেশগুলোকে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মিয়ানমারে আজ মুসলমান ভাই-বোনেরা জাতিগত নির্মূল অভিযানের মুখোমুখি হয়েছে। রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের চালানো সামরিক অভিযান বিপর্যয়ের সৃষ্টি করেছে। এ ঘটনায় এবারই সবচেয়ে বেশি রোহিঙ্গা বাস্তুচ্যুত হয়ে দেশান্তরী হতে বাধ্য হয়েছে। ইতোমধ্যে চার লাখের বেশি মানুষ মিয়ানমার থেকে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে। এই শরণার্থীদের ৬০ শতাংশই শিশু।’

রোহিঙ্গাদের দুঃখ-কষ্টের বর্ণনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা এক অবর্ণনীয় মানবিক বিপর্যয়। আমি নিজে তাদের কাছে গেছি, তাদের মুখ থেকে, বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ভয়াবহ দুর্ভোগের বিবরণ শুনেছি। আমি বলব, আপনারা সবাই আসুন, এই শরণার্থীদের মুখ থেকে শুনে যান, মিয়ানমারে কী রকম নির্মমতা চলছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মিয়ানমার পরিকল্পিত ও সংগঠিত উপায়ে বলপ্রয়োগের মাধ্যমে রোহিঙ্গা মুসলমানদের বের করে দিচ্ছে। প্রথমত তারা নিবন্ধিত জাতিগোষ্ঠীর তালিকা থেকে রোহিঙ্গাদের বাদ দিয়েছে। তারপর ১৯৮২ সালের আইনে তাদের নাগরিকত্ব দিতে অস্বীকার করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের নিজ দেশেই আইডিপি ক্যাম্পে পাঠিয়েছে তারা।’

রোহিঙ্গা সমস্যা মোকাবিলায় ওআইসির সদস্যভুক্ত দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এ বিষয়ে ওআইসির যে কোনো উদ্যোগে অংশ নিতে বাংলাদেশ প্রস্তুত রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

শাহজালালে বিমানে কোটি টাকার সোনা 

14585

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর : ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজের ভেতর থেকে ২০টি সোনার বার উদ্ধার করেছে শুল্ক গোয়েন্দা।

আজ বুধবার সকালে মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশ বিমানের ওই উড়োজাহাজ থেকে সোনার বার গুলো উদ্ধার করা হয়।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান জানান, উদ্ধারকৃত সোনার মোট ওজন দুই কেজি। যার বাজারমূল্য প্রায় এক কোটি টাকা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে খাদ্যের বিষক্রিয়ায় অর্ধশত বরযাত্রী হাসপাতালে 

752

ঠাকুরগাঁও, ২০ সেপ্টেম্বর : বিয়ের দাওয়াত খেয়ে ফুড পয়জনিংয়ে আক্রান্ত হয়ে অর্ধশতাধিক বরযাত্রী অসুস্থ হয়ে পীরগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে আক্রান্তরা হাসপাতালে আসতে শুরু করেন। ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার সিংগারোল গ্রামের আমিনুল হকের ছেলে জাহিদুলের বিয়ের বরযাত্রী হয়ে অর্ধশতাধিক নারী পুরুষ ও শিশু  সোমবার বিকালে একই উপজেলার রনশিয়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের বাড়িতে যান। সেখানে সন্ধ্যায় খাওয়া দাওয়া সেরে কনে নিয়ে বাড়ি ফিরেন বরযাত্রীরা। বাড়ি ফিরে পরদিন মঙ্গলবার বিকাল থেকে পেট ব্যথা, পাতলা পায়খান, মাথা ঘোরা, জ্বরসহ নানাভাবে অসুস্থ হতে থাকেন তারা। অবস্থা খারাপ হতে থাকলে তাদের ভর্তি করা হয় পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

ভোমরাদহ ইউপি চেয়ারম্যান হিটলার হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, যারাই ওই খাবার খেয়েছে তারাই আক্রান্ত হয়েছে পেটের পীড়ায়।

হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. জুবায়ের জানান, দাওয়াতের খাবার থেকে তারা ফুড পয়জনিংয়ে আক্রান্ত হয়েছেন। এ কারণে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে ভয়ের কারণ নেই।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ বলেন, ঘটনাটি নাশকতামূলক কি না তা যাচাই করতে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ইংল্যান্ডের ৭ উইকেটে জয় 

866

স্পোর্টস ডেস্ক, ২০ সেপ্টেম্বর : পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জনি বেয়ারস্টোর অপরাজিত সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেটে জয় পায় জো রুটের দল। এ হারে নিশ্চিত হয়েছে, ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ খেলতে হলে পেরোতে হবে বাছাইপর্বের বাধা। ক্যারিবীয়রা হেরে যাওয়ায় অষ্টম দল হিসেবে শ্রীলঙ্কা সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়েছে।

দুই বছরেরও বেশি সময় পর এ ম্যাচ দিয়ে ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে নিয়েছিলেন ক্রিস গেইল। দানবীয় ব্যাটিংয়ের ইঙ্গিতও দিয়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এ ওপেনার। কিন্তু পারেননি, তার সঙ্গে অন্য ব্যাটসম্যানরাও ছিলেন ব্যর্থ। ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ৪২ ওভারে নির্ধারিত ম্যাচে ৯ উইকেটে তাদের ২০৪ রানে বেধে ফেলে ইংল্যান্ড। তারপর লক্ষ্যে পৌঁছাতে খুব বেশি সময় নেয়নি তারা। ৩০.৫ ওভারে ৩ উইকেটে ২১০ রান করে স্বাগতিকরা।

ম্যানচেস্টারে মঙ্গলবার টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গেইলের সঙ্গে মারলন স্যামুয়েলসের ওয়ানডে প্রত্যাবর্তন বড় ইনিংসের প্রত্যাশা জাগিয়েছিল। কিন্তু হয়নি। ইনিংসের তৃতীয় বলে রানের খাতা না খুলতেই বিদায় নিতে বসেছিলেন গেইল। দ্বিতীয় স্লিপে দাঁড়ানো জো রুট ক্যাচ ফেলে দিলে জীবন পান ক্যারিবীয় ওপেনার। ইনিংসের তৃতীয় ওভার থেকে চিরচেনা রূপ ধারণ করেন গেইল। চার-ছক্কায় দর্শকদের উল্লাসে মাতান তিনি। কিন্তু চতুর্থ ছয় মারতে গিয়ে রুটের দুর্দান্ত ক্যাচের শিকার হন এ ওপেনার। ২ চার ও ৩ ছয়ে ওকসের শিকার হওয়ার আগে ২৭ বলে ৩৭ রান করেন গেইল।

অধিনায়ক জেসন হোল্ডার সবচেয়ে বেশি ৪১ রানে অপরাজিত ছিলেন ৩৩ বল খেলে। এছাড়া শাই হোপ করেন ৩৫ রান।

বেন স্টোকস ৩ উইকেট নিয়ে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে সফল বোলার। দুটি করে পেয়েছেন আদিল রশিদ ও ওকস।

২০৫ রানের লক্ষ্যে নেমে শুরুতেই অ্যালেক্স হেলস বিদায় নেন। তবে জনি বেয়ারস্টোর সঙ্গে জো রুটের ১২৫ রানের জুটিতে সহজ জয়ের পথে চলেছে ইংলিশরা। রুট ৫৩ বলে করেন ৫৪ রান। বেয়ারস্টো ইনিংস সেরা ১০০ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জেতান। ওয়ানডেতে প্রথম সেঞ্চুরির মুখ দেখা এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানের ৯৭ বলের ইনিংসে রয়েছে ১১ চার।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বর্মী সেনাদের প্রশিক্ষণ স্থগিত করেছে ব্রিটেন 

08

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২০ সেপ্টেম্বর :ব্রিটিশ সরকার বলছে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সাথে তাদের একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচি তারা স্থগিত করেছে।

রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর বর্মী সেনাবাহিনীর অব্যাহত সহিংসতার মধ্যে ব্রিটেনের কাছ থেকে এই ঘোষণা এলো।

বর্মী সামরিক বাহিনীর সাথে এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি প্রতিবছরই হয়ে আসছে। এজন্যে ব্রিটেনের খরচ হয় বছরে তিন লাখ পাউন্ড।

এই কর্মসূচির আওতায় ব্রিটিশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বর্মী সৈন্যদের প্রশিক্ষণের জন্যে অর্থ সাহায্য দিয়ে আসছে।

ব্রিটিশ সরকারের একজন মুখপাত্র বলেন, রাখাইন রাজ্যে অব্যাহত সহিংসতা এবং তাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট মানবিক বিপর্যয়ের প্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনায় ব্রিটেন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। এই সঙ্কটের গ্রহণযোগ্য কোন সমাধান না হওয়া পর্যন্ত এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি স্থগিত থাকবে।

ব্রিটিশ সরকারের এক বিবৃতিতে বলা হয়, বর্মী সেনাবাহিনীর প্রতি আমরা আহবান জানাচ্ছি রাখাইনে সহিংসতা বন্ধ করে বেসামরিক সব নাগরিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে খুব দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্যে। সেখানে যাতে মানবিক ত্রাণ সাহায্য যেতে পারে তার জন্যেও সেনাবাহিনীকে ব্যবস্থা নিতে আহবান জানানো হচ্ছে।

রাখাইনে নতুন করে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর গত তিন সপ্তাহে চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

জাতিসংঘ রাখাইনে বর্মী সেনাবাহিনীর এই হামলাকে তুলনা করেছে জাতিগত নিধন অভিযানের সাথে। -বিবিসি বাংলা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর