২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭
সকাল ৭:১৮, রবিবার

ঠেঙ্গারচরে বসবাসের উপযোগী পরিবেশ চান মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান

ঠেঙ্গারচরে বসবাসের উপযোগী পরিবেশ চান মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান 

কক্সবাজার, ২৫ ফেব্রুয়ারি : জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেছেন, রোহিঙ্গারা আশ্রয়শিবিরে মানবেতর জীবন যাপন করছে। তাদের ঠেঙ্গারচরে স্থানান্তর করার আগে সেখানে বসবাস উপযোগী পরিবেশ তৈরি করতে হবে। অর্থাৎ অন্যত্র সরানোর আগে সেখানে সব ধরনের মানবাধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় আজ শনিবার পৃথক তিনটি রোহিঙ্গাশিবির পরিদর্শন শেষে এ দাবি করেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান।

আজ শিবিরগুলো পরিদর্শনের সময় কাজী রিয়াজুল হক অন্তত ৪৫ জন রোহিঙ্গার সঙ্গে কথা বলেন। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে সে দেশের সেনাবাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতন ও দমনপীড়নের মুখে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মুখে নির্যাতনের বর্ণনা শুনে হতবাক হন তিনি।

রোহিঙ্গাশিবির পরিদর্শন শেষে কমিশনের চেয়ারম্যান সাংবাদিকদের বলেন, রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা নির্যাতন বন্ধে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিকভাবে চাপ তৈরিতে জনমত গড়ে তুলতে হবে। বর্তমানে শিবিরগুলোতে রোহিঙ্গারা কষ্টে দিন অতিবাহিত করছে।

আজ সকাল ১০টার দিকে কমিশন চেয়ারম্যান উখিয়ার কুতুপালংয়ে অবস্থিত অনিবন্ধিত ও নিবন্ধিত দুটি রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করেন। সেখান থেকে দুপুর ১২টার দিকে যান উখিয়ার বালুখালী অনিবন্ধিত রোহিঙ্গাশিবিরে।

মিয়ানমারে মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার রোহিঙ্গাদের বর্তমান অবস্থা ও করণীয় নির্ধারণের লক্ষ্যে কমিশন চেয়ারম্যানের এই পরিদর্শন।

কুতুপালং অনিবন্ধিত শিবির পরিদর্শনের সময় নির্যাতিত রোহিঙ্গা নারী মমতাজ বেগম (২৭) কমিশন চেয়ারম্যানকে বলেন, তিনি দেড় মাস আগে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের বলিবাজার থেকে পালিয়ে এই শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। মিয়ানমারের পুলিশ চোখের সামনে তাঁর বাবাকে বাড়িতে পুড়িয়ে হত্যা করে। স্বামীকে ধরে নিয়ে যায়। তাঁর ছোট মেয়েকেও আগুনে নিক্ষেপ করেছিল। কিন্তু ভাগ্যক্রমে সে বেঁচে গেছে।

১৫ বছর বয়সী এক রোহিঙ্গা কিশোরী বলে, টানা এক মাস রাখাইন রাজ্যের সেনাসদস্যরা বাড়িতে এসে তাকে ধর্ষণ করেছে। একপর্যায়ে তার চোখের সামনে তার মাকেও ধর্ষণ করে হত্যা করে সেনারা। তাঁর দুই ভাই ও বাবাকে ধরে নিয়ে গেছে। এরপর নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

রাখাইন রাজ্যের মংডুর উত্তরে রাহাইম্মু ঘোনা থেকে পালিয়ে এসেছে সেতেরা বেগম (৯) নামে এক শিশু। সে কমিশন চেয়ারম্যানকে বলে, চোখের সামনে তাঁর চার ভাই ও বাবাকে মেরে ফেলেছে। পালিয়ে আসার সময় মাকেও ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমারের পুলিশ। পরে অন্যদের সঙ্গে সে বাংলাদেশে চলে আসে। এখানে মানবেতর জীবন যাপন করছে সে।

রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে বর্ণনা শোনার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারের মিলিটারি ও পুলিশ দ্বারা রোহিঙ্গারা নির্যাতিত হচ্ছে, এটি অত্যন্ত লজ্জার ও দুঃখজনক। বাঙালি হিসেবে আখ্যায়িত করে রোহিঙ্গা মুসলমানদের নির্যাতন করছে মিয়ানমার সরকার। বাংলাদেশ সরকারের উচিত বিশ্ব জনমত সৃষ্টি করে রোহিঙ্গাদের সে দেশে স্থায়ীভাবে নাগরিকত্ব দিতে মিয়ানমার সরকারকে বাধ্য করা।

রিয়াজুল হক বলেন, বাংলাদেশ সরকার মানবিক দিক বিবেচনা করে দেখেও না দেখার ভান করে রোহিঙ্গাদের দেশে প্রবেশের সুযোগ দিচ্ছে। রোহিঙ্গা চাপ শুধু আজকে নয়; দীর্ঘদিন ধরে বহন করছে বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের মতো এত জনবহুল দেশের পক্ষে এটা অসম্ভব হয়ে উঠছে। তারপরও মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে তাদের আশ্রয় দিচ্ছে। আন্তর্জাতিক সংস্থার সহযোগিতায় তাদের প্রাথমিকভাবে বাঁচার জন্য যা প্রয়োজন, তা সহায়তা করছে। কিন্তু এই সহায়তা যথেষ্ট নয়।

কমিশন চেয়ারম্যান বলেন, এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার আন্তর্জাতিকভাবে দেনদরবার করে যেসব দেশের আয়তন বড় সেসব দেশে রোহিঙ্গাদের ‘থার্ট কান্ট্রি রিসেটেলমেন্ট’ করতে পারে। এ ক্ষেত্রে কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি ও ইউরোপ অন্যতম।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য মেঘনা গুহ ঠাকুর বলেন, ‘আন্তর্জাতিক আইনে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সরকারের নির্যাতন অবশ্যই গণহত্যার শামিল। সবার উচিত এটার কড়া প্রতিবাদ করা।’
পরিদর্শনের সময় আন্তর্জাতিক এনজিও সংস্থার প্রতিনিধিরা ছিলেন।

আজ সন্ধ্যায় কক্সবাজার শহরের হিলটপ সার্কিট হাউসে রোহিঙ্গা ইস্যুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করার কথা কমিশন চেয়ারম্যানের।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সাদিয়ার তিন বন্ধুর চোখে জল 

ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি : তাঁর বন্ধুরা ঘুমিয়ে যেতেন কিন্তু তিনি রাত জেগে পড়তেন। তাই তাঁর ফল ভালো ছিল। আর বাকি ছিল মাত্র আট মাস। এরপর তিনি হয়ে যেতেন একজন চিকিৎসক, যা হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন সেই শৈশবে। কিন্তু তাঁর সব স্বপ্ন-সাধনা আজ শনিবার খুন করেছেন একজন বাসচালক। বাসের ধাক্কায় এই মেডিকেল শিক্ষার্থী সকালে নিহত হন। নাম তাঁর সাদিয়া হাসান (২২)। তিনি পুরান ঢাকায় অবস্থিত ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের পঞ্চম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

সাদিয়ার তিন ঘনিষ্ঠ বন্ধু মেডিকেল শিক্ষার্থী ফাতেমা তুজ জোহরা, নাদরাতুল নাইন ও সাবিহা শিকদার প্রথম আলোকে বললেন, আর মাত্র আট মাস পর তাঁরা চিকিৎসক হবেন। কিন্তু সাদিয়া আর কোনো দিন চিকিৎসক হতে পারবেন না। চিকিৎসক হয়ে গরিব-দুঃখী মানুষের সেবা করতে চেয়েছিলেন তিনি। নিহত সাদিয়ার বাড়ি রাজশাহী শহরে। তিনি রাজধানীর ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের হোস্টেলে থেকেই লেখাপড়া করতেন।

সাদিয়ার রুমমেট ছিলেন তাঁর বন্ধু নাদরাতুল নাইন। গত বৃহস্পতিবার সাদিয়া পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি গিয়েছিলেন মা-বাবার সঙ্গে দেখা করতে। পড়াশোনার চাপে এক বছর তিনি বাড়িতেই যাননি-বলছিলেন নাদরাতুল। আজ শনিবারও সাদিয়াদের গাইনোকলজির ওপর পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা দেওয়ার জন্য রাজশাহী থেকে মা শাহীনা সুলতানাকে সঙ্গে নিয়ে মেডিকেল কলেজে ফিরছিলেন। বংশাল থেকে ন্যাশনাল মেডিকেলের দূরত্ব বড় জোর এক কিলোমিটার। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল নয়টায়। বংশালে মা-মেয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ছিলেন, তখন সময় ৭টা ৪০ মিনিট। ঠিক তখনই সদরঘাটগামী একটি বাস পেছন থেকে অটোরিকশাটিকে সজোরে ধাক্কায় দেয়।

সাদিয়ার বন্ধু ফাতেমা বললেন, ‘আর হয়তো পাঁচ মিনিট পরই সাদিয়া কলেজের হোস্টেলে পৌঁছে যেতে পারত। আমাদের সঙ্গে বসে পরীক্ষাও দিতে পারত। কিন্তু এত কাছে এসেও সাদিয়া আসতে পারল না।’ সাদিয়ার বন্ধু ফাতেমা যখন এসব কথা বলছিলেন, তখন তাঁর পাশে থাকা নাইন ও সাবিহা কেঁদে উঠছিলেন। সমস্বরে চিৎকার দিয়ে এই তিনজনই বলছিলেন, ‘কঠোর পরিশ্রম করে সাদিয়া যখন চিকিৎসক হওয়ার পথে, ঠিক তখন তাঁর এই মৃত্যু মেনে নেওয়া যায় না।’

সাদিয়ার সঙ্গে তাঁর এই তিন বন্ধুর শেষ দেখা ও কথা হয় গত বৃহস্পতিবার কলেজের ক্লাসরুমে। এক বছর বাড়িতে না যাওয়ায় সাদিয়া রাজশাহীতে যাওয়ার জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠেছিলেন। তাঁর একজন শিক্ষককে সাদিয়া সেদিন বলেছিলেন, শনিবারের (আজ) পরীক্ষাটি বৃহস্পতিবার নিয়ে নেওয়ার জন্য। নিয়ম না থাকায় সেদিন আর তিনি সেই পরীক্ষাটি দিতে পারেননি।

ফাতেমা তুজ জোহরা বললেন, ‘সাদিয়া ছিল হাসিখুশি একটা মেয়ে। ও অনেক ভালো মেয়ে ছিল। যেকোনো বিষয়ে ওর জ্ঞান ছিল। যেকোনো বিষয় সুন্দর করে গুছিয়ে বলতে পারত।’ সাদিয়া প্রায় তাঁর বন্ধুদের বলতেন, চিকিৎসক হয়ে তিনি বিনা মূল্যে গরিব রোগীদের সেবা করবেন।

সাদিয়া ঢাকায় থাকলেও তাঁর মন পড়ে থাকত বাড়িতে। বিশেষ করে তাঁর মাকে তিনি খুব ভালো বাসতেন। সাদিয়ার বন্ধু নাদরাতুল নাইন প্রথম আলোকে বলেন, ‘সাদিয়ার জগৎ ছিল মা-কেন্দ্রিক। বড্ড বেশি মাকে ভালোবাসত। মোবাইল ফোনে একনাগাড়ে এক ঘণ্টা, আধা ঘণ্টা ধরে কথা বলত। মায়ের কথা খুব মনে পড়ত। তাই আজ শনিবার পরীক্ষা থাকা সত্ত্বেও শুধু তাঁর মাকে দেখার জন্য ও (সাদিয়া) রাজশাহী গিয়েছিল।’

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

তিন দিনেই হারল ভারত 

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি : সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে তিন দিনেই হেরে গেছে ভারত। ৪৪১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১০৭ রানেই অলআউট হয়েছে স্বাগতিকরা। নিজেদের মাঠে ৩৩৩ রানের বড় ব্যবধানে হারল ভারত।

শনিবার পুনেতে আগের দিনের ৪ উইকেটে ১৪৩ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে অজিরা। অধিনায়ক স্মিথ তার ৫৯ রানকে টেনে নেন ১০৯ পর্যন্ত, যাতে রয়েছে ১১টি বাউন্ডারি।

এ নিয়ে অজি দলনেতা ভারতের বিপক্ষে টানা পাঁচ টেস্টে শতক করার গৌরব অর্জন করলেন। আর মিশেল মার্শ আগের দিনের রানের সঙ্গে ১০ যোগ করে ব্যক্তিগত ৩১ রানে সাজঘরে ফেরেন। এরপর বলার মতো যা একটু রান করেছেন প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক করা মিচেল স্টার্ক (৩০)।

অস্ট্রেলিয়া তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৮৫ রানে অলআউট হয়।

ভারতের পক্ষে তিন স্পিনার- রবীচন্দ্রন অশ্বিন (৪), রবীন্দ্র জাদেজা (৩) ও জয়ন্দ যাদব (১) মিলে ৮টি এবং পেসার উমেশ যাদব দুটি উইকেট ভাগাভাগি করে নিয়েছেন।

অস্ট্রেলিয়া তাদের প্রথম ইনিংসে করেছিল ২৬০ রান। জবাবে ভারত তাদের প্রথম ইনিংসে ১০৫ রানেই অলআউট হয়। এতে ১৫৫ রানে এগিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া। সব মিলিয়ে ভারতের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৪১ রানের।

জবাব দিতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার স্পিনে দিশেহারা হয়ে পড়ে ভারত। স্টিভ ও’কেফে এবং নাথান লায়নের ঘূর্ণিতে ১০৭ রানেই অলআউট হয় ভারত।

ও’কেফে ভারতের ৬ উইকেট তুলে নেন। মুরালি বিজয় (২), বিরাট কোহলি (১৩), অজিঙ্কা রাহানে (১৮), রবীচন্দন অশ্বিন (৮), ঋদ্ধিমান শাহ (৫) এবং চেতেশ্বর পূজারা (৩১) রান করে ও’কেফের বলে সাজঘরে ফেরেন।

এছাড়া লোকেশ রাহুল (১০), রবীন্দ জাদেজা (৩), জয়ন্ত যাদব (৫) এবং উমেশ যাদবকে (০) ফেরান নাথান লায়ন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

স্মিথের শতকে ভারতের লক্ষ্য ৪৪১ 

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি : অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের শতকে ভর করে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় ইনিংসে ২৮৫ রান করতে সমর্থ হয়েছে।

প্রথম ইনিংসে সফরকারীরা করেছিল ২৬০ রান। ফলে দুই ইনিংস মিলে ভারতের সামনে জয়ের লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ৪৪১।

পুনের এই টেস্টে এখনও আড়াই দিনের মতো খেলা বাকি। প্রথম ইনিংসে মাত্র ১০৫ রানে গুটিয়ে যাওয়া স্বাগতিক ভারত ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার দেয়া এত বড় টার্গেট এখনঅব্দি পেরোতে পারেনি।

এর আগে ২০০৪-০৫ সালে নাগপুরে ৫৪২ ও ব্যাঙ্গালুরে দেয়া ৪৫৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। দুটি টেস্টেই ভারত হেরে গিয়েছিল।

দ্বিতীয় দিন শেষে অস্ট্রেলিয়া করেছিল ৪ উইকেটে ১৪৩ রান। অধিনায়ক স্মিথ তার ৫৯ রানকে টেনে নেন ১০৯ পর্যন্ত, যাতে রয়েছে ১১টি বাউন্ডারি।

এ নিয়ে অজি দলনেতা ভারতের বিপক্ষে টানা পাঁচ টেস্টে শতক করার গৌরব অর্জন করলেন। আর মিশেল মার্শ আগের দিনের রানের সঙ্গে ১০ যোগ করেন সাজঘরে ফেরেন ৩১ করে। এরপর বলার মতো যা একটু রান করেছেন প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক করা মিশেল স্টার্ক, ৩০।

ভারতের পক্ষে তিন স্পিনার- রবীচন্দ্রন অশ্বিন (৪), রবীন্দ্র জাদেজা (৩) ও জয়ন্দ যাদব (১) মিলে ৮টি এবং পেসার উমেশ যাদব দুটি উইকেট ভাগাভাগি করে নিয়েছেন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করলেন পেলের ছেলে 

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি : কিংবদন্তি ব্রাজিল ফুটবলার পেলের ছেলে এডিনহো পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন। মানি লন্ডারিং  ও মাদক পাচারের অভিযোগে সাবেক এই পেশাদার গোলরক্ষকের ১২ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে।

২০০৫ সালে প্রথম এই মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়, তখন এর বিরুদ্ধে আপিল করে মুক্তি পেয়েছিলেন তিনি। তখন মুক্তি পেলেও ২০১৪ সালে তার ৩৩ বছরের কারাদণ্ড হয়। পরবর্তীতে আদালত শাস্তি কমিয়ে ১২ বছর ১০ মাস করেন, এবং জোর দিয়ে বলা হয় এর বিরুদ্ধে আপিল করলেও তাকে কারাবাস করতে হবে। এডিনহো সব অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করে আসছেন।

সান্তোসের পুলিশ স্টেশনে আত্মসমর্পণ করতে এসে এডিনহো দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো প্রমাণ নেই। তিনি বলেন, আমি হতাশ কারণ আমি বিচার প্রক্রিয়ার বলি হতে যাচ্ছি। মানি লন্ডারিংয়ের সঙ্গে আমার কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। একই অভিযোগে সান্তোসের ড্রাগ লর্ড বলে খ্যাত নালদিনহোকেও কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বিবিসি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ইএসপিএন ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা যারা 

8

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি : ক্রিকেটের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ইএসপিএন ক্রিকইনফো ২০১৬ সালের ১৩টি বিভাগে বর্ষসেরার পুরস্কার ঘোষণা করেছে। ছয়টি বিভাগে বাংলাদেশের ৬ তারকা মনোনয়ন পেলেও শেষ পর্যন্ত বর্ষসেরা অভিষিক্ত খেলোয়াড় মেহেদী হাসান মিরাজ আর বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি বোলার নির্বাচিত হয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে স্বপ্নের অভিষেক হয়েছিল মেহেদী হাসান মিরাজের। বল হাতে দুর্দান্ত পারফর্ম করেন তিনি। তার হাত ধরেই প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে জয় পায় বাংলাদেশ। দুই টেস্টে ১৯ উইকেট নিয়ে সিরিজ সেরা মিরাজ। অভিষেক টেস্ট সিরিজে চমক দেখানো মিরাজ নির্বাচিত হয়েছেন ক্রিকইনফোর বর্ষসেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার। আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ২২ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ২০১৬ সালে টি-টোয়েন্টির বর্ষসেরা বোলার নির্বাচিত হয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান।

‘ক্রিকইনফো’ নির্বাচিত ১৩ বিভাগের বর্ষসেরা পুরস্কার জয়ীদের নাম সংক্ষেপে তুলে ধরা হল:

বর্ষসেরা অধিনায়ক : বিরাট কোহলি (ভারত)
বর্ষসেরা টেস্ট ব্যাটসম্যান : বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড)
বর্ষসেরা টেস্ট বোলার : স্টুয়ার্ট ব্রড (ইংল্যান্ড)
বর্ষসেরা ওয়ানডে ব্যাটসম্যান : কুইন্টন ডি কক (দক্ষিণ আফ্রিকা)
বর্ষসেরা ওয়ানডে বোলার : সুনীল নারাইন (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি ব্যাটসম্যান : কার্লোস ব্রার্থওয়েট (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি বোলার : মুস্তাফিজুর রহমান (বাংলাদেশ)
বর্ষসেরা অভিষিক্ত ক্রিকেটার : মেহেদি হাসান মিরাজ (বাংলাদেশ)
বর্ষসেরা অ্যাসোসিয়েট ব্যাটসম্যান : মোহাম্মদ শাহজাদ (আফগানিস্তান)
বর্ষসেরা অ্যাসোসিয়েট বোলার : মোহাম্মদ নবী (আফগানিস্তান)
বর্ষসেরা নারী ব্যাটসম্যান : হ্যালি ম্যাথিউস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)
বর্ষসেরা নারী বোলার : লেই কেসপেরেক (নিউজিল্যান্ড)
বর্ষসেরা স্ট্যাটসগুরু অ্যাওয়ার্ড : বিরাট কোহলি (ভারত)

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মনোনয়নপত্র নিলেন সুরঞ্জিতের স্ত্রী জয়া 

z2gn7chy-copy

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি : আওয়ামী লীগের প্রয়াত নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সংসদীয় আসন সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা)-এর উপনির্বাচনের জন্য দলীয় মনোনয়নপত্র কিনলেন তাঁর স্ত্রী জয়া সেনগুপ্ত। আজ শুক্রবার বিকেলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে তাঁর পক্ষে ছেলে সৌমেন সেনগুপ্ত এই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ-২ আসনের জন্য জয়া সেনগুপ্ত ছাড়াও দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেছেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমানসহ আরও তিনজন।

প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ব্যক্তিগত সহকারী কামরুল হক বলেন, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সংসদীয় আসন দিরাই ও শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগ জয়া সেনগুপ্তকে সমর্থন জানিয়েছে। এ জন্য তিনি দলীয় মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। মনোনয়নপত্র কেনার সময় সৌমেন ছাড়াও তাঁর স্ত্রী রাখী মৈত্রী সেনগুপ্ত, শাল্লা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

কামরুল হক আরও জানান, জয়া সেনগুপ্ত বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের প্রশাসনিক কর্মকর্তা ছিলেন। তবে তিনি আওয়ামী লীগ বা এর সহযোগী সংগঠনের কোনো পদে নেই।

সুনামগঞ্জ-২ আসনের মনোনয়নপত্র বিক্রি ছাড়াও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য আবেদনপত্র আহ্বান করেছে আওয়ামী লীগ। সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা বরাবর কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য তিনটি আবেদনপত্র জমা পড়েছে বলেও দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

২৬ ফেব্রুয়ারি রাত আটটায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় বোর্ড এবং স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা হবে। সেখানেই ঠিক হবে সুনামগঞ্জ-২ আসন এবং কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে কে দলীয় মনোনয়ন পাবেন। আগামী ৩০ মার্চ সুনামগঞ্জ-২ ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে নরসিংদী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে আগ্রহী দলীয় প্রার্থীদের আগামীকাল শনিবার এবং পরদিন রোববারের মধ্যে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা বরাবর আবেদনপত্র জমা দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। আজ শুক্রবার বিকেলে দলটির দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানানো হয়।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

বিদ্যুতের দামও বাড়বে: নসরুল হামিদ 

2d2rbfcz-copy

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি : নসরুল হামিদ বিপুনসরুল হামিদ বিপুগ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির পক্ষে যুক্তি দিয়ে এবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর পরিকল্পনার কথা জানালেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেছেন, ‘বিদ্যুৎ খাতে গ‌্যাসের মূল্যটা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিদ‌্যুতের দামও আমরা সমন্বয় করতে চাই।’

আজ শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নসরুল হামিদ এসব কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘গ্যাসের কিছু কিছু জায়গায় আমরা নিরুৎসাহিত করতে চাই। কিছু কিছু জায়গায় আমার মনে হয়, ভবিষ্যতে যখন এলএনজি আসবে সেই দামের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখা। গ্যাসের দাম যৌক্তিক ও সহনীয় পর্যায়ে রাখতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) প্রস্তাব করেছিলাম।

তারা সেটা বিচার-আচার করেছে। আমরা অবশ্য এর চেয়ে বেশি প্রস্তাব করেছিলাম অ্যাডজাস্টমেন্ট যেন হয়। সরকার একটা বড় অঙ্ক ভর্তুকি দিচ্ছে। এখন আমরা বাইরে থেকে গ্যাস আনলেও সেটার একটা মূল্য সমন্বয় করতে হবে। তাই সেই জায়গাটা আমাদের তৈরি থাকতে হবে।’

ইতিমধ্যে এ বিষয়ে প্রস্তাব পাঠানোর কথা জানিয়ে নসরুল হামিদ আরও বলেন, ‘ভবিষ্যতে সারা বাংলাদেশে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ বিতরণ করার লক্ষ্যে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। সুতরাং আমাদের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ করার মানসিকতাও থাকতে হবে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে গ‌্যাসের দাম বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি দিয়ে নসরুল হামিদ আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে ৩০-৩৫ লাখ গ্রাহক পাইপ লাইনে গ্যাস পায়। বাকি কোটি কোটি লোকের কথাও আমাদের চিন্তা করতে হবে।

আমাদের দায়িত্ব হলো, সারা বাংলাদেশে আবাসিক খাতে নিরবচ্ছিন্নভাবে সাশ্রয়ী মূল্যে জ্বালানি দেওয়া, আমরা সেদিকেই যাচ্ছি।’ তিনি বলেন, ‘আমরা ধীরে ধীরে পাইপলাইনে গ্যাস ব্যবহার থেকে সরে আসতে চাই। এলপিজির ব্যবহার বাড়াতে চাই এবং এলপিজির দাম সহনীয় রাখতে চাই।’

এর আগে বাংলাদেশ ডিবেট ফেডারেশনের অষ্টম জাতীয় বিতর্ক উৎসব ও যুব সম্মেলনের অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগ দেন নসরুল হামিদ। ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিপু মনি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

৩ মাস চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরলেন খাদিজা 

555

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি :ম সাভারের পক্ষাঘাতগ্রস্ত ব্যক্তিদের পুনর্বাসন কেন্দ্রে (সিআরপি) প্রায় তিন মাসের চিকিৎসা শেষে সিলেটের বাড়িতে ফিরেছেন কলেজছাত্রী খাদিজা বেগম। আজ শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে খাদিজাকে পরিবারের কাছে তুলে দেন তাঁর চিকিৎসক সাঈদ উদ্দিন হেলালসহ সিআরপির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা।
এর পর বেলা ১টার দিকে বিমানে করে সিলেটের এম এ জি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান খাদিজা। পরে বিমানবন্দর থেকে গাড়িতে করে সিলেট সদর উপজেলার আউশা গ্রামে নিজ বাড়িতে পৌঁছান তিনি। খাদিজার চিকিৎসক সাঈদ উদ্দিন হেলাল জানান, খাদিজা এখন সিআরপির চিকিৎসা সেবা নিয়ে পুরোপুরি সুস্থ। বাড়িতে গিয়ে তিনি আবারও পড়াশোনা শুরু করার ইচ্ছে জানিয়েছেন।

খাদিজার চাচা আবদুল কুদ্দুস জানান, খাদিজা বাড়িতে এসেছেন। বাড়িতে ফিরে আসায় সবাই খুশি। আর কোনো খাদিজা যেন নৃশংসতার শিকার না হন, এমনটাই চাও পরিবারের। খাদিজার ওপর হামলাকারী বদরুল আলমের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন আবদুল কুদ্দুস। সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের ছাত্রী খাদিজা গত বছরের ৩ অক্টোবর বিকেলে এমসি কলেজ পরীক্ষাকেন্দ্রে বিএ (পাস) পরীক্ষা দিয়ে বের হওয়ার সময় হামলার শিকার হন। তাঁকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম। ঘটনার পর জনতা ধাওয়া করে বদরুলকে ধরে পুলিশে দেয়।

সংকটাপন্ন অবস্থায় খাদিজাকে প্রথমে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর খাদিজার অবস্থার উন্নতি হলে গত ২৮ নভেম্বর তাঁকে সিআরপিতে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে ১ ফেব্রুয়ারি এক সপ্তাহের জন্য বাড়ি গিয়েছিলেন খাদিজা। গতকাল বৃহস্পতিবার সিআরপি কর্তৃপক্ষ সংবাদ সম্মেলন করে জানায়, খাদিজা এখন প্রায় সুস্থ। তিনি দু-এক দিনের মধ্যে বাড়ি ফিরতে পারবেন। তবে পূর্ণ স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে তাঁকে আরও কয়েক বছর চিকিৎসা নিতে হবে। খাদিজার ওপর হামলার ঘটনায় হত্যাচেষ্টার অভিযোগে করা মামলাটি সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। বদরুল এই মামলার একমাত্র আসামি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আরও পারমানবিক অস্ত্র চান ট্রাম্প 

3751

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২৪ ফেব্রুয়ারি : যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর অভিবাসন নীতি থেকে শুরু করে নানা বিষয়ে বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দিয়ে আলোচনায় আছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এবার জানালেন আরও পারমানবিক অস্ত্র চাই তার। পারমানবিক অস্ত্রের বিশাল ভান্ডার গড়ে তুলতে চান তিনি। খবর মেট্রো ইউকে’র।

রয়টার্সকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পারমানবিক অস্ত্র মজুদের দিক থেকে পিছিয়ে পড়েছে। তাই, সবাইকে ছাড়িয়ে সব চেয়ে বড় মজুদ গড়ে তুলবেন তিনি।

ট্রাম্পের ওভাল অফিসে দেওয়া ওই সাক্ষাৎকারে তিনি আরও জানান, আগামী বছরের মধ্যে তিনি পারমানবিক অস্ত্রের মজুদের দিক থেকে রাশিয়াকে ছাড়িয়ে যেতে চান।

আর এ খবরে উদ্বেগ বেড়েছে অন্যান্য পারমানবিক শক্তিধর দেশের পাশাপাশি বিশ্ববাসীর। পারমানবিক অস্ত্রের মজুদের প্রতিযোগিতা শুরু হলে সেটা কারও জন্য মঙ্গল হবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

কারাবন্দি শ্রমিক নেতাদের মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রীকে মার্কিন এমপিদের চিঠি 

5544

ঢাকা, ২৪ ফেব্রুয়ারি : বাংলাদেশে শ্রমিক অধিকার বিষয়ে আন্দোলনকারী শ্রমিক নেতাদের আইনসম্মত কর্মকাণ্ডকে ‘অপরাধ’ হিসেবে অভিযুক্ত করার প্রবণতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী ১১ জন আইনপ্রণেতা। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কারাবন্দি শ্রমিকদের নেতাদের মুক্তি ও শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন।

২৩ ফেব্রুয়ারি স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন আইনপ্রণেতারা। স্বাক্ষরকারীদের নেতৃত্ব দিয়েছেন কংগ্রেসম্যান জ্যান স্কাভোস্কি, স্যান্ডার লেভিন, বিল পাসক্রেল ও ববি স্কট। চিঠিতে স্বাক্ষরকারী অপর কংগ্রেসম্যানরা হলেন জেমস পি. ম্যাকগভার্ন, মার্ক পোকান, উইলিয়াম কিয়াটিং, জ্যাকি স্পেইয়ার, জোসেফ ক্রাউলি ও স্টিভ কোহেন।

চিঠিতে মার্কিন আইনপ্রণেতারা উল্লেখ করেছেন, আমরা উন্নতির (শ্রম অধিকার) পিছিয়ে পড়া এবং বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক আইনে স্বীকৃত কর্মকাণ্ডকে অপরাধ হিসেবে আখ্যায়িত করার ঘটনায় উদ্বিগ্ন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কারাবন্দি শ্রমিক নেতাদের মুক্তির আহ্বান জানিয়ে চিঠিতে বলা হয়েছে, সব আটক শ্রমিক নেতাদের বিষয়ে দ্রুত জবাবদিহিতা নিশ্চিত ও আনীত অভিযোগ পর্যালোচনার আহ্বান জানাচ্ছি। ভুল কারণে আটকদের দ্রুত মুক্তি ও সব ধরনের ভিত্তিহীন ও অপ্রমাণিত অভিযোগ প্রত্যাহারে আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

কংগ্রেসম্যান স্কাভোস্কির বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে, বাংলাদেশে শ্রমিক অধিকারের ভুলুণ্ঠিত করা হচ্ছে। ন্যূনতম মজুরি ঘণ্টায় ৩২ সেন্ট (প্রায় ২৫ টাকা) করার দাবিতে আন্দোলন করায় ১ হাজার ৬০ গার্মেন্ট শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। সম্প্রতি বেশ কয়েকজন শ্রমিক নেতাকে জেলে পাঠানো হয়েছে।

মার্কিন আইনপ্রণেতাদের চিঠিতে অভিযোগ করা হয়েছে, রানা প্লাজা ধসে ১ হাজার ১০০ শ্রমিকের মৃত্যুর পর বাংলাদেশের শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়ছে উল্লেখযোগ্যভাবে। মার্কিন আইনপ্রণেতারা বলছেন, ভুল পথে বাংলাদেশের শ্রমিক অধিকার পরিচালিত হওয়ার কারণে তারা ভীষণ উদ্বিগ্ন।

বিবৃতিতে মার্কিন আইনপ্রণেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। একই সঙ্গে তারা সরকারের নীতি ও অনুশীলনে শ্রমিক অধিকার লঙ্ঘণের বিষয় সঠিক পথে নিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শ্রমিকদের অধিকার লঙ্ঘনের উল্টোপথে পতিপথের প্রত্যক্ষ করায় আমরা উদ্বীগ্ন। ২০১৩ সালে রানা প্লাজা কারখানা ধসে হাজার শ্রমিক নিহতের পর বাংলাদেশের পরিস্থিতি আন্তর্জাতিক দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

মার্কিন আইনপ্রণেতাদের মতে, রানা প্লাজা ধসে পর বাংলাদেশ শ্রমিক অধিকার রক্ষায় প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এ প্রতিশ্রুতির মধ্যে ছিল, শ্রমিক ইউনিয়ন নিবন্ধনের অনুমতি এবং জাতীয় শ্রম নীতি ও কারখানায় শ্রমিকের নিরাপত্তা বিষয়ক নীতি সংস্কার করা।

বিবৃতিতে মার্কিন এমপিরা বলেছেন, গত কয়েক বছরে জিএসপি অ্যাকশন প্ল্যানের আওতায় থাকা শ্রমিক অধিকার বাস্তবায়ন পিছিয়ে পড়েছে। উদাহরণ হিসেবে, ২০১৩ সালের তুলনায় ২০১৫ সালে ট্রেড ইউনিয়নের অনুমতি প্রদান ৬৫ শতাংশ থেকে কমে ২৯ শতাংশে নেমে এসেছে। কংগ্রেসের পাওয়া তথ্য অনুসারে, নির্দিষ্ট কয়েকটি ইউনিয়নের নিবন্ধনের আবেদন বিবেচনার জন্যই উপযুক্ত মনে করা হয়নি।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ওয়াল-মার্ট, ভিএফ কর্পোরেশন, টার্গেট, বার্কশায়ার হাথাওয়ে, কার্টারস, সিয়ার্স হোল্ডিং কর্পোরেশন, পিভিএইচ, গ্যাপ, আইএনসি, জেসি পেনেই কোম্পানি ও কোহল-এর মতো আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ডের পোশাক তৈরি হয়। -বাংলা ট্রিবিউন

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একজন নিহত 

055

খুলনা, ২৪ ফেব্রুযারি : খুলনা মহানগরীর হরিণটানায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জিয়া সানা ওরফে হাতকাটা জিয়া নিহত হয়েছেন। পুলিশের দাবি, এসময় তাদের ৫ সদস্যও আহত হয়েছে। জিয়া চরমপন্থি সংগঠন ‘নিউ বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টি’র সেকেন্ড ইন কমান্ড ছিলেন।

​শুক্রবার ভোরে হরিণটানার সাউথ বাংলা আবাসিক প্রকল্প এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

হরিণটানা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, কয়েকজন যুবক ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাউথ বাংলা আবাসিক প্রকল্প এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে গুলি চালালে হাতকাটা জিয়া গুলিবিদ্ধ হয়। তবে অন্যরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি জানান, ঘটনাস্থল থেকে দু’টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ৬টি হত্যা মামলাসহ বিভিন্ন অপরাধে ৯টি মামলা রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

সরকার সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনাও তোয়াক্কা করে না : রিজভী 

3325

ঢাকা, ২৩ ফেব্রুয়ারি : বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে বিরোধী দলের ওপর দমন-নিপীড়ণ, গুম, খুন-নির্যাতন, মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার হয়রানীর পাশাপাশি আবারো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের তুলে নিয়ে গুম করা হচ্ছে। গত কয়েক দিনে বিরোধী দলের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে তুলে নেয়া হলেও তাদের সন্ধান মিলছে না। এজন্য নিখোঁজ হওয়া লোকজনের স্বজনদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে এক দুই বছর পরে গ্রেফতারের নাটক সাজালে গুমের শিকার পরিবারগুলোর পক্ষ থেকে এসব নাটকের তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরবেলা এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব বলেন।

তিনি বলেন, ঠাকুরগাঁও জেলা জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা আব্দুল হাকিমকে গত মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ৪টায় সাদা পোশাকধারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মোটরসাইকেলযোগে তার নিজ বাসা (ঠাকুরগাঁও হাজিপাড়া) থেকে তুলে নিয়ে যায়। তাৎক্ষণিক থানা পুলিশে যোগাযোগ করা হলে কোনো হদিস দিতে পারেনি। বিষয়টি জানা নেই বলে হাকিমের স্বজনদের কাছে মন্তব্য করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। পরবর্তীতে নানা নাটকীয়তা ও সাসপেন্স শেষে তিন দিন পর তাকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।

রিজভী বলেন, গত দু’দিন আগে রাজধানীর হাজারীবাগ এলাকায় মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে নিখোঁজ হন গ্রামীন ব্যাংকের সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার আবুল কাশেম । তিন দিন অতিবাহিত হলেও তার কোন খোঁজ মিলছে না। তার পরিবার থানায় জিডি করে পুলিশের সহায়তা চাইলেও পুলিশ তার কোন সন্ধান দিতে পারছে না। সম্প্রতি কাপাসিয়ায় শীতলক্ষ্যা নদীতে মাছের ঘের থেকে একটি প্রাডো গাড়ী উদ্ধারে দেশজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। গত সোমবার কাপাসিয়া থানায় হাজির হয়ে গাড়ীর মালিকের স্ত্রী সালেহা বেগম দাবি করেন তার স্বামী হেফজুর রহমানকে ২০১৫ সালের ৭ সেপ্টেম্বর আইন শৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয়ে গুলশান থেকে তুলে নিয়ে যায়। গাড়ী পাওয়া গেলেও নিখোঁজ ব্যক্তির এখনও খোঁজ পাওয়া যায়নি।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ৫৪ ধারা এবং সাদা পোশাকে গ্রেফতার প্রসঙ্গে গত বছরের ৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্ট পর্যবেক্ষণ দিয়েছে। তাতে উল্লেখ করা হয়েছে সাদা পোশাকে গ্রেফতারের বেলায় অবশ্যই পরিচয়পত্র দেখাতে হবে। সাথে গ্রেফতারি পরোয়ানাও থাকতে হবে। তুলে নেয়ার ১২ ঘণ্টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির নিকটজনকে অবহিত করতে হবে। আসামির মৌলিক ও মানবাধিকার সংরক্ষণসহ গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে হাজির করার নির্দেশনাও দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনাও এই সরকার তোয়াক্কা করে না।

সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে গুম-খুনের রাজনৈতিক কর্মসূচি চালু করেছিল তার ছেদজ্যোতি এখনও টানেনি। আর শিকার হয়ে আমাদের মাঝ থেকে হারিয়ে গেছে ইলিয়াস আলী, সাইফুল ইসলাম হীরু, হুমায়ুন কবির পারভেজ, চৌধুরী আলম, জাকির, সুমন, মুন্নাসহ বিএনপি এবং অন্যান্য বিরোধী দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ। গুম-খুনের ফেস্টিভ্যাল এখন জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আওয়ামী লীগের গণতন্ত্রের কথা মানে নেকড়ের মুখে মেষ শাবকের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়া।

ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, এরা এখন একটি এমন রাষ্ট্র ও সমাজ কায়েম করছে যেখানে ‘এক ব্যক্তি একটি দল’ এর বিরুদ্ধে আকার ইঙ্গিতে সমালোচনা করলেও তাকে অদৃশ্য হয়ে যেতে হবে। দেশে এক মহাদূর্দিন উপস্থিত হয়েছে। এক অন্ধকারতম সময় গ্রাস করছে সমগ্র জনজীবনকে। প্রতিদিন গড়ে একের অধিক মানুষ কথিত বন্দুক যুদ্ধের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার হচ্ছে। দেশ যে ভয়ঙ্কর দুঃসময় অতিক্রম করছে পোশাকে কিংবা সাদা পোশাকে গ্রেফতার, গুমের ঘটনা তার উদাহরণ।

গত ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ মঙ্গলবার পটুয়াখালী জেলাধীন রাঙ্গাবালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর হোসেন আকন এর নির্বাচনী পথসভায় হামলা, ভাংচুর ও নেতাকর্মীদের মারধরের ঘটনায় নিন্দা জানান রিজভী। তিনি অবিলম্বে দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানাচ্ছি। আহত নেতাকর্মীদের আশু সুস্থতা কামনা করছি।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

আরাফাত সানির মায়ের মুচলেকায় জামিন মঞ্জুর 

2111

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৩ ফেব্রুয়ারি : নারী নির্যাতনের মামলায় ক্রিকেটার আরাফাত সানির মা নার্গিস আক্তারকে জামিন দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার ঢাকার মহানগর হাকিম এস এম মাসুদ জামান জামিনের আদেশ দেন।

বৃহস্পতিবার সকালে আরাফাত সানির মা নার্গিস আক্তার তার আইনজীবী এস এম জুয়েল আহমেদের মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন।

শুনানি শেষে বিচারক পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল করা পর্যন্ত পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় তার জামিন মঞ্জুর করেন।

আরাফাত সানির আইনজীবী এস এম জুয়েল ও সংশ্লিষ্ট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) হরলাল মল্লিক গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

একই মামলায় সানি কারাগারে বন্দি রয়েছেন। তার জামিন শুনানির জন্য ৯ মার্চ দিন ধার্য রয়েছে।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর

মহাকাশে খোঁজ মিলল আরো ৭ পৃথিবীর! 

371

নিউজ৬৯বিডি ডেস্ক, ২৩ ফেব্রুয়ারি : মহাকাশে খোঁজ মিলল আরো সাত পৃথিবীর! অবশ্য ঐ গ্রহ গুলোতে প্রাণের বিকাশ হয়েছে কিনা, সে বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নয় নাসা। পৃথিবী থেকে ৪০ আলোকবর্ষ দূরে একটি নক্ষত্রকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হচ্ছে এই গ্রহগুলো।

জার্নাল নেচারে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রের বরাত দিয়ে সিএনএন জানায়, এই আবিষ্কার মহাকাশ বিষয়ক অন সব গবেষণা থেকে ভিন্ন। কেননা এখানে পৃথিবীর সমান গ্রহ যেমন পাওয়া গেছ, তেমন পৃথিবীর মতই তাপমাত্রা ও অবস্থান পাওয়া গ্রহের সন্ধান পাওয়া গেছে। মহাকাশে অবস্থিত টেলিস্কোপের সাহায্যে এই গ্রহগুলোকে বিশ্লেষণ শেষে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, গ্রহগুলোতে পানি থাকতে পারে এবং সম্ভবত জীবনের বিকাশও হতে পারে।

এদিকে এই গবেষণার মূল কার্য সম্পাদন করা বেলজিয়ামের ইউনিভার্সিটি অব লিয়েগের মহাকাশ বিজ্ঞানী মিখায়েল গিলন বলেন, একটি নক্ষত্রকে আবর্তন করে চলা একই রকম এমন গ্রহের সন্ধান এই প্রথম পেলাম আমরা।

তবে সেখানে প্রাণের বিকাশ হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা মনে করি সেখানে প্রাণের বিকাশের মত পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে।

ট্রাপিস্ট-১ নামের একটি বামন নক্ষত্রকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হচ্ছে গ্রহগুলো। সিএনএন।

Share This:

এই পেইজের আরও খবর