২৮ মার্চ ২০১৭
রাত ১২:২৮, মঙ্গলবার

প্রতিশোধ নিতে মোশাররফকে গুলি করেন মাসুদ: র‍্যাব

প্রতিশোধ নিতে মোশাররফকে গুলি করেন মাসুদ: র‍্যাব 

raw11by7-copy

ঢাকা, ১৬ ফেব্রুয়ারি : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আধিপত্য বিস্তার, ক্ষমতা দ্বন্দ্ব ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে ছাত্রলীগ নেতা মোশাররফ হোসেনকে গুলি করেন মাসুদ রানা। এ জন্য তিনি রাজধানীর মোহাম্মদপুরের মাদক ব্যবসায়ী রাইফেল আলমগীরের কাছ থেকে দুটি পিস্তল ও গুলি সংগ্রহ করেন। দুজন সঙ্গীকে নিয়ে এই অস্ত্র দিয়ে পুরানা পল্টনে গত সোমবার আওয়ামী লীগের সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে গিয়ে মোশাররফকে গুলি করেন মাসুদ।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন র‍্যাব-৩ অধিনায়ক লে. কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ। এর আগে আজ ভোরে কুমিল্লা গোলিয়ার ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে মাসুদকে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার আগমুহূর্তে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব-৩।

গত সোমবার রাজধানীর পুরানা পল্টনে সাংসদ গোলাম দস্তগীর গাজীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক মোশাররফ হোসেন গুলিবিদ্ধ হন। মোশাররফ রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সম্পাদক। পেটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এই সংবাদ ব্রিফিংয়ে তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বলেন, দুই বছর আগে ২০১৫ সালের ৩১ জানুয়ারি পিস্তল ও রামদাসহ র‍্যাব-১১ মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করে। কারাগারে থাকার সময় হত্যা মামলার আসামি বাদশার মাধ্যমে রাইফেল আলমগীরের সঙ্গে সম্পর্ক হয় তাঁর। তবে গত সোমবারের ঘটনার আগে ভুলতার কায়েতপাড়া এলাকায় ভূমিদস্যু বিরোধী একটি সভায় যাওয়ার সময় যানবাহনকে সাইড দেওয়া নিয়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে মাসুদ ও মোশাররফের।

এ সময় মাসুদের সঙ্গে রাইফেল আলমগীর, আল আমিনসহ আরও কয়েকজন ছিলেন। পরে এ ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির সামনে আরও এক দফা বিরোধ হয়। তখন মোশাররফকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন মাসুদ। হুমকি দিয়ে রাইফেল আলমগীরের কাছ থেকে অস্ত্র-গুলি নিয়ে হামলার জন্য মোশাররফকে খুঁজতে থাকেন। মোশাররফ পল্টনে সাংসদ গাজী গোলাম দস্তগীরের কার্যালয়ে আছেন জানতে পেরে সেখানে যান মাসুদ। সেখানে সাংসদের এপিএস কামরুজ্জামানের কক্ষে থাকা মোশাররফকে গুলি করে পালিয়ে যান মাসুদ রানা।

রাইফেল আলমগীরসহ এ ঘটনায় জড়িত মাসুদ রানার সহযোগীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে জানিয়ে লে. কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বলেন, একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর শিক্ষার্থী মাসুদ রানা। তাঁর বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

Share This:

পাঠকের মতামতঃ

comments

এই পেইজের আরও খবর