১৯ অক্টোবর ২০১৭
সকাল ১১:১৭, বৃহস্পতিবার

যেসব বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে হজযাত্রীদের

যেসব বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে হজযাত্রীদের 

897

ঢাকা : এবার সৌদি সরকার হজযাত্রীদের জন্য ই-ভিসা চালু করায় নতুন নিয়ম অনুযায়ী ভিসা সংরক্ষেণে বিষেশ সচেতনতার কথা বলা হয়েছে। কারণ আগের মতো এই ই-ভিসা পাসপোর্টের সঙ্গে লাগানো থাকে না। ফলে এটি আলাদা করে সংরক্ষণ করতে হবে হজযাত্রীদের, যা আগে থেকে সচেতন না থাকলে হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাবে।

তাছাড়া ই-ভিসা ও পাসপোর্ট দেখাতে হবে বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ কাউন্টারে। ইমিগ্রেশন পুলিশ পাসপোর্টের নির্দিষ্ট পাতায় সিল মারার পর সেটি যত্ন করে রাখতে হবে। ই-ভিসা দেখাতে ও প্রিন্ট করতে পাসপোর্ট নম্বর ও নামের শেষ অংশ লিখে দেয়া হবে। এটি পাওয়া যাবে www.hajj.gov.bd লিংক থেকে।

জানা গেছে, ই-ভিসা পাসপোর্টের সঙ্গে লাগানো না থাকায় এটি আলাদাভাবে প্রিন্ট করে দেয়া হবে হজযাত্রীদের।

হজযাত্রী ও হজ এজেন্সির মধ্যে সম্পাদিত চুক্তিপত্রটি (হজের ওয়েবসাইট www.hajj.gov.bd থেকে ১৫ নম্বর ফরম) সঙ্গে রাখবেন।

অন্যদিকে, হজযাত্রীদের আগে যাওয়ার সময় একটি বোর্ডিং কার্ড, ফেরার সময় একটি বোর্ডিং কার্ড দেয়া হতো। এবার যাওয়া-আসার জন্য দুটি বোর্ডিং কার্ড যাত্রীদের আগেই দিয়ে দেয়া হবে।

হজযাত্রীরা হজে যাওয়ার আগে তিন সেট করে ই-ভিসা, বোর্ডিং কার্ড, হেলথ কার্ড, পাসপোর্টের ফটোকপি করবেন। মূল কপি থাকবে হাতে। এসব কাগজ এক সেট হাতব্যাগে সংরক্ষণ করবেন, এক সেট মালামালের মধ্যে রাখবেন এবং এক সেট দেশে আত্মীয়স্বজনের কাছে রাখতে হবে।

কারণ, জেদ্দা হজ টার্মিনালে পৌঁছানোর পর মক্কায় বাসে ওঠার আগে মোয়াল্লেম পাসপোর্ট জমা নিয়ে নেয়। আবার দেশে ফেরার সময় জেদ্দা বিমানবন্দরে মোয়াল্লেম পাসপোর্ট ফেরত দেয়।

হজে যাওয়ার আগে হজযাত্রীদের আত্মীয়স্বজনকে নজর দিতে হবে যাতে পাসপোর্টের সঙ্গে ভিসা, হেলথ কার্ড যথাযথভাবে লাগানো হয়। তা না হলে এসব কিছু হারিয়ে যেতে পারে।

এছাড়া, পাসপোর্ট, বিমানের টিকিট সংগ্রহ ও তারিখ নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ করাসহ নিয়ম মেনে ম্যানিনজাইটিস টিকা বা অন্যান্য ভ্যাকসিন দিয়ে নিন। হজের নিয়ম জানার জন্য একাধিক বইও পড়তে পারেন।

মনে রাখুন, বিমানে উড্ডয়নকালে হাত ব্যাগে ছুরি, কাঁচি, দড়ি নেয়া যাবে না। বিমান কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা অনুযায়ী বিমানে কোনো হজযাত্রী সর্বোচ্চ ৩০ কেজির বেশি মালামাল বহন করতে পারবেন না। নিবন্ধিত চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ব্যতীত কোনো ওষুধ নিতে পারবেন না। চাল, ডাল, শুঁটকি, গুড় ইত্যাদিসহ পচনশীল খাদ্যদ্রব্য যেমন: রান্না করা খাবার, তরিতরকারি, ফলমূল, পান, সুপারি ইত্যাদি সৌদি আরবে নিয়ে যাওয়া যাবে না।

Share This:

Comments

comments

এই পেইজের আরও খবর