২০ আগস্ট ২০১৭
সন্ধ্যা ৭:৩৯, রবিবার

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফেরাতে অগ্রগতি

বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফেরাতে অগ্রগতি 

845

ঢাকা : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খুনিদের দেশে ফেরত আনার প্রক্রিয়ায় অগ্রগতি দেখা দিয়েছে। গত সোমবার ওয়াশিংটনের কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত পাঠাতে দেশটির আগ্রহ আছে বলে জানা গেছে।

নিশ্চিত তথ্য পাওয়ার পর শরিফুল হক ডালিমকে স্পেন আর মোসলেম উদ্দিনকে জার্মানি থেকে ফেরত আনার ব্যাপারে দুই দেশের সঙ্গে সরকার যোগাযোগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। তবে বাংলাদেশের ইতিহাসে নৃশংসতম হত্যার রায় কার্যকরের ছয় বছর পেরিয়ে গেলেও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ছয় খুনির অন্যতম নূর চৌধুরীকে মৃত্যুদণ্ডবিরোধী অবস্থানের কারণে ফেরত দেবে না বলে জানিয়ে যাচ্ছে কানাডা। পলাতক অন্য দুই খুনি খন্দকার আবদুর রশীদ ও আবদুল মাজেদ কোথায় আছেন, সেটা বাংলাদেশ যে নিশ্চিতভাবে জানে না তা স্বীকার করেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

গত সপ্তাহে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের সঙ্গে কথা বলে আভাস পাওয়া গেছে, রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত আনার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় অগ্রগতি আছে। ২ আগস্ট দুপুরে আনিসুল হক এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ না। আর মৃত্যুদণ্ড হয়েছে বলে তাঁকে তাঁর দেশে ফেরত পাঠানো হবে না, এমন কোনো অবস্থান যুক্তরাষ্ট্রের নেই। আইনমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর শুরু থেকেই রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত আনার বিষয়টি তুলেছি। আজকে আমি এটুকু বলতে পারি, আমাদের আলোচনায় যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। আমাদের কাঙ্ক্ষিত যে লক্ষ্য, সেটা যাতে সফল হয়, সে কারণে আমি সব তথ্য দেব না। তবে এটুকু বলতে পারি, আলোচনা অনেক দূর এগিয়ে গেছে।’

অগ্রগতি কি শুধু রাশেদ চৌধুরীকে ফেরত আনার ক্ষেত্রে? নূর চৌধুরীকে ফেরত আনার প্রক্রিয়ায় কী হলো—এসব প্রশ্নের উত্তরে এবং বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের ফেরত আনার বিষয়ে গঠিত জাতীয় টাস্কফোর্সের সভাপতি আনিসুল হক বলেন, ‘আমি এক ক্ষেত্রের বিষয়ে (রাশেদ চৌধুরী) মিন করছি। কানাডার ক্ষেত্রে বলতে পারি, আলোচনা চলছে।’

পলাতক খুনিদের বিষয়ে জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে টাস্কফোর্সের কোনো সভায় আলোচনা হয়েছে কি না, জানতে চাইলে আনিসুল হক নেতিবাচক জবাব দেন। অবশ্য টাস্কফোর্সের সঙ্গে যুক্ত একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ৩০ জুলাই রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় অনুষ্ঠিত টাস্কফোর্সের সভায় বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের ফেরত আনার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, রাশেদ চৌধুরীর বিষয়ে ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে ওয়াশিংটন সফরের সময় অনুরোধ জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। এর তিন মাস পর, অর্থাৎ ২৭ মে মার্কিন আইনি পরামর্শক সংস্থা স্কাডেন এলএলপিকে রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফেরত আনার কাজে যুক্ত করা হয়। সংস্থাটির পক্ষে মামলার তদারক করছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সাবেক আইনি পরামর্শক গ্রেগরি ক্রেইগ। ইতিমধ্যে গ্রেগরি ক্রেইগ ও স্কাডেন এলএলপিতে তাঁর সহকর্মীরা মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর, আইন দপ্তর, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি ও অভিবাসন দপ্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বেশ কয়েক দফা আলোচনা করেছেন। এরপর বিষয়টি নিয়ে তাঁরা বিস্তারিত আলোচনা করেছেন মার্কিন অ্যাটর্নি জন স্টুয়ার্ট ব্রুসের সঙ্গে।

রাশেদ চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে গত বছর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী মার্কিন আইন দপ্তরে অনুরোধ জানান। মার্কিন আইন দপ্তরের সঙ্গে আলোচনার প্রসঙ্গ টেনে স্কাডেন এলএলপি ঢাকায় জানিয়েছে, রাশেদ চৌধুরীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে যুক্তরাষ্ট্র ইতিবাচক মনোভাব দেখিয়েছে। গত জুনে পররাষ্ট্রসচিব মো. শহীদুল হক মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপসহকারী এবং যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক জ্যেষ্ঠ পরিচালক লিসা কার্টিসের সঙ্গে বৈঠকে রাশেদ চৌধুরীকে ফিরিয়ে দিতে পুনরায় অনুরোধ জানান।

প্রসঙ্গত, বেশ কয়েক দফা রাজনৈতিক আশ্রয় লাভে ব্যর্থ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের অন্যতম এ কে এম মহিউদ্দিনকে ২০০৭ সালের জুনে বাংলাদেশের অনুরোধে দেশে ফেরত পাঠিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র।

বার্লিনের একটি কূটনৈতিক সূত্র গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদককে জানায়, মোসলেম উদ্দিনের জার্মানিতে অবস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর তাঁকে দেশে ফেরানোর বিষয়ে সম্প্রতি সে দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

মোসলেম উদ্দিনকে ফেরানোর বিষয়ে জার্মানির সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে জানতে চাইলে গতকাল বার্লিনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমতিয়াজ আহমেদ কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

বঙ্গবন্ধুর অন্যতম খুনি শরিফুল হক ডালিম কখনো পাকিস্তানে, কখনো কেনিয়ায়, কখনো লিবিয়ায় আবার কখনো ইউরোপে—এমন নানা তথ্য সরকার পেলেও তা অসমর্থিত ছিল। সর্বশেষ স্পেনে তাঁর অবস্থান সম্পর্কে সরকার নিশ্চিত হয়েছে। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জনৈক মিজানুর রহমানের সহায়তায় এখন স্পেনেই আছেন শরিফুল হক ডালিম। এরপর তাঁকে ফিরিয়ে আনতে স্পেনের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে বাংলাদেশ।

শরিফুল হকের অবস্থান স্পেনে অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে গতকাল মাদ্রিদে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হাসান মাহমুদ খন্দকার কোনো মন্তব্য করতে অপারগতা জানান।

কানাডার মতো ইউরোপীয় ইউনিয়নের দুই সদস্যরাষ্ট্র জার্মানি ও স্পেনে মৃত্যুদণ্ড রহিত করা হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নূর চৌধুরীর রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন ২০০৭ সালে কানাডার উচ্চ আদালত খারিজ করে দিলেও তাঁর নিজের দেশে ফেরতের আগে ঝুঁকি মূল্যায়নের প্রক্রিয়া বা প্রি রিস্ক রিমুভাল অ্যাসেসমেন্ট (পিআরআরএ) এখনো শেষ হয়নি। এর মধ্যেই আইনি সংস্থা টরি এলএলপি বিষয়টি কানাডা সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। তাঁকে ফেরত পাঠাতে একটি টাস্কফোর্স বা কমিশন গঠনের বিষয়ে গত এপ্রিলে বাংলাদেশের তিন সদস্যের এক প্রতিনিধিদল কানাডায় আলোচনা করেছে। আগামী ডিসেম্বরে এ নিয়ে আবার দুই পক্ষের আলোচনার কথা রয়েছে।

ইসলামাবাদের একটি সূত্রে জানা গেছে, আবদুর রশীদ সর্বশেষ পাকিস্তানে আছেন, এ ব্যাপারে বিভিন্ন মহল থেকে তথ্য পেয়ে গত ডিসেম্বরে তাঁর সম্পর্কে জানতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছিল বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত ওই চিঠির কোনো জবাব দেয়নি পাকিস্তান। আর আবদুল মাজেদ সম্পর্কে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেশে অবস্থানের কথা শুনলেও এখনো তা নিশ্চিত করতে পারেনি বাংলাদেশ।

ফিরে দেখা

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবার নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। কিন্তু এ হত্যাকাণ্ডের বিচারে পদে পদে বাধা আসে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরপরই দায়মুক্তি (ইনডেমনিটি) অধ্যাদেশ জারি করা হয়। ২১ বছর পর ১৯৯৬ সালের ১২ নভেম্বর দায়মুক্তি আইন বাতিল করে আওয়ামী লীগ সরকার। ওই বছরের ২ অক্টোবর ধানমন্ডি থানায় বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিগত সহকারী মহিতুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন।

১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর তত্কালীন ঢাকার দায়রা জজ কাজী গোলাম রসুল ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়ে রায় দেন। নিম্ন আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের আপিল ও মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিতকরণের শুনানি শেষে ২০০০ সালের ১৪ ডিসেম্বর হাইকোর্ট দ্বিধাবিভক্ত রায় দেন। ২০০১ সালের ৩০ এপ্রিল হাইকোর্টের তৃতীয় বেঞ্চ ১২ আসামির মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে তিনজনকে খালাস দেন। এরপর ১২ আসামির মধ্যে প্রথমে চারজন ও পরে এক আসামি আপিল করেন। কিন্তু এরপর ছয় বছর আপিল শুনানি না হওয়ায় আটকে যায় বিচার-প্রক্রিয়া।

দীর্ঘ ছয় বছর পর বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে আপিল বিভাগে একজন বিচারপতি নিয়োগ দেওয়ার পর বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলাটি আবার গতি পায়। ২০০৭ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. তাফাজ্জাল ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পাঁচ আসামির লিভ টু আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন। আপিলের অনুমতির প্রায় দুই বছর পর ২০০৯ সালের অক্টোবরে শুনানি শুরু হয়। ২০০৯ সালের ১৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া পাঁচ আসামির আপিল খারিজ করেন। ফলে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের নৃশংসভাবে হত্যার দায়ে হাইকোর্টের দেওয়া ১২ খুনির মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল থাকে। এর মধ্য দিয়ে ১৩ বছর ধরে চলা এ মামলার বিচার-প্রক্রিয়া শেষ হলে দায়মুক্ত হয় বাংলাদেশ। ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মধ্যে সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশীদ খান, বজলুল হুদা, এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদ ও মুহিউদ্দিন আহমেদের ফাঁসি কার্যকর হয়। ওই রায় কার্যকরের আগেই ২০০২ সালে পলাতক অবস্থায় জিম্বাবুয়েতে মারা যান আসামি আজিজ পাশা। পলাতক বাকি ছয়জন হলেন খন্দকার আবদুর রশীদ, শরিফুল হক ডালিম, এস এইচ এম বি নূর চৌধুরী, এ এম রাশেদ চৌধুরী, আবদুল মাজেদ ও মোসলেম উদ্দিন। আসামিরা সবাই সাবেক সেনা কর্মকর্তা।

খুনিদের চাকরি হয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১৯৭৬ সালের ৮ জুন প্রকাশিত এক সরকারি প্রজ্ঞাপনের পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের সবাইকে বিভিন্ন দূতাবাসে নিয়োগ দেওয়া হয়। এর মধ্যে সৈয়দ ফারুক রহমান ও খন্দকার আবদুর রশীদ ছাড়া বাকিরা চাকরির প্রস্তাব গ্রহণ করেন।

নূর চৌধুরী ১৯৭৫ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ ছেড়ে পালিয়ে যান। ১৯৭৬ সালে তিনি ইরানের বাংলাদেশ দূতাবাসে দ্বিতীয় সচিব হিসেবে নিয়োগ পান। পরে আলজেরিয়া ও ব্রাজিলে বাংলাদেশ দূতাবাস এবং হংকংয়ের কনসুলেটে বদলি হন তিনি। ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি হংকংয়ে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল ছিলেন। ১৯৯৬ সালের জুনে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর তিনি কূটনৈতিক পাসপোর্ট ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যান। ওই বছরই তিনি কানাডায় গিয়ে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন। কানাডার রাজধানী টরন্টোর ১৩ কিলোমিটার দূরে ইটোবিকোকে তিনি এখন অবস্থান করছেন।

রাশেদ চৌধুরী ১৯৭৬ সালে জেদ্দায় বাংলাদেশ কনসুলেটে দ্বিতীয় সচিব হিসেবে নিয়োগ পান। পরে তিনি কেনিয়া, মালয়েশিয়া, জাপান ও ব্রাজিলে বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করেন। ১৯৯৬ সালের জুলাইয়ে তাঁকে চাকরি থেকে বাদ দেওয়া হয়। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তাঁকে ওই বছরের জুলাইয়ে দেশে ফেরার নির্দেশ দেওয়া হলে তিনি ব্রাজিলের সাও পাওলো থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো চলে যান।

১৯৭৬ সালে বেইজিংয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রথম সচিব হিসেবে নিয়োগ পান শরিফুল হক। ১৯৮২ সালে হংকংয়ের কনসুলেটে বদলি হয়ে সেখানে তিনি ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত কর্মরত ছিলেন। হংকং থেকে ওই বছরই তাঁকে কেনিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে বদলি করা হয় এবং ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তিনি ওই পদে দায়িত্ব পালন করেন।-প্রথম আলো।

Share This:

পাঠকের মতামতঃ

comments

এই পেইজের আরও খবর